প্রথম পাতা

ধর্মীয় ভাবগাম্ভীর্যপূর্ণ পরিবেশে সিলেটে জন্মাষ্টমী উদযাপিত

স্টাফ রিপোর্টার প্রকাশিত হয়েছে: ২৪-০৮-২০১৯ ইং ০৩:২০:০৮ | সংবাদটি ৭০ বার পঠিত

যথাযথ ধর্মীয় ভাবগাম্ভীর্য ও আনন্দ-উৎসবের মধ্যদিয়ে গতকাল শুক্রবার সিলেটে সনাতন ধর্মাবলম্বীদের জন্মাষ্টমী উদযাপিত হয়েছে।
হিন্দু পুরাণ মতে, ভাদ্র মাসের শুক্লাপক্ষের অষ্টম তিথিতে ভগবান শ্রীকৃষ্ণ আবির্ভূত হন। সনাতন ধর্মালম্বীদের বিশ্বাস, পাশবিক শক্তি যখন ন্যায়নীতি, সত্য ও সুন্দরকে গ্রাস করতে উদ্যত হয়েছিল, তখন সে-শক্তিকে দমন করে মানবজাতির কল্যাণ এবং ন্যায়নীতি প্রতিষ্ঠার জন্য মহাবতার ভগবান শ্রীকৃষ্ণের আবির্ভাব ঘটেছিল।
‘শ্রীকৃষ্ণ’ ভক্তদের বিশ্বাস, দুষ্টের দমন করতে যুগে-যুগে এভাবেই ভগবান ধরাধামে বা পৃথিবীতে আবির্ভূত হন এবং সত্য ও সুন্দরকে প্রতিষ্ঠা করেন।
এ উপলক্ষে সিলেটে সনাতন ধর্মাবলম্বীদের উদ্যোগে বিভিন্ন সামাজিক, সাংস্কৃতিক ও ধর্মীয় সংগঠন সকালে বর্ণাঢ্য শোভাযাত্রা, আলোচনা সভা, পূজা অর্চনা, প্রসাদ বিতরণ ও নানা আনুষ্ঠানিকতার মধ্য দিয়ে দিবসটি উদযাপন করে।
এছাড়া, দেশ ও জাতির মঙ্গল কামনায় গীতাযজ্ঞ এবং উৎসবমুখর পরিবেশে শোভাযাত্রা অনুষ্ঠিত হয়।
সার্বজনীন জন্মাষ্টমী উদ্যাপন পরিষদ, সিলেট ঃ সিলেট রামকৃষ্ণ মিশনের সম্পাদক স্বামী চন্দ্রনাথান্দজী মহারাজ বলেছেন, ভগবান শ্রীকৃষ্ণ পৃথিবী থেকে দুরাচার দুষ্টদের দমন আর সজ্জনদের রক্ষার জন্যই মহাবতাররূপে স্বর্গ থেকে পৃথিবীতে আবির্ভূত হন। ধর্মগ্রন্থ পবিত্র গীতা সেই সাক্ষ্য দেয়। সনাতন ধর্মালম্বীদের বিশ্বাস, পাশবিক শক্তি যখন ন্যায়নীতি, সত্য ও সুন্দরকে গ্রাস করতে উদ্যত হয়েছিল, তখন সেই শক্তিকে দমন করে মানবজাতির কল্যাণ এবং ন্যায়নীতি প্রতিষ্ঠার জন্য মহাবতার ভগবান শ্রীকৃষ্ণের আবির্ভাব ঘটে। ঈশ্বরের দূত বা অংশ হিসেবে মানব জাতিকে উদ্ধারের জন্য যেসব মহামানব যুগে যুগে অবতীর্ণ হন তাদেরকে অবতার বলা হয়।
তিনি গতকাল শুক্রবার সকাল ১১টায় মণিপুরি রাজবাড়িস্থ শ্রী শ্রী লোকনাথ ব্রহ্মচারী মন্দির আশ্রম প্রাঙ্গনে সনাতন হিন্দুধর্মের প্রাণপুরুষ পার্থসারথি ভগবান শ্রীকৃষ্ণের পূত আবির্ভাব স্মরণে সার্বজনীন জন্মাষ্টমী উদ্যাপন পরিষদ সিলেট আয়োজিত দু’দিন ব্যাপী সার্বজনীন জন্মাষ্টমী উৎসবে প্রধান অতিথির বক্তব্যে উপরোক্ত কথাগুলো বলেন।
সার্বজনীন জন্মাষ্টমী উদযাপন পরিষদের আহ্বায়ক বিরাজ মাধব চক্রবর্তী মানসের সভাপতিত্বে ও বিজয় কৃষ্ণ বিশ্বাসের সঞ্চালনায় বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন, ভারতীয় হাই কমিশনার সিলেট অফিসের সেকেন্ড সেক্রেটারী গিরিশ পূজারী ও মিসেস যমুনা পূজারী, বিজিত কুমার দে, শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেন সার্বজনীন জন্মাষ্টমী উদযাপন পরিষদের সদস্য সচিব সুব্রত দেব। স্বাগত বক্তব্য রাখেন বীরেন্দ্র সূত্রধর।
অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন রঞ্জন ঘোষ, প্রদীপ দেব, গোপিকা শ্যাম পুরকায়স্থ, চন্দন সাহা, রজত কান্তি ভট্টাচার্য্য, মৃত্যুঞ্জয় ধর ভোলা, নির্মল কুমার সিনহা, রজত কান্তি গুপ্ত, কৃষ্ণপদ সুর্তীব।
অনুষ্ঠান শেষে চিত্রাংকন, কীর্তণ ও পবিত্র গীতা পাঠ প্রতিযোগিতায় বিজয়ীদের মাঝে পুরস্কার বিতরণ করেন অতিথিবৃন্দ।
শ্রী শ্রী বলরাম জিউ আখড়া ঃ সিলেট সিটি কর্পোরেশনের মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী বলেছেন, সিলেট সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির উজ্জ্বল দৃষ্টান্ত। সিলেটের সকল ধর্মের মানুষ শান্তিপূর্ণভাবে তাদের নিজ নিজ ধর্মানুষ্ঠান পালন করে থাকেন। তিনি শ্রীকৃষ্ণের জন্মাষ্টমীতে উপস্থিত সকল ভক্তবৃন্দকে শুভেচ্ছা জানান।
গতকাল শুক্রবার শ্রী শ্রী বলরাম জিউ আখড়া মিরাবাজারে পার্থসারথি ভগবান শ্রীকৃষ্ণের শুভ জন্মাষ্টমী উপলক্ষে ‘শ্রীকৃষ্ণ ভক্তবৃন্দ সম্মিলিত জন্মাষ্টমী উদযাপন পরিষদ, সিলেট আয়োজিত জন্মাষ্টমী অনুষ্ঠান উদ্বোধনকালে প্রধান অতিথি হিসেবে তিনি এসব কথা বলেন।
সকাল ১০টায় শ্রীকৃষ্ণের প্রতিকৃতিসহ এক শোভাযাত্রা শহরের গুরুত্বপূর্ণ সড়ক প্রদক্ষিণ করে পুনরায় শ্রীশ্রীবলরাম জিউর আখড়ায় এসে মিলিত হয়। দুপুর ১২টা হতে দিনব্যাপী অনুষ্ঠানমালার মধ্যে ছিল ধর্মীয় আলোচনা, শিশু-কিশোরদের মধ্যে ধর্মীয় কুইজ প্রতিযোগিতা, জন্মাষ্টমী উপলক্ষে প্রকাশিত ম্যাগাজিন ‘সারথি’র মোড়ক উন্মোচন, দরিদ্র ও মেধাবী ছাত্রদের মধ্যে বৃত্তি প্রদান। অনুষ্ঠানে ধর্ম ও সমাজ সেবায় অবদানের স্বীকৃতি স্বরূপ শ্রীমা সারদা সংঘ সিলেটের সম্পাদিকা বিথীকা দত্ত সম্মাননা স্মারকে ভূষিত করা হয়। এছাড়া, সমাজ সেবায় অবদানের জন্য রঙ্গ লাল বিশ্বাস, বীর মুক্তিযোদ্ধা সুখময় বিশ্বাস যাদব, বীর মুক্তিযোদ্ধা ময়না সরকার ও পুলিন সরকারকে সম্মাননা স্মারক প্রদান করা হয়।
পরিষদের সভাপতি প্রভাত চন্দ্র রায়ের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানটি যৌথভাবে পরিচালনা করেন মহিম বিশ্বাস ও অরুণ কুমার বিশ্বাস এবং স্বাগত বক্তব্য রাখেন সদস্য সচিব প্রাণেশ লাল বিশ্বাস।
আলোচনা সভার প্রধান অতিথি ছিলেন, বাংলাদেশ সুপ্রীম কোর্টের সিনিয়র আইনজীবী ও বাংলাদেশ ক্যাশপ কল্যাণ পরিষদ কেন্দ্রীয় কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদক এডভোকেট মিন্টু কুমার মন্ডল, বিশেষ অতিথি ছিলেন সুসেন্দ্র চন্দ্র নমঃ (খোকন), প্রণব কুমার দেবনাথ, চন্দন দাস, পুলিন রায়, নিরঞ্জন চন্দ চন্দ্র, অজিত রায় ভজন, শীলা চৌধুরী, শ্বাসতী পাল সোমা, জ্যোতি মোহন বিশ্বাস, ধনঞ্জয় দাস ধনু, সিলেট বিভাগীয় ফটো জার্নালিস্ট এসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক শংকর দাস।
বক্তব্য রাখেন, ডা. হিরন মোহন বিশ্বাস, ললিত মোহন বিশ্বাস, পাচু মোহন বিশ্বাস, ডা. বিমল কান্ত সরকার, অনিল বিশ্বাস, নিরেশ বিশ্বাস, অধ্যাপক সত্যরঞ্জন বিশ্বাস, তপন দাস, সবুজ কুমার বিশ্বাস, কাজল সরকার, কার্তিক বিশ্বাস, বিজিত সরকার, রাখাল সরকার, দিপন রায়, স্বপন ভৌমিক, মনোরঞ্জন বিশ্বাস, কাজল রায়, সত্যরঞ্জন বিশ্বাস, পারুল বিশ্বাস, জনি রায়, চরিত্রবান সমাজপতি, কবিতা সরকার, বাসন্তি নন্দী, সিবানী দাস, প্রদীপ সরকার, মিন্টু বিশ্বাস প্রমুখ।
ইসকন সিলেট ঃ শ্রীকৃষ্ণের শুভ আবির্ভাব তিথি উপলক্ষে শুক্রবার ইসকন সিলেটের উদ্যোগে এক বর্ণাঢ্য শোভাযাত্রা নগরীর প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ করে। এছাড়া, জন্মাষ্টমী উপলক্ষে ইসকন সিলেট মন্দিরে তিন দিনব্যাপি নানা রকম কর্মসূচি গ্রহণ করা হয়েছে। কর্মসূচির মধ্যে রয়েছে, শনিবার সকাল ১০ টা থেকে বিকাল ৪টা পর্যন্ত কীর্তণমেলা, সন্ধ্যা ৭টায় শ্রী শ্রী গৌরসুন্দরের আরতি, রাত সাড়ে ৭ টায় সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান, রাত ১০ টায় মহাঅভিষেক অনুষ্ঠান, রাত সাড়ে ১২ টায় অনুকল্প প্রসাদ বিতরণ ।
রোববার নন্দোৎসব ও ইসকন প্রতিষ্ঠাতা আচার্য শ্রীল প্রভুপাদের ১২৩তম শুভ আবির্ভাব তিথি মহোৎসব ।
এ উপলক্ষে দুপুর পর্যন্ত উপবাস। এছাড়া, বেলা ১১ টায় শ্রীল প্রভুপাদের অভিষেক অনুষ্ঠান, দুপুর ১টায় শ্রীল প্রভুপাদের মহিমা কীর্তন, দুপুর ১.৪৫ মিনিটে শ্রীল প্রভুপাদের চরণকমলে সহস্্র লাল গোলাপ নিবেদন, দুপুর ২ টায় মহাপ্রসাদ বিতরণ, বেলা ৩ টায় অফারিং সেটার পাঠ, সন্ধ্যা ৭ টায় গৌরসুন্দরের আরতি, রাত সাড়ে ৭ টায় শ্রীল প্রভুপাদ কথামৃত, রাত ৮.৪৫মি: শ্রীল প্রভুপাদের উদ্দেশ্যে ১২৩ পাউন্ড ওজনের কেক নিবেদন, রাত ৯ টায় সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান ।
সিলেটে জন্মষ্টমী উপলক্ষে ৩ দিনব্যাপী কর্মসূচি সফল করতে সকলের সহযোগিতা কামনা করেছেন ইসকন বাংলাদেশের সহ-সভাপতি ও ইসকন সিলেটের অধ্যক্ষ শ্রীমৎ ভক্তি অদ্বৈত নবদ্বীপ স্বামী মহারাজ।
মণিপুরী জন্মাষ্টমী উদযাপন পরিষদ সিলেট বিভাগ ঃ সিলেট সিটি কর্পোরেশনের মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী বলেছেন, ন্যায় প্রতিষ্ঠার জন্য দেশ ও জাতির মঙ্গলার্থে প্রত্যেককে নিজ নিজ ধর্ম ও জীবন দর্শনের চর্চা করতে হবে। দুষ্টের দমন ও শিষ্টের পালনের জন্য যুগ যুগ ধরে এ ধরাধামে বিভিন্ন অবতারের আগমন ঘটেছে। বাংলাদেশ সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির দেশ। এই দেশে সকল ধর্মের মানুষ একসাথে বাস করি। আমাদের এই ঐক্য কোনো অপশক্তির দ্বারা যাতে নষ্ট না হয় সে জন্য সকলকে সজাগ থাকতে হবে বলে মন্তব্য করেন তিনি।
মণিপুরী জন্মাষ্টমী উদযাপন পরিষদ সিলেট বিভাগ’র উদ্যোগে গতকাল শুক্রবার রাত ৮টায় আয়োজিত আলোচনা সভায় তিনি প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি একথা বলেন।
মণিপুরী জন্মাষ্টমী উদযাপন পরিষদ সিলেট বিভাগ’র সভাপতি মনিসেনা সিংহের সভাপতিত্বে মুখ্য আলোচক হিসেবে ছিলেন শাবি’র ইংরেজি বিভাগের বিভাগীয় প্রধান প্রফেসর ড. হিমাদ্রী শেখর রায়। বিশেষ অতিথি হিসেবে ছিলেন মণিপুরী সমাজ কল্যাণ সমিতির কেন্দ্রীয় সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা আনন্দ মোহন সিংহ।
এর আগে সকালে নগর পরিক্রমা উদ্বোধন করেন সিলেট জেলা পরিষদের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা দেবজিৎ সিংহ।
জন্মাষ্টমী উদযাপন পরিষদের সাংগঠনিক সম্পাদক সাংবাদিক সুনীল সিংহ ও সাথী সিনহার পরিচালনায় স্বাগত বক্তব্য রাখেন জন্মাষ্টমী উদ্বযাপন পরিষদের সাধারণ সম্পাদক মন্টুরাজ সিংহ। বক্তব্য রাখেন মণিপুরী সমাজকল্যাণ সমিতির কেন্দ্রীয় সিনিয়র সহ সভাপতি স্বপন কুমার সিংহ, সিলেট এমএজি ওসমানী মেডিকেল কলেজ এর রেডিওলজী বিভাগের সহকারী অধ্যাপক ও মণিপুরী ডক্টরস্ এসোসিয়েসনের সভাপতি ডা. পরেশ চন্দ্র সিংহ, পরিষদের সাবেক সাধারণ সম্পাদক প্রসন্ন কুমার সিংহ, নির্মল কুমার সিংহ, দিপাল কুমার সিংহ, জীতেন বাবু সিংহ, মণিপুরী সামাজ কল্যাণ সমিতি মাছিমপুর শাখার সাধারণ সম্পাদক ধীরেন্দ্র কুমার সিংহ, মাছিমপুর যুব সংঘের সভাপতি সুমন সিংহ, সাধারণ সম্পাদক বিপ্লব সিংহ, মণিপুরী ছাত্র পরিষদ সিলেট মহানগর শাখার সভাপতি নির্ঝর সিংহ।
আলোচনা সভা শেষে রাত ১০টায় মণিপুরী থিয়েটারের পরিবেশনায় নাটক ‘শ্রীকৃষ্ণ কীর্তণ’ পরিবেশিত হয়। শ্রীকৃষ্ণ কীর্তন শেষে রাত ১২টা ১ মিনিটে ভগবান শ্রীকৃষ্ণের আবির্ভাব স্মরণে দেবালয়ে শঙ্খধ্বনি-উলুধ্বনি ও বিশেষ পূজা, আরতি ও প্রসাদ বিতরণ করা হয়।
মণিপুরী জন্মাষ্টমী উদযাপন পরিষদ সিলেট বিভাগ’র উদ্যোগে ভগবান শ্রীকৃষ্ণের জন্মাষ্টমী উপলক্ষে গতকাল দিনব্যাপী ব্যাপক কর্মসূচী পালন করা হয়। কর্মসূচীর মধ্যে ছিল সকালে নগরীর মাছিমপুরস্থ গোপীনাথ জিউর আখড়া প্রাঙ্গণ থেকে শ্রীকৃষ্ণের বাল্যরূপসহ নগর পরিক্রমা, নগর পরিক্রমা শেষে নগরীর মাছিমপুরস্থ শ্রী শ্রী গোপীনাথ জিউর মন্দিরে পবিত্র গীতা পাঠ অনুষ্ঠিত হয়। পাঠ করেন যজ্ঞপতি বাচস্পতি ব্রজ কিশোর পন্ডিত রায় মোহন সিংহ ও রমেন সিংহ। বেলা ২ টায় মহাপ্রসাদ বিতরণ, বিকেল ৩ টায় কুইজ প্রতিযোগিতা।
দক্ষিণ সুরমা উপজেলা ও সিলেট সিটি কর্পোরেশনের ২৫, ২৬ ও ২৭নং ওয়ার্ড ঃ সিলেট সিটি কর্পোরেশনের মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী বলেছেন, প্রতিটি ধর্মই মানবতার কল্যাণের জন্য। বাংলাদেশের আধ্যাত্মিক নগরী সিলেট একটি অসাম্প্রদায়িক নগরী। অতীত ঐতিহ্য ধারণ করে সর্বধর্মের মানুষ এখানে শান্তিপূর্ণভাবে নিজ নিজ ধর্মীয় অনুষ্ঠানাদি শান্তিপূর্ণভাবে পালন করে।
পার্থসারথী ভগবান শ্রীকৃষ্ণের আবির্ভাব তিথি উপলক্ষে দক্ষিণ সুরমা উপজেলা ও সিলেট সিটি কর্পোরেশনের ২৫, ২৬ ও ২৭নং ওয়ার্ডের যৌথ আয়োজনে শিববাড়িস্থ শিবমন্দিরে অনুষ্ঠিত আলোচনা ও নগর পরিক্রমার উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি একথা বলেন।
বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন সিটি কাউন্সিলর আযম খান, প্যানেল মেয়র রোকশানা বেগম শাহনাজ, শিববাড়ি মন্দির পরিচালনা কমিটির সভাপতি এডভোকেট প্রতাপ চন্দ্র নাথ, সাধারণ সম্পাদক সরকারি আইন কর্মকর্তা এডভোকেট বিপ্লব কান্তি দে মাধব, পূজা উদযাপন পরিষদ মহানগর শাখার সহ-সভাপতি প্রদীপ কুমার দে, অরিন্দম দাস হাবলু, গীতা শিক্ষাকেন্দ্র সিলেটের সভাপতি মালা রানী দে, মোগলাবাজার থানার সহকারী পুলিশ কমিশনার পলাশ রঞ্জন দে, ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আখতার হোসেন, ঝন্টু কুমার দেব, মানিক লাল ধর, মিন্টু দাস, ধনঞ্জয় দাস ধনু, ২৭নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সয়েফ খান, জনার্দন চক্রবর্তী মিন্টু, পূজা ভট্টাচার্য্য, রাজ কুমার পাল রাজু, বিরেশ কর ময়না, দীন নাথ চন্দ লিপ্টু, রিপন পাল, নন্দন পাল, রিপন বৈদ্য, বাবলু দাস, সঙ্কু দাস, সীমান্ত কর, সুবল দেব নাথ, পরেশ দেব নাথ।
সভা পরিচালনা করেন দক্ষিণ সুরমার জন্মাষ্টমী উদযাপন পরিষদ সাধারণ সম্পাদক কাজল ঘোষ ও অপন দাস।
বিশ্বনাথ: বিশ্বনাথ (সিলেট) থেকে নিজস্ব সংবাদদাতা জানান, বর্ণাঢ্য আয়োজনের মধ্য দিয়ে বিশ্বনাথে পালন করা হয়েছে পার্থ সারথী ভগবান শ্রীকৃষ্ণের জন্মাষ্টমী। এ উপলক্ষে উপজেলা শ্রীশ্রী কৃষ্ণের জন্মাষ্টমী উদযাপন পরিষদের উদ্যোগে আলোচনা সভা ও শোভাযাত্রা আয়োজনের পাশাপাশি বিতরণ করা হয়েছে প্রসাদ। উপজেলা পরিষদ প্রাঙ্গনে গতকাল শুক্রবার সকাল ১০টায় আলোচনা সভার মাধ্যমে শুরু হয় জন্মাষ্টমী পালনের কার্যক্রম। আলোচনা সভা শেষে একই স্থান থেকে শোভাযাত্রা শুরু হয়ে উপজেলার প্রধান প্রধান সড়কগুলো প্রদক্ষিণ করে সওজের ডাকবাংলা প্রাঙ্গনে এসে শেষ হয়।
শোভাযাত্রা পূর্বে আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও স্থানীয় সাবেক এমপি আলহাজ্ব শফিকুর রহমান চৌধুরী। সভায় বক্তারা বলেন, শ্রীকৃষ্ণের ‘জন্ম ও কর্ম’ থেকে শিক্ষার্জন করে আমাদেরকে মানবতার কল্যাণে ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করতে হবে। বাংলাদেশের মাটি ও মানুষের উন্নয়নে কাজ করাই বাঙালী হিসেবে আমাদের প্রধান দায়িত্ব ও কর্তব্য। ‘ধর্ম যার যার আর রাষ্ট্র সবার’ নীতি বাঙালীরা মেনে চলেন বলেই সকল ধর্মের মানুষের ধর্মীয় অনুষ্ঠানে সবাই উপস্থিত থাকেন।
উপজেলা শ্রীশ্রী কৃষ্ণের জন্মাষ্টমী উদযাপন পরিষদের সভাপতি শংকর দাস শংকুর সভাপতিত্বে এবং সাধারণ সম্পাদক কানু রঞ্জন দে ও যুগ্ম সম্পাদক বিভাংশু গুন বিভুর যৌথ পরিচালনায় বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও জেলা আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা মন্ডলীর সদস্য এস এম নুনু মিয়া, বিশ্বনাথ থানার অফিসার ইন-চার্জ (ওসি) শামীম মূসা, বিশ্বনাথ সদর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ছয়ফুল হক, উপজেলা আওয়ামী লীগের সিনিয়র যুগ্ম সম্পাদক আমির আলী চেয়ারম্যান, রামসুন্দর সরকারি অগ্রগামী মডেল উচ্চ বিদ্যালয়ের সাবেক প্রধান শিক্ষক নবেন্দু জ্যোতি দে, উপজেলা হিন্দু-বৌদ্ধ-খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদের সহ সভাপতি রুপক কুমার দে, সাধারণ সম্পাদক সমরেন্দ্র বৈদ্য সমর, জেলা পূজা উদযাপন পরিষদের কার্যনির্বাহী সদস্য নিশি কান্ত পাল, উপজেলা পূজা উদযাপন পরিষদের সভাপতি অজিত কুমার পাল, সাধারণ সম্পাদক জয়ন্ত কুমার দাশ, জন্মাষ্টমী উদযাপন পরিষদের উপদেষ্টা রনজিৎ গোস্বামী, উপজেলা সহকারী শিক্ষক সমিতির সাধারণ সম্পাদক বাবুল কান্তি দাশ, উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি শীতল বৈদ্য। সভার শুরুতে গীতা পাঠ করেন সাবেক শিক্ষক নেহার রঞ্জন চক্রবর্তী।
বক্তব্য রাখেন উপজেলা শ্রীশ্রী কৃষ্ণের জন্মাষ্টমী উদযাপন পরিষদের যুগ্ম সম্পাদক নন্দ লাল বৈদ্য, কাজল মালাকার, সাংগঠনিক সম্পাদক নেপাল দে, কোষাধ্যক্ষ শুভরাজ চন্দ, উপজেলা হিন্দু মহাজোটের সাধারণ সম্পাদক বিভাষ দে, বিভিন্ন সংগঠনের পক্ষে বক্তব্য রাখেন শশাংক বৈদ্য (কালীগঞ্জ), সুবিনয় মালাকার (বৈরাগী বাজার), নির্মল চন্দ্র সরকার (কৃপাখালী), মিহির বৈদ্য (কালীগঞ্জ কালীবাড়ি), বাবুল কান্তি দাশ মেঘল (ইলিমপুর), অজিত দেব (ধীতপুর), রিপন চন্দ্র দাশ (টেংরা), অজিত দেব (ইসকন), অজয় দেব (জানাইয়া), প্রমেশ পাল (সমসপুর), নকুল বর্ধন (দশঘর), বিজন দাশ (বাবুনগর), নিরঞ্জন মনি বিশ্বাস (পুরাণ হাবড়া), শিমুল দাশ (শ্রীকৃষ্ণ যুব সংঘ), সুমন দেব (সনাতনী), পুলক সিংহ (রাধা-গোবিন্দ যুব সংঘ)।
শোভাযাত্রা ও সভায় উপস্থিত ছিলেন উপজেলা হিন্দু-বৌদ্ধ-খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদের সাবেক সভাপতি পিনাক চক্রবর্তী, উপজেলা জন্মাষ্টমী উ

শেয়ার করুন
প্রথম পাতা এর আরো সংবাদ
  • সংখ্যাগরিষ্টতা পেয়েছে সম্মিলিত ব্যবসায়ী পরিষদ
  • আফগানদের হারালো বাংলাদেশ
  • দুর্নীতির দায় নিয়ে সরকারের পদত্যাগ করা উচিত : বিএনপি
  • সারাদেশে পর্যায়ক্রমে দুর্নীতিবিরোধী অভিযান পরিচালিত হবে -------ওবায়দুল কাদের
  • ডা.দেওয়ান নূরুল হোসেন চঞ্চলের মৃত্যুবার্ষিকী আজ
  • জি কে শামীম ১০ দিনের রিমান্ডে
  • ঝুঁকিপূর্ণ সিলেট রেলপথ
  • কলাবাগান ক্রীড়াচক্রের ফিরোজ ১০ দিনের রিমান্ডে
  • ভোলাগঞ্জ সাদা পাথর থেকে দুই জনের লাশ উদ্ধার
  • কলাবাগান ক্রীড়াচক্রে অস্ত্র-ইয়াবা, কৃষকলীগ নেতাসহ আটক ৫
  • প্রধানমন্ত্রী আবুধাবি পৌঁছেছেন
  • দেশের বিভিন্ন স্থানে বৃষ্টিপাতের সম্ভাবনা
  • হবিগঞ্জে ১৫ মাসে ১৩ হাজার মামলা নিষ্পত্তি
  • বন্দরবাজার থেকে শীর্ষ ছিনতাইকারী শফিকুল রামদা ও চাপাতিসহ আটক
  • সিলেট চেম্বারের বহু প্রতীক্ষিত নির্বাচন আজ
  • যুবলীগ থেকে খালেদ ভূঁইয়া বহিষ্কার
  • রিফাত হত্যার অভিযোগপত্রে শুভঙ্করের ফাঁকি --------মিন্নির আইনজীবী
  • বাতাসে কল নড়া শুরু হয়েছে: ফখরুল
  • অফিস থেকে বিপুল টাকা, মদ ও অস্ত্র উদ্ধার
  • বিতর্কিত কর্মকান্ডে জড়িতদের চিহ্নিত করা হচ্ছে --------ওবায়দুল কাদের
  • Developed by: Sparkle IT