সম্পাদকীয়

ফায়ার সার্ভিস সপ্তাহ

প্রকাশিত হয়েছে: ০৯-১১-২০১৯ ইং ০০:৪৭:১৭ | সংবাদটি ১৪৮ বার পঠিত


দেশে চলছে ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্স সপ্তাহ ’২০১৯। অগ্নি দুর্ঘটনাসহ সব ধরনের প্রাকৃতিক ও মানবসৃষ্ট দুর্যোগে সর্বসাধারণের করণীয় বিষয়ে সচেতনতা সৃষ্টির লক্ষে এবং ঝুঁকিহ্রাসে জনসাধারণের অংশগ্রহণকে উৎসাহিত করতে পালিত হচ্ছে এই সপ্তাহ। শুরু হয়েছে গত বুধবার থেকে। শেষ হবে আগামী মঙ্গলবার। সারাদেশে চারশ’ ১১টি ফায়ার স্টেশন নানা কর্মসূচির মাধ্যমে পালন করছে এই সপ্তাহ। সরকার আশা প্রকাশ করছে, দেশের সর্বস্তরের জনসাধারণ দুর্যোগ মোকাবেলায় সচেতনতা সৃষ্টির এই কার্যক্রমে সেবাধর্মী প্রতিষ্ঠান ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্স অধিদপ্তরের সহযোগী হিসেবে কাজ করবেন। সকলের সমন্বিত চেষ্টার মাধ্যমে সচেতনতা সৃষ্টি করা গেলে দেশে দুর্যোগ ঝুঁকি যেমন কমে আসবে, তেমনি সংঘটিত দুর্ঘটনায় ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণও হ্রাস পাবে।
প্রাকৃতিক হোক আর মানবসৃষ্ট হোক, সব ধরনের দুর্যোগই এদেশে সংঘটিত হচ্ছে সারাবছরই। বলা যায়, দুর্যোগের দেশ বাংলাদেশ। ঘূর্ণিঝড়, প্লাবন, বন্যা, জলোচ্ছ্বাস, ভূমিকম্প ইত্যাদির মতো প্রাকৃতিক দুর্যোগ যেমন ঘটছে, তেমনি ঘটছে অগ্নিকান্ডের মতো মানব সৃষ্ট দুর্যোগও। বিশেষ করে মানুষেরই অসাবধানতার জন্য ঘটে অগ্নি দুর্ঘটনার মতো দুর্যোগ। সব ধরনের দুর্যোগের সময়ই পাশে এসে দাঁড়ায় ‘ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্স’ নামক সরকারি প্রতিষ্ঠানটি। দেশের চারশ’ ১১টি গুরুত্বপূর্ণ স্থানে রয়েছে এর দপ্তর। অগ্নি দুর্ঘটনাসহ অন্য যেকোন প্রাকৃতিক দুর্যোগের খবর পেলে তারা উদ্ধারের জন্য ছুটে যায় দুর্ঘটনা স্থলে।
বিশেষ করে অগ্নি দুর্ঘটনা নিয়ন্ত্রণে ফায়ার স্টেশনের গুরুত্ব সবচেয়ে বেশি। তবে তাদের কার্যক্রমে রয়েছে নানামুখি প্রতিবন্ধকতা। প্রথমত শোনা যায় জনবল সংকটের কথা। পর্যাপ্ত জনবল না থাকায় অনেক সময়ই তাদের ঘটনাস্থলে বিপাকে পড়তে হয়। তার সঙ্গে রয়েছে দুর্গম যোগাযোগ ব্যবস্থা। পানির অভাবে অনেক সময় অগ্নি নির্বাপন কার্যক্রম বিঘিœত হয়। সেই সঙ্গে আরেকটি বিষয় জরুরি। সময়ের সঙ্গে পাল্লা দিয়ে জনপদ-জনবসতি বাড়ছে এই বিষয়টি বিবেচনা করে সারাদেশে ফায়ার স্টেশনের সংখ্যা বাড়ানো উচিত বলে আমরা মনে করি।
আশার কথা হচ্ছে, বর্তমান সরকার ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্সকে আধুনিকায়ন এবং কর্মকর্তা-কর্মচারীর জীবনমান উন্নয়নে উদ্যোগ নিয়েছে। ফলে এই প্রতিষ্ঠানের সেবার সামর্থ্য অনেক বেড়েছে, বেড়েছে এর প্রতি মানুষের আস্থাও। সবচেয়ে বড় কথা, এই প্রতিষ্ঠানের সেবার পরিধি ও ক্ষেত্র বাড়ছে। নিয়মিত কার্যক্রমের পাশাপাশি জঙ্গি দমনের মতো গুরুত্বপূর্ণ কাজেও ফায়ার স্টেশন নিয়োজিত হচ্ছে। সর্বোপরি এই প্রতিষ্ঠানের সব কাজই সফল হবে যদি সাধারণ মানুষের সহযোগিতা থাকে। অগ্নিকান্ডসহ অন্যসব দুর্ঘটনা বা দুর্যোগের ব্যাপারে সর্বস্তরের মানুষ যাতে সচেতন হয়ে ওঠে, তার জন্য যথাযথ কার্যক্রম পরিচালিত হোক, এটাই আমাদের প্রত্যাশা।

শেয়ার করুন

Developed by: Sparkle IT