ধর্ম ও জীবন

ইসলামে প্রতিবেশীর হক 

সাখাওয়াত উল্লাহ প্রকাশিত হয়েছে: ২৭-০৯-২০১৯ ইং ০১:২০:১১ | সংবাদটি ১০০ বার পঠিত

মানুষ সামাজিক জীব। তাই মানুষ একাকী থাকতে পারে না। সমাজবদ্ধ হয়ে থাকতে হয় মানুষকে। আদম (আ.) কে প্রথম মানব হিসেবে সৃষ্টি করার পর হাওয়া (আ.) কেও সৃষ্টি করা হয়েছিল, যাতে আদম (আ.) কে নিঃসঙ্গ হয়ে থাকতে না হয়। অতঃপর তাঁদের একসঙ্গে জান্নাতে থাকতে দেওয়া হয়েছিল। আল্লাহ তাআলা ইরশাদ করেন, ‘হে আদম, তুমি ও তোমার স্ত্রী জান্নাতে বসবাস করো, তোমাদের যেখান থেকে ইচ্ছা সেখান থেকে খাবার গ্রহণ করবে, তবে এই গাছের কাছেও আসবে না, নতুবা তোমরা জালিম বলে গণ্য হবে।’ (সুরা : আরাফ, আয়াত : ১৯)
মূলত পারস্পরিক ভালোবাসা-সৌহার্দ্যবোধ এবং একে অন্যের সহযোগিতার দরুন মানুষ একসঙ্গে বসবাস করতে বাধ্য। তাই আল্লাহ তাআলা ইরশাদ করেন, ‘তার নিদর্শনের একটি হলো, তিনি তোমাদের থেকেই স্ত্রীদের সৃষ্টি করেছেন, যেন তাদের কাছে তোমরা প্রশান্তি অনুভব করো। তিনি তোমাদের মধ্যে ভালোবাসা ও দয়া ঢেলে দিয়েছেন, এতে চিন্তাশীল জাতির জন্য অনেক নিদর্শন রয়েছে।’ (সুরা : রুম, আয়াত : ২১)
গোষ্ঠীবদ্ধভাবে থাকা মানুষের একটি সহজাত চাহিদা। তাই চাইলেও কেউ একাকী থাকতে পারে না। পারস্পরিক সহযোগিতা ও ভালোবাসা থাকলে মানুষের জীবন সত্যিকারভাবেই সুন্দর হয়। মানুষের মাঝে নানা গোষ্ঠী ও সমাজ থাকবে। সেখানেই মানুষ বসবাস করবে। আল্লাহ তাআলা বলেন, ‘হে মানুষ, আমি তোমাদের পুরুষ ও নারী থেকে সৃষ্টি করেছি এবং তোমাদের অনেক জাতি ও গোষ্ঠীতে বিভক্ত করেছি, যাতে তোমরা একে অপরকে চিনতে পারো, তোমাদের মধ্যে আল্লাহর কাছে সেই ব্যক্তি সবচেয়ে সম্মানিত, যে তোমাদের মাঝে সবচেয়ে বেশি তাকওয়াবান, আল্লাহ তাআলা সর্বজ্ঞাত ও সর্ববিষয়ে অবগত।’ (সুরা : হুজুরাত, আয়াত : ১৩)
সমাজজীবনের প্রেক্ষাপটেই ইসলামের বিধি-বিধান আল্লাহ তাআলা অবতীর্ণ করেছেন। তাই কুরআন-হাদিসের দিকনির্দেশনা ও ইসলামের শিষ্টাচারগুলো সমাজের মানুষের মাঝে প্রস্ফুটিত হওয়ার জন্য আল্লাহ ও তাঁর প্রিয় রাসুল (সা.) আমাদের জানিয়েছেন। ইসলামের মৌলিক পাঁচটি বিধান সমাজ জীবনের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট। তাই ইসলামের সঙ্গে মানবসমাজের এক নিবিড় সম্পর্ক বিদ্যমান।
ইসলামপূর্ব সময়ে মক্কায় চরম বিশৃঙ্খলা ও বিপর্যয় বিরাজ করছিল। ন্যায়বিচার, নিরাপত্তা, ভ্রাতৃত্ববোধ, সৌহার্দ্য-ভালোবাসা, পারস্পরিক সহযোগিতাসহ শিষ্টাচার হারিয়ে যায়। কিন্তু ইসলাম এসে সমাজকে নতুনভাবে সাজাতে থাকে। ইসলামের সুশীতল ছায়ায় এসে মানুষ পরিণত হয় সোনার মানুষে। তাই সমাজচ্যুত কেউ ইসলামের মৌলিক আদর্শ লালন করতে পারে না। সবাইকে নিয়ে বসবাস করা এবং সংঘবদ্ধ হয়ে সুষ্ঠু-সুশৃঙ্খল জীবন যাপন করাই ইসলামের মূল চাহিদা। তাই আল্লাহ তাআলা বলেন, ‘আর তোমরা সবাই মিলে আল্লাহর রজ্জু শক্তভাবে আঁকড়ে ধরো, বিচ্ছিন্ন হয়ো না, তোমাদের ওপর আল্লাহর নিয়ামতের কথা স্মরণ করো যখন তোমরা ছিলে পরস্পর শত্রুভাবাপন্ন, অতঃপর তিনি তোমাদের অন্তর এক করেছেন এবং তোমরা তাঁর অনুগ্রহে পরস্পর ভাই ভাই হয়েছ।’ (সুরা : আলে ইমরান, আয়াত : ১০১)
অসহায়দের সহায় হওয়া সামাজিক দায়িত্ব :
সমাজের সব মুসলিম ভাই ভাই। সমাজের সবার মাঝে কোনো ধরনের পার্থক্য থাকবে না। সবাই নিজ যোগ্যতা বলে সম্মানের অধিকারী হবে। আর আল্লাহর কাছে শুধু তাকওয়া বা খোদাভীতির গুণেই সম্মানিত হবে। এক মুসলিমের সমস্যায় অন্য মুসলিম এগিয়ে আসবে। সবার প্রতি সবার ভালোবাসা ও সৌহার্দ্যবোধ থাকবে। আল্লাহ তাআলা ইরশাদ করেন, ‘মুমিনরা একে অপরের ভাই, তাই তোমরা তোমাদের ভাইদের সঙ্গে শান্তি স্থাপন করো এবং আল্লাহকে ভয় করো, যাতে তোমরা অনুগ্রহপ্রাপ্ত হও।’ (সুরা : হুজুরাত, আয়াত : ১০)
আল্লাহ তাআলা সমাজের সব শ্রেণির প্রতি অনুগ্রহ ও সহায়তা প্রদানে উদ্বুদ্ধ করেছেন। সমাজের অসহায়, দুস্থ, দরিদ্র ও এতিমদের প্রতি সাহায্য-সহযোগিতার হাত বাড়ানোর নির্দেশ দিয়েছে ইসলাম। ইসলামে এতিমদের প্রাপ্য প্রদানে অত্যধিক গুরুত্বারোপ করা হয়েছে। আল্লাহ তাআলা ইরশাদ করেন, ‘তোমরা এতিমের সম্পদের কাছেও যাবে না, তবে তারা প্রাপ্তবয়স্ক হওয়া পর্যন্ত ন্যায়সংগতভাবে তা ব্যয় করতে পারবে।’ (সুরা : আনআম, আয়াত : ৩৪)
অন্যদিকে যারা এতিমের প্রতি দয়ার্দ্র হয় না, তাদের সম্পর্কে পবিত্র কুরআনে অনেক ধমকি এসেছে। আল্লাহ তাআলা ইরশাদ করেন, ‘আপনি কি এমন লোক দেখেছেন, যে দ্বিন ইসলাম অস্বীকার করে? সে ওই লোক, যে এতিমকে তাড়িয়ে দেয়, অসহায়-দুস্থদের খাওয়াতে কাউকে উদ্বুদ্ধও করে না।’ (সুরা : মাউন, আয়াত : ১-৩)
যারা প্রকৃত মুমিন তাদের অন্যতম গুণ হলো অসহায়দের প্রতি সহানুভূতি দেখানো। তাই আল্লাহ তাআলা বলেন, ‘খাবারের প্রতি তাদের খুব প্রয়োজন থাকা সত্ত্বেও অসহায়, এতিম ও কয়েদিদের আহার প্রদান করে।’ (সুরা : দাহর, আয়াত : ৮)
যেকোনো নিপীড়িত মুমিনকে সাহায্য করা একজন মুসলিমের ঈমানি দায়িত্ব। তাই রাসুল (সা.) ইরশাদ করেন, ‘তুমি তোমার ভাইকে সাহায্য করো, চাই সে জালিম হোক বা মাজলুম হোক। এ কথা শুনে উপস্থিত সাহাবারা জালিমকে সাহায্য করার তাৎপর্য সম্পর্কে জিজ্ঞেস করলেন। রাসুল (সা.) বলেন, ‘জালিমকে জুলুম থেকে বিরত রাখাই তাকে সাহায্য করা।’ (বুখারি ও মুসলিম)
ইসলাম সবার সঙ্গে সুন্দর আচরণের তাগিদ দেয় :
সবার সঙ্গে সুন্দর আচরণের শিক্ষা দেয় ইসলাম। একজন মুমিন অন্য মুমিনকে ভাই হিসেবে মনে করবে। এতে তাদের সম্পর্ক সুদৃঢ় হবে। একে অপরের বিপদ-আপদে সহায্য করবে। নিজের জন্য যা ভালো মনে করে, অপরের জন্য তা ভালো মনে করবে। সব মুমিনকে পরস্পরের ভাই সম্বোধন করে আল্লাহ তাআলা বর্ণনা করেছেন, ‘নিশ্চয় মুমিনরা একে অপরের ভাই।’ (সুরা : হুজুরাত, আয়াত : ১০)
রাসুল (সা.) বলেন, ‘কেউ প্রকৃত মুমিন হতে পারবে না, যতোক্ষণ পর্যন্ত সে ভাইয়ের জন্য তা পছন্দ না করে যা সে নিজের জন্য পছন্দ করে।’ (বুখারি ও মুসলিম)
আরেক হাদিসে রাসুল (সা.) বলেন, ‘মুসলিম অন্য মুসলিমের ভাই। সে ভাইকে অত্যাচার করবে না। অপমান-অপদস্থ করবে না। রাসুল (সা.) বুকের দিকে ইশারা করে তিনবার বলেন, তাকওয়া এখানে। মুসলিম ভাইকে তুচ্ছতাচ্ছিল্য করা অন্যায়। তাই অন্য মুসলিমের রক্ত, সম্পদ ও সম্মানে আঘাত হানা হারাম।’ (মুসলিম)
প্রতিবেশীর সঙ্গে উত্তম আচরণ :
সামাজিক জীবনে প্রতিবেশীর ভূমিকা অনেক বেশি। তাই ইসলামে প্রতিবেশীর অনেক কর্তব্য ও অধিকার আছে। সাধারণত যেকোনো প্রতিবেশী প্রয়োজনের মুহূর্তে আগে আসে। তাই আল্লাহ তাআলা তাদের প্রতি সুন্দর ব্যবহারের আদেশ দিয়েছেন। আল্লাহ তাআলা ইরশাদ করেন, ‘তোমরা আল্লাহর ইবাদত করো, কাউকে তাঁর সঙ্গে শরিক করবে না, পিতা-মাতা, আত্মীয়-স্বজন, এতিম, অভাবগ্রস্ত, নিকট প্রতিবেশী, দূর প্রতিবেশী, সঙ্গী-সাথি, মুসাফির ও দাস-দাসীদের সঙ্গে সদ্ব্যবহার করো, নিশ্চয়ই আল্লাহ তাআলা দাম্ভিক ও অহংকারীকে পছন্দ করেন না।’ (সুরা : নিসা, আয়াত : ৩৬)
প্রতিবেশীর সঙ্গে সুন্দর আচরণ করা এবং সব ধরনের কষ্ট দেওয়া থেকে বিরত থাকা প্রত্যেক মুসলিমের অন্যতম দায়িত্ব। রাসুল (সা.) বলেছেন, ‘যে ব্যক্তি আল্লাহ ও রাসুলের প্রতি ঈমান রাখে, সে যেন তার প্রতিবেশীকে কষ্ট না দেয়।’ (মুসলিম)
প্রতিবেশীকে বিভিন্ন সময় খাদ্য প্রদান করাও কর্তব্য। রাসুল (সা.) ইরশাদ করেন, ‘মুমিন এমন হবে না যে সে তৃপ্তিসহ আহার গ্রহণ করবে আর তার প্রতিবেশী অনাহারে থাকবে।’ (বায়হাকি)
প্রতিবেশীর এতো বেশি অধিকার যে জিবরাঈল (আ.) রাসুল (সা.) কে বারবার এ বিষয়ে সতর্ক করতে থাকেন। রাসুল (সা.) ইরশাদ করেন, ‘জিবরাঈল আমাকে প্রতিবেশী সম্পর্কে এতো বেশি নির্দেশনা দিয়েছেন, আমার মনে হচ্ছিল, তিনি তাদের আমার ওয়ারিস বানিয়ে দেন।’ (বুখারি ও মুসলিম)
প্রতিবেশী যেমনই হোক না কেন, তার সঙ্গে সদ্বব্যহার করার শিক্ষা দেয় ইসলাম। ব্যক্তিগত ও সামাজিক জীবনের প্রতিটি ক্ষেত্রে কল্যাণের পথের যাত্রী হলে মানবজীবনের অস্থিরতা দূর হবে। দুশ্চরিত্র, মন্দ স্বভাব, পাপাচারসহ সর্বপ্রকার অকল্যাণ থেকে বেঁচে থাকতে হবে। তদুপরি সমাজের দুস্থ-অসহায় ও দরিদ্রদের পাশে দাঁড়াতে হবে। পাড়া-প্রতিবেশীর সঙ্গে সৌহার্দ্যময় আচরণ করতে হবে। তবেই সার্থক, সুন্দর ও মানবতার বাসযোগ্য একটি সমাজ গড়ে উঠবে।

শেয়ার করুন

Developed by: Sparkle IT