প্রথম পাতা চলতি মাসেই শুরু হবে খনন কাজ

সাড়ে ১৩ কোটি টাকা ব্যয়ে পুনঃখনন হচ্ছে খাজাঞ্চী-মাকুন্দা নদী

প্রকাশিত হয়েছে: ১১-১০-২০১৯ ইং ০৪:৩১:৫৮ | সংবাদটি ৬২ বার পঠিত

এমদাদুর রহমান মিলাদ, বিশ্বনাথ(সিলেট) থেকে ঃ বিশ্বনাথ উপজেলার মধ্যদিয়ে প্রবাহিত খাজাঞ্চী-মাকুন্দা নদী পুনঃখননের উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়েছে। প্রায় সাড়ে ১৩ কোটি টাকা ব্যয়ে নদীর ২৮ কিলোমিটার অংশে শীঘ্রই শুরু হবে খনন কাজ। পুনঃখনন প্রকল্পের দায়িত্বপ্রাপ্ত দুটি ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান চলতি মাসেই খনন কাজ শুরু করবে এমনটাই জানিয়েছেন সিলেট পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী।
জানা যায়, সিলেট সদর উপজেলার পশ্চিম সীমান্ত ও বিশ্বনাথ উপজেলার উত্তরপূর্ব সীমান্ত লামাকাজী ইউনিয়নের তিলকপুর এলাকায় সুরমা নদী থেকে খাজাঞ্চী-মাকুন্দা নদীর উৎপত্তি। পরে নদীটি জগন্নাথপুর উপজেলায় কুশিয়ারা নদীতে মিলিত হয়েছে। উপজেলার তিলকপুর থেকে শুরু হয়ে খাজাঞ্চী গাঁও, ফুলচন্ডি, রাজাগঞ্জ বাজার ও আশুগঞ্জ বাজার হয়ে পুরান রাজাগঞ্জ বাজার পর্যন্ত প্রবাহিত নদীটি ‘খাজাঞ্চী নদী’ হিসেবে এবং পুরান রাজাগঞ্জ বাজার থেকে বৈরাগী বাজার, সিংগেরকাছ বাজার ও টুকের বাজার হয়ে জগন্নাথপুরের রসুলগঞ্জ বাজারের পাশ দিয়ে কুশিয়ারা নদীতে মিলিত নদীর অপর অংশটি ‘মাকুন্দা নদী’ হিসেবে খ্যাত।
স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, এক কালে খর¯্রােতা এই নদী প্রচন্ড স্রোতস্বীনি ছিল। নদীর পার্শ্ববর্তী এলাকার মানুষের যাতায়াতের একমাত্র মাধ্যম ছিল এই নদী। চলাচল করতো লঞ্চ ও পাল তোলা নৌকা। কিন্ত ক্রমশ পলিতে নদী ভরাট হয়ে যাওয়ায় কালের আবর্তে তা আজ হারিয়ে গেছে। পানির অভাবে দু’পারে সেচ কাজ মারাত্মক ভাবে ব্যাহত হচ্ছে। নদীতে পানি না থাকায় মাছ শিকারের উপর নির্ভরশীল অসংখ্য পরিবার দুর্ভোগে পড়ে। বর্তমানে নদীটি ‘মরা গাঙ’ হিসেবে পরিচিত। ভরাট হয়ে যাওয়া নদীর অধিকাংশে চাষাবাদ, খেলার মাঠ ও গোচারণ ভূমি হিসেবে ব্যবহার করা হচ্ছে। এদিকে, নদীর নাব্যতা কমে যাওয়ায় প্রতি বছর বর্ষায় পাহাড়ি ঢল সরাসরি পার্শ্ববর্তী বাড়ি ঘরে আঘাত হানে। ভাসিয়ে নিয়ে যায় ক্ষেতের ফসল, বাড়িঘর ও গাছপালা। এই অবস্থা থেকে বাঁচাতে এলাকাবাসীর দাবীর প্রেক্ষিতে নদী পুনঃখননের উদ্যোগ গ্রহণ করে কর্তৃপক্ষ।
পানি উন্নয়ন বোর্ড সূত্রে জানা গেছে, দু’টি ভাগে খাজাঞ্চী-মাকুন্দা নদী পুনঃখনন করা হচ্ছে। চলতি বছরের জানুয়ারি মাসে প্রকল্পের দরপত্র আহবান করা হয়। নদীর ২৮ কিলোমিটার অংশ পুনঃখননে ব্যয় ধরা হয়েছে ১৩ কোটি ৪৬ লাখ টাকা। এর মধ্যে ৭ কোটি ৫৩ লাখ টাকা ব্যয়ে নদীর উৎসমুখ তিলকপুর থেকে নদীর (১ম অংশ) ১৫ কিলোমিটার খননের দায়িত্ব পেয়েছে ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান এসএ এসআই ইসরাত এন্টারপ্রাইজ জেবি এবং ৫ কোটি ৯৩ লাখ টাকা ব্যয়ে নদীর পরবর্তী (২য় অংশ) ১৩ কিলোমিটার খননের দায়িত্ব পেয়েছে মেসার্স পূবালি এন্টারপ্রাইজ ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান। ইতিমধ্যে নদীর সীমানা চিহ্নিত করা হয়েছে। প্রথম অংশে মোট ৪ লাখ ৬৫ হাজার ঘনমিটার এবং দ্বিতীয় অংশে ৩ লাখ ২৮ হাজার ঘনমিটার মাটি কাটা হবে। খননকৃত মাটি দিয়ে নদীর তীর সংরক্ষণ এবং খননকৃত মাটি বৃষ্টির পানিতে ভিজে যাতে নদীতে না পড়ে সেজন্য ঘাস লাগানোরও প্রকল্পে নির্দেশনা রয়েছে। এছাড়া যেখানে নদীর তলদেশ খনন করা হবেনা, সে স্থান হিসাবের আওতায় আসবেনা। যদিও গত মার্চ মাসে খনন কাজ শুরু করার নির্দেশনা থাকলেও এখনো তা শুরু হয়নি। তবে সিলেট পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী মো. শহিদুজ্জামান দৈনিক সিলেটের ডাককে বলেন, বন্যার কারণে প্রকল্পের সময় মতো পুনঃখনন কাজ শুরু করা সম্ভব হয়নি। চলতি মাসেই খনন কাজ শুরু করা হবে।

শেয়ার করুন
প্রথম পাতা এর আরো সংবাদ
  • কোম্পানীগঞ্জে পাগলা মহিষের গুঁতোয় ৩০ জন আহত
  • গ্রাম্য ‘কোন্দল’র শেষ বলি তুহিন
  • ছদ্মবেশে মৌলভীবাজার জেলা কারাগারে দুদকের অভিযান
  • জালালাবাদ রাগীব-রাবেয়া মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালে বিশ্ব এনেস্থেসিয়া দিবস পালিত
  • খাদ্য উৎপাদনে বাংলাদেশ এখন বিশ্বের রোল মডেল
  • র‌্যাগিংয়ের শিকার হলে নালিশ করুন, বিচার হবে: আইনমন্ত্রী
  • সড়ক ব্যবহারের ক্ষেত্রে সকলকে যত্নবান হওয়ার পরামর্শ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার
  • রাষ্ট্রপতির সাথে প্রধানমন্ত্রীর সাক্ষাৎ
  • সোহরাওয়ার্দীতে সমাবেশ ডেকেছে ঐক্যফ্রন্ট
  • বুয়েটে সন্ত্রাস-সাম্প্রদায়িকতা রুখে দেয়ার শপথ
  • একাদশ জাতীয় সংসদের পঞ্চম অধিবেশন শুরু ৭ নভেম্বর
  • কানাইঘাটে ১১টি ভারতীয় গরু আটক
  • সিলেটে বন বিভাগের পুনঃঅরণ্যায়নসহ ১০ প্রকল্প
  • আবারো সক্রিয় হয়ে উঠেছে পাথরখেকোরা
  • প্রতিপক্ষকে ফাঁসাতে বাবা ও চাচারাই শিশু তুহিনকে খুন করে
  • স্বাস্থ্য, শিক্ষা, শিশুমৃত্যু ও জীবনমানের ক্ষেত্রে সিলেট নগরী অনেক এগিয়ে
  • মেডিকেলে ভর্তি পরীক্ষার ফল প্রকাশ, উত্তীর্ণ ৪৯,৪১৩
  • গাইবান্ধার রঞ্জু মিয়াসহ পাঁচজনের মৃত্যুদন্ড
  • ‘দৃষ্টিহীন বিশেষ চাহিদা সম্পন্ন মানুষের সহায়তায় সকলকে এগিয়ে আসতে হবে’
  • আজ বিশ্ব খাদ্য দিবস
  • Developed by: Sparkle IT