স্বাস্থ্য কুশল

পেঁয়াজের যত গুণ

মুন্সি আব্দুল কাদির প্রকাশিত হয়েছে: ১৬-০৯-২০১৯ ইং ০০:৩৭:১৮ | সংবাদটি ৩৪০ বার পঠিত

আমরা খাবারকে মুখরোচক করার জন্য অনেক ধরনের মসলা ব্যবহার করি। আবার কোন কোন মসলাকে ব্যঞ্জন হিসেবেও ব্যবহার করা হয়। পেঁয়াজ এমন একটি মসলা যা ছাড়া কোন তরকারী রান্নার চিন্তাও করা যায় না। আবার শুধু পেঁয়াজ দিয়েও মাছ গোস্ত রান্না করা হয়। আমরা পেঁয়াজ, রসুন, ধনিয়া, হলুদ ইত্যাদিকে মসলা হিসেবেই জানি। কিন্তু এগুলো শুধু মসলা নয়, রান্নাকৃত খাবারকে সুস্বাদু করার জন্যই এগুলো ব্যবহার হয় না। আদিম কাল থেকে মানুষ রান্নায় পেঁয়াজ ব্যবহার করে আসছে। পেয়াজ ছাড়া রান্নার কল্পনাও করা যায় না। পেয়াজ কাটলে চোখে পানি এসে যায়। তারপরও এছাড়া যে চলে না। পেঁয়াজ শুধু রান্নায় রুচি বৃদ্ধি করে না, তার মধ্যে অনেক উপকারিতাও রয়েছে। নি¤েœ পেঁয়াজের গুনাগুন নিয়ে আলোচনা করা হল।
১০০ গ্রাম পেঁয়াজের মধ্যে ৮৯.১১ ভাগ পানি শক্তি ১৬৬ কিজু শর্করা ৯.৩৪ গ্রাম, চিনি ৪.২৪ গ্রাম, খাদ্য ফাইবার ১.৭০ গ্রা., ¯েœহ পদার্থ ০.১০ গ্রাম, প্রোটিন ১.১০ গ্রাম রয়েছে । সূত্র উইকিপিডিয়া
১০০ গ্রাম পেঁয়াজের মধ্যে ক্যালসিয়াম ২৩ মি. গ্রাম, লোহা ০.২১ মি. গ্রাম, ম্যাগনেশিয়াম ১০ মি. গ্রা., ম্যাঙ্গানিজ ০.১২৯ মি. গ্রাম ফসফরাস ২৯ মি. গ্রাম, পটাশিয়াম ১৪৬ মি. গ্রাম, দস্তা ০.১৭ মি. গ্রা. রয়েছে। সূত্র উইকিপিডিয়া
পেঁয়াজের মধ্যে প্রচুর পরিমাণ বিভিন্ন ভিটামিন রয়েছে। থায়ামিন (বি১) ৪ ভাগ, রিবোফ্লাভিন (বি২) ২ ভাগ, ন্যায়াসেন (বি৪) ১ ভাগ, প্যানটেথেনিক এসিড (বি৫) ২ ভাগ, ভিটামিন বি৬ ৯ ভাগ, ফোলেট (বি৯) ৫ ভাগ, ভিটামিন সি ৯ ভাগ। সূত্র উইকিপিডিয়া
বিভিন্ন রোগ সারাতে পেঁয়াজের ব্যবহারÑ
১। বিষ ফোঁড়া : বিষ ফোঁড়ায় ব্যথায় টনটন করছে। এ অবস্থায় ব্যথার স্থানে পেঁয়াজের রস সামান্য গরম করে লাগালে ব্যথা কমে যাবে।
২। হার্ট সুস্থ রাখতে : পেঁয়াজ রক্ত জমাট বাঁধতে দেয় না। রক্তের কোলেস্টেরল কমায়। পেঁয়াজ হৃদপিন্ডের জন্য উপকারী। প্রতিদিন একটি পেঁয়াজ খেলে হৃদপিন্ড ভাল থাকবে।
৩। জ¦র জ¦র ভাব ও সর্দি : কোন কোন সময় বিশেষ করে ঋতু পরিবর্তনের সময় অথবা প্রচন্ড গরমের সময় এক পশলা বৃষ্টিতে ভেজার কারণে নাক বন্ধ হয়ে গেছে, কপাল ভার ভার অনুভুত হয়, শরীরে জ¦র জ¦র ভাব এ অবস্থায় পেঁয়াজের রস নিয়ে নাকে নস্যি দিলে সর্দি বেরিয়ে যায়, জ¦র ভাবও থাকে না, মাথা পাতলা হয়ে যায়।
৪। মূত্র স্বল্পতা : যে কোন কারণে শরীর গরম হয়ে প্র¯্রাব কষে গিয়েছে। এ অবস্থায় এক চা চামচ পেঁয়াজের রস কিছুটা ঠান্ডা পানির সাথে মিশিয়ে খেলে উপকার পাওয়া যায়।
৫। প্র¯্রাব ধারণে অক্ষমতা : প্র¯্রাবের বেগ হলে আর দেরী করা যায় না দ্রুত সারতে হয়। এমতাস্থায় প্রতিদিন এক চা চামচ মাত্রায় পেঁয়াজের রস সেবন করলে কয়েকদিনের মধ্যে এ রোগ সেরে যাবে।
৬। কানের পূঁজ : কানের মধ্যে ঘা হয়ে পূঁজ হয়ে গেলে পেঁয়াজের রস সহ্য করার মত গরম করে এক দুই ফোঁটা কানে দিলে এই রোগ ভাল হয়ে যায়।
৭। বমি : বুঝা যাচ্ছে না কি কারণে বমি হচ্ছে। এ অবস্থায় ৪-৫ ফোঁটা পেঁয়াজের রস পানির সাথে মিশিয়ে খেলে বমি বন্ধ হয়ে যাবে।
৮। সর্দিজনিত মাথা ধরা : সর্দিজনিত মাথা ধরায় ২-৩ ফোঁটা পেঁয়াজের রস নিয়ে নস্যি দিলে সঙ্গে সঙ্গে মাথা ধরা সেরে যাবে।
৯। চক্ষু রোগ : চোখ লাল হয়, কড়কড় করে, পানি পড়ে এ অবস্থায় পেঁয়াজের রস নিয়ে চোখ মুছে দিলে যাতে সামান্য পরিমাণ চোখের ভিতরেও যায় তাহলে এ রোগ সেরে যাবে।
১০। উচ্চ রক্তচাপ : রক্তে কোলেস্টেরল বেড়ে গেলে পেঁয়াজের রস ১ চা চামচ করে দিনে ২ বার করে কয়েকদিন সেবন করলে কোলেষ্টরল কমে যাবে।
১১। দাঁতের পাথুরি : পেঁয়াজের বীজ বেটে হালকাভাবে দাঁতের গোড়ায় ঘষে দিলে কয়েকদিনের মধ্যে পাথুরি নরম হয়ে উঠে যাবে।
১২। হিক্কা উঠা : হিক্কা উঠলে ২৫-৩০ ফোঁটা পেঁয়াজের রস পানিতে মিশিয়ে ২-৩ বার ১-২ চা চামচ করে খাওয়ালে হিক্কা বন্ধ হয়ে যাবে।
১৩। চর্মরেগ : ছত্রাকজনিত চর্ম রোগের কারণে মুখে বিশ্রী দাগ। এ অবস্থায় পেঁয়াজের রস মুখে মাখতে হবে। নিয়মিত দিনে ৩-৪ বার কিছুদিন মাখলে এই দাগ দূর হয়ে যাবে।
১৪। অত্যধিক পিপাসা : খুব গরমে কোথাও যাত্রা করেছেন খুব পিপাসা পাচ্ছে। বারবার পানি খাওয়া অসুবিধা। এ অবস্থায় যাত্রার আগে পেঁয়াজের রসে খেলে পানির পিপাসা কম হয়। আবার গরমে বা অন্য কোন কারণে শরীর কষে গিয়ে প্র¯্রাবে জ্বালাপোড়া হয়। এ অবস্থায় ১ চা চামচ পেঁয়াজের রস ঠান্ডা পানিতে মিশিয়ে খেলে ঐ অসুবিধা চলে যায়। আবার গরমে শরীর তেতে গিয়ে অনেক সময় নাক দিয়ে রক্ত পড়ে এ ক্ষেত্রে পেঁয়াজের রসে নস্যি দিলে রক্ত পড়া বন্ধ হয়ে যায়।
১৫। পেট পরিস্কার : যাদের পেট পরিস্কার হয়ে পায়খানা হয় না তারা এক থেকে দেড় চা চামচ পেঁয়াজের রস গরম পানিতে মিশিয়ে খেলে এ অবস্থা দূর হয়ে যাবে।
১৬। দাঁত ও মুখ : কাঁচা পেঁয়াজে খেলে দাঁত ও মুখের অনেক উপকার পাওয়া যায়।
১৭। ইনসুলিন ব্যবহার : যারা ডায়াবেটিক রোগের জন্য ইসুলিন ব্যবহার করেন তারা প্রতিদিন ৫০ গ্রাম পেঁয়াজে খেলে ইনসুলিনের মাত্রা ৪০ থেকে কমিয়ে ২০ ইউনিট পর্যন্ত ব্যবহার করলে ডায়াবেটিক নিয়ন্ত্রণে থাকে।
১৮। গরু মহিষের পঁচা ঘা : গরু মহিষের পঁচা ঘা এর মধ্যে পেঁয়াজের রস পানি মিশিয়ে ধুঁয়ে দিলে পঁচা ঘা ভাল হয়ে যায়।
১৯। হজমশক্তি বাড়াতে : যাদের হজমে সমস্যা রয়েছে তারা প্রতিদিন খাবারের সময় একটু কাঁচা পেঁয়াজ খেলে হজমের দুর্বলতা কমে যাবে।
২০। ক্যান্সার প্রতিরোধ : কোলন ক্যান্সারের মত রোগে লড়তে পেঁয়াজ সাহায্য করে। গবেষণায় দেখা গেছে পেঁয়াজের মধ্যে এন্টি অক্সিডেন্ট রয়েছে তা কোষের ্ডি এন এ কে ক্ষতি থেকে বাঁচিয়ে ক্যান্সার প্রতিরোধ করে।
২১। যৌন ক্ষমতা বাড়ায় : প্রতিদিন ১ গ্লাস পেঁয়াজের রস খেলে যৌন ক্ষমতা বৃদ্ধি পায়।
২২। পোকামাকড়, ভিমরুল বা মৌমাছির বিষ তাড়াতে একটু পেঁয়াজ কেটে আক্রান্ত স্থানে ঘষান একটু পরেই বিষ চলে যাবে।

শেয়ার করুন

Developed by: Sparkle IT