সম্পাদকীয়

কোচিং নির্ভর শিক্ষা

প্রকাশিত হয়েছে: ২৩-১০-২০১৯ ইং ০০:১৫:০৪ | সংবাদটি ৯৬ বার পঠিত


আমাদের শিক্ষা ব্যবস্থা কোচিং-টিউশনি, নোট-গাইড নির্ভর হয়ে পড়েছে।-এমন অভিযোগ বুদ্ধিজীবী মহল-শিক্ষাবিদদের। সাম্প্রতিক সময়ে অভিযোগটি জোরালো হয়ে ওঠেছে বিভিন্ন ঘটনায়। কোচিং সেন্টারগুলো বন্ধের জন্য সরকার দীর্ঘদিন ধরে নানান গাল ভরা বুলি আওড়াচ্ছে; কিন্তু এগুলো বন্ধ হচ্ছে না, বরং আরও সম্প্রসারিত হচ্ছে। সবচেয়ে হাস্যকর বিষয় হলো, বিভিন্ন পাবলিক পরীক্ষার প্রাক্কালে নির্দিষ্ট সময়ের জন্য কোচিং সেন্টারগুলো বন্ধের নির্দেশ দেয় সরকার। কিন্তু সেই নির্দেশনাও কার্যকর হয় না। আর নোট-গাইড বন্ধেরও নির্দেশ দিয়ে রাখা হয়েছে অনেক আগে। মাঝে মধ্যে বিচ্ছিন্নভাবে অভিযানও চালানো হয় বইয়ের দোকানে। নোট-গাইড বিক্রির দায়ে জরিমানাও করা হয়। ওই পর্যন্তই। নোট-গাইড বিক্রি হচ্ছে দেদার, আর শিক্ষার্থীরা নির্ভরশীল হয়ে উঠছে নোট-গাইডের ওপর। শুধু শিক্ষার্থী নয়, শিক্ষকেরাও এগুলোর ওপর নির্ভরশীল হয়ে ওঠছে।
সম্প্রতি একটি বেসরকারি সংস্থার জরিপের তথ্য হচ্ছে-মাধ্যমিক স্তরের শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ৩৭ ভাগ শিক্ষক নোট-গাইড দিয়ে পাঠদান করছেন। তাছাড়া শিক্ষকদের ২২ দশমিক চার শতাংশই প্রাইভেট ও কোচিং বাণিজ্যে সম্পৃক্ত। ৫৬ শতাংশের বেশি শিক্ষক নিজে প্রশ্নপত্র তৈরি করতে পারেন না। এছাড়া, আর্থিক দূরবস্থার কারণে অনেক শিক্ষক ব্যবসাসহ নানা ধরনের কাজে সম্পৃক্ত হয়ে বাড়তি আয় করার চেষ্টা করছেন। নোট-গাইড আর প্রাইভেট কোচিংয়ের কবল থেকে মুক্ত হতে পারছে না আমাদের শিক্ষা ব্যবস্থা। এর অন্যতম কারণ হলো শিক্ষকদের অদক্ষতা এবং দায়িত্বহীনতা। তারা ক্লাসে পাঠদানে মনোযোগী না হলেও কোচিং সেন্টারে ঠিকই যথাযথ দায়িত্বশীলতার মাধ্যমে শিক্ষার্থীদের পাঠদান করে থাকেন। অপরদিকে অনেক শিক্ষক দক্ষতা ও অভিজ্ঞতার অভাবে শিক্ষার্থীদের পাঠদানে নোট-গাইডের আশ্রয় নেন। তারা প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে শিক্ষার্থীদের দিয়ে নোট-গাইড কিনতে বাধ্য করেন। আর নোট-গাইড নির্ভর শিক্ষা কোন অবস্থাতেই সুশিক্ষিত প্রজন্ম গড়ে তুলতে পারে না। শিক্ষার্থীরা মূলত মুখস্ত নির্ভর লেখাপড়া করছে এই নোট-গাইডের মাধ্যমে। এতে তাদের প্রকৃত জ্ঞান অর্জিত হচ্ছে না।
নোট-গাইড আর কোচিং নির্ভর শিক্ষার এই গ্যাঁড়াকল থেকে বেরিয়ে আসতে হবে। এর জন্য শিক্ষা প্রতিষ্ঠানেই যথাযথ পাঠদান নিশ্চিত করতে হবে। নোট-গাইডের সাহায্য ছাড়া পাঠদানে দক্ষ শিক্ষক গড়ে তুলতে হবে। শিক্ষার্থীরা ক্লাসে বসে নির্দিষ্ট বিষয়ে লেখাপড়া শিখতে পারলে তারা কোচিং সেন্টারমুখী হবে না। তখন তাদের আর নোট -গাইডেরও প্রয়োজন হবে না। সরকার শিক্ষার্থীদের বিনামূল্যে বই দিচ্ছে, দেয়া হচ্ছে উপবৃত্তি। মূলত সন্তানদের লেখাপড়ায় যাতে অভিভাবকের আর্থিক চাপ কমে আসে তার জন্যই সরকারের এই উদ্যোগ। কিন্তু নোট-গাইড আর কোচিংয়ে অভিভাবকদের ব্যয় করতে হচ্ছে বিপুল পরিমাণ অর্থ।

শেয়ার করুন

Developed by: Sparkle IT