প্রথম পাতা

শীত পড়তে শুরু করেছে

স্টাফ রিপোর্টার প্রকাশিত হয়েছে: ২৩-১১-২০১৯ ইং ০১:৪৬:২১ | সংবাদটি ৬৬ বার পঠিত

 শীত পড়তে শুরু করেছে। কয়েক দিন ধরে সন্ধ্যার পর এবং ভোরের দিকে কিছুটা শীতের আভাস অনুভূত হচ্ছে সিলেটে। বিশেষ করে শেষরাতে শীতের আমেজ বেশি মিলছে। শহরের তুলনায় অবশ্য এরই মধ্যে গ্রামের মানুষ শীতকে বরণ করে নিয়েছেন। তবে আবহাওয়া অধিদপ্তর বলছে, আবহাওয়াগত কারণে অনেকটা আগেই শীত অনুভূত হচ্ছে। তবে পুরোপুরি শীত পড়বে ডিসেম্বর থেকে।
কয়েকদিন হলো অগ্রহায়ণ মাস শুরু হয়েছে। অগ্রহায়ণের শুরু থেকে শীত অনুভূত হচ্ছে। দিনের বেলায় গরম থাকলেও সন্ধ্যার পর হিমেল হাওয়া বইতে শুরু করে। বিশেষ করে যেসব এলাকায় গাছপালা বেশি সেসব এলাকায় ঠান্ডা অনুভূত হচ্ছে বেশি। সাতসকালে যে সকল অভিভাবকরা সন্তানদের নিয়মিত বিদ্যালয়ে নিয়ে যাচ্ছেন তারা হালকা শীতের পোশাক পরে আসছেন। অথবা রাতকরে বাড়ি ফিরতে অভ্যস্ত গণমাধ্যম কর্মীরাও রাতে শীতের প্রস্তুতি নিয়ে আসছেন অফিসে। তারপর অফিস করার জন্য সকালবেলা যারা ঘর থেকে বের হচ্ছেন তারাও শীতের আগমনী বার্তা পেয়ে গেছেন। প্রাতভ্রমণকারীদের অনেকে হালকা শীতের পোশাক পরে বের হচ্ছেন ঘর থেকে। নগরীর ভাতালিয়া এলাকার তরুণ ব্যবসায়ী নুরুল আমিন জানান, ‘ভোরের দিকে পুরোদমে শীত অনুভূত হচ্ছে। বেশ কয়েকদিন ধরে বিষয়টি অনুভব করছি। বিশেষ করে গাড়ি করে দূরপাল্লার যাত্রায় শীতের প্রস্তুতি নিয়ে বের হতে হয়।’ মাছুদিঘীর পাড় এলাকার জাফর খান বলেন, ‘রাতে ঘরের ভেতর কিছুটা শীত টের পাই। কিন্তু বাইরের চিত্র ব্যতিক্রম। সকাল কিংবা রাতে ঘর থেকে বেরুলেই হিমশীতল বাতাস বইতে শুরু করে।’
টিলাগড় এলাকার শ্যামল ভট্টাচার্য বলেন, ‘সকালে অফিসে যেতে হয়। বাসা থেকে বের হই শীত নিয়ে। দুপুরে গরম হলেও বিকেল থেকে আবার শীত নামতে শুরু করে।’
তবে শহরের তুলনায় অবশ্য গ্রামে শীত বেশি অনুভূত হচ্ছে। আমাদের বিভিন্ন উপজেলা প্রতিনিধি জানান, সকালে কুয়াশা পড়তে শুরু করেছে অনেক। ধান কিংবা সবুজ ঘাস রাতের শিশিরে ভিজে যায়। যে সকল গ্রাম পাহাড় কিংবা গাছগাছালি বেষ্টিত সেই গ্রামগুলোতে শীত সবসময় অনেকটা আগ থেকেই আসে।
গতকাল বন্দরবাজার, জিন্দাবাজার ও কোর্ট এলাকায় গিয়ে দেখা গেছে, ফুটপাতের দোকানগুলোতে ছোটদের ও বড়দের শীতের পোশাক বিক্রি হচ্ছে। পোশাক বিক্রেতা সুনীল বলেন, অনেকে আগাম শীতের পোশাক কিনছেন। তবে শীতের হালকা পোশাকই এখন চলছে। তিনি বলেন, আমরা নভেম্বরের শুরু থেকে শীতের পোশাক বিক্রি করছি।
শীত আসার প্রস্তুতি নিতে দেখা গেছে শহরের লেপ-তোশকের দোকানগুলোতে। অনেককে নতুন লেপ তুলতে ব্যস্ত থাকতে দেখা গেছে। কয়েকজন বিক্রেতা জানালেন, শীত অনেকটা শুরু হয়ে গেছে। ইতোমধ্যে অনেকে লেপের অর্ডারও দিচ্ছেন।
শীতের সবজিও পুরোদমে আসতে শুরু করেছে নগরীর সবগুলো বাজারে। গত কয়েকদিন ধরে বন্দরবাজার গিয়ে দেখা গেছে, শীতের ফুলকপি, বাঁধাকপি, লাউ, মুলা, শিম, নতুন আলু আসতে শুরু করেছে। ফুটপাতে বিভিন্ন প্রকার শীতের পিঠা দেদারসে বিক্রি হচ্ছে।
সিলেট আবহাওয়া অফিসের আবহাওয়াবিদ সাঈদ আহমদ চৌধুরী বলেন, শীতের আবহ পড়েছে। আরো শীত পড়বে। তবে ডিসেম্বরের পর থেকে শীত বেশি পড়বে।

শেয়ার করুন
প্রথম পাতা এর আরো সংবাদ
  • আওয়ামী লীগের সম্মেলনে সভাপতি ছাড়া যে কোন পদে পরিবর্তন : কাদের
  • ডাক্তারদের ঘাড়ে কয়টা মাথা যে বলবেন খালেদা জিয়া খারাপ আছেন: ফখরুল
  • বন্ধু ভারত যেন আতঙ্ক জাগানো কিছু না করে: পররাষ্ট্রমন্ত্রী
  • বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকী অনুষ্ঠানে যোগ দেবেন মোদি, প্রণব ও সোনিয়া
  • সড়কে নামার অপেক্ষায় ‘নগর এক্সপ্রেস’
  • ধর্মপাশায় ১৪৪ ধারা জারি
  • সকল ক্ষেত্রে দলের ত্যাগী নেতাকর্মীদের মূল্যায়ন করা হবে
  • জেলা ও মহানগর আওয়ামী লীগের নয়া কমিটির প্রতি ইনাম চৌধুরীর অভিনন্দন
  • বালাগঞ্জ ওসমানীনগর মুক্ত দিবস আজ
  • বিজয়ের মাস
  • ছবি
  • লুৎফুর-নাসির জেলার এবং মাসুক-জাকির মহানগর আ.লীগের নেতৃত্বে
  • খালেদার জামিন শুনানি এজলাস কক্ষে নজিরবিহীন হট্টগোল
  • টেন্ডারবাজ, চাঁদাবাজ ও সন্ত্রাসীদের কঠোর বার্তা
  • পররাষ্ট্রমন্ত্রীর অভিনন্দন
  • ‘মুশতাককে গণপিটুনি দিয়ে মঞ্চ থেকে বের করে দেই’
  • সিলেটের বিভিন্ন অঞ্চল মুক্ত দিবস আজ
  • প্রতিবন্ধীদের সম্পর্কে ‘নেতিবাচক মানসিকতা’ পরিহার করুন : প্রধানমন্ত্রী
  • বিজয়ের মাস
  • বিশ্ব ইজতেমার ১ম পর্ব শুরু ১০ জানুয়ারি
  • Developed by: Sparkle IT