প্রথম পাতা

বিজয়ের মাস

স্টাফ রিপোর্টার প্রকাশিত হয়েছে: ০৪-১২-২০১৯ ইং ০৩:১৩:৫১ | সংবাদটি ১৮৭ বার পঠিত

আজ ৪ ডিসেম্বর। ১৯৭১ সালের এই দিন থেকে দেশের সর্বত্র যুদ্ধের প্রবল প্রস্তুতি শুরু হয়ে যায়। পাকিস্তানি হানাদার বাহিনীর বিরুদ্ধে তারা মরণপণ যুদ্ধে ঝাঁপিয়ে পড়েন। বাংলাদেশের সঙ্গে রয়েছে-ভারতীয় মিত্র বাহিনী। মুক্তিবাহিনী ও মিত্রবাহিনী চারদিক দিয়ে সীমান্ত অতিক্রম করে বাংলাদেশে ঢুকে পড়ে। কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে যুদ্ধ করতে থাকে। এ অবস্থায় পায়ের তলার মাটি সরে যেতে থাকে পাকিস্তানি হানাদারদের। আগের দিন ভারতে আক্রমণ চালিয়ে বিপাকে পড়ে যায় পাকিস্তানি হানাদাররা। এ আক্রমণের মাধ্যমে তারা চেষ্টা করেছিল মুক্তিযুদ্ধের গতি ভিন্ন দিকে ঘুরিয়ে দিতে। বিশ্ববাসীকে বোঝাতে চেয়েছিল-এটা ভারতীয় আগ্রাসন। আর ভারতের আগ্রাসন থেকে বাঁচতে তারা এই আক্রমণ পরিচালনা করেছে। কিন্তু পাকিস্তানি শাসকরা নিজেরাই ফেঁসে যায়। তাদের এই মিথ্যে, বানোয়াট গল্প বিশ্বের কেউ আমলে নেয়নি।
এই দিন ভারতের প্রধানমন্ত্রী ইন্দিরা গান্ধী বেতারে এক ভাষণ দেন। সেই ভাষণে বাংলাদেশের প্রতি তাঁর সমর্থন স্পষ্ট হয়ে উঠেছিল। পূর্ব পাকিস্তান আর দখলে রাখা যাবে না এবং মুক্তিবাহিনী যে ক্রমেই শক্তিশালী হয়ে উঠছে সেটা পাকিস্তানিরা হাড়ে হাড়ে টের পাচ্ছিল। রণাঙ্গনগুলোতে ক্রমেই পরাস্ত হচ্ছিল পাকিস্তানি হানাদাররা। এই বাস্তবতা সামনে রেখে পাকিস্তানিরা আরেক যুদ্ধে মেতে উঠে। সেই যুদ্ধ স্নায়ুযুদ্ধ। আন্তর্জাতিক এই স্নায়ুযুদ্ধ শুরু হয় জাতিসংঘে। পাকিস্তান চেয়েছিল এই যুদ্ধকে পাক-ভারত যুদ্ধ হিসেবে দেখিয়ে নিজেদের সুবিধা হাতিয়ে নিতে। বিশ্ব সম্প্রদায়ের উদ্বেগ-উৎকন্ঠা কাজে লাগিয়ে যুদ্ধবিরতি কার্যকর করাই ছিল তাদের মূল লক্ষ্য। যুদ্ধ থামাতে পারলে মুক্তিযোদ্ধাদের অগ্রগতি রোধ করা সম্ভব হবে। বাংলাদেশের স্বাধীনতার প্রসঙ্গ তখন দুর্বল হয়ে পড়বে। একাত্তরের এই দিনে জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদে পাকিস্তানের অনুরোধে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র যুদ্ধবিরতির প্রস্তাব উপস্থাপন করে। এ প্রস্তাবে দাবি করা হয়-এ মুহূর্তে ভারত ও পাকিস্তানকে নিজ নিজ সীমান্তের ভেতর সৈন্য প্রত্যাহার করতে হবে। কিন্তু, সোভিয়েত ইউনিয়ন এই প্রস্তাবের বিপক্ষে অবস্থান নেয়। বৈঠকের পর বৈঠক হলেও যুক্তরাষ্ট্রের প্রস্তাবটি নিরাপত্তা পরিষদে পাস হতে পারেনি। কিন্তু, তখনও পাকিস্তান তার অপতৎপরতা চালিয়ে যাচ্ছিল। এমনই অস্থির সময়ে ভারতে প্রবাসী বাংলাদেশ সরকার পড়ে যায় চরম উৎকণ্ঠায়। একাত্তরের এই দিনে তারা ভারতের প্রধানমন্ত্রী ইন্দিরা গান্ধীকে লিখিত এক পত্রে বাংলাদেশকে স্বীকৃতি প্রদানের জন্য অনুরোধ করে। এ চিঠিতে প্রবাসী বাংলাদেশ সরকারের পক্ষ থেকে আশ্বাস দিয়ে বলা হয়- ‘উভয় দেশের এই ভয়াবহ বিপদে বাংলাদেশ সরকার ও জনগণ আপনাদের সঙ্গে রয়েছে। আমাদের আন্তরিক আশা রয়েছে, আমাদের যৌথ প্রতিরোধে প্রেসিডেন্ট ইয়াহিয়া খানের জঘন্য চক্রান্ত ব্যর্থ হতে বাধ্য। আমরা সফল হবই।’ এই দিন দুপুরে এক বেতার ভাষণে ইয়াহিয়া খান ভারতের বিরুদ্ধে যুদ্ধ ঘোষণা করে বলেন, ‘আমাদের সেনাবাহিনী শত্রুকে কেবল আমাদের ভূখন্ড থেকে বিতাড়িত করবে না, শত্রুর ভূখন্ডে গিয়েও তাদের নির্মূল করবে।’ কথাগুলো ছিল তার শুধুই আস্ফালন। রণাঙ্গনে তখন পাকিস্তানি হানাদার বাহিনী ক্রমেই পিছু হটছে। তারা ভয়ে অনেকটা দুর্বল হয়ে পড়ে। মনের দিক থেকেও প্রবল ধাক্কা খায়। মুক্তিযোদ্ধারা দখলদার মুক্ত করতে থাকে দেশের বিভিন্ন এলাকা। পাকিস্তানি সামরিক ঘাঁটিগুলোতে অবিরাম গোলাবর্ষণ করছে। পালানোর পথ খুঁজছে পাকিস্তানি হানাদাররা। এই দিন যৌথবাহিনীর তিনটি ডিভিশন যশোর, পঞ্চগড় ও চুয়াডাঙ্গা দিয়ে ঢাকা অভিমুখে এগোতে থাকে। দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে বাংলার দামাল মুক্তিযোদ্ধারা প্রাণপণ লড়াই করতে থাকেন। দখলদার মুক্ত হয় বিভিন্ন এলাকা।

শেয়ার করুন
প্রথম পাতা এর আরো সংবাদ
  • ‘মুজিববর্ষে শিক্ষার্থীদের বিশেষ প্রণোদনা দেয়া হবে’
  • বাংলাদেশের অগ্রগতি বিশ্বের কাছে একটি বিস্ময় -------------বিমান ও পর্যটন প্রতিমন্ত্রী
  • বাম হাত বেঁকে গেছে খালেদা জিয়ার, উন্নত চিকিৎসা প্রয়োজন: সেলিমা
  • বিএনপি’র বিজয়ের কোন ইতিহাস নেই : কাদের
  • আওয়ামী লীগের নবনির্বাচিত কমিটির জাতির পিতার সমাধিতে শ্রদ্ধা নিবেদন
  • জাতির পিতার নাম এখন আর কেউ মুছে ফেলতে পারবে না : প্রধানমন্ত্রী
  • দক্ষিণ সুরমার লাল মাটিয়ায় ট্রাকের ভেতর থেকে দুটি লাশ উদ্ধার
  • পাঠ্যপুস্তকে মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাসের পাশাপাশি রাজাকারদের অপকর্ম তুলে ধরা হবে -------- মন্ত্রী আ.ক.ম মোজাম্মেল হক
  • জগন্নাথপুরে অটোরিক্সা চাপায় শিশু নিহত
  • বাহুবলে বাস খাদে পড়ে মহিলাসহ ৩ জন নিহত ॥ আহত ২৫
  • সিলেট অভিমুখী পারাবতে আগুন
  • শৈত্যপ্রবাহ আরও থাকবে এরপর বৃষ্টি
  • ছবি
  • মৌলভীবাজারে ট্রাক চাপায় মহিলা নিহত
  •   সিলেটে চার মন্ত্রীর সফর সূচি আজ
  • এ সরকারের আমলে সাবেক অর্থমন্ত্রী কিবরিয়া হত্যার বিচার হবে না,   খালেদা জিয়ার মুক্তি দাবি
  • মিজানুর রহমান আজহারী ও তারেক মনোয়ারের ওয়াজের বিষয় সংসদে উত্থাপন
  • আইসিজের সিদ্ধান্ত মিয়ানমার যেন এড়িয়ে যেতে না পারে: জাতিসংঘ
  • ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় মুজিববর্ষে বঙ্গবন্ধুকে ডক্টর অব লজ ডিগ্রি প্রদান করবে
  • দুর্নীতির ধারণাসূচক : বাংলাদেশের অবস্থান সামান্য পরিবর্তন
  • Developed by: Sparkle IT