সম্পাদকীয়

যে প্রতিষ্ঠানের লোকসান ১৫ হাজার কোটি টাকা

প্রকাশিত হয়েছে: ১২-০৯-২০১৯ ইং ০০:১০:৫৬ | সংবাদটি ১৪৬ বার পঠিত

যে প্রতিষ্ঠানটি লোকসান দিয়ে যাচ্ছে ৪৭ বছর ধরে। অর্থাৎ স্বাধীনতার পর থেকে এখন পর্যন্ত লাভের মুখ দেখেনি যে সরকারি প্রতিষ্ঠান, সেটা হলো বাংলাদেশ রেলওয়ে। বছরের পর বছর এই প্রতিষ্ঠানটি লোকসান গুনছে। এ পর্যন্ত এই প্রতিষ্ঠানের লোকসানের পরিমাণ ১৫ হাজার কোটি টাকা। স্বাধীনতার পরবর্তী বছর ১৯৭২ সালে এর লোকসান ছিলো এক কোটি টাকা। এরপর থেকে প্রতি বছর বাড়তে থাকে লোকসানের পরিমাণ। চলতি ২০১৮-২০১৯ অর্থ বছরে লোকসানের পরিমাণ দাঁড়িয়েছে দেড় হাজার কোটি টাকা। মোটামুটি স্বাচ্ছন্দ্যে এবং স্বাভাবিকভাবে কার্যক্রম পরিচালনাকারী এই সরকারি প্রতিষ্ঠানের হাজার হাজার কোটি টাকা লোকসানের কারণ কী, সেটা খুঁজে বের করতে হবে।
একটি জাতীয় দৈনিকে প্রকাশিত, খবরে বলা হয় ১৯৮২-৮৩ অর্থ বছরে রেলের লোকসান ছিলো চার কোটি দুই লাখ টাকা। সেটা পরের বছর ৪৯ কোটি ১৫ লাখ টাকায় পৌঁছে। ১৯৮৫-৮৬ অর্থ বছরে লোকসান দাঁড়ায় একশ ১৭ কোটি ১৪ লাখ টাকা। এভাবে বাড়তে বাড়তে ১৯৮৭-৮৮ অর্থ বছরে একশ ৫৩ কোটি ১১ লাখ টাকায় পৌঁছে লোকসানের পরিমাণ। সম্প্রতি বছরগুলোতে সর্বোচ্চ লোকসান হয়েছে ২০১৬-২০১৭ অর্থবছরে এক হাজার সাতশ’ ৮৭ কোটি ৩৭ লাখ টাকা। বিশেষজ্ঞদের মতে ধারাবাহিকভাবে রেলওয়ের এই দুর্নীতির প্রধান কারণ হচ্ছে দুর্নীতি। প্রকল্পে বরাদ্দ অর্থের বেশির ভাগই যায় প্রকল্প সংশ্লিষ্টদের পকেটে। অযথা প্রকল্প বাস্তবায়নে বিলম্ব করে বাড়ানো হয় ব্যয়। তাছাড়া সঠিক পরিকল্পনার অভাব দুর্বল মনিটরিং, জবাবদিহিতা না থাকা, স্বজন পোষণ ইত্যাদি কারণে বাড়ছে এই লোকসানের বোঝা। দুর্নীতির কারণে সরকারি অনেক প্রকল্পেই লোকসান হয়। তেমনি রেলওয়ের সব ক্ষেত্রেই হচ্ছে দুর্নীতি, লুটপাট। নিয়োগ, প্রকল্প চুক্তি, কেনাকাটা সবদিকেই দুর্নীতি এমনভাবে চেপে বসেছে যে, উন্নয়নের অনেকাংশ খেয়ে ফেলছে দুর্নীতি। তাই রেলওয়ের পেছনে সরকার যতোই অর্থ ব্যয় করুক, যাত্রী ও মালামাল পরিবহন যতোই বৃদ্ধি পাক, লাভের মুখ দেখছে না সরকারি প্রতিষ্ঠানটি।
স্বাধীনতার পর থেকে রেলওয়ের ট্রেনের সংখ্যা বেড়েছে, রেললাইনের পরিমাণ বেড়েছে, যাত্রী ও মালামাল পরিবহন বেড়েছে, ভাড়ার হার বৃদ্ধি করা হয়েছে। বৃদ্ধি করা হয়েছে রেল কর্মচারীদের বেতন ভাতা। কিন্তু বাড়েনি আয়। গত ১১ বছরে এক লাখ কোটি টাকা ব্যয়ে শতাধিক প্রকল্প গ্রহণ করা হয়েছে। যার অর্ধেকের বেশি সম্পন্ন হলেও বাড়েনি সেবার মান। এই লোকসানী প্রতিষ্ঠানের ব্যাপারে রেল মন্ত্রী বলেন, এটি একটি সেবামূলক প্রতিষ্ঠান; এখানে লাভ লোকসান নিয়ে আমরা ভাবি না। মন্ত্রীর এই দায়িত্বহীন বক্তব্যে দুর্নীতিবাজ চক্র উৎসাহিত হবে। জনগণের ট্যাক্স এর টাকায় পরিচালিত একটি প্রতিষ্ঠান হাজার হাজার কোটি টাকা লোকসান দেবে, আর সরকার তা নিয়ে ভাববে না, এটা দুঃখজনক। তবে আমরা চাই রেলওয়েকে লুটপাটকারী চক্রের কবল থেকে মুক্ত করে একটি লাভজনক প্রতিষ্ঠানে পরিণত করা হোক।

 

শেয়ার করুন

Developed by: Sparkle IT