প্রথম পাতা

সরকার প্লট দিলে ‘চিরকৃতজ্ঞ’ থাকবেন রুমিন

প্রকাশিত হয়েছে: ২৬-০৮-২০১৯ ইং ০৩:০২:৩২ | সংবাদটি ১১১ বার পঠিত

ডাক ডেস্ক: একাদশ জাতীয় সংসদে সংসদ সদস্য হিসেবে শপথ নেওয়ায় দুই মাসের মধ্যে সরকারের কাছে ১০ কাঠার একটি প্লট চেয়েছেন বিএনপির সাংসদ রুমিন ফারহানা। সরকার প্লট দিলে ‘চিরকৃতজ্ঞ’ থাকবেন বলেও উল্লেখ করেছেন বিএনপি থেকে মনোনীত সংরক্ষিত নারী আসনের এই সাংসদ।
রুমিন ফারহানা বিএনপির কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটির সহ আন্তর্জাতিকবিষয়ক সম্পাদক। বিএনপির মনোনয়নে এবারই প্রথমবারের মতো সাংসদ হন তিনি।
গৃহায়ন ও গণপূর্ত মন্ত্রী শ ম রেজাউল করিম প্রথম আলোকে বলেন, প্লট চেয়ে সাংসদ রুমিন ফারহানার একটি আবেদন তিনি পেয়েছেন। আইন অনুযায়ী এ ব্যাপারে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।
রুমিন ফারহানা গত ৯ জুন সাংসদ হিসেবে শপথ নেন। আর প্লটের জন্য আবেদন করেন ৩ আগস্ট।
সরকারের গৃহায়ন ও গণপূর্ত মন্ত্রণালয় বরাবর আবেদনে রুমিন ফারহানা বলেছেন, ঢাকার পূর্বাচলে তাঁর ১০ কাঠার একটি প্লট প্রয়োজন। তিনি বলেছেন, ঢাকায় তাঁর কোনো জমি বা ফ্ল্যাট নেই। ওকালতির বাইরে তাঁর কোনো পেশা বা ব্যবসা নেই। ১০ কাঠার প্লট বরাদ্দ দেওয়া হলে তিনি ‘চিরকৃতজ্ঞ’ থাকবেন বলেও আবেদনে উল্লেখ করেন।
রুমিন ফারহানার প্লট চাওয়া নিয়ে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমসহ বিভিন্ন মহলে সমালোচনা শুরু হয়েছে। সংসদকে ‘অবৈধ’ বলে আসা এবং বর্তমান সরকারের তীব্র সমালোচক হিসেবে রুমিন ফারহানা পরিচিত। গতকাল রোববার দুপুরে প্রথম আলোকে রুমিন ফারহানা বলেন, ‘এটা হচ্ছে রাষ্ট্রীয় সুবিধা। এটা কোনো সরকারের কাছে চাওয়া না। রাষ্ট্রের কাছে চেয়েছি। রাষ্ট্রীয় পদের কারণে বেশ কিছু অধিকার হয় গাড়ি, প্লট। আমি জানি তারা আমাকে এক কাঠাও দেবে না। তবু আনুষ্ঠানিকতার জন্য আবেদন করেছি। কিন্তু আমি জানতাম না কোনো মন্ত্রণালয় থেকে কোনো চিঠি এভাবে বের হয়। বিরোধী মতকে নগ্নভাবে তুলে ধরছে তারা।’ বাকি যাঁরা প্লট চেয়ে আবেদন করেছেন, তাঁদের সবার নাম প্রকাশের দাবি জানান তিনি।
রুমিন ফারহানা বলেন, ‘মন্ত্রীএমপি না হয়েও কেউ কেউ শুল্কমুক্ত গাড়ি পেয়ে গেছেন। আমি তো এক সুতা জমিও পাইনি। তার আগেই আমার চিঠি ভাইরাল হয়েছে।’ তিনি আরও বলেন, ‘আমি কোনো অবৈধ কাজ করিনি।’
এ বিষয়ে দল থেকে তাঁকে কিছু বলা হয়েছে কি না, তা জানতে চাইলে রুমিন ফারহানা বলেন, দল থেকে এখন পর্যন্ত তাঁর কাছে কোনো বক্তব্য আসেনি।
একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বিএনপি নেতৃত্বাধীন জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট আটটি আসনে জয়লাভ করে। নানা নাটকীয়তার পর শেষ সময়ে এসে বিএনপির ছয় সাংসদের পাঁচজন শপথ নেন। আর আগে গণফোরামের দুই সাংসদ শপথ নেন। শপথ না নেওয়ার বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের আসন শূন্য ঘোষণা করা হয়। এরপর সেখানে নির্বাচনে বিএনপির জি এম সিরাজ নির্বাচিত হন।

শেয়ার করুন
প্রথম পাতা এর আরো সংবাদ
  • মুক্তিযোদ্ধাদের ফেরী-লঞ্চঘাটের প্রবেশ ফি মওকুফ
  • ঢাকা-সিলেট ছয় লেনের কাজ শুরু জুলাইয়ে
  • নতুন প্রজন্মকে দক্ষ মানবসম্পদ হিসেবে গড়ে তুলতে হবে
  • হত্যা নয়, সালমান শাহ আত্মহত্যাই করেছেন
  • মাহাথির মালয়েশিয়ার অন্তর্বর্তী প্রধানমন্ত্রী
  • পবিত্র শবে মেরাজ ২২ মার্চ
  • মন্ত্রিসভায় তিনটি হজ প্যাকেজের অনুমোদন
  • আওয়ামী লীগের প্রার্থী মিজান ও বিএনপি’র রাজু
  • দেশের বিভিন্ন স্থানে দমকা হাওয়াসহ গুঁড়িগুঁড়ি বৃষ্টির সম্ভাবনা
  • সংসদের বিশেষ অধিবেশনে বক্তা প্রণব মুখার্জি
  • বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হতে ডোপটেস্টে বাধ্যতামূলক
  • রিজভীর বিরুদ্ধে হত্যাচেষ্টার মামলা
  • পাপিয়ার বাড়ি থেকে লাখ লাখ টাকা, অস্ত্র উদ্ধার
  • রোহিঙ্গা সঙ্কট মোকাবেলায় বাংলাদেশের ভূমিকার প্রশংসা ইউএনএইচসিআর দূত জোলির
  • জরুরি প্রয়োজন ছাড়া করোনায় আক্রান্ত দেশে ভ্রমণ না করার পরামর্শ
  • সিলেট-লন্ডন সরাসরি ফ্লাইট চালু ডিএফটি রিপোর্টের ওপর ?
  • দেশে লুটপাটের রাজত্ব কায়েম করা হয়েছে
  • শিক্ষার্থীদের যুগোপযোগী শিক্ষায় শিক্ষিত করতে হবে -----পরিবেশমন্ত্রী শাহাব উদ্দিন
  • যুব মহিলা লীগ নেত্রী পাপিয়াকে বহিষ্কার
  • আদালত থেকে ‘সঠিক রায়’ প্রত্যাশা ফখরুলের
  • Developed by: Sparkle IT