শেষের পাতা

আদালত থেকে ডিএনএ টেস্টের নির্দেশ দোয়ারাবাজারে সন্তান জন্মের ৫ বছর পর পিতৃপরিচয় নিয়ে তুলকালাম

প্রকাশিত হয়েছে: ২৩-০৮-২০১৯ ইং ০৪:৫৮:৫৩ | সংবাদটি ২৫০ বার পঠিত

দোয়ারাবাজার (সুনামগঞ্জ) থেকে নিজস্ব সংবাদদাতা : দোয়ারাবাজারে সন্তান জন্মের ৫ বছর পর শিশুর পিতৃপরিচয় নিয়ে শুরু হয়েছে তুলকালাম কান্ড। এ ঘটনায় ধূ¤্রজালের সৃষ্টি হলে বিষয়টি শেষমেষ আদালত পর্যন্ত গড়িয়েছে। আদালত পুলিশকে ডিএনএ টেস্টের নির্দেশ দিয়েছেন। পুলিশ ও সংশ্লিষ্ট সূত্র বিষয়টি নিশ্চিত করেছে।
জানা যায়, দোয়ারাবাজার উপজেলার সুরমা ইউনিয়নে জনৈক বুদ্ধিপ্রতিবন্ধী মেয়ে পর পুরুষের লালসার শিকার হয়ে গর্ভবতী হয়ে পড়েন। বিষয়টি জানাজানি হলে পঞ্চায়েতের লোকজন মেয়ের পরিবারের কথা অনুযায়ী ৫ মাসের অন্ত:সত্ত্বা অবস্থায় (২০১৪ সালের ২০ সেপ্টেম্বর) একই গ্রামের মিন্টু মিয়ার পুত্র জাকির মিয়ার সাথে তার বিয়ে দেন। বিয়ের পর থেকেই জাকির প্রতিবন্ধী মেয়েকে স্ত্রী হিসেবে মেনে নিতে রাজি হননি। প্রতিবন্ধী মেয়েটি তার নিকটাত্মীয় বলে বিষয়টি ধামাচাপা দেয়ায় উদ্দেশ্যে জাকির বাড়ি থেকে চলে যান। ৫ মাস পর প্রতিবন্ধী মেয়েটি একটি কন্যাসন্তান প্রসব করে। এ সময় জাকিরকে পিতা পরিচয় দিয়ে কন্যা সন্তানটির জন্ম নিবন্ধন তৈরী করা হয়।
কিন্তÍ, তখনো মূল ঘটনা আড়ালেই থেকে যায়। স্বামী হিসাবে জাকিরের সাথে প্রতিবন্ধী মেয়েটির সংসার করাটা গ্রহণযোগ্য না হলে বিয়ের ৫ বছরের মাথায় সন্তানের পিতৃ পরিচয় নিয়ে সমাজে মুখ খুলেন এ প্রতিবন্ধী মেয়ে। স্থানীয় সালিশ বৈঠকে এ নারী অভিযোগ করেন, ওই সন্তানের পিতা জাকির নয়, শিশুটির পিতা একই গ্রামের হাবিবুর রহমানের পুত্র মাহবুব বলে দাবী করেন। প্রতিবন্ধী মেয়েটির পরিবার নিরীহ বিধায় মূল ঘটনাকারী ও তার আত্মীয়স্বজনের প্ররোচনায় এবং স্থানীয় মোড়লদের চাপে পড়ে বিষয়টি আড়াল করতে বাধ্য করা হয়। তখন জাকিরের ওপর দায়ভার চাপিয়ে জোরপূর্বক তাকে বিয়ে করতে বাধ্য করা হয় বলে জানানো হয়।
বিয়ের ৫ বছর পর খোদ সন্তানের জননীর মুখ থেকে ঘটনার মূল রহস্য বেরিয়ে আসায় এ নিয়ে আরো জটিলতার সৃষ্টি হয়। এ ব্যাপারে স্থানীয়ভাবে একাধিকবার সালিশ বসলেও মাহবুব ও তার পরিবার ৫ বছর পর সন্তানের পিতার দাবিটি অযৌক্তিক ও উদ্দেশ্য প্রণোদিত বলে মন্তব্য করে। অপরদিকে মাহবুবের পরিবার প্রভাবশালী বিধায় প্রতিবন্ধী হতদরিদ্র পরিবারকে একঘরে করে রাখাসহ নানা ভয়ভীতি প্রদর্শন করার অভিযোগ পাওয়া যায়।
স্থানীয় সালিশপক্ষ বিষয়টি সমাধান দিতে ব্যর্থ হলে অবশেষে প্রতিবন্ধী মেয়ের বাবা আদালতের দ্বারস্থ হতে বাধ্য হন। গত ১৩ জুন নারী ও শিশু নির্যাতন আইন ২০০০ এর (সংশোধিত) ৯ (১) ও ১৫ ধারায় সন্তানের পিতৃ পরিচয়ের দাবীত একই গ্রামের হাবিবুর রহমানের পুত্র মাহবুবকে প্রধান আসামী করে দুইজনের বিরুদ্ধে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্্রাইব্যুনাল, সুনামগঞ্জ বরাবরে মামলা দায়ের হয়। মামলা নং- (নং-২২৮/২০১৯)। সম্প্রতি আদালত সন্তানসহ অভিযুক্ত মাহবুব ও জাকিরের ডিএনএ টেস্টের নির্দেশ দেন দোয়ারাবাজার থানা পুলিশকে। পুলিশ উভয়ের ডিএনএ টেস্টের প্রস্তুতি নিলে মাহবুব এলাকা ছেড়ে গা ঢাকা দেয়।
দোয়ারাবাজার থানার অফিসার ইনচার্জ আবুল হাসেম এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

শেয়ার করুন
শেষের পাতা এর আরো সংবাদ
  • মানবকল্যাণমূলক শিক্ষাই প্রকৃত শিক্ষা
  • সম্মিলিত নাট্য পরিষদের একুশের অনুষ্ঠান ভোরে একুশের প্রভাতফেরী
  • রাগীব রাবেয়া মেডিকেল কলেজে বঙ্গবন্ধু’র মুর‌্যাল উদ্বোধন কাল
  • কোম্পানীগঞ্জের ১১৭ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে শহীদ মিনার নেই
  • ২৫ ফেব্রুয়ারী থেকে দেশের অধিকাংশ এলাকায় বৃষ্টিপাতের সম্ভাবনা রয়েছে
  • দক্ষিণ সুনামগঞ্জের কাউয়াজুরী হাওরের ৬ টি ভাঙ্গা অরক্ষিত ১০ হাজার হেক্টর বোরো ফসল হুমকিতে
  • মৌলভীবাজারে ৬৬৬টি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে শহীদ মিনার নেই
  • সলুকাবাদ ইউপির চেয়ারম্যান পদে উপ-নির্বাচন ২৯ মার্চ
  • কোরআন সত্য ও সুন্দরের পথ দেখায় ------শাহ নজরুল ইসলাম
  • সোমবারের মধ্যে ১০০০ কোটি টাকা দিতে হবে গ্রামীণফোনকে
  • একুশে পদক হস্তান্তর করলেন প্রধানমন্ত্রী
  • সিলেট বোর্ডে গতকালের পরীক্ষায় অনুপস্থিত ৩৩৮ পরীক্ষার্থী
  • ছাতকে দ্বিতীয় শ্রেণীর ছাত্রী ও নবীগঞ্জে নারীর মৃত্যু
  • জকিগঞ্জে লক্ষাধিক ভারতীয় রুপিসহ ৩ সহোদর আটক কারাগারে প্রেরণ
  • দোয়ারাবাজারে ২৪ ঘন্টায় দু’টি লাশ !
  • বালাগঞ্জে ভূমি নিয়ে সংঘর্ষ ॥ আহত ৪
  • রাজনগরে মাদ্রাসা শিক্ষক অজ্ঞান পার্টির খপ্পড়ে তিন লাখ টাকা লুট
  • ছবি
  • মাঝ আকাশে দুই বিমানের সংঘর্ষ, নিহত ৪
  • ১০০ কোটি দিতে চাইলো গ্রামীণফোন ফিরিয়ে দিলো বিটিআরসি
  • Developed by: Sparkle IT