প্রথম পাতা

শীত পড়তে শুরু করেছে

স্টাফ রিপোর্টার প্রকাশিত হয়েছে: ২৩-১১-২০১৯ ইং ০১:৪৬:২১ | সংবাদটি ৩০৩ বার পঠিত
Image

 শীত পড়তে শুরু করেছে। কয়েক দিন ধরে সন্ধ্যার পর এবং ভোরের দিকে কিছুটা শীতের আভাস অনুভূত হচ্ছে সিলেটে। বিশেষ করে শেষরাতে শীতের আমেজ বেশি মিলছে। শহরের তুলনায় অবশ্য এরই মধ্যে গ্রামের মানুষ শীতকে বরণ করে নিয়েছেন। তবে আবহাওয়া অধিদপ্তর বলছে, আবহাওয়াগত কারণে অনেকটা আগেই শীত অনুভূত হচ্ছে। তবে পুরোপুরি শীত পড়বে ডিসেম্বর থেকে।
কয়েকদিন হলো অগ্রহায়ণ মাস শুরু হয়েছে। অগ্রহায়ণের শুরু থেকে শীত অনুভূত হচ্ছে। দিনের বেলায় গরম থাকলেও সন্ধ্যার পর হিমেল হাওয়া বইতে শুরু করে। বিশেষ করে যেসব এলাকায় গাছপালা বেশি সেসব এলাকায় ঠান্ডা অনুভূত হচ্ছে বেশি। সাতসকালে যে সকল অভিভাবকরা সন্তানদের নিয়মিত বিদ্যালয়ে নিয়ে যাচ্ছেন তারা হালকা শীতের পোশাক পরে আসছেন। অথবা রাতকরে বাড়ি ফিরতে অভ্যস্ত গণমাধ্যম কর্মীরাও রাতে শীতের প্রস্তুতি নিয়ে আসছেন অফিসে। তারপর অফিস করার জন্য সকালবেলা যারা ঘর থেকে বের হচ্ছেন তারাও শীতের আগমনী বার্তা পেয়ে গেছেন। প্রাতভ্রমণকারীদের অনেকে হালকা শীতের পোশাক পরে বের হচ্ছেন ঘর থেকে। নগরীর ভাতালিয়া এলাকার তরুণ ব্যবসায়ী নুরুল আমিন জানান, ‘ভোরের দিকে পুরোদমে শীত অনুভূত হচ্ছে। বেশ কয়েকদিন ধরে বিষয়টি অনুভব করছি। বিশেষ করে গাড়ি করে দূরপাল্লার যাত্রায় শীতের প্রস্তুতি নিয়ে বের হতে হয়।’ মাছুদিঘীর পাড় এলাকার জাফর খান বলেন, ‘রাতে ঘরের ভেতর কিছুটা শীত টের পাই। কিন্তু বাইরের চিত্র ব্যতিক্রম। সকাল কিংবা রাতে ঘর থেকে বেরুলেই হিমশীতল বাতাস বইতে শুরু করে।’
টিলাগড় এলাকার শ্যামল ভট্টাচার্য বলেন, ‘সকালে অফিসে যেতে হয়। বাসা থেকে বের হই শীত নিয়ে। দুপুরে গরম হলেও বিকেল থেকে আবার শীত নামতে শুরু করে।’
তবে শহরের তুলনায় অবশ্য গ্রামে শীত বেশি অনুভূত হচ্ছে। আমাদের বিভিন্ন উপজেলা প্রতিনিধি জানান, সকালে কুয়াশা পড়তে শুরু করেছে অনেক। ধান কিংবা সবুজ ঘাস রাতের শিশিরে ভিজে যায়। যে সকল গ্রাম পাহাড় কিংবা গাছগাছালি বেষ্টিত সেই গ্রামগুলোতে শীত সবসময় অনেকটা আগ থেকেই আসে।
গতকাল বন্দরবাজার, জিন্দাবাজার ও কোর্ট এলাকায় গিয়ে দেখা গেছে, ফুটপাতের দোকানগুলোতে ছোটদের ও বড়দের শীতের পোশাক বিক্রি হচ্ছে। পোশাক বিক্রেতা সুনীল বলেন, অনেকে আগাম শীতের পোশাক কিনছেন। তবে শীতের হালকা পোশাকই এখন চলছে। তিনি বলেন, আমরা নভেম্বরের শুরু থেকে শীতের পোশাক বিক্রি করছি।
শীত আসার প্রস্তুতি নিতে দেখা গেছে শহরের লেপ-তোশকের দোকানগুলোতে। অনেককে নতুন লেপ তুলতে ব্যস্ত থাকতে দেখা গেছে। কয়েকজন বিক্রেতা জানালেন, শীত অনেকটা শুরু হয়ে গেছে। ইতোমধ্যে অনেকে লেপের অর্ডারও দিচ্ছেন।
শীতের সবজিও পুরোদমে আসতে শুরু করেছে নগরীর সবগুলো বাজারে। গত কয়েকদিন ধরে বন্দরবাজার গিয়ে দেখা গেছে, শীতের ফুলকপি, বাঁধাকপি, লাউ, মুলা, শিম, নতুন আলু আসতে শুরু করেছে। ফুটপাতে বিভিন্ন প্রকার শীতের পিঠা দেদারসে বিক্রি হচ্ছে।
সিলেট আবহাওয়া অফিসের আবহাওয়াবিদ সাঈদ আহমদ চৌধুরী বলেন, শীতের আবহ পড়েছে। আরো শীত পড়বে। তবে ডিসেম্বরের পর থেকে শীত বেশি পড়বে।

শেয়ার করুন

ফেসবুকে সিলেটের ডাক

প্রথম পাতা এর আরো সংবাদ
  • ভক্ত আশেকানদের মাজারে একত্রিত না হওয়ার অনুরোধ এসএমপির
  • অনিয়ম ও দুর্নীতির বিরুদ্ধে শেখ হাসিনা কঠোর অবস্থানে রয়েছেন : ওবায়দুল কাদের
  • একাদশ জাতীয় সংসদের দ্বিতীয় বাজেট অধিবেশন শেষ
  • ‘পাপুল কুয়েতের নাগরিক নন’
  • শায়েস্তাগঞ্জের ইউএনও করোনা আক্রান্ত
  • রিজেন্ট চেয়ারম্যান সাহেদের ব্যাংক হিসাব জব্দ
  • সিলেট বিভাগে ২৪ ঘণ্টায় করোনায় আক্রান্ত ১১৯, মৃত্যু ১, সুস্থ ৬৬
  • হাওরাঞ্চল থেকে ধান যাচ্ছে বিভিন্ন জেলায়
  • গোলাপগঞ্জ উপজেলার ভাদেশ্বর ইউপি চেয়ারম্যান জিলাল উদ্দিন অপসারিত
  • দিশেহারা শরীফগঞ্জ ইউনিয়নের মানুষ
  • রাণাপিং আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয় হুমকির মুখে
  • সাবেক স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী সাহারা খাতুন মারা গেছেন
  • সিলেট-সুনামগঞ্জসহ দেশের ২৩ জেলা বন্যাকবলিত হতে পারে
  • সাবেক স্পিকার হুমায়ুন রশীদ চৌধুরীর ১৯তম মৃত্যুবার্ষিকী আজ
  • দুর্নীতিবাজ যেই হোক ব্যবস্থা নিচ্ছি, নেব : প্রধানমন্ত্রী
  • করোনায় আরও ৪১ মৃত্যু, নতুন শনাক্ত ৩৩০৭
  • সিনিয়র সাংবাদিক রাশীদ উন নবী আর নেই
  • ১৪ দলের সমন্বয়ক ও মুখপাত্র হলেন আমির হোসেন আমু
  • আসন্ন ঈদে করোনা সংক্রমণ বিস্তার রোধে সকলকে জনযোদ্ধা হিসেবে কাজ করতে হবে : ওবায়দুল কাদের
  • করোনাভাইরাস বাতাসেও ছড়াতে পারে, এ দাবি পর্যালোচনা করছে ডব্লিওএইচও
  • Image

    Developed by:Sparkle IT