মহিলা সমাজ

সঙ্গী যখন বই

ফৌজিয়া হক প্রকাশিত হয়েছে: ২৯-১০-২০১৯ ইং ০১:৩১:৪৩ | সংবাদটি ১৩৩ বার পঠিত

মনে করে বলতে পারেন, শেষ কবে বই হাতে নিয়ে নাড়াচাড়া করেছেন বা কয়েক পৃষ্ঠা পড়েছেন? নিজেকে সুস্থ ও ভালো রাখতে বইয়ের দিকে ঝুঁকতে বলছেন বিশেষজ্ঞরা। বই পড়া শুধু যে আপনাকে মানসিক শক্তি দেয় তাই নয়, বরং মানসিকভাবে সুস্থও করবে।
বই সবসময় আমাদের নতুন এক জগতে নিয়ে যায়। বই-ই পারে আপনার মনোসংযোগ বাড়িয়ে দিতে, পাশাপাশি ভালো ঘুমেও সহায়তা করে বই। বই পড়ার কিছু উপকারিতা সম্পর্কে জেনে নিন। দেখবেন বই পড়তে আগ্রহ অনুভব করছেন। আর বই পড়ার পর টের পাবেন মানসিকভাবেও বেশ স্বস্তি অনুভব করছেন।
শব্দভান্ডার সমৃদ্ধ করে : শুধু সেসব ক্ল্যাসিক উপন্যাসগুলোই নয়, যে কোনো বই-ই আপনার শব্দভান্ডারকে বেশ সমৃদ্ধ করে। খুব সংক্ষেপে বলতে চাইলে পড়ূন, পড়ূন এবং পড়ূন। সমৃদ্ধ শব্দভান্ডার শুধু যে আপনাকে পেশাগত জীবনে সহায়তা করবে তাই নয়, বরং নিজেকে উন্নত করার কাজেও খুবই উপকারী হবে।
মানসিক চাপ থেকে মুক্তি দেয় : বই পড়লে আপনার মনে হবে আপনি অন্য একটি জগতে চলে গেছেন। কর্মক্ষেত্রে খুবই খারাপ একটি দিন কাটানোর পর বা নিজের সঙ্গে কোনো বিষয় নিয়ে অনেকটা যুদ্ধ করার পর খানিক সময় বইয়ের রাজ্যে ডুবে যান। বই পড়া শুরু করার মাত্র ছয় মিনিট পরই ফলাফল দেখতে পেয়েছেন ডাক্তাররা। এই অল্প সময়েই হূৎপি-ের গতি খানিকটা মন্থর হয় এবং দুশ্চিন্তামুক্ত হয় মন।
লক্ষ্য নির্ধারণে সহায়তা করে বই : দৈনন্দিন জীবন বিবেচনা করলে আপনি হয়তো একসঙ্গে অনেক কাজ সারতে পারেন। ই-মেইল চেক করা, অন্যান্য সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফলো করা, অফিস ও বাসা সামলানো এবং আরও অনেক কাজ একা হাতে করেন আপনি। দীর্ঘ সময়ের কথা চিন্তা করলে এসবই আপনার প্রোডাক্টিভিটি কমায় এবং এক সময় একটি বিষয়ে মনোসংযোগ করার দক্ষতা নষ্ট করে ফেলে। বই পড়তে গেলেই তেমন সব পরিস্থিতির হাত থেকে পুরোপুরিই বেরিয়ে আসেন আপনি। বই পড়তে বসলে মানুষ অন্য সবকিছু ভুলে যায় এবং তার পুরো মনোযোগ বইয়ের গল্পটিতে চলে যায়। লক্ষ্য নির্ধারণ আরও সহজ হয় মানুষটির জন্য।
ভালো ঘুমের সহায়ক : প্রতিদিন ঘুমানোর আগে আগে খানিকটা সময়ের জন্য বই পড়ার চেষ্টা করুন। বিছানায় যাওয়ার আগে আপনার সর্বশেষ কাজটা হোক খানিকটা সময় বই পড়া। কয়েক দিনের মধ্যে পার্থক্যটা নিজেই টের পাবেন।
শব্দভান্ডার বৃদ্ধি : বই পড়া শব্দভান্ডার বৃদ্ধিতে অনেক বেশি সাহায্য করে। যত বেশি বই পড়বে, ততবেশি তোমার শব্দভান্ডারে প্রতিনিয়ত নতুন নতুন শব্দ যোগ হতে থাকবে এবং এক সময় লক্ষ্য করবে তুমি তোমার কথাবার্তায় প্রায়ই সেসব শব্দ ব্যবহার করছ। এসব শব্দ ব্যবহার করে তুমি খুব সহজেই এবং স্পষ্টভাবে নিজেকে অন্যের কাছে তুলে ধরতে পারছ। নিজেকে স্পষ্টভাবে প্রকাশ করা তোমার চাকরিজীবনে এমনকি ব্যক্তিগত জীবনেও কী পরিমাণ সহায়ক হবে, তা অবশ্যই তোমার অজানা নয়। এমনকি তোমার আত্মবিশ্বাস জোগাতেও অনেক সাহায্য করবে।
নতুন ভাষা শিখতেও বই পড়ার কোনো বিকল্প নেই। এটি তোমাকে খুব দ্রুত নতুন কোনো ভাষা আয়ত্ত করতে সহায়তা করবে।
অন্যের থেকে অভিজ্ঞতা অর্জন : তুমি বইয়ে যা পড়ছ তা মূলত কারও বিশেষ জ্ঞান কিংবা অভিজ্ঞতা থেকেই লেখা। সেই জ্ঞান তোমার সফলতাকে ত্বরান্বিত করবে একটি বিশেষ লক্ষ্যের দিকে, যেহেতু তোমাকে একটি সঠিক পথ অবলম্বন করার উপদেশ দেওয়া হবে এবং ভুলগুলো চিহ্নিত করে দেওয়া হবে। বিভিন্ন বইয়ে দেখবে, লেখক তার জীবনের সফলতা এবং ব্যর্থতা নিয়ে আলোচনা করে এবং সেই ব্যর্থতা থেকে উপরে উঠতে থাকে বিভিন্ন উপদেশ।
যোগাযোগের মন্ত্র : যোগাযোগ আমাদের জীবনের খুবই গুরুত্বপূর্ণ একটি মন্ত্র, যা শুধু বই পড়ার মাধ্যমেই প্রেরণ করা যায়।

শেয়ার করুন

Developed by: Sparkle IT