প্রথম পাতা

বর্ষীয়ান আওয়ামী লীগ নেতা আ ন ম শফিক আর নেই

প্রকাশিত হয়েছে: ১৫-০৮-২০১৯ ইং ০২:৪৮:১৮ | সংবাদটি ১৪২ বার পঠিত

স্টাফ রিপোর্টার ঃ আওয়ামী লীগের জাতীয় পরিষদ সদস্য ও সিলেট জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সভাপতি বর্ষীয়ান রাজনীতিবিদ আ ন ম শফিকুল হক আর নেই।
গতকাল বুধবার বিকেল ৩টা ৩৮ মিনিটে তিনি নগরীর সোবহানীঘাটস্থ একটি বেসরকারি হাসপাতালে ইন্তেকাল করেন (ইন্নালিল্লাহি... রাজেউন)।
একযুগেরও অধিক সিলেট জেলা ও মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্বে থাকা পরিচ্ছন্ন রাজনীতিবিদ আ ন ম শফিকের মৃত্যুতে সিলেটের রাজনীতি ও সামাজিক অঙ্গনে শোকের ছায়া নেমে আসে। মৃত্যু সংবাদ শোনার পর তাঁর উপশহরের বাসায় রাজনীতিক নেতাকর্মী ও শুভানুধ্যায়ীরা ভীড় জমান।
তিনি দীর্ঘদিন ধরে দুরারোগ্য ক্যান্সার রোগে ভুগছিলেন। এর আগে তিনি ভারতে গিয়ে লিভার ট্রান্সপ্ল্যান্ট করে এসেছিলেন। মৃত্যুকালে তাঁর বয়স হয়েছিলো ৭৪ বছর। তিনি স্ত্রী, ২ পুত্র ও ৩ কন্যাসহ অসংখ্য রাজনীতিক কর্মী , গুণগ্রাহী ও আত্মীয়স্বজন রেখে গেছেন।
পারিবারিক সূত্র জানায়, মরহুমের প্রথম নামাজে জানাজা আজ বৃহস্পতিবার বাদ জোহর গ্রামের বাড়ি সিলেটের বিশ্বনাথ উপজেলার দৌলতপুর ইউনিয়নের মৌলভীরগাঁও ঈদগাহ মাঠে অনুষ্ঠিত হবে। বিকাল ৩টায় শেষ শ্রদ্ধা জানাতে সিলেট কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে তাঁর লাশ নেয়া হবে। সেখান থেকে বাদ আসর দরগাহে হযরত শাহজালাল (রহ:) মাজার মসজিদে মরহুমের দ্বিতীয় নামাজে জানাজা শেষে তাঁকে দরগাহে হযরত শাহজালাল (রহ:) মাজার সংলগ্ন কবরস্থানে দাফন করা হবে।
আ ন ম শফিক ১৯৬৫ সালে সিলেট জেলা ছাত্রলীগের সদস্য হিসেবে রাজনীতিতে পা রাখেন। ১৯৬৯ সালের গণ-অভ্যুত্থানে সক্রিয় ভূমিকা রাখেন। ১৯৭০ সালে অনুষ্ঠিত সাধারণ নির্বাচনে জনমত গঠনে ঝাঁপিয়ে পড়েছিলেন। ১৯৭১ সালের ২৬ মার্চ জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নির্দেশে মুক্তিযুদ্ধের সংগঠক হিসেবে কাজ করেছেন।
১৯৭৫ সালের ১৫ই আগস্টের কালো রাতে জাতির জনক বঙ্গবন্ধুকে সপরিবারে হত্যার পর আ ন ম শফিকুল হক প্রতিবাদ-প্রতিরোধ আন্দোলনে ঝাঁপিয়ে পড়েন। খন্দকার মোশতাক, মেজর জেনারেল জিয়াউর রহমান, জেনারেল এরশাদ এবং বেগম খালেদা জিয়ার শাসনামলে আন্দোলনে ১৫ দল, ৮ দল ও ১৪ দলে সিলেট জেলা আওয়ামী লীগের প্রতিনিধিত্ব করেন এবং সক্রিয় ভূমিকা রাখেন।
তিনি ২০০৬ সালে ১/১১ এর সময় সেনা সমর্থিত সরকারের বিরুদ্ধে জনমত গড়ার পাশাপাশি আন্দোলন চালিয়ে যান। প্রায় ১০ বছর সিলেট জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি এবং ১৬ বছর সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করেন। ১৯৮৪ সালে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হন। সাধারণ সম্পাদক থাকাকালে ১৯৮৬ সাল, ১৯৯১ সাল, ১৯৯৬ সাল এবং ২০০১ সালের সাধারণ নির্বাচনে জাতীয় সংসদের দলের মনোনয়ন চেয়েছিলেন।
এক সময় শিক্ষকতা পেশা দিয়ে জীবন শুরু করেছিলেন সিলেটের বিশ্বনাথ উপজেলার দৌলতপুর ইউনিয়নের মৌলভীরগাঁও এর বাসিন্দা আ ন ম শফিকুল হক। ছাত্রলীগের রাজনীতি দিয়েই তাঁর শুরু হয়েছিল রাজনীতির পাঠ। তাই বেশিদিন আর শিক্ষকতা করা হয়নি। রাজনীতিতেই পুরো সঁপে দেন নিজেকে। এককালে সাংবাদিকতাও করেছেন। ষাটের দশকে সাপ্তাহিক বাংলার বাণী, ১৯৭৫ পরবর্তী সময়ে সাপ্তাহিক খবর ও সাপ্তাহিক সমাচারসহ বিভিন্ন সংবাদপত্রে সিলেট বিভাগীয় প্রতিনিধির দায়িত্ব পালন করেন। আওয়ামী লীগের বিভিন্ন দু:সময়ে সিলেটে তিনি ছিলেন কান্ডারী। সর্বশেষ তিনি আওয়ামী লীগের জাতীয় পরিষদের সদস্য নির্বাচিত হন। জেলা আওয়ামী লীগের বর্তমান কমিটির কার্যনির্বাহী সদস্যও ছিলেন।

শেয়ার করুন
প্রথম পাতা এর আরো সংবাদ
  • ছবি
  • লুৎফুর-নাসির জেলার এবং মাসুক-জাকির মহানগর আ.লীগের নেতৃত্বে
  • খালেদার জামিন শুনানি এজলাস কক্ষে নজিরবিহীন হট্টগোল
  • টেন্ডারবাজ, চাঁদাবাজ ও সন্ত্রাসীদের কঠোর বার্তা
  • পররাষ্ট্রমন্ত্রীর অভিনন্দন
  • ‘মুশতাককে গণপিটুনি দিয়ে মঞ্চ থেকে বের করে দেই’
  • সিলেটের বিভিন্ন অঞ্চল মুক্ত দিবস আজ
  • প্রতিবন্ধীদের সম্পর্কে ‘নেতিবাচক মানসিকতা’ পরিহার করুন : প্রধানমন্ত্রী
  • বিজয়ের মাস
  • বিশ্ব ইজতেমার ১ম পর্ব শুরু ১০ জানুয়ারি
  • এসকে সিনহাসহ ১১ জনের বিরুদ্ধে চার্জশিট
  • বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকী কাউন্টডাউন শুরু ১০ জানুয়ারি
  • খালেদা জিয়া সন্ত্রাসীদের গডমাদার : প্রধানমন্ত্রী
  • বিজয়ের মাস
  • মঞ্চ নৌকার আদলে ॥ পদ-প্রত্যাশীরা তাকিয়ে সভানেত্রীর দিকে
  • আন্দোলনের সমাপ্তি, ক্লাসে ফিরছে বুয়েট শিক্ষার্থীরা
  • কুলাউড়ায় চিরনিদ্রায় শায়িত ভাষাসৈনিক রওশন আরা
  • বিজয়ের মাস
  • দক্ষিণ সুরমায় সংঘর্ষে আহত যুবকের মৃত্যু
  • প্রধানমন্ত্রী দেশে ফিরেছেন
  • Developed by: Sparkle IT