শেষের পাতা উপজেলা ও থানা প্রশাসনের উদ্যোগ

বড়লেখায় জুয়ার স্থায়ী আস্তানা উচ্ছেদ, হোটেল বন্ধ

বড়লেখা (মৌলভীবাজার) থেকে নিজস্ব সংবাদদাতা প্রকাশিত হয়েছে: ১২-০৯-২০১৯ ইং ০৩:০০:৫৩ | সংবাদটি ২৮ বার পঠিত

টিলার উপর টিনশেডের একটি ঘর। ঘরটিতে কেউ বসবাস করে না। এটি তৈরি করা হয়েছে মূলতঃ জুয়া খেলার জন্য। অথচ খবর পেয়ে গত মঙ্গলবার প্রশাসন জুয়া খেলার এ স্থায়ী আস্তানাটি ভেঙে উচ্ছেদ করা হয়েছে। একই অভিযোগে বন্ধ করা হয়েছে স্থানীয় ইটাউরি বাজারের একটি চায়ের দোকান।
পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, উপজেলার নিজবাহাদুরপুর ইউনিয়নের ইটাউরি বাজারের অদূরে একটি টিলায় ঘর তৈরি করে দীর্ঘদিন থেকে জুয়ার আসর বসছে। জুয়া খেলার জন্য টিনশেড দিয়ে ঘরটি তৈরি করা হয়। পাশাপাশি ওই বাজারের একটি দোকানেও চলত জুয়া খেলা। প্রতিদিনই বড়লেখা ও আশপাশের উপজেলাসহ বিভিন্ন এলাকা থেকে জুয়াড়িরা এসে জুয়া খেলতো। এতে এলাকার বিভিন্ন বয়সের মানুষও অংশ নিয়ে সর্বস্ব হারায়। জুয়ার টাকা মেলাতে তারা বিভিন্ন ধরনের অপরাধ কর্মকা-ে জড়িয়ে পড়ত। স্থানীয়ভাবে খবর পেয়ে পুলিশ ও স্থানীয় প্রশাসনের যৌথ উদ্যোগে অভিযান চালিয়ে টিলার উপরের দীর্ঘদিনের জুয়ার আঁস্তানাটি ভেঙে জায়গাটি সম্পূর্ণ খালি করে দেওয়া হয়। এরপর জুয়া খেলার সরঞ্জামগুলো ভেঙে ফেলা হয়। এছাড়া জুয়ার আসর বসার অভিযোগে বাজারে অভিযান চালিয়ে জবরুল নামের ব্যক্তির চায়ের দোকান বন্ধ করে দেওয়া হয়। এ সময় কাউকে আটক করা যায়নি। দুপুর ১২টা থেকে দুপুর আড়াইটা পর্যন্ত এই অভিযান চলে।
উচ্ছেদকালে উপস্থিত ছিলেন-বড়লেখা উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান সোয়েব আহমদ, থানার অফিসার ইনচার্জ মো. ইয়াছিনুল হক, উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান তাজ উদ্দিন, শাহবাজপুর পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (পুলিশ পরিদর্শক) মোশাররফ হোসেন, স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান ময়নুল হক, বড়লেখা পৌরসভার কাউন্সিলর জেহীন সিদ্দিকী, ইউপি সদস্য সাজু আহমদ, শামীম আহমদ, সিরাজ উদ্দিন, কবির আহমদ, রশিদ আহমদ সুনাম, মৌলভীবাজার জেলা ছাত্রলীগের সহ সভাপতি সুমন আহমদ প্রমুখ।
স্থানীয়দের বরাত দিয়ে বড়লেখা থানা পুলিশ জানিয়েছে, কান্দিগ্রামের কটন আলী, খালেদ আহমদ, মুজিব, জিতুল আহমদ, ইটাউরি গ্রামের রুবেল আহমদ, আলতাফ হোসেন ও কবিরা গ্রামের মাসুক আহমদ টিলায় ঘর তৈরি করে এই জুয়ার আসর পরিচালনা করতেন।
বড়লেখা থানার অফিসার ইনচার্জ মো. ইয়াছিনুল হক বলেন, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে খবর পেয়ে জুয়া খেলার ঘরটি ভেঙ্গে ফেলা হয়েছে। এছাড়া একই অভিযোগে একটি চায়ের দোকানও বন্ধ করা হয়েছে। এ সময় কাউকে আটক করা যায়নি।
বড়লেখা উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান সোয়েব আহমদ বলেন, বড়লেখা উপজেলাকে মাদক এবং জুয়ামুক্ত করতে আমরা বদ্ধপরিকর। এ রকম অপরাধের খবর পেলেই প্রশাসনকে সাথে নিয়ে অভিযান চালানো হবে। কাউকে ছাড় দেয়া হবে না।

শেয়ার করুন
শেষের পাতা এর আরো সংবাদ
  • ছবি
  • রেলগেইট মারকাজ পয়েন্টে সিএনজি অটোরিক্সা শ্রমিকদের মধ্যে সংঘর্ষে ৯জন আহত
  • জীবনে বহুমাত্রিক বিকাশের জন্য শিক্ষার কোন বিকল্প নেই -সেক্টর কমান্ডার কর্নেল এ এম এম খায়রুল কবীর
  • লিডিং ইউনিভার্সিটিতে আইন বিভাগের সেমিনার অনুষ্ঠিত
  • এনআইডি জালিয়াতি জয়নালের জবানবন্দিতে ‘আরও নাম’
  • ডেঙ্গু রোগীর সংখ্যা ২০ শতাংশ কমেছে : স্বাস্থ্য অধিদপ্তর
  • দুর্নীতিবাজ কেউ রেহাই পাবে না --------------স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী
  • টিআইবির চিঠিতে বেক্সিমকোর প্রশংসা শুদ্ধাচারের প্রত্যাশা
  • পর্যটন বিকাশে রেস্টহাউজ নির্মাণের প্রস্তাব পাঠানোর নির্দেশ
  • দক্ষিণ সুরমায় হাফপ্যান্ট বাহিনীর তান্ডব
  • চাঁদে শীতের রাত শুরু, বিক্রমের খোঁজ পাওয়ার আশা ফিকে
  • জৈন্তাপুরে একটি ব্রিজের জন্য কয়েকটি গ্রামের মানুষের যত দুঃখ
  • নগরীতে সিলেট জেলা ও মহানগর বিএনপির পৃথক লিফলেট বিতরণ
  • বিশ্বনাথের আল-হেরা মার্কেটে চুরির ঘটনায় মহিলা গ্রেফতার
  • পাশবিক নির্যাতনের অভিযোগে জালালপুর ইউপি সদস্য আটক
  • র‌্যাবের অভিযানে নগরীর কুয়ারপাড় থেকে ৮ জুয়াড়ী আটক
  • ছবি
  • নিখোঁজ স্কুল ছাত্র উদ্ধার : আটক তিন
  • ফেরার পথে গণনা করে দেখেন একজন নেই
  • সংকটে সংগ্রামে নাটক গণমানুষের কথা বলে ----------পুলিশ কমিশনার
  • Developed by: Sparkle IT