উপ সম্পাদকীয়

শ্যামারচরের বধ্যভূমি ও দিরাই-শ্যামারচর রাস্তা

ব্রজেন্দ্র কুমার দাস প্রকাশিত হয়েছে: ০১-১২-২০১৯ ইং ০০:৩০:৪৮ | সংবাদটি ৪৪২ বার পঠিত
Image

১৯৭১ সালের কথা। সুনামগঞ্জ থেকে দিরাই থানার সাথে সড়ক পথে কোন যোগাযোগ ছিল না। দিরাই থানা প্রপার থেকে দিরাই এর শ্যামার চর গ্রাম পর্যন্ত সড়ক যোগাযোগতো কল্পনারও অতীত ছিল। তারপর নব্বই এর দশকে সীমিত আকারে সুনামগঞ্জ-দিরাই সড়ক পথে চলাচল শুরু হল। এরপর ধীরে ধীরে দিরাই থেকে শ্যামারচর। শ্যামারচর আমার জন্মস্থান। প্রিয় জন্মভূমি। এই গ্রামের মাটির সাথে অনেকের মতো আমারও জড়িয়ে আছে অনেক ঘটনা, অনেক স্মৃতি। বিশেষ করে আমাদের মহান মুক্তিযুদ্ধের হাজারো স্মৃতি।
১৯৭১ সালের এপ্রিলের প্রথম। মুক্তিবাহিনী সবে সৃষ্টি হয়েছে। মুক্তিবাহিনীর নৌকাগুলো শ্যামারচর এলাকার হাওরগুলোতে ঘুরে বেড়াত। ক্যাম্প ছিলো চরনার চর ইউনিয়ন পরিষদ ভবনে। তখনো অস্ত্র ট্রেনিং নিয়ে মুক্তিযুদ্ধে অংশ গ্রহণ করিনি। ন্যাপ নেতা শ্যামারচরের অমরচাদ বাবু এবং আমি শ্যামারচর বাজারে হাঁটবার শুক্রবার এবং সোমবারে বিভিন্ন ব্যবসায়ী ভাইদের কাছ থেকে চার/আট আনা করে চাঁদা তুলে ৪০/৫০ টাকা হলেই রাজানগরের ন্যাপনেতা বীর মুক্তিযোদ্ধা পিযুষ কান্তি চৌধুরী অর্থাৎ পিলু চৌধুরীর হাতে তুলে দিতাম মুক্তিযোদ্ধাদের জন্য। সে এক দারুণ অভিজ্ঞতা! তারপর নয় মাসের আমাদের মহান মুক্তিযুদ্ধের মাধ্যমে ১৬ই ডিসেম্বর ১৯৭১ সালে পাকি বাহিনীর ৯৩ হাজার সৈন্যের লজ্জাজনক আত্মসমর্পণের মধ্য দিয়ে আমরা স্বাধীন হলাম। কিন্তু দেশ স্বাধীন হবার পূর্ব মুহূর্তে ৬ই ডিসেম্বর শ্যামারচর এলাকায় ঘটে গেল এক ভয়াবহ মর্মান্তিক দুঃখজনক হত্যাযজ্ঞ। স্থানীয় বিপথগামী অদূরদর্শী ভুল নেতৃত্বের কারণে পাকি বাহিনীর সহায়তায় যে রাজাকার গোষ্ঠীর সৃষ্টি হয়েছিল পাকিদের সহায়তায় আমাদের বিজয়ের উষালগ্নে শ্যামারচর/পেরুয়া অঞ্চলে ঘটিয়েছিলো এক অমানবিক হত্যাকান্ড। নানা সূত্র থেকে জানা যায় ৪০/৫০ জন নিরীহ মানুষকে কাপুুরুষের দল নির্মমভাবে হত্যা করেছিলো। সুনামগঞ্জের মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাসে শ্রীরামসী, রাণীগঞ্জ বাজার এ হত্যাযজ্ঞের পর যে বধ্যভূমি মুক্তিযুদ্ধের স্মৃতি বহন করে আসছে শ্যামারচরের হত্যাকান্ড ও কোন অংশে কম নয়। তবে এখনো সেখানে কোন বধ্যভূমি তৈরি করা হয়নি। জাতির জন্য তা গৌবের নয়। চরম লজ্জার। যাদের রক্তের বিনিময়ে, আত্মত্যাগের কারণে আমরা অনেকেই এই সাব, সেই সাব, সব সাব হয়েছি আমাদের কি বিন্দুমাত্র দায় নেই সেই স্মৃতি ধরে রেখে নতুন প্রজন্মকে ইতিহাস সচেতন করার! এখানে কতো মা-বোন ঐ পশুদের হাতে ধর্ষিতা হয়েছেন সে হিসেব ইতিহাসের খাতায় লিখে রাখা টিক আমাদের দায় নয়!
এ দায় থেকে আমরা কেউ রেহাই পেতে পারিনা এ দায়বদ্ধতাকে তারা কেউ অস্বীকার করতে পারবো না। সাবেক বামপন্থী নেতা অকৃতদার শ্যামার চরের মুক্তিযুদ্ধের সংগঠক অমর চাঁদ দাস তার জীবন সায়াহ্নে এসে আমাদের সবার হয়ে সে দায় অসীম সাহসে নিজের কাঁধে তুলে নিয়েছেন। দিনরাত অক্লান্ত পরিশ্রম করে যাচ্ছেন গণহত্যার স্থানে স্মৃতি সৌধ নির্মাণের জন্য। তিনি সুনামগঞ্জ, সিলেট এবং ঢাকায় সংশ্লিষ্ট সকলের সাথে, প্রশাসনের সর্বস্তরের কর্মকর্তাগণের সাথে যোগাযোগ করে যাচ্ছেন। যে বয়সে তার ঘরে বসে বিশ্রাম করার কথা সেখানে তিনি ঢাকার সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়ে নিজে গিয়ে সবাইকে অনুরোধ করছেন এগিয়ে আসার জন্য। পাকবাহিনী এবং তাদের স্থানীয় সহযোগীদের দ্বারা নির্যাতিতা ধর্ষিতা নারীদেরকে বীরাঙ্গনার মর্যাদা পাবার জন্য আপ্রাণ চেষ্টা করে যাচ্ছেন। এরই মধ্যে অনেকেই বীরাঙ্গনা হিসেবে রাষ্ট্রীয় স্বীকৃতিও পেয়েছেন এবং সবই হয়েছে অমর চাঁদ দাসের আন্তরিক প্রচেষ্টায়। এ প্রসঙ্গে উনার সাথে এরই মধ্যে কথা হয়েছে। তিনি জানান গণহত্যার স্থানে শহীদদের স্মৃতি রক্ষার্থে স্মৃতিসৌধ নির্মাণের জন্য নাকি উল্লেখযোগ্য পরিমাণ টাকাও বরাদ্দ হয়েছে। জমি সংক্রান্ত কিছু আইনি জটিলতার কারণে নাকি কিছু বিলম্ব হচ্ছে। কিন্তু তিনি ভীষণ আশাবাদী। উনার গভীর বিশ্বাস একদিন স্মৃতিসৌধ হবেই হবে। আমাদের মহান মু্িক্তযুদ্ধের চেতনায় বিশ্বাসী সকল শক্তিকে তার বিশ্বাস ও সাহসের প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে এগিয়ে এলে তিনি আরো প্রত্যয়ী হবেন বলেই আমাদের বিশ্বাস। আমরা প্রায়শ: বলি ‘শহীদের রক্ত বৃথা যেতে দেবো না’। এবারও যেন তা-ই বলি।
আমাদের মহান মুক্তিযুদ্ধে শ্যামারচরের ভূমিকা যেমন গৌরবোজ্জ্বল তেমনি ভাটি বাংলার ব্যবসা বাণিজ্য তথা অর্থনৈতিক কর্মকান্ডেও এর ভূমিকা সমুজ্জল। সুনামগঞ্জের দিরাই-শাল্লা এবং নেত্রকোণার খালিয়াজুরী উপজেলার বিশাল জনগোষ্ঠী শ্যামারচর বাজারের সাথে ব্যবসা বাণিজ্য করে আসছেন। কিশোরগঞ্জের সাথেও অর্থনৈতিক যোগাযোগ রয়েছে। অর্থাৎ অর্থনীতির ব্যাপারে হিন্টার ল্যান্ড তথা পশ্চাৎভূমি যাকে বলে তা এক বিশাল এলাকা। বিশাল জনগোষ্ঠী সম্পৃক্ত। ব্যবসা বাণিজ্য অর্থাৎ অর্থনীতি সচল রাখতে যে কোন এলাকার অবকাঠামো অর্থাৎ যোগাযোগ ব্যবস্থা খুবই জরুরি। প্রয়াত জননেতা সুরঞ্জিত সেন মহোদয়ের আমলে দিরাই-শ্যামারচর রাস্তাটি করা হয়। কিন্তু বারবার ভাঙ্গা গড়ায় রাস্তাটির তেমন উন্নয়ন হয়নি। বর্তমানে দিরাই-শ্যামার চর রাস্তাটির অবস্থা যারা জানেন তারা এ রাস্তায় পারতপক্ষে যেতে চান না। কেউ যদি সিলেট থেকে বিশেষ প্রয়োজনে রিজার্ভ গাড়িতে শ্যামারচর যেতে চান তখন গাড়ির ড্রাইভার সাহেব যেতে চান না আর যেতে চাইলেও ভাড়া দাবি করেন অত্যধিক। আর এ রাস্তা দিয়ে একদিন আসা-যাওয়া করলে যুবা-বৃদ্ধ সবার শরীরই অন্য রকম খবর পায়। আর যেতে চান না। এতে ব্যবসা বাণিজ্যের যেমন ক্ষতি হয়, উন্নয়ন হয় না তেমনি বধ্যভূমি পরিদর্শনে যাওয়া অনেক সাংবাদিক ভাই এবং প্রশাসনের অনেক কর্তা ব্যক্তিগণও অনীহা প্রকাশ করে থাকেন। তাদের মূল্যবান সময়েরও অপচয় হয়।
সুনামগঞ্জ, দিরাই-শাল্লার স্থানীয় সংসদ সদস্য, প্রশাসনের গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তিবর্গ কারোর কাছেই এ রাস্তাটির অবস্থা অজানা থাকার কথা নয়। কমবেশী সবাই বোধ হয় ভুক্তভোগী। এমনি অবস্থায় দিরাই শাল্লার মাননীয় সংসদ সদস্য জয়া সেন গুপ্তের মাধ্যমে সিলেটের কৃতিসন্তান বাংলাদেশ সরকারের মাননীয় পরিকল্পনা মন্ত্রী জনাব এম.এ মান্নান এবং সড়ক ও সেতুমন্ত্রী মাননীয় ওবায়েদুল কাদের সাহেবের সহৃদয় দৃষ্টি আকর্ষণ করছি এলাকার ভুক্তভোগী জনগণের পক্ষ থেকে। দয়া করে আসুন, দেখে যান দিরাই-শ্যামার চরের মাত্র কয়েক মাইলের রাস্তাটির বেহাল দশাটি। দয়া করে দেখে যান শ্যামারচরের গণহত্যার স্থানটির করুণ অবস্থা। দৃষ্টি আকর্ষণ করছি মাননীয় মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রী মহোদয়ের।
লেখক : মুক্তিযোদ্ধা, কলামিস্ট।

 

শেয়ার করুন

ফেসবুকে সিলেটের ডাক

উপ সম্পাদকীয় এর আরো সংবাদ
  • নিরাপদ খাদ্য নিশ্চিতকরণে সচেতন হতে হবে
  • কোভিড-১৯ মানব ইতিহাসে বড় চ্যালেঞ্জ
  • একটি খেরোখাতার বয়ান
  • পরিবেশ রক্ষা ও জীববৈচিত্র্য সংরক্ষণ
  • পর্নোগ্রাফির বিষবাষ্প থেকে মুক্তি মিলবে কবে?
  • জীববৈচিত্র এবং মনুষ্য সমাজ
  • করোনার ছোবলে জীবন-জীবিকা
  • মানুষ কেন নিমর্ম হয়
  • করোনায় আক্রান্ত শিক্ষা ব্যবস্থা
  • প্রসঙ্গ : ব্যাংকিং খাতে সুদহার এবং খেলাপি ঋণ
  • করোনা, ঈদ এবং ইসলামে মানবতাবোধ
  • ত্যাগের মহিমায় চিরভাস্বর ঈদুল আযহা
  • করোনাকালে শিক্ষার্থীদের প্রত্যাশা
  • আনন্দযজ্ঞে আমন্ত্রণ
  • ত্যাগের মহিমায় কুরবানির ঈদ
  • চাই পথের দিশা
  • ভাটি অঞ্চলের দুর্দশা লাঘব হবে কি?
  • মুক্ত পানির মাছ সুরক্ষায় যা প্রয়োজন
  • উন্নত দেশে মসজিদে গৃহহীনদের আশ্রয়
  • তাইওয়ান সংকট
  • Image

    Developed by:Sparkle IT