শেষের পাতা

চিঠির সেকাল-একাল

প্রকাশিত হয়েছে: ০৯-১০-২০১৯ ইং ০৩:১০:৫৭ | সংবাদটি ৯০ বার পঠিত

এনামুল হক রেনুঃ উন্নত প্রযুক্তির এই বিশ্বে ডাক বহন এখন এক লুপ্ত পেশার নাম, শুধুই ইতিহাস। মোবাইল ও ইন্টারনেট প্রযুক্তির দাপটে চিঠি লেখার সংস্কৃতি বিলুপ্ত হয়েছে অনেক আগেই। ইমেইল, মোবাইল ফোনের কারণে কমে গেছে ডাকযোগে চিঠি পাঠানোর প্রয়োজনীয়তা। দেশের ডাকঘরগুলোতে ব্যস্ততার দিন এখন অতীত। পার্সেল সার্ভিস ও মানি ওর্ডার সার্ভিসসহ ডাক বিভাগের আরও কিছু সেবা থাকলেও সেগুলোর অবস্থাও চিঠির মতই। সেবা থাকলেও নেই সেবাগ্রহীতা।
চিঠি চালাচালি কখন থেকে শুরু, এর সঠিক দিন জানা না গেলেও উপমহাদেশে প্রাচীনতম কাল থেকেই চিঠির প্রচলন ছিল। এক সময় কবুতরের মাধ্যমে চিঠিপত্র চালাচালি হতো বলে জানা গেছে।
বাংলাদেশে রানার বা ডাকপিয়নদের আবির্ভাব ১২০৬ থেকে ১২১০ সালের মধ্যে। তখন দিল্লির সুলতান কুতুবউদ্দিন আইবেক। আরবদের অনুকরণে দিল্লি থেকে বাংলাদেশ পর্যন্ত এক ধরনের ডাক ব্যবস্থা চালু করেন তিনি। রানাররা তখন পরিচিত ছিলেন ধাওয়া হিসেবে। ১২৯৬ সালে সুলতান আলাউদ্দিন খিলজী পথচারী মানুষের সাহায্যে ডাক সার্ভিস চালু করেন। এরপর ১৩২৫ থেকে ১৩৫১ সালে মোহাম্মদ বিন তুগলকের শাসনামলেও ঘোড়ার সাহায্যে বহনকারী ডাক এবং পায়ে হেঁটে সাধারণ ডাকের ব্যবস্থা ছিল। মোঘল শাসনের সময় রানারদের নতুন পরিচয় হয় ডাক হরকরা। ডাক প্রশাসনের সর্বনিম্ন স্তরের কর্মী ছিলেন এরা। ১৭৭৪ সালে ব্রিটিশ শাসনের সময় কলকাতায় জিপিও বা জেনারেল পোস্ট অফিস স্থাপন করা হয়। তখন বাংলাদেশের ভেতরে ডাক আনা নেওয়ার জন্য তখন ৪১৭ জন ডাক হরকরা বা রানার ছিলেন। বাংলাদেশে ১৯৭১ সালের ১৭ এপ্রিল কুষ্টিয়া জেলার মুজিবনগরে বাংলাদেশের প্রবাসী সরকার গঠনের সঙ্গে সঙ্গে সীমান্ত এলাকায় ৫০টি মাঠ পর্যায়ের ডাকঘর চালুর মাধ্যমে যাত্রা শুরু করেছিল ডাক বিভাগ। আর ১৯৭১ সালের ২৯ জুলাই একইসঙ্গে মুজিবনগর সচিবালয়, বাংলাদেশের বিভিন্ন কূটনৈতিক মিশন এবং লন্ডনের হাউজ অব কমন্সে বিশেষ ধরনের আটটি স্ট্যাম্প চালু করা হয়। এরপর বাংলাদেশ স্বাধীন হবার পর তদানীন্তন ইস্টার্ণ সার্কেলের পোস্ট মাস্টার জেনারেল এ এম আহসানউল্লাহকে ডাক বিভাগের মহাপরিচালক নিয়োগ দেয়া হয়।
প্রযুক্তির প্রভাবে ডাক বিভাগের কার্যক্রম বদলে গেলেও এখনো সারা দেশে রয়েছে ডাকঘর। নিয়মিত কর্মকর্তা-কর্মচারিও রয়েছেন। বিশাল জনবল এবং অবকাঠামো সমৃদ্ধ এ বিভাগকে এখন আর শুধু চিঠিপত্র ও পার্সেল আদান-প্রদান এবং মানি অর্ডার জাতীয় কার্যক্রমের মাধ্যমে টিকিয়ে রাখা সম্ভব হচ্ছে না। প্রযুক্তির চ্যালেঞ্জ মোকাবিলা করে প্রতিযোগিতামূলক বিশ্বে টিকে থাকতে বাংলাদেশ ডাক বিভাগেও নেয়া হয়েছে নানা উদ্যোগ। বর্তমানে ডাক বিভাগের আয়ের সবচেয়ে বড় খাত বৈদেশিক শাখার পার্সেল প্রেরণ। এছাড়া, নতুন সংযোজন হয়েছে ডিজিটাল পদ্ধতিতে মোবাইল ব্যাংকিং সার্ভিস ‘নগদ’। মোবাইল সংযোগে ইউএসডি কোডের মাধ্যমে এবং ইন্টারনেট সহযোগে অ্যাপের মাধ্যমে মিলছে সেবাটি। মূলত বিদ্যমান মোবাইল ব্যাংকিং সেবাগুলোর চেয়ে কয়েকগুণ বেশি লেনদেন সীমা এবং ব্যালেন্স সুবিধা অনলাইন নির্ভর শ্রেণিকে বেশ আকর্ষণ করছে। পাশাপাশি সরকারের সংশ্লিষ্টতা ও বেসরকারি ব্যবস্থাপনা এই সেবায় কাছে টানছে শহুরে ও প্রান্তিক নাগরিকদের।
নগরীর সুবিদবাজার নিবাসী আলহাজ্ব শফিকুর রহমান বলেন, বর্তমানে আধুনিক তথ্য-প্রযুক্তির ছোঁয়ায় অনেক দূর এগিয়ে গেছে অনেকেই। সবাই চায় কম সময়ে কম খরচে দৈনন্দিন চাহিদার সমাধান করতে। তাই, চিঠির প্রয়োজনীয়তা কেউ অনুভব করে না। এমতাবস্থায় ডাকবিভাগকে আরো আধুনিক করা প্রয়োজন। তা না হলে ডাক বিভাগ তার ঐতিহ্য হারিয়ে ফেলবে।
সিলেট প্রধান ডাকঘরের অবসরপ্রাপ্ত ডেপুটি পোস্ট মাস্টার মো. আব্দুল গনি জানান, একটা সময় ছিল যখন ডাক বিভাগ ছিল যোগাযোগের একমাত্র মাধ্যম। তখন চিঠি থেকে শুরু করে পণ্য পার্সেল, টাকা পরিবহনে একমাত্র ভরসাই ছিল ডাক বিভাগ। কিন্তু তথ্য প্রযুক্তির সাথে তাল মিলাতে পারছে না এ ডাক বিভাগ।
তিনি ডাক বিভাগকে জনমুখী করতে জনবল সংকটের সমাধান এবং দাপ্তরিক কার্যক্রম পরিচালনায় গতি বাড়ানোর বিষয়টিকে গুরুত্ব দেন।

শেয়ার করুন
শেষের পাতা এর আরো সংবাদ
  • স্বেচ্ছাসেবক লীগের নেতৃত্বে নির্মল-বাবু
  • কর্মচারীদের দাবি শিগগিরই বাস্তবায়িত হবে ---- বিভাগীয় কমিশনার
  • সিলেটে তিনদিনে কর আদায় ১৬ কোটি ৬১ লাখ টাকা
  • সিলেটে ডিজেল সংকট
  • তাদের ভালোবাসা দিন, অসাধারণ সাফল্যে আমাদের অনুপ্রাণিত করবে
  • টাইগারদের লজ্জাজনক হার
  • যুদ্ধবিরতি লঙ্ঘন করে গাজায় ইসরাইলী বোমা
  • ১৬ কোটি মানুষের দেশে ২৫ ভাগ গাছ কীভাবে রক্ষা হবে-----পরিবেশমন্ত্রী
  • ছবি
  • জনগণের অধিকার প্রতিষ্ঠায় তীব্র গণজাগরণ সৃষ্টি করতে হবে --------চরমোনাই পীর
  • ব্রিটিশ বাংলাদেশি হুজহু’র ১২তম প্রকাশনা ও এওয়ার্ড প্রদান
  • এমপি মানিকের বিরুদ্ধে বক্তব্যের প্রতিবাদে ছাতকে মানববন্ধন, সড়ক অবরোধ
  • স্বামী বিবেকানন্দের ভাবধারায় উজ্জীবিত হোক যুব সম্প্রদায় ------- এল কৃষ্ণমূর্তি
  • অবৈধপথে আসা ভারতীয় পেঁয়াজসহ দুইজন আটক
  • ফেসবুকের কাছে ১২৩ জনের তথ্য চেয়েছে সরকার
  • ভারতের ‘রান পাহাড়ে’ কোনঠাসা টাইগাররা
  • ছাদ থেকে পড়ে প্রাণ হারালেন নির্মাণ শ্রমিক
  • সিলেটে কর মেলায় দুই দিনে আদায় ৬ কোটি ৬৪ লাখ টাকা
  • ‘বিশ্বের মুসলিমরা বুকের তাজা রক্ত দিয়ে হলেও বাবরী মসজিদ রক্ষা করবে’
  • সিলেট জেলা বিএনপির আহ্বায়ক কমিটির সভা আজ
  • Developed by: Sparkle IT