সম্পাদকীয় যে লোক কম কথা বলে বা চুপ থাকে সে লোক অনেক বিপদ থেকে মুক্ত। -আল হাদিস

হস্তশিল্পের ভবিষ্যৎ

প্রকাশিত হয়েছে: ২৯-১০-২০১৯ ইং ০১:২২:২১ | সংবাদটি ৮৪ বার পঠিত

হস্তশিল্প সামগ্রী কি হারিয়ে যাচ্ছে? এই প্রশ্নটি বিশেষজ্ঞদের। বাঙালির কৃষ্টি-সংস্কৃতির সঙ্গে মিশে আছে যে শিল্প, সেটা বিলুপ্ত হয়ে গেলে তার চেয়ে দুঃখের আর কী থাকতে পারে? সত্যি বলতে কি, আমাদের ঐতিহ্যবাহী হস্তশিল্প সামগ্রী অনেকটাই হারিয়ে যাওয়ার পথে। গ্রামীণ মেলা-পূজা পার্বণে হাতের তৈরি রকমারী সামগ্রীর বিকিকিনি হয়ে আসছে সুদূর অতীত থেকে। কিন্তু আজকাল সেভাবে অনুষ্ঠিত হয় না গ্রামীণ মেলা। সেই সঙ্গে হস্তশিল্প সামগ্রীও তার ঐতিহ্য হারিয়ে ফেলছে। একেতো কাঁচামালের অভাবে এই শিল্প সংকুচিত হয়ে পড়ছে, অপরদিকে প্লাস্টিকের তৈরি বিভিন্ন দ্রব্য হাতের তৈরি পণ্যের স্থান দখল করেছে। তাই হস্তশিল্পের সঙ্গে সম্পৃক্তদের স্বল্প সুদে ঋণ প্রদান, সরকারিভাবে খাস জমি বরাদ্দ এবং হস্তশিল্প গবেষণা ও ডিজাইন উন্নয়নে প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করতে হবে।
মানবসভ্যতার ক্রমবিকাশের সঙ্গে হস্তশিল্পের উদ্ভব ও ক্রমবিকাশ অঙ্গাঙ্গিভাবে জড়িত। আমাদের অনেক ধরনের হস্তশিল্প রয়েছে, যার ঐতিহ্য হাজার বছরের। বিশেষ করে মৃৎশিল্পের উদ্ভব অনেক পুরনো। গবেষকদের মতে মধ্যপ্রাচ্যেই সর্বপ্রথম মাটির পাত্র তৈরি হয়। সেখানেই সবচেয়ে উন্নতমানের অলংকৃত মৃৎ পাত্র তৈরি হতো। ইরান, মিশর, মেসোপটেমিয়া ছাড়াও সিন্ধু তীরবর্তী এলাকা, চীন ও এশিয়া মাইনরের বিভিন্ন স্থানে প্রাচীন মৃৎশিল্পের নিদর্শন পাওয়া গেছে। তাছাড়া, ভারতীয় উপমহাদেশের মৃৎশিল্পের ইতিহাস কমপক্ষে পাঁচ হাজার বছরের প্রাচীন। আর বাংলাদেশে মৃৎশিল্পের ইতিহাসও বহুপ্রাচীন। অথচ বর্তমানে এ দেশে এই শিল্পের কদর নেই বললেই চলে। একসময় মৃৎশিল্পসহ বিভিন্ন ধরনের হস্তশিল্প ছিলো অনেকের বেঁচে থাকার সম্বল, জীবিকা নির্বাহের উপায়। পরিবেশ বান্ধব এইসব পণ্য যেমন ছিলো দামে সাশ্রয়ী, তেমনি ছিলো আকর্ষণীয়। মাটির তৈরি বিভিন্ন দ্রব্যের পাশাপাশি বাঁশ-বেতের তৈরি মানুষের দৈনন্দিন জীবনে অতি ব্যবহার্য্য নানান পণ্য প্রতিটি বাঙালির ঘরে থাকাটা ছিলো অপরিহার্য্য। এখন সেই স্থান দখল করেছে প্লাস্টিক ও এলোমিনিয়ামের তৈরি পণ্য বা পরিবেশ বিধ্বংসী। শুধু তাই নয়, এখন কাঠের তৈরি ফার্নিচারের স্থানও দখল করছে প্লাস্টিকের তৈরি পণ্য।
হস্তশিল্পের হারানো গৌরব ফিরিয়ে আনা সম্ভব। কারণ, এখনও হাতের তৈরি বিভিন্ন দ্রব্যের কদর রয়েছে দেশে-বিদেশে। বিদেশে এর রপ্তানী বাড়ছে। বিগত এক দশকে হাতের তৈরি পণ্যের রপ্তানী বেড়েছে অতীতের তুলনায় দ্বিগুণ। জানা গেছে, সারাবিশ্বে হস্তশিল্পের বাজার রয়েছে কমপক্ষে এক হাজার সাতশ’ কোটি ডলারের। সেটা অর্জন করতে হলে দেশে হস্তশিল্পের প্রসার ঘটাতে হবে। প্রধানত এর কাঁচামালের যোগান বাড়াতে হবে। বিশেষ করে সিলেট অঞ্চলে বাঁশ-বেত-মূর্তার তৈরি নানা পণ্যের কদর রয়েছে ব্যাপক। কিন্তু কাঁচামালের অভাবে এই শিল্প ধ্বংসের পথে। তাছাড়া, পাটের তৈরি নানা ধরনের পণ্য ব্যবহারে অভ্যস্থ ছিলো এদেশের মানুষ অতীতে; এখনও এর ব্যবহার বাড়ানো যায়। তবে সবকিছুর জন্য দরকার সরকারের সময়োপযোগী পৃষ্টপোষকতা।

শেয়ার করুন

Developed by: Sparkle IT