শেষের পাতা

ছাতকে গ্রামীণ সড়ক পাকাকরণ ও ব্রিজ নির্মাণে অনিয়ম, এলাকাবাসীর চাপে কাজ বন্ধ

প্রকাশিত হয়েছে: ১৮-১০-২০১৯ ইং ০২:৫৯:৩২ | সংবাদটি ৪৫ বার পঠিত

ছাতক (সুনামগঞ্জ) থেকে নিজস্ব সংবাদদাতা : ছাতকে গ্রামীণ সড়কের কাজে নি¤œমানের নির্মাণ সামগ্রী ব্যবহার করায় এলাকার লোকজন কাজটি বন্ধ করে দিয়েছেন। জনতার তোপের মুখে ঠিকাদার সড়কের চলমান এ কাজ বন্ধ করেন। অন্যদিকে, ওই কাজে নিয়োজিত শ্রমিকদের মজুরী দিতে ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানকে বাধ্য করা হয়। কাজে গুণগত মান সঠিক না হওয়ায় যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহণের দাবীতে গত বুধবার সচেতন এলাকাবাসীর পক্ষে নবনির্বাচিত ইউনিয়ন সদস্য কামাল হোসেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বরাবরে একটি লিখিত অভিযোগ দেন। অভিযোগের প্রেক্ষিতে গতকাল বৃহস্পতিবার দুপুরে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ গোলাম কবির সরেজমিন ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে কাজে দুর্নীতি ও অনিয়ম প্রত্যক্ষ করেন। এ সময় তিনি নির্মিত ব্লক ও প্রকল্প সাইডে রাখা নি¤œমানের নির্মাণ সামগ্রী ওই প্রকল্পের কাজে ব্যবহার না করার নির্দেশ দেন।
জানা যায়, স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তরের হিলমেট প্রকল্পের আওতায় উপজেলার ইসলামপুর ইউনিয়নের মাদ্রাসা বাজার থেকে জামুরা গ্রাম এবং ইসলামপুর পর্যন্ত দু’টি সড়ক ও একটি ছোট ব্রীজ নির্মাণে ১ কোটি ৯০ লক্ষ টাকা বরাদ্দ দেয়া হয়। গ্রামীণ এ প্রকল্পের কাজটি সম্পন্ন করার দায়িত্ব পায় ঢাকার এরশাদ বিল্ডার্স নামের একটি ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান। ইতিমধ্যেই ব্রীজের কাজ শেষ করে রাস্তায় ব্যবহারের জন্য ব্লক তৈরীর কাজ চলছে। নির্মিত ব্রীজের নির্মাণ কাঠামো দেখলেই এর মারাত্মক ত্রুটি যেকোন মানুষের চোখে ধরা পড়বে। রাস্তার লেভেল থেকে সাধারণত ক্রম উচ্চতায় ব্রীজ নির্মাণ করা হয়ে থাকে। এ ব্রীজটির ক্ষেত্রে নির্মাণ কাজ করা হয়েছে ঠিক উল্টোভাবে। রাস্তার স্বাভাবিক উচ্চতা থেকে ব্রীজের উচ্চতা অপেক্ষাকৃত নীচু। ফলে বর্ষায় রাস্তায় পানি উঠার আগেই ওই ব্রীজটি পানিতে তলিয়ে যায়। এ ব্রীজ নির্মাণের পর থেকে এলাকার মানুষ বর্ষা মৌসুমে দু’দিক থেকে প্রতিবন্ধকতার মুখে পড়তে হচ্ছে। পায়ে ও নায়ে উভয় ক্ষেত্রেই সৃষ্টি হয়েছে চলাচলের প্রতিবন্ধকতা। এদিকে রাস্তা পাকাকরণের জন্য নি¤œমানের সিমেন্ট ও মাটি এবং টিলার মরা পাথর মিশ্রিত লাল পাথর প্রকল্প সাইডে এনে ডাম্পিং করে রাখা হয়েছে। দু’টি অংশে ১ হাজার ২০০ মিটার এবং ৮০০ মিটার রাস্তা পাকাকরণ ও ব্লক নির্মাণের জন্য এসব নির্মাণ সামগ্রী প্রকল্প সাইডে আনা হয়। দু’টি রাস্তায় ১৪ হাজার ব্লক ব্যবহারের কথা প্রকল্প কার্যাদেশে রয়েছে। ইতিমধ্যে ব্লক নির্মাণের কাজ চলমান রয়েছে। কয়েক হাজার ব্লক এরই মধ্যে নির্মাণ করা হয়ে গেছে। অত্যন্ত নি¤œমানের সামগ্রী দিয়ে নির্মিত ব্লক রাস্তায় ব্যবহার করার আগেই ভেঙ্গে গুঁড়ো হয়ে যাচ্ছে। এলাকার মানুষের অভিযোগ, মাটি ও মরা পাথর মিশ্রিত টিলার পাথরের সাথে নি¤œমানের সিমেন্ট দিয়ে ব্লক তৈরী করায় তা ব্যবহারের আগেই ভেঙ্গে যাচ্ছে। প্রতি ১ভাগ সিমেন্টের সাথে ব্যবহার করা হচ্ছে ৮-১০ভাগ বালু-পাথর। যে কারণে নির্মিত এসব ব্লক ভেঙ্গে যাচ্ছে। কাজের ঠিকাদার সান্টু রহমান দুলাল এ ব্যাপারে জানান, তিনি বর্তমানে ঢাকায় অবস্থান করছেন। প্রকল্প সাইডে এসে বিষয়টি এলাকার লোকজনের সাথে বসে সমস্যার সমাধান করবেন।

শেয়ার করুন
শেষের পাতা এর আরো সংবাদ
  • লিবিয়ায় বিমান হামলায় বাংলাদেশিসহ নিহত ৭
  • খালেদা জিয়ার জামিন বাধাগ্রস্ত করতে বিভ্রান্তি ছড়ানো হচ্ছে
  • সিলেট-কোম্পানীগঞ্জ সড়কে এবার অটোরিক্সা ধর্মঘট
  • কিডনী রোগ থেকে বাঁচতে প্রয়োজন জনসচেতনতা ----রাশেদা কে চৌধুরী
  • রাগীব রাবেয়া মেডিকেল কলেজ পরিদর্শনে শাবিপ্রবির পরিদর্শক দল
  • চারবারের জনপ্রতিনিধি এমপি মানিককে নিয়ে কটুক্তিকারী মুকুটকে দল থেকে বহিষ্কারের দাবি
  • গণফোরাম জেলা ও মহানগর আহবায়ক কমিটি অনুমোদন
  • পুলিশের মামলায় আসামী ২৪ ॥ গ্রেফতার ৩
  • জগন্নাথপুরে আমন ধান কাটার উৎসব শুরু
  • সিলেটে কর মেলায় ৫ম দিনে আদায় সাড়ে ৭ কোটি টাকা
  • পেঁয়াজ সংকটের পেছনে সরকারের ‘অযোগ্যতা’
  • শ্রীমঙ্গলে চা শ্রমিকদের সাথে শ্রম ও কর্মসংস্থান সচিবের মতবিনিময়
  • বিএনপি-জামায়াত জোট দেশে কোনো উন্নয়ন করেনি ---------- পরিবেশমন্ত্রী শাহাব উদ্দিন এমপি
  • সিলেটে মিলবে ৪৫ টাকা কেজিতে পেঁয়াজ
  • সিলেটে চারদিনে ২০ কোটি টাকা কর আদায়
  • ১০টি দোকান ক্ষতিগ্রস্ত তিনটি প্রতিষ্ঠান পুড়েছাই
  • মূল পরিকল্পনাকারীসহ গ্রেফতার ৫ জনের আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি
  • শিক্ষা, পর্যটন ও বর্জ্য ব্যবস্থাপনা নিয়ে কাজ করতে চাই-----মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী
  • ডিজেলবাহী ওয়াগন মোগলাবাজারে এসেছে, তবে...
  • ভন্ডপীর এবং বাতিলপন্থীদের সম্পর্কে সতর্ক থাকতে হবে -------- চরমোনাই পীর
  • Developed by: Sparkle IT