মহিলা সমাজ রেসিপি

কাঁঠাল বিচির কয়েক পদ

জিন্নাত রায়হান সুমী প্রকাশিত হয়েছে: ১৭-০৯-২০১৯ ইং ০১:২৭:১১ | সংবাদটি ১১৫ বার পঠিত


গরুর রেজালা
উপকরণ : গরুর মাংস ১ কেজি, কাঁঠালের বিচি ৩০০ গ্রাম, আদা বাটা ২ টেবিল চামচ, রসুন বাটা ১ টেবিল চামচ, পেঁয়াজ বাটা সিকি কাপ, পেঁয়াজ কুঁচি ১ কাপ, হলুদ গুঁড়া ১ চা চামচ, মরিচ গুঁড়া দেড় চা চামচ, টালা জিরা গুঁড়া ১ চা চামচ, গরম মসলা গুঁড়া ১ চা চামচ, ধনে গুঁড়া ১ চা চামচ। এলাচ, দারচিনি, লবঙ্গ ২-৩টি করে। লবণ স্বাদমতো, তেল আধা কাপ, গরম পানি প্রয়োজনমতো।
যেভাবে তৈরি করবেন : কাঁঠালের বিচির ওপরের খোসা ফেলে পানিতে ভিজিয়ে লাল আবরণ পাটায় ঘষে পরিষ্কার করে নিন। মাংস ধুয়ে পানি ঝরিয়ে নিন। হাঁড়িতে তেল দিয়ে গোটা গরম মসলা ফোড়ণ দিন। মসলার সুগন্ধ বের হলে পেঁয়াজ কুঁচি দিন। পেঁয়াজ নরম হলে গরম মসলা ও জিরা গুঁড়া ছাড়া সব মসলা ও আধা কাপ পানি দিয়ে কষিয়ে নিন। মসলা কষানো হলে মাংস দিয়ে দিন। মাংস কষিয়ে ২ কাপ গরম পানি দিন। মাংস সিদ্ধ হয়ে এলে কাঁঠালের বিচি দিয়ে কষিয়ে ঝোলের জন্য আন্দাজমতো পানি দিন। ঝোল মাখা মাখা হয়ে এলে গরম মসলা গুঁড়া আর জিরার গুঁড়া দিয়ে নেড়ে নামিয়ে নিন।

চ্যাপা শুঁটকি কাঁঠালের বিচির বড়া
উপকরণ : সিদ্ধ কাঁঠাল বিচি ১ কাপ, চ্যাপা শুঁটকি ৫০ গ্রাম, পেঁয়াজ কুঁচি ১ কাপ, রসুন বাটা ২ টেবিল চামচ, শুকনা মরিচ গুঁড়া ৩ টেবিল চামচ, হলুদ গুঁড়া ১ চা চামচ, আদা বাটা ১ চা চামচ, লবণ স্বাদ মতো, তেল আধা কাপ, লাউ বা কুমড়া পাতা ১৫-১৬টি। ফিশ সস ১ টেবিল চামচ, লবণ স্বাদমত।
যেভাবে তৈরি করবেন : সিদ্ধ কাঁঠালের বিচি মিহি করে বেটে নিন। শুঁটকিও পরিষ্কার করে ধুয়ে বেটে নিতে হবে। এবার কড়াইতে সিকি কাপ তেল দিয়ে পেঁয়াজ কুঁচি দিন। পেঁয়াজ কুঁচি নরম হলে লবণ, সব গুঁড়া ও বাটা মসলা সামান্য পানি দিয়ে ভালোমতো কষাতে হবে। মসলা কষানো হলে শুঁটকি দিয়ে ভালোমতো কষিয়ে কাঁঠালের বিচি ও ফিশ সস দিয়ে ভুনতে হবে। কড়াই থেকে আলগা হয়ে তেল ছেড়ে এলে নামিয়ে ঠা-া করে নিন। এবার একটি পাতার ওপর ২ টেবিল চামচ শুঁটকি ভুনা রেখে পাতাটি সুন্দরভাবে মুড়িয়ে নিন, যাতে খুলে না যায়। প্রয়োজনে টুথপিকও ব্যবহার করতে পারেন। এভাবে সব বড়া বানিয়ে ফ্রাইপ্যানে অল্প তেলে বড়াগুলো এপিঠ-ওপিঠ কড়া করে ভেজে নিন। ব্যস তৈরি হয়ে গেল চ্যাপা শুঁটকি কাঁঠালের বিচির বড়া। পরিবেশন করতে পারেন গরম ভাত, রুটি অথবা চিতই পিঠার সঙ্গে।

চ্যাপা শুঁটকি ভর্তা
উপকরণ : কাঁঠালের বিচি দেড় কাপ, শুকনা মরিচ ৫টি, পেঁয়াজ কুঁচি আধা কাপ, রসুন ৭ কোয়া, চ্যাপা শুঁটকি ৪টি, লবণ স্বাদমতো।
যেভাবে তৈরি করবেন : কাঁঠালের বিচি টেলে খোসা ফেলে ধুয়ে নিন। শুঁটকি পরিষ্কার করে ভেজে নিন। রসুনও টেলে নিন। শিলপাটায় মরিচ আগে বেটে শুঁটকি আর রসুন বাটুন। এবার লবণ দিয়ে কাঁঠালের বিচি বাটুন। সব শেষে পেঁয়াজ দিয়ে বেটে ভালোভাবে মিশিয়ে নিন। গরম ভাতের সঙ্গে পরিবেশন করুন।

কাঁঠাল বিচির কাবাব
উপকরণ : কাঁঠালের বিচি ১ কাপ, গরু বা খাসির কিমা ১ কাপ, ডিম ১টি, আদা বাটা ১ চা চামচ, রসুন বাটা আধা চা চামচ, কাবাব মসলা ১ চা চামচ, গরম মসলা ১ চা চামচ, মরিচ গুঁড়া ১ চা চামচ, গোলমরিচ গুঁড়া আধা চা চামচ, লবণ স্বাদমতো, তেল পরিমাণমতো।
যেভাবে তৈরি করবেন : কাঁঠালের বিচি খোসা ফেলে ৩-৪ ঘণ্টা পানিতে ভিজিয়ে রেখে পাটায় ঘষে ওপরের লাল আবরণ পরিষ্কার করে নিন। কাঁঠালের বিচি সিদ্ধ করে বেটে নিন। কিমা আদা ও রসুন বাটা দিয়ে সিদ্ধ করে মিহি করে বেটে নিন। তেল ছাড়া সব উপকরণ একসঙ্গে মেখে গোলাকার চ্যাপ্টা কাবাব বানিয়ে ডুবো তেলে ভেজে তুলুন। সস বা চাটনির সঙ্গে পরিবেশন করুন।

চিংড়ি ধুন্দল কারি
উপকরণ : ধুন্দল ৫০০ গ্রাম, কাঁঠাল বিচি ২৫০ গ্রাম, পেঁয়াজ কুঁচি সিকি কাপ, হলুদ গুঁড়া ১ চা চামচ, মরিচ গুঁড়া ১ চা চামচ, ধনে গুঁড়া ২ চা চামচ, আদা বাটা আধা চা চামচ, কাঁচা মরিচ ফালি ৫টি, লবণ স্বাদমতো, তেল ৩ টেবিল চামচ।
যেভাবে তৈরি করবেন : ধুন্দল খোসা ফেলে ধুয়ে কিউব করে কেটে নিন। চিংড়ি মাছ কেটে ধুয়ে পানি ঝরিয়ে নিন। কাঁঠালের বিচি পরিষ্কার করে কেটে নিন। কড়াইতে তেল দিয়ে গরম হলে পেঁয়াজ কুচি দিন। পেঁয়াজ কুঁচি গরম হলে সব মসলা আধা কাপ পানিতে গুলে দিয়ে দিন। মসলা কষানো হলে চিংড়ি মাছ কষিয়ে নিন। চিংড়ি মাছ কষানো হলে কাঁঠালের বিচি দিয়ে আধা কাপ পানি দিন। কাঁঠালের বিচি আধা সিদ্ধ হলে ধুন্দল দিন। চুলার আঁচ মাঝারি থেকেও কম রাখুন। ঢাকনা দেবেন না। আলাদা করে পানি লাগবে না। ধুন্দলের গায়ের পানিতেই মাখা মাখা তরকারি হবে। নামানোর আগে কাঁচা মরিচ ফালি দিয়ে নামিয়ে নিন।

লইট্টা শুঁটকি ভুনা
উপকরণ : লইট্টা শুঁটকি ১ কাপ, কাঁঠালের বিচি ১ কাপ, পেঁয়াজ কুঁচি ১ কাপ, আদা বাটা ১ চা চামচ, রসুন বাটা ১ টেবিল চামচ, রসুন ছেঁচা ৩ টেবিল চামচ, হলুদ গুঁড়া আধা চা চামচ, মরিচ গুঁড়া ১ চা চামচ, কাঁচা মরিচ ৪টি (থেঁতলে নেওয়া), পেঁয়াজ বাটা সিকি কাপ, লবণ স্বাদমতো, তেল তিন ভাগের ১ কাপ, জিরা গুঁড়া ১ চা চামচ।
যেভাবে তৈরি করবেন : লইট্টা শুঁটকি এক ইঞ্চি টুকরা করে তাওয়ায় টেলে নিন। এবার পরিষ্কার করে ধুয়ে পানিতে ভিজিয়ে রাখুন। কড়াইয়ে তেল দিয়ে পেঁয়াজ কুঁচি ভাজুন। পেঁয়াজ নরম হলে হলুদ, মরিচ গুঁড়া দিন। আধা কাপ পানিতে একে একে সব মসলা দিয়ে কষিয়ে নিন। এবার কষানো মসলায় শুঁটকি দিন। আধা কাপ পানি দিয়ে শুঁটকিও ভুনা ভুনা করে নিন। আগে থেকে কেটে রাখা কাঁঠালের বিচি দিয়ে আধা কাপ পানি দিয়ে নেড়ে ঢেকে দিন। কাঁঠালের বিচি আধা সিদ্ধ হলে ছেঁচা রসুন আর কাঁচা মরিচ দিয়ে নেড়ে নিন। সব সিদ্ধ হয়ে মাখা মাখা হলে নামিয়ে নিয়ে গরম গরম পরিবেশন করুন।

সন্দেশ
উপকরণ : কাঁঠালের বিচি সিদ্ধ করে বেটে নেওয়া ১ কাপ, ছানা ১ কাপ, দুধ ২৫০ মিলি, কনডেন্সড মিল্ক ১ কাপ, এলাচ গুঁড়া হাফ কাপ, ঘি সিকি কাপ, পরিবেশনের জন্য বাদাম।
যেভাবে তৈরি করবেন : কাঁঠালের বিচির ওপরের খোসা ফেলে ১ ঘণ্টা ভিজিয়ে রেখে ওপরের লাল আবরণ পরিষ্কার করুন। পানি দিয়ে পরিষ্কার করে ধুয়ে দুধ দিয়ে সিদ্ধ করে নিন। ঠা-া হলে শিল-পাটায় অথবা ব্লেন্ডারে মিহি করে বেটে নিন। ননস্টিক প্যানে ঘি দিয়ে কাঁঠালের বিচি বাটা কষিয়ে নিয়ে ছানা হাত দিয়ে ভেঙে দিন। নেড়েচেড়ে মিশিয়ে কনডেন্সড মিল্ক দিন। অনবরত নাড়ুন, তলায় যেন না ধরে যায়। এলাচ গুঁড়া দিয়ে দিন। আঠালো হয়ে প্যানের গা থেকে ছেড়ে এলে ঘি মাখা ট্রেতে ঢেলে সমান করে বিছিয়ে ইচ্ছামতো শেপে কেটে নিন। অথবা চাঁচে ঢেলে সন্দেশ বানিয়ে বাদাম দিয়ে পরিবেশন করুন।

আলুর দম
উপকরণ : কাঁঠালের বিচি ২০০ গ্রাম, আলু ২০০ গ্রাম, পানি ঝরানো টক দই আধা কাপ, টমেটো পিউরি ২ টেবিল চামচ, পেঁয়াজ কুঁচি ৩ টেবিল চামচ, আদা বাটা ১ টেবিল চামচ, রসুন বাটা আধা টেবিল চামচ, হলুদ, মরিচ, ভাজা জিরা গুঁড়া আধা চা চামচ, গরম মসলা গুঁড়া আধা চা চামচ, কাঁচা মরিচ ৫টি, এলাচ-দারচিনি-তেজপাতা-লং ২টি করে, লবণ পরিমাণমতো, চিনি ১ চা চামচ, তেল ২ টেবিল চামচ, ঘি ২ টেবিল চামচ, আস্ত জিরা ১ চা চামচ।
যেভাবে তৈরি করবেন : কাঁঠালের বিচি পরিষ্কার করে সিদ্ধ করে নিন। আলুও সিদ্ধ করে খোসা ফেলে নিন। কড়াইতে তেল ও ১ টেবিল চামচ ঘি দিয়ে গরম হলে আস্ত জিরার ফোড়ন দিন। আস্ত গরম মসলাও দিন। মসলা ভাজার সুগন্ধ বের হলে পেঁয়াজ কুঁচি দিন। পেঁয়াজ নরম হলে আদা, রসুন বাটাসহ অন্যান্য মসলা দিন। জিরা ও গরম মসলা গুঁড়া দেবেন না। আধা কাপ পানি দিয়ে মসলা কষিয়ে টমেটো পিউরি ও দই দিয়ে কষান। সব কষানো হলে বিচি ও আলু দিয়ে ভাজুন। ভাজা ভাজা হলে আলু ডুবিয়ে গরম পানি দিন। ঝোল মাখা মাখা হলে চিনি, জিরা ও গরম মসলা গুঁড়া, কাঁচা মরিচ ও অবশেষে ১ টেবিল চামচ ঘি দিয়ে নেড়ে ১০ মিনিট দমে রেখে নামিয়ে নিন। রুটি বা ভাতের সঙ্গে পরিবেশন করুন।

 

শেয়ার করুন

Developed by: Sparkle IT