শেষের পাতা থানায় মামলা দায়ের

কোম্পানীগঞ্জে ইউপি চেয়ারম্যানের বাড়িতে হামলা-ভাংচুর ও লুটপাটের অভিযোগ

প্রকাশিত হয়েছে: ২৬-০৮-২০১৯ ইং ০৩:০৭:৫৩ | সংবাদটি ৪২৪ বার পঠিত

কোম্পানীগঞ্জ (সিলেট) থেকে নিজস্ব সংবাদদাতা : কোম্পানীগঞ্জ উপজেলার ইছাকলস গ্রামে দুই পক্ষের সংঘর্ষের জের ধরে স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যানের বাড়িতে হামলা-ভাংচুর ও লুটপাটের অভিযোগ উঠেছে। এ সময় প্রতিপক্ষের হামলায় তিন ব্যক্তি আহত হয়েছেন। আহতদের স্থানীয়ভাবে চিকিৎসা দেওয়া হয়েছে। এ ঘটনায় চেয়ারম্যান কুটি মিয়ার ছেলে মিজানুর রহমান বাদী হয়ে শনিবার রাতে কোম্পানীগঞ্জ থানায় মামলা (নং-১৫) করেছেন। মামলায় ৭৩ জনের নামোল্লেখ করে এবং অজ্ঞাতনামা আরও ৪০-৪৫ জনকে আসামী করা হয়েছে। মামলায় ইছাকলস নিজগাঁও পশ্চিমপাড়ার ওলি মিয়ার পুত্র মইনুল ইসলামকে (৩২) প্রধান আসামী করা হয়েছে।
স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, গত বৃহস্পতিবার বিকেলে পূর্ব বিরোধের জের ধরে ইছাসকল নিজগাঁও গ্রামের আব্দুস শহিদের লোকজনের সাথে একই গ্রামের সামছুল ইসলামের লোকজনের মারামারি হয়। ঘটনার পর ইছাকলস ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান কুটি মিয়া বিষয়টি সালিশ-বিচারে নিষ্পত্তির উদ্যোগ নেন। কিন্তু, উভয়পক্ষ তা না মেনে থানায় পৃথক অভিযোগ দাখিল করেন। এ ঘটনায় চেয়ারম্যানের ভূমিকা নিরপেক্ষ ছিল না বলে অভিযোগ আনে একটি পক্ষ। এ অভিযোগে গত শনিবার সকাল ৮টার দিকে নিজগাঁও গ্রামের মুজিবুর রহমানের নেতৃত্বে শতাধিক ব্যক্তি দেশীয় অস্ত্রশস্ত্র নিয়ে চেয়ারম্যানের বাড়িতে হামলা চালায়। এ সময় চেয়ারম্যানকে বাড়িতে না পেয়ে ব্যাপক ভাংচুর চালায় তারা।
চেয়ারম্যানের সহোদর সুজন মিয়া জানান, চেয়ারম্যান পক্ষপাতিত্ব করেছেন অভিযোগ এনে সন্ত্রাসীরা বাড়ির সামনের ফটকের লাইট, গ্রীল ও দরজা-জানালা ভাংচুর করেছে। ঘটনার সময় চেয়ারম্যান গ্রামের পূর্বপাড়ার ধোপাঘাটে নির্মিতব্য নতুন মসজিদ নির্মাণ কাজ নিয়ে ব্যস্ত ছিলেন বলে জানান তিনি।
চেয়ারম্যানের ছেলে মিজানুর রহমান জানান, সন্ত্রাসীরা আমার পিতার অবস্থান জানতে পেরে সেদিকে যেতে শুরু করলে সাবেক ইউপি সদস্য সোনা মিয়াসহ গ্রামের মুরুব্বিরা তাদের থামানোর চেষ্টা করেন। এসময় তাদের মারধরের শিকার হয়ে শরিফ উদ্দিন, আলিম হোসেন ও আব্দুছ ছোবহান আহত হন। সন্ত্রাসীরা যাওয়ার সময় বাড়ির সামনে থাকা স্টোন ক্রাশারের ওয়াশিং প্ল্যান্টের একটি জেনারেটর মেশিন পরস্পরের সহায়তায় নিয়ে যায় বলে জানান মিজানুর রহমান।
চেয়ারম্যান কুটি মিয়া জানান, দুইপক্ষের মধ্যে মারামারির ঘটনাটি মামলা-মোকদ্দমায় না নিয়ে বিচার সালিশে নিষ্পত্তি করতে চেয়েছিলাম। কিন্তু, বিষয়টি উভয় পক্ষ মানেনি। এখানে আমি কারও পক্ষাবলম্বন করিনি। কিন্তু, কিছু লোক না বুঝে আমার বাড়ি-ঘরে হামলা চালিয়েছে। তিনি ঘটনার সুষ্ঠু তদন্ত করে দোষীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণের দাবি জানান।
এ ব্যাপারে কোম্পানীগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোঃ তাজুল ইসলাম জানান, খবর পেয়ে কোম্পানীগঞ্জ থানা পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে। এ ঘটনায় দায়ের করা মামলার তদন্ত করে দোষীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

শেয়ার করুন
শেষের পাতা এর আরো সংবাদ
  • অভিজিতের বাবা অজয় রায় আর নেই
  • চিকিৎসক-ইঞ্জিনিয়ারসহ বিভিন্ন পেশার মানুষ নেবে জাপান: পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী
  • ছবি
  • দুর্নীতি প্রতিরোধে সামাজিক আন্দোলনের বিকল্প নেই
  • বেগম রোকেয়ার সংগ্রামের পথ ধরে নারীদের সামনে এগিয়ে যেতে হবে
  • দৈনিক সিলেটের ডাক বস্তুনিষ্ঠ সাংবাদিকতার পথিকৃত
  • ‘হুমকি’ হয়ে উঠতে পারে নিপা ভাইরাস
  • কমলগঞ্জে ট্রেনে কাটা পড়ে যুবক নিহত
  • ৭ আসামীর বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা
  • মহানগর আওয়ামী লীগের মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত
  • ওসমানীনগরে অজ্ঞাত তরুণীর মস্তক উদ্ধার
  • লিডিং ইউনিভার্সিটিতে উচ্চশিক্ষায় স্কলারশীপ প্রাপ্তি বিষয়ক সেমিনার
  • রুম্পার ‘প্রেমিক’ চারদিনের রিমান্ডে
  • বিজয়ের মাস
  • বিশ্ব মানবাধিকার দিবস জেলা বিএনপির শোভাযাত্রা কাল
  • আন্তর্জাতিক দুর্নীতি বিরোধী দিবস আজ
  • ছবি
  • শিক্ষার্থীদের দাবি মেনে নিল শাবি প্রশাসন ॥ ক্যাম্পাসে বিজয় মিছিল
  • সাফল্যের জন্য লক্ষে অবিচল থাকতে হবে ॥ প্রফেসর কামরুজ্জামান চৌধুরী
  • সাংস্কৃতিক জাগরণের মধ্য দিয়ে বঙ্গবন্ধুর স্বপ্ন পূরণের প্রত্যয়
  • Developed by: Sparkle IT