প্রথম পাতা মেয়ে শিশুটি এখনো সেইফ হোমে

শিশু গৃহকর্মীকে নির্যাতনকারী ডাক্তার দম্পতির বিরুদ্ধে মামলা

প্রকাশিত হয়েছে: ১০-১০-২০১৯ ইং ০২:৩৬:৫৪ | সংবাদটি ৩৫ বার পঠিত

স্টাফ রিপোর্টারঃ নগরীর সুবিদবাজারে হোমিও ডাক্তার দম্পতির বাসায় চুরির অপবাদ দিয়ে শিশু গৃহকর্মীকে নির্যাতন এর ঘটনায় আদালতে মামলা দায়ের করেছেন নির্যাতিত শিশুর মা আমিনা বেগম। গতকাল বুধবার ডাক্তার দম্পতি সাবিহা সুলতানা ও মুসলিম আলীর বিরুদ্ধে সিলেটের অতিরিক্ত চীফ মেট্রোপলিটন ম্যাজিষ্ট্রেট আদালতে এ মামলা দায়ের করেন। অন্যদিকে নির্যাতিত শিশুটি এখনো সেইফ হোমে রয়েছে। আজ বৃহস্পতিবার নারী ও শিশু আদালতে তার জামিনের শুনানি হওয়ার কথা রয়েছে। এঘটনায় অভিযুক্ত কতোয়ালী থানার এসআই জুবায়েদ খানকে ক্লোজড করে পুলিশ লাইনে যুক্ত করা হয়েছে। তার বিরুদ্ধে তদন্ত চলছে।
রোববার দুপুরে নগরীর সুবিদবাজার এক্সেল টাওয়ারের ৯ম তলায় (ফ্ল্যাট নম্বর-এ) পুলিশ কর্তৃক শিশু ও মা নির্যাতনের ঘটনা ঘটে হোমিও চিকিৎসক ডা: সাবিহা সুলতানা ও ডাঃ মুসলিম আলীর নামের দম্পতির ফ্ল্যাটে। নির্যাতিত মেয়ে ও মায়ের পরিবারের এই অভিযোগ সিলেট মেট্রোপলিটন পুলিশের (এসএমপি) কতোয়ালী থানার এস আই জুবায়েদ খানের বিরুদ্ধে। এরপর নির্যাতিত পরিবারের সদস্যদের নির্যাতনের চিত্র তুলে ধরে সোমবার দৈনিক সিলেটের ডাক-এ একটি প্রতিবেদন প্রকাশ করা হয়। বিষয়টি পুলিশের উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের নজরে এলে তাৎক্ষণিকভাবে তদন্ত কমিটি গঠন করে অভিযুক্ত পুলিশের এসআই জুবায়েদ খানকে ক্লোজড করে তাকে পুলিশ লাইনে সংযুক্ত করা হয়।
অন্যদিকে, শিশুটির পরিবারের পক্ষ থেকে অভিযোগ করা হয়, রোববার বেলা ১১টা থেকে শিশু গৃহকর্মী ও তার দুই ভাইকে ডাক্তার দম্পতির বাসায় প্রথম দফা ও পরে থানায় নিয়ে অমানবিক নির্যাতন করেন এসআই জুবায়েদ। সোমবার দুপুরে আগের দিন বিকেলে ৯৯৯ এর ফোনের সূত্র ধরে ভিকটিম ও তাদের দুই ভাইকে ধরে নিয়ে আসার তথ্য দিয়ে আদালতে চালান দেয় পুলিশ। এছাড়া ডাঃ সাবিহা সুলতানা বাদী হয়ে স্বর্ণের চেইন চুরির অপরাধে শিশু মেয়েটি ও তার দুই ভাইয়ের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেন।
কতোয়ালী থানার এসআই শাহনাজ আক্তার অতিরিক্ত চীফ মেট্রোপলিটন ম্যাজিষ্ট্রেট মো: হাফিজুর রহমান ভুইয়ার আদালতে তিন ভাই বোনকে চুরির মামলায় গ্রেফতার দেখিয়ে আদালতে হাজির করেন। এতে গৃহকর্মী মেয়েটির বয়স দেখানো হয় ১৫ বছর। মামলার বাদী করা হয় ডাঃ সাবিহা সুলতানাকে। মামলা নং-১০ (০৬/১০/১৯)। ঐদিনই দুই ভাই আদালত থেকে জামিন পেলেও এখনো মেয়েটি সেইফ হোমে রয়েছে। গতকাল বুধবার নির্যাতিত মেয়েটির মা বাদী হয়ে মামলা দায়ের করেন।
আসামী পক্ষের আইনজীবী এডভোকেট কামাল হোসেন জানান, নির্যাতিত মহিলার মা বাদী হয়ে আদালতে একটি এজাহার দিয়েছেন।
পুলিশী নির্যাতনের শিকার ভিকটিমের মা আমিনা বেগম জানান, ডাক্তার দম্পতির বিরুদ্ধে আদালতে মামলা করেছেন। এবার তিনি পুলিশ সদস্যের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করবেন বলে জানান। আমিনার অভিযোগ, মেয়ের সাথে তার দুই ছেলেকেও ‘চোর’ বানানো হয়েছে। ‘আমি আদালতের কাছে আমাকে ও আমার সন্তানদের নির্যাতনের বিচার প্রার্থনা করছি’।

 

শেয়ার করুন
প্রথম পাতা এর আরো সংবাদ
  • কোম্পানীগঞ্জে পাগলা মহিষের গুঁতোয় ৩০ জন আহত
  • গ্রাম্য ‘কোন্দল’র শেষ বলি তুহিন
  • ছদ্মবেশে মৌলভীবাজার জেলা কারাগারে দুদকের অভিযান
  • জালালাবাদ রাগীব-রাবেয়া মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালে বিশ্ব এনেস্থেসিয়া দিবস পালিত
  • খাদ্য উৎপাদনে বাংলাদেশ এখন বিশ্বের রোল মডেল
  • র‌্যাগিংয়ের শিকার হলে নালিশ করুন, বিচার হবে: আইনমন্ত্রী
  • সড়ক ব্যবহারের ক্ষেত্রে সকলকে যত্নবান হওয়ার পরামর্শ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার
  • রাষ্ট্রপতির সাথে প্রধানমন্ত্রীর সাক্ষাৎ
  • সোহরাওয়ার্দীতে সমাবেশ ডেকেছে ঐক্যফ্রন্ট
  • বুয়েটে সন্ত্রাস-সাম্প্রদায়িকতা রুখে দেয়ার শপথ
  • একাদশ জাতীয় সংসদের পঞ্চম অধিবেশন শুরু ৭ নভেম্বর
  • কানাইঘাটে ১১টি ভারতীয় গরু আটক
  • সিলেটে বন বিভাগের পুনঃঅরণ্যায়নসহ ১০ প্রকল্প
  • আবারো সক্রিয় হয়ে উঠেছে পাথরখেকোরা
  • প্রতিপক্ষকে ফাঁসাতে বাবা ও চাচারাই শিশু তুহিনকে খুন করে
  • স্বাস্থ্য, শিক্ষা, শিশুমৃত্যু ও জীবনমানের ক্ষেত্রে সিলেট নগরী অনেক এগিয়ে
  • মেডিকেলে ভর্তি পরীক্ষার ফল প্রকাশ, উত্তীর্ণ ৪৯,৪১৩
  • গাইবান্ধার রঞ্জু মিয়াসহ পাঁচজনের মৃত্যুদন্ড
  • ‘দৃষ্টিহীন বিশেষ চাহিদা সম্পন্ন মানুষের সহায়তায় সকলকে এগিয়ে আসতে হবে’
  • আজ বিশ্ব খাদ্য দিবস
  • Developed by: Sparkle IT