প্রথম পাতা

রাজাকারের তালিকা ১৬ ডিসেম্বর ---------মন্ত্রী মোজাম্মেল

প্রকাশিত হয়েছে: ০৯-১১-২০১৯ ইং ০২:৫৬:৫৩ | সংবাদটি ১৩০ বার পঠিত

ডাক ডেস্ক : আসছে ১৬ ডিসেম্বর রাজাকারদের তালিকা প্রকাশ করা হবে মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক জানিয়েছেন।
গতকাল শুক্রবার সকালে গাজীপুর শহরের বঙ্গতাজ অডিটোরিয়ামে ঢাকা-ময়মনসিংহ বিভাগের মুক্তিযোদ্ধাদের এক মতবিনিময় সভায় মন্ত্রী এ তথ্য জানান।
তিনি বলেন, “এ বছর ১৬ ডিসেম্বর রাজাকারদের তালিকা প্রকাশ করা হবে। আর আগামী জানুয়ারিতেই মুক্তিযোদ্ধাদের পরিচয়পত্র দেওয়া হবে। পরিচয়পত্রের পেছনে তারা কী কী সুযোগ-সুবিধা পাবেন তা লেখা থাকবে। তাছাড়া জানুয়ারিতেই মুক্তিযোদ্ধাদের সব কবর একই নকশায় বাঁধাই করার প্রকল্পের কাজ শুরু হবে। বিসিএস ও শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের পাঠ্যবইয়ে মুক্তিযোদ্ধা ও রাজাকারদের ভূমিকা নিয়ে লেখা সংযুক্ত করা হবে।”
গাজীপুর সিটির মেয়র মোহাম্মদ জাহাঙ্গীর আলম, গাজীপুর মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি আজমত উল্লাহ খান অনুষ্ঠানে ছিলেন।
মেয়র জাহাঙ্গীর মুক্তিযোদ্ধাদের হোল্ডিং ট্যাক্স মওকুফ, তাদের নামে গুরুত্বপূর্ণ সড়কের নামকরণ ও তাদের সন্তানদের চাকরির ব্যবস্থা করা হবে বলে ওই অনুষ্ঠানে এক বক্তৃতায় ঘোষণা দিয়েছেন।
একাত্তরে বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধের সময় কয়েকটি রাজনৈতিক দল পাকিস্তানি বাহিনীর পক্ষ নিয়েছিল। এর মধ্যে রয়েছে জামায়াতে ইসলামী, মুসলিম লীগ, নেজামে ইসলামী। তখন যুদ্ধরত পাকিস্তানি সামরিক বাহিনীকে সহযোগিতা করতে রাজাকার বাহিনী গঠিত হয়েছিল। আনসার বাহিনীকে এই বাহিনীতে একীভূত করা হয়েছিল।
প্রথমে এটি বাংলাদেশের স্বাধীনতাবিরোধী রাজনৈতিক দলের নেতাদের নিয়ে গঠিত শান্তি কমিটির অধীনে থাকলেও পরে একে আধা সামরিক বাহিনীর স্বীকৃতি দিয়েছিল পাকিস্তান সরকার। একই রকম আধা সামরিক বাহিনী ছিল আল বদর বাহিনী ও আল শামস বাহিনী। তবে স্বাধীনতাবিরোধী এই বাহিনীগুলোকে সাধারণ অর্থে রাজাকার বাহিনী হিসেবেই পরিচিত বাংলাদেশে। প্রায় এক দশক আগে একাত্তরের যুদ্ধাপরাধের বিচার শুরুর পর রাজাকারের তালিকা তৈরির দাবি উঠলেও তা বাস্তবায়িত হয়নি।
২০১২ সালে আওয়ামী লীগ সরকারের মুক্তিযুদ্ধবিষয়কমন্ত্রী এ বি তাজুল ইসলাম সংসদে এক প্রশ্নের উত্তরে জানিয়েছিলেন, রাজাকারের কোনো তালিকা সরকারের কাছে নেই।
তবে তিনি বলেছিলেন, ১৯৭১ সালের খুলনায় আনসার হেডকোয়ার্টার্সে পাওয়া তালিকায় ৩০ হাজারের বেশি রাজাকারের তথ্য মিলেছিল। ওই তালিকাটি মুক্তিযোদ্ধা সংসদের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে রয়েছে। মে মাসে সংসদীয় কমিটির বৈঠকের কার্যপত্রে দেখা যায়, কমিটির আগের বৈঠকে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের রাজনৈতিক অনুবিভাগে সংরক্ষিত রাজাকার, আল বদর, আল শামস ও স্বাধীনতাবিরোধীদের তালিকা ও মুক্তিযুদ্ধের সময় জেলা প্রশাসকের কাছ থেকে বেতন-ভাতা উত্তোলনকারী রাজাকারদের তালিকা সংরক্ষণের সুপারিশ করা হয়।
রাজাকার, আল বদর, আল শামস ও স্বাধীনতাবিরোধী ব্যক্তি ও সংগঠন এবং ১৯৭০ সালের নির্বাচনে বিজয়ী পাকিস্তান জাতীয় পরিষদ ও পূর্ব পাকিস্তান প্রাদেশিক পরিষদে আওয়ামী লীগের নির্বাচিত সদস্যদের দেশদ্রোহী আখ্যায়িত করে তাদের আসনগুলো অবৈধভাগে শূন্য ঘোষণা করে তাদের স্থলে যাদেরকে সদস্য করা হয়েছিল, তাদের নামগুলো স্বাধীনতাবিরোধীদের তালিকায় অন্তর্ভুক্ত করে তালিকা প্রস্তুত ও সংরক্ষণে আইন সংশোধনসহ প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণে ৫ সদস্যের একটি কমিটি গঠন করা হয়েছে বলে ওই কার্যপত্রে দেখা যায়।

শেয়ার করুন
প্রথম পাতা এর আরো সংবাদ
  • ছবি
  • নগরীতে ৭শ’ মোবাইল সেট ছিনতাইয়ে জড়িত পুলিশ
  • পরিকল্পনামন্ত্রী জগন্নাথপুর আসছেন আজ
  • সাত দিনে আদায় ৪৫ কোটি ৭৮ লাখ টাকা
  • দেশের প্রথম মুক্তাঞ্চল জকিগঞ্জ মুক্তদিবস আজ
  • জেলা আওয়ামী লীগের সম্মেলন প্রস্তুতি কমিটি গঠন
  • আলোচিত সাবেক ছাত্রলীগ নেতা হিরণ মাহমুদ নিপু গ্রেফতার
  • ব্রাহ্মণবাড়িয়ার ট্রেন দুর্ঘটনা তূর্ণা নিশীথার চালকের দোষে: রেলমন্ত্রী
  • সরকার চায় না খালেদা জিয়া জেল থেকে বের হোক -------মির্জা ফখরুল
  • ধর্মঘটের নামে জনগণকে দুর্ভোগে ফেলবেন না --------সেতুমন্ত্রী
  • সেফুদার সম্পত্তি ক্রোকের নির্দেশ
  • কবি বেগম সুফিয়া কামালের ২০তম মৃত্যুবার্ষিকী আজ
  • খালেদার হাত-পা বেঁকে গেছে : রিজভী
  • লবণের পর্যাপ্ত মজুদ রয়েছে : বাণিজ্যমন্ত্রী
  • লবণ নিয়ে গুজব ছড়ালে কঠোর ব্যবস্থা: সরকার
  • উড়োজাহাজে করে আজ গভীর রাতে আসছে পেঁয়াজ
  • দুবাই থেকে দেশে ফিরেছেন প্রধানমন্ত্রী
  • দিনভর দুর্ভোগের পর অটোরিক্সা ধর্মঘট স্থগিত
  • কানাইঘাটে সুরমা নদীর প্রতিরক্ষা বাঁধে ভয়াবহ ভাঙন
  • নগরীতে পুলিশের অভিযানে উদ্ধার ২৭৯ মোবাইল
  • Developed by: Sparkle IT