উপ সম্পাদকীয় দৃষ্টিপাত

জাফলং ভ্যালি বোর্ডিং স্কুল

জহিরুল আলম প্রকাশিত হয়েছে: ০১-১২-২০১৯ ইং ০০:১৭:২১ | সংবাদটি ৫৪৪ বার পঠিত
Image

জাফলং ভ্যালি বোর্ডিং স্কুল। সিলেটে গড়ে উঠা একটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান। প্রকৃতি কন্যার বুকে গড়ে উঠা প্রতিষ্ঠানটি এগিয়ে যাচ্ছে তার লক্ষে। নিরিবিল ও মনোমুগ্ধকর পরিবেশে শুধু লেখাপড়া নয়, সাহিত্য, ক্রীড়া ও সংস্কৃতিসহ বিভিন্ন ক্ষেত্রে অনন্য সূতিকাগার হয়ে উঠছে প্রতিষ্ঠানটি। দেশের বিভিন্ন স্থানের শিক্ষার্থীরা এখন ঝুকছেন সিলেট-তামাবিল মহাসড়কের জৈন্তাপুরের শ্রীপুর এলাকায় অবস্থিত জাফলং ভ্যালি বোর্ডিং স্কুলের দিকে। বর্তমানে ১১৯ জন শিক্ষার্থীদের মধ্যে অধিকাংশই সিলেট অঞ্চলের। তবে ঢাকাসহ অন্যান্য জায়গার যে শিক্ষার্থী নেই সেকথা বলা যাবে না। তাদের এমনি একজন ঢাকা উত্তরার ওয়াসিফ আলী। সপ্তম শ্রেণির এ শিক্ষার্থী থাকে ডরমিটরির ১০১ নম্বর কক্ষে। তার মতে, ‘এখানে সূর্যের আলোতে ঘুম ভাঙে। সবুজের মাঝে বাস করছে সে। অত্যাধুনিক এ প্রতিষ্ঠানে চলমান শিক্ষাবর্ষে ভর্তি কার্যক্রম চলছে -এমন তথ্য জানিয়েছেন কলেজ অধ্যক্ষ ব্রিজ কিশোর ভরদ্বাজ।
শ্রীপুর এলাকায় ১৫০ একর জমির ওপর বোর্ডিং স্কুলটির সুবিশাল ক্যাম্পাস। ২০১৮ সালে দেশের প্রথম ও একমাত্র বোর্ডিং স্কুলের যাত্রা শুরু হয়। আয়তনের দিক থেকে দক্ষিণ এশিয়ার বৃহত্তম শিক্ষা প্রতিষ্ঠান এটি। ক্যাডেট কলেজের আদলে নির্মিত সম্পূর্ণ আবাসিক এ প্রতিষ্ঠানে পাঠ্যবইয়ের পাশাপাশি বিজ্ঞান-প্রযুক্তি ও কারিগরি নির্ভর জ্ঞান অর্জনেও পাঠ নিচ্ছে শিক্ষার্থীরা। সম্প্রতি সরেজমিনকালে এমন তথ্য পাওয়া গেছে। শিক্ষক শিক্ষার্থীদের সাথে আলাপকালে তারা জানান, জাফলং ভ্যালি বোর্ডিং স্কুলে শ্রেণি কক্ষের বাইরে শিক্ষার্থীদের জন্য রয়েছে বেশকিছু ক্লাব। ভাষা শেখার জন্য ল্যাংগুয়েজ ক্লাব, গণিতচর্চার জন্য ম্যাথমেটিকস ক্লাব, সাহিত্যচর্চায় লিটারেচার ক্লাব ও এবং প্রযুক্তি শিক্ষার জন্য রয়েছে কম্পিউটার ক্লাব।
পরিদর্শনে দেখা গেছে, স্থাপত্যশৈলীর নান্দনিক সৌন্দর্যে সবুজ টিলার বুকে গড়ে তোলা হয়েছে একাডেমিক ভবন, হোস্টেল ও ডরমেটরি। একাডেমিক ভবনে মাল্টিমিডিয়া প্রযুক্তির ব্যবহারে চলছে পাঠদান কার্যক্রম। বিষয় অনুসারে নিশ্চিত করা হয়েছে ল্যাব সুবিধা। নিবিড় অধ্যয়নের জন্য রয়েছে গ্রন্থাগার। সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান, সভা কিংবা সেমিনারের জন্য রয়েছে মাল্টিপারপাস কক্ষ। খেলার জন্য রয়েছে ছয়টি বিশাল আয়তনের মাঠ। রয়েছে ইনডোর গেমসের ব্যবস্থাও।
সূত্রমতে, দেশের ১৪ জন রাজনীতিক-ব্যবসায়ী-শিক্ষাবিদ মিলে প্রতিষ্ঠান গড়ে তুলেন। বিদ্যাপীঠের মূল লক্ষ্য হচ্ছে, জ্ঞানের সঙ্গে নৈতিকতার সমন্বয় ঘটিয়ে নেতৃত্বের গুণাবলিসম্পন্ন দক্ষ ও দেশপ্রেমিক আলোকিত ভবিষ্যৎ প্রজন্ম গড়ে তোলা। ষষ্ঠ থেকে দ্বাদশ শ্রেণি পর্যন্ত পাঠদান করা হয় প্রতিষ্ঠানটিতে। জাতীয় পাঠ্যক্রমের অধীনে ইংলিশ মাধ্যমে পড়ালেখার সুযোগ রয়েছে সেখানে। বিজ্ঞান, ব্যবসায় ও মানবিক শাখা মিলে বর্তমান ছাত্রসংখ্যা ১১৯ জন। যদিও ৯৫০ জন শিক্ষার্থীর পাঠদান ও থাকার ব্যবস্থা রয়েছে। ২১ জন শিক্ষক এর মধ্যে অধ্যক্ষসহ তিনজন ভারতীয় নাগরিক রয়েছেন। যারা ১১৯ জনকে শিক্ষাদান করছেন।
জানা গেছে, প্রতি বছর বাংলাদেশ থেকে প্রায় তিন হাজার শিক্ষার্থী দেশের বাইরে বিভিন্ন বোর্ডিং স্কুলে পড়তে যায়। এর মধ্যে সবচেয়ে বেশি যায় দার্জিলিংয়ে। বিদেশে পড়ানোর খরচ স্বাভাবিকভাবেই বেশি। তবে সে তুলনায় অনেক কম খরচে দেশেই পড়া যায়। জাফলং ভ্যালি বোর্ডিং স্কুলে মাসে একজন শিক্ষার্থীকে সাকুল্যে ২০ হাজার টাকা দিতে হয়। এর বাইরে ল্যাব, স্পোর্টস কিংবা অন্য কোনো ফি দিতে হয় না। বছরে এককালীন সেশন ফি দিতে হয় ৬০ হাজার টাকা। তবে ভালো ফলাফল অর্জনে সম্পূর্ণ ফি মওকুফসহ বিভিন্ন ধরনের বৃত্তির ব্যবস্থা রয়েছে বলে জানিয়েছেন কর্তৃপক্ষ।
অধ্যক্ষ ব্রিজ কিশোর ভরদ্বাজ বলেন, আমাদের মধ্যে একটা প্রবণতা থাকে যে সন্তান কোন গ্রেড পেয়ে পাস করলো। কিন্তু আমাদের লক্ষ্য শুধু গ্রেড নয়; আমরা চাই একজন আলোকিত মানুষ গড়তে। যার থাকবে নেতৃত্বের গুণ, কর্মস্পৃহা ও দক্ষতা আর দেশপ্রেম। আমরা যোগ্য শিক্ষক নিয়োগ দিয়েছি। তাদের পেশাগত উন্নয়নের জন্য প্রতি সপ্তাহে প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা রয়েছে। ল্যাবগুলোয় শিক্ষার্থীরা হাতে-কলমের সুযোগ পাচ্ছে। আমরা ক্যাডেট কলেজের মডেলটাই ফলো করছি। শিক্ষার্থীর ঘুম থেকে ওঠা থেকে রাতে ঘুমাতে যাওয়া পর্যন্তÍ সবকিছুই আমরা দেখভাল করছি। নিয়ম-শৃঙ্খলার মধ্য দিয়ে একজন শিক্ষার্থীর সর্বোচ্চ বিকাশে আমরা কাজ করে যাচ্ছি। এখানে শিক্ষার্থীদের অভিভাবক বলতেই আমরা।

 

শেয়ার করুন

ফেসবুকে সিলেটের ডাক

উপ সম্পাদকীয় এর আরো সংবাদ
  • নিরাপদ খাদ্য নিশ্চিতকরণে সচেতন হতে হবে
  • কোভিড-১৯ মানব ইতিহাসে বড় চ্যালেঞ্জ
  • একটি খেরোখাতার বয়ান
  • পরিবেশ রক্ষা ও জীববৈচিত্র্য সংরক্ষণ
  • পর্নোগ্রাফির বিষবাষ্প থেকে মুক্তি মিলবে কবে?
  • জীববৈচিত্র এবং মনুষ্য সমাজ
  • করোনার ছোবলে জীবন-জীবিকা
  • মানুষ কেন নিমর্ম হয়
  • করোনায় আক্রান্ত শিক্ষা ব্যবস্থা
  • প্রসঙ্গ : ব্যাংকিং খাতে সুদহার এবং খেলাপি ঋণ
  • করোনা, ঈদ এবং ইসলামে মানবতাবোধ
  • ত্যাগের মহিমায় চিরভাস্বর ঈদুল আযহা
  • করোনাকালে শিক্ষার্থীদের প্রত্যাশা
  • আনন্দযজ্ঞে আমন্ত্রণ
  • ত্যাগের মহিমায় কুরবানির ঈদ
  • চাই পথের দিশা
  • ভাটি অঞ্চলের দুর্দশা লাঘব হবে কি?
  • মুক্ত পানির মাছ সুরক্ষায় যা প্রয়োজন
  • উন্নত দেশে মসজিদে গৃহহীনদের আশ্রয়
  • তাইওয়ান সংকট
  • Image

    Developed by:Sparkle IT