পাঁচ মিশালী

চীনে গার্মেন্টস ও কাপড়ের প্রদর্শনী

মোহাম্মদ জহিরুল হক ভূঁইয়া প্রকাশিত হয়েছে: ১৬-১১-২০১৯ ইং ০০:২২:৩৫ | সংবাদটি ১৪৭ বার পঠিত

গার্মেন্টস বাংলাদেশের প্রধান রপ্তানিপণ্য। মোট রপ্তানির সিংহভাগ আসে গার্মেন্টস রপ্তানি থেকে। সারা বিশ্বে বাংলাদেশের গার্মেন্টসের গুণগত ও মানসম্মত সুনাম রয়েছে। বিশ্বের দরবারে বাংলাদেশ একটা সুন্দর জায়গা করে নিয়েছে। যা সম্ভব হয়েছে আমাদের দেশের উদ্যোক্তা, কর্মী, ব্যাংক ও বাংলাদেশ সরকারের আন্তরিক সহযোগিতা ও পৃষ্ঠপোষকতায়। গার্মেন্টস তৈরীর জন্য প্রধান উপকরণ বা কাঁচামাল হল কাপড় যা বাংলাদেশ তৈরী করছে ও বিদেশ থেকেও আমদানি করতে হচ্ছে। যদিও এখন বাংলাদেশ অনেক রকমের কাপড় তৈরী করতে পারে। যা আগে সম্ভব ছিল না এবং বেশির ভাগ ক্ষেত্রেই নির্ভর করতে হত বিদেশী কাপড়ের উপর। তার মধ্যে কিছু স্পেশাল কাপড় চায়না ভাল করে এবং বিদেশি ক্রেতারাও কোন কোন অর্ডারে চায়নার কাপড় ব্যবহারের জন্য রেফার করে। এমনই একটা সুযোগ গত সেপ্টেম্বর মাসের ২৫,২৬,ও ২৭ তারিখে চীনের সাংহাইতে প্রদর্শনীতে অংশগ্রহণের জন্য যাওয়া হয়েছে, সেখানে অনেক রকমের কাপড় এবং নতুন নতুন অনেক ডিজাইনের কাপড় প্রদর্শিত হয়েছিল ।
কাপড় যেহেতু গার্মেন্ট তৈরীর প্রধান কাঁচামাল এবং কাপড়ের গুণগত মানের উপর নির্ভর করে গার্মেন্টসের গুণগত মান। অনন্য এক্সেসরিজ রয়েছে যেমন সুতা, বাটন, ইন্টারলাইনিং, জিপার এবং ডেকোরেশনের জন্য এম্ব্রয়ডারী, স্ক্রিন প্রিন্ট কিন্তু কাপড় যদি সঠিক না হয় গার্মেন্টসের অর্ডার সফলভাবে সম্পন্ন করা কঠিন হয়ে পড়ে। তাই কাপড় সিলেকশনের সময় বেশ সজাগ থাকতে হয়। কাপড়ের কম্পোজিশন, কনস্ট্রাক্শন, উইভিং, সব ঠিক থাকলেই আমরা ব্যায়ারের এপ্রোভাল পাই। প্রিন্ট কাপড় হলে হলে আমরা স্ট্রাইক অফ এবং ইয়ার্ন ডাই চেকের কাপড় হলে হ্যান্ডলুম তৈরী করে বায়ারের এপ্রোভাল নিয়ে বাল্ক প্রোডাকশনে আগাতে পারি। বিভিন্ন কাপড় তৈরী ও কিছু ফ্যাশন কাপড় তৈরীর ক্ষেত্রে চিনে বেশ এগিয়ে আছে। দ্রুত সময়ে ভাল কাপড় তৈরী করে চীন জায়গা করে নিয়েছে তাদের আসন। মেলায় প্রদর্শনী হল ছিল অনেক গুলো যা ভাগ করা ছিল গার্মেন্টের জন্য, কাপড়ের জন্য, এক্সেসরিজের জন্য। বিশাল বিশাল হল এবং রেজিস্ট্রেশন ও সিকিউরিটি চেক করে কাপড়ের হলে ঢুকার পর বুজতে পারলাম কত রকমের কাপড় এবং ডিজাইন মেলায় প্রদর্শনের জন্য উদ্যোক্তারা এসেছে। কিছু স্টল ছিল আর্গানিক কাপড় প্রদর্শনের জন্য যা কিছু ক্রেতা এখন এই স্পেশাল কাপড়ের অর্ডার দিচ্ছে। আর্গানিক কাপড় আসলে তৈরীর প্রসেসটা ভিন্ন এবং কাপড় পরে বেশ কমফোর্ট ফিল করা যায়। শরীরে চামড়ায় কোন সমস্যা তৈরী করে না বিধায় অনেকেই এখন আর্গানিক কাপড় পড়তে আগ্রহবোধ করে। তবে দাম একটু বেশি। যদিও অন্যান্য কাপড় সুতি, পলিয়েস্টার, এক্রিনিক সবই শরীরের জন্য আরামপ্রদ এবং গুণগত মান রক্ষা করে এবং রং ও অন্যান্য কেমিক্যাল চেক করেই কাপড় বানানো হয় যা বিজ্ঞান ও প্রযুক্তির বদৌলতে তৈরী করা যাচ্ছে এবং গুণগত মান নিশ্চিত করা যাচ্ছে। বিভিন্ন টেস্টিং কোম্পানী ও ল্যাবরেটারী পরীক্ষা পাশ করলেই কেবল গার্মেন্টসে ব্যবহার করা যাবে নইলে কোন ভাবেই ঐ কাপড় ব্যবহার করা যাবে না। প্রত্যেক বায়ার জন্য কাপড় টেস্ট করা একটা স্ট্যান্ডার্ড রয়েছে এবং সেই স্ট্যান্ডার্ড পাশ করেই আমরা রপ্তানি করতে পারি।
মেলায় আরো অনেক কাপড় ছিল যেমন বিভিন্ন প্রকারের ডেনিম, ইয়ান ডাই চেক, বিভিন্ন প্রিন্ট, ফ্লিস, ফ্লানেল, শার্পা। শার্পা সাধারণত জেকেট তৈরীতে ব্যবহার করা হয়। একেকটা স্টল একেক ফ্যাক্টরীর কাপড় যা অত্যন্ত আকর্ষণীয় ও কাপড়ের ডিজাইন দেখে নতুন গার্মেন্টস তৈরীতে সাহায্য করে। সেই জন্য মেলায় বিভিন্ন দেশ থেকে বায়ার, মার্চেন্ডাইজার, ডিজাইনার আসে যার যার কাজের অংশ হিসেবে। অনেক সময় বড় বড় অর্ডারও প্লেস হয় এবং ক্রেতা বিক্রেতার একটা সুন্দর মিলনমেলা হয় বিধায় সম্পর্ক দৃঢ় হয়, ব্যবসা আন্তরিকতা বাড়ে। ক্রেতা বিক্রেতা রিভিউ করে অনেকসময় দাম নেগোশিয়েশন সহজ হয় এবং ব্যবসা বাড়তে সহায়তা করে সেজন্য সুযোগ হলে প্রত্যেকেই আমরা যারা গার্মেন্ট ও কাপড়ের ব্যবসার সাথে জড়িত প্রদর্শনীগুলোতে ভিজিট করব। যেখানে নতুন নতুন আইডিয়া আসবে মাথায় এবং নতুন অনেক কাপড় ও নতুন মিলের সাথে পরিচিত হয়ে নতুন সম্পর্ক তৈরী করবে। পুরাতন যারা আছেন তাদের সাথে সম্পর্ক আরও ভাল হবে এবং ব্যবসায়ের পরিধি বাড়বে।
বাংলাদেশ Export Promotion Bureau (EPB) অনেক প্রদর্শনীর আয়োজন করে বিভিন্ন দেশে যাতে উদ্যোক্তারা বা ব্যবসায়ীরা এবং গার্মেন্টস ও ফ্যাব্রিক প্রফেশনালরা অংশগ্রহণ করে লাভবান হতে পারে। বাংলাদেশেও গার্মেন্টস ও ফ্যাব্রিক প্রদর্শনী হয় যেখানে আমরা অংশ নিতে পারি।
ব্যবসা অনেক সময় নির্ভর করে ভাল লিংকের উপর এবং ভাল ব্যবহার ও সাপ্লাইয়ারের রিলেসন এর উপর। ব্যবসায় যোগাযোগ অনেক গুরুত্বপূর্ণ। একটা ফোন কল বা ইমেইল অনেক সময় অনেক বড় ব্যবসার সুযোগের সূচনা হতে পারে। সুযোগ খুব আস্তেই দরজায় নক করে তাই আমরা চেষ্টা করতে পারি প্রতিটা সম্ভাবনাময় সুযোগ কাজে লাগাতে। যখন সুযোগ হবে এবং প্রদর্শনীতে অংশ নিব, লিংক বাড়বে এবং যাতে আমাদের জ্ঞানের পরিধি ও ব্যবসার পরিধি দুয়েই লাভের সম্ভবনা থাকবে।

 

শেয়ার করুন

Developed by: Sparkle IT