প্রথম পাতা

সড়কে নামার অপেক্ষায় ‘নগর এক্সপ্রেস’

নূর আহমদ প্রকাশিত হয়েছে: ০৭-১২-২০১৯ ইং ০২:২৫:৫৬ | সংবাদটি ৬৭৬ বার পঠিত

প্রস্তুত 'নগর এক্সপ্রেস'। নগরবাসী ও এর আশপাশ এলাকার লোকজনকে সেবা দিতে শিগগিরই সড়কে নামবে 'নগর এক্সপ্রেস' নামের এই গণপরিবহন। প্রাথমিকভাবে তাদের বহরে যুক্ত হয়েছে ২১টি বাস। কিছুটা বাধা বিপত্তি থাকলেও নগর এক্সপ্রেস চালু করতে অনড় নগর কর্তৃপক্ষ। ভাড়া ও রোড চলাচলের প্রান্ত:সীমা নির্ধারণসহ এসএমপির ট্রাফিক বিভাগের সাথে মতবিনিময়সহ সকল প্রস্তুতি সম্পন্ন হয়েছে। এখন কেবল উদ্বোধনের অপেক্ষা। পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আব্দুল মোমেন উদ্বোধনের সময় দিলেই চলতি মাসের যে কোন যাত্রা শুরু হবে ‘নগর এক্সপ্রেস’-এর। এর মধ্যে মহিলা চালক দ্বারা চালনা করা হতে পারে একমাত্র মহিলা বাসটি।
গণপরিবহন সংকটে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের সামনে অতিরিক্ত অন্যান্য যানবাহনের চাপে যানজট সিলেট নগরীর প্রধানতম সমস্যা। স্কুল শুরু ও ছুটির সময় রিক্সা, অটোরিক্সার পাশাপাশি ব্যক্তিগত গাড়ির চাপে বিভিন্ন সড়কে দীর্ঘক্ষণ যানজট লেগে থাকে। আবার পর্যাপ্ত যানবাহনের অভাবে স্কুল ছুটির পর নগরীর জিন্দাবাজার, বন্দরবাজার, চৌহাট্টাসহ গুরুত্বপূর্ণ পয়েন্টে দীর্ঘ সময় অনেক শিক্ষার্থীকে দাঁড়িয়ে থাকতে হয়। এ সংকট নিরসনের পাশাপাশি যানজট নিয়ন্ত্রণে পরীক্ষামূলকভাবে স্কুল বাস সার্ভিস চালু রয়েছে সিটি কর্পোরেশনের। অবশ্য এবার বৃহৎ পরিসরে উল্লেখযোগ্য বাস নিয়ে এবার সড়কে নামছে ‘নগর এক্সপ্রেস’।
সিলেট সিটি কর্পোরেশনের 'নগর এক্সপ্রেস' চালুর অংশ হিসেবে প্রাথমিকভাবে ২১টি মিনিবাস রাস্তায় নামানো হচ্ছে। এর মধ্যে নারীদের জন্য পৃথক একটি বাস থাকবে। নিটল মটরসের সহযোগিতায় সিটি কর্পোরেশন এই সেবা চালু করতে যাচ্ছে। গত এপ্রিলে নিটল মটরসের চেয়ারম্যান আব্দুল মাতলুব আহমাদের সঙ্গে মেয়র আরিফুল হক চৌধুরীর আলোচনা হয়। এর পরপরই পরীক্ষামূলকভাবে কর্পোরেশনের কর্মকর্তাদের জন্য বাস সার্ভিস চালু হয়।
নগর এক্সপ্রেস সিটি বাস মালিক গ্রুপের ম্যানেজার নাসির উদ্দিন রুহেল জানান, ৪৬টি বাস চলাচলের প্রাথমিক চিন্তা ছিল। অবশ্য ২১টি বাস নিয়ে যাত্রা শুরু হবে। বাসগুলো একেবারেই প্রস্তুত রয়েছে। প্রাথমিকভাবে এই বাসগুলো টুকেরাবাজার থেকে মেডিকেল রোড হয়ে হেতিমগঞ্জ যাবে। টুকেরবাজার থেকে বন্দর টু বটেশ্বর। সুরমা মার্কেট পয়েন্ট থেকে হেতিমগঞ্জ ও এয়ারপোর্ট থেকে কদমতলী হয়ে মোগলাবাজারের হাজিগঞ্জে যাবে। চালকসহ সুপাভাইজার নিয়োগ সম্পন্ন হয়েছে। ভাড়া নির্ধারণ করা হয়েছে। যাত্রীরা টিকিট কেটে সেবা গ্রহণ করবেন।
নগর এক্সপ্রেস এর সমন্বয়কারী শাহ মোঃ বাহাদুর আলম জানান, বিভিন্নস্থানে যাত্রী ছাউনি হচ্ছে। প্রাথমিকভাবে মদীনা মার্কেট, বন্দরবাজার ও কদমতলীতে যাত্রীদের সুবিধার্থে যাত্রী ছাউনি করা হচ্ছে। পর্যায়ক্রমে সকল স্পটে এই ছাউনি বসানো হবে। সিলেট- ভোলাগঞ্জ সড়কেও এই সার্ভিস চালুর পরিকল্পনা রয়েছে।
অপরদিকে প্রাথমিকভাবে সিসিক পরিচালিত বীরেশ চন্দ্র উচ্চ বিদ্যালয় ও চারাদীঘির পাড় উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের পরিবহনের জন্য ২৫ আসনের তিনটি স্কুল বাস চালুর পরিকল্পনা রয়েছে। আগামী জানুয়ারী থেকে এই সার্ভিস চালু হতে পারে। এছাড়া এই বাসেই স্বল্পভাড়ায় অন্যান্য স্কুলের শীক্ষার্থীরাও যাত্রী সেবা পেতে পারে।
এ ব্যাপারে সিলেট সিটি কর্পোরেশনের কাউন্সিলর ও নগর এক্সপ্রেস সিটি বাস মালিক গ্রুপের আহবায়ক হাজী মখলিছুর রহমান কামরান জানান, টুকেরবাজার থেকে হেতিমগঞ্জ, সুরমা মার্কেট থেকে রশিদপুর, টুকেরবাজার থেকে বটেশ্বর ও এয়ারপোর্ট থেকে হাজীগঞ্জ রুটে বাস চলবে। প্রথম ছয়মাস টিকিট কেটে যাত্রীদের যাতায়াতের ব্যবস্থা থাকলেও পরে ডিজিটাল পেমেন্ট দিয়ে বাসে যাতায়াত করতে পারবেন নগরবাসী। আশা করি নগরবাসী সুলভ মূল্যে আরামদায়ক ও নিরাপদ ভ্রমণে এটি নতুন মাত্রা যোগ করবে নগর এক্সপ্রেস। তিনি বলেন, নিটোল টাটার সাপোর্টে স্থানীয় ব্যবসায়ীদের মালিকানাধীন একটি মালিক সমিতির মাধ্যমে এটি পরিচালিত হবে। হাজী মখলিছু রহমান কামরান আরো জানান, ৬ ডিসেম্বর নগর এক্সপ্রেস এর উদ্বোধন হওয়ার কথা থাকলেও মন্ত্রীর সিডিউল না পাওয়ায় তারিখ পিছানো হয়েছে। মন্ত্রী সময় দিলেই আনুষ্ঠানিক যাত্রা শুরু করবে নগর এক্সপ্রেস। তিনি যাত্রীসেবা নিশ্চিতকরণে সকলের সহযোগিতা কামনা করেন। কামরান আরো জানান, একমাত্র মহিলা বাসটির জন্য মহিলা চালক ও হেল্পার খোঁজা হচ্ছে। চেষ্টা করা হচ্ছে মহিলাকে দিয়েই বাসটি পরিচালনা করার।
গতকাল মঙ্গলবার নগরবাসীর সাথে মতবিনিময়ে মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী জানান, তিন মাস আগে নগর এক্সপ্রেস চালুর পরিকল্পনার কথা জানানো হয়েছিল। এ বাসের মাধ্যমে আমরা নগরবাসীকে দ্রুততম সময়ে এবং কম পয়সায় গন্তব্যে পৌঁছাতে চাই। আমরা নগরীর বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ পয়েন্টে স্টপেজ চালু করতে চাইলেও একটি মহল তা মেনে নিতে পারছে না। তিনি নগর এক্সপ্রেস চালু করতে নগরবাসীর স্বত:স্ফূর্ত সহযোগিতা কামনা করেন।
ওই সভায় জেলা সড়ক পরিবহন মালিক শ্রমিক ইউনিয়নের সভাপতি সেলিম আহমদ ফলিক নগর এক্সপ্রেস চালুর সিদ্ধান্তকে স্বাগত জানিয়ে বলেন, নগরবাসীর সুবিধার জন্যই এ সার্ভিস চালু করা হচ্ছে। তিনি বলেন, দেশের সব জায়গায় সিটি এক্সপ্রেস থাকলেও সিলেটে তা নেই। বাস চালুর ক্ষেত্রে তিনি সব ধরণের সহযোগিতার আশ্বাস দেন।

শেয়ার করুন
প্রথম পাতা এর আরো সংবাদ
  • ছবি
  • মৌলভীবাজারে ট্রাক চাপায় মহিলা নিহত
  •   সিলেটে চার মন্ত্রীর সফর সূচি আজ
  • এ সরকারের আমলে সাবেক অর্থমন্ত্রী কিবরিয়া হত্যার বিচার হবে না,   খালেদা জিয়ার মুক্তি দাবি
  • মিজানুর রহমান আজহারী ও তারেক মনোয়ারের ওয়াজের বিষয় সংসদে উত্থাপন
  • আইসিজের সিদ্ধান্ত মিয়ানমার যেন এড়িয়ে যেতে না পারে: জাতিসংঘ
  • ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় মুজিববর্ষে বঙ্গবন্ধুকে ডক্টর অব লজ ডিগ্রি প্রদান করবে
  • দুর্নীতির ধারণাসূচক : বাংলাদেশের অবস্থান সামান্য পরিবর্তন
  • সেনাবাহিনীর শীতকালীন মহড়া প্রত্যক্ষ করেছেন প্রধানমন্ত্রী
  • রোহিঙ্গ হত্যা, নির্যাতন, বাস্তুচ্যুতি বন্ধে মিয়ানমারকে আদেশ
  • ‘নতুন শিক্ষাবর্ষ থেকে’ বিশ্ববিদ্যালয়ে সমন্বিত ভর্তি পরীক্ষা
  • বিএসএফের গুলিতে ৩ বাংলাদেশি নিহত
  • ফেসবুকে স্ট্যাটাস দিয়ে পুলিশ সদস্যের নিজ বন্দুক দিয়ে আত্মাহুতি
  • সিলেটের ওয়াসি আহমেদসহ এবার বাংলা একাডেমি সাহিত্য পুরস্কার পাচ্ছেন ১০ জন
  • বঙ্গবন্ধুর সমাধিতে শ্রদ্ধা জানাতে আজ টুঙ্গিপাড়া যাচ্ছেন আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী সংসদ
  • গণঅভ্যুত্থান দিবস আজ
  • রায়কে স্বাগত জানিয়েছে ঢাকা
  • প্রচারে পোস্টার-ব্যানার রাখতে চান না আতিক
  •   হারপিক পানে মারা গেলেন এমপিপুত্র অভিজিৎ
  • দক্ষিণ সুরমায় উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমপ্লেক্সের উদ্বোধন কাল
  • Developed by: Sparkle IT