ইতিহাস ও ঐতিহ্য

জগন্নাথপুর উপজেলা সমিতি

অধ্যাপক মো. আহবাব খান প্রকাশিত হয়েছে: ১১-১২-২০১৯ ইং ০০:১৩:৫৭ | সংবাদটি ৩৩১ বার পঠিত
Image

জগন্নাথপুর উপজেলা সমিতি সিলেট হঠাৎ করে এক দিনে এক ঘোষণায় প্রতিষ্ঠিত হয়নি। জগন্নাথপুর উপজেলা এক ঐতিহাসিক ভূখ-। এই উপজেলায় অনেক অলি, আউলিয়া, গুণীজন জন্মগ্রহণ করেছেন। এখনো অনেক গুণীজন ও বুদ্ধিজীবী বাংলাদেশ তথা বিশ্বের বিভিন্ন দেশে অবস্থান করে জগন্নাথপুর উপজেলাকে উজ্জ্বল থেকে উজ্জ্বলতর করছেন, এরই ধারাবাহিকতায় সিলেট মহানগরে বসবাসরত জগন্নাথপুরের অধিবাসীদের এক বৈঠক ২২/০৫/৭৭ তারিখে সিলেট জেলাবার লাইব্রেরি হলে অনুষ্ঠিত হয়। সভায় বিভিন্ন বক্তা উক্ত থানার বিভিন্ন সমস্যাদি আলোচনা করেন এবং উক্ত সমস্যাগুলো দূরীকরণের উদ্দেশ্যে থানাবাসীর পক্ষে একটি সমিতি গঠন করার নিমিত্তে একটি প্রস্তুতি কমিটি গঠন করা হয়। আলহাজ্ব মোবাশ্বির আলী সাহেবকে উক্ত কমিটির আহ্বায়ক নির্বাচিত করা হয়। উক্ত কমিটির সমন্বয়ে প্রাথমিকভাবে গঠনতন্ত্র রচনা করে ২৬/০৬/৭৭ জেলা বার লাইব্রেরি হলে পূর্ণাঙ্গ কমিটি গঠন করার নিমিত্তে এক সাধারণ সভা আহ্বান করে এবং উক্ত সভায় সভাপতিত্ব করেন বিশিষ্ট শিক্ষাবিদ প্রবীণ রাজনীতিবিদ মোঃ আছাফুর রাজা চৌধুরী। উক্ত সভায় সমিতির গঠনতন্ত্র অনুমোদন করে পূর্ণাঙ্গ কমিটি গঠন করা হয়। সমিতির প্রথম কার্যকরী পরিষদে মোঃ মোবাশ্বির আলী ও সৈয়দ আকিকুল হককে যথাক্রমে সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত করা হয়। জগন্নাথপুর থানা সমিতি সিলেট একটি অরাজনৈতিক কল্যাণমূলক প্রতিষ্ঠান যার উদ্দেশ্য রাস্তাঘাট, শিক্ষা সংস্কৃতি ইত্যাদির উন্নতির সাধন করা। সংহতি শৃঙ্খলা ও ভ্রাতৃত্ববোধ সৃষ্টি করে সিলেট শহর ও শহরতলীতে বসবাসকারী জগন্নাথপুর থানাবাসীদের সমন্বয় সংস্থা হিসাবে এই সমিতি আত্মপ্রকাশ করে। জগন্নাথপুর থানার অধিবাসী বিভিন্নস্তরের লোকদের মধ্যে পারস্পরিক সমন্বয় সাধনই এই সমিতির লক্ষ্য।
আমি অত্যন্ত আনন্দিত যে ১৯৭৭ সালে প্রতিষ্ঠিত এই সংগঠনটি ২০১৯ সালে এসে অনেক কল্যাণমূলক কাজ করে বর্তমানে মহীরুহে বুক উঁচু করে সিলেট মহানগরে অবস্থান করছে। জগন্নাথপুর উপজেলা সমিতি, সিলেট এর বর্তমান সভাপতি অধ্যক্ষ সৈয়দ মুহাদ্দিস আহমদ ও সাধারণ সম্পাদক মোঃ রফিকুল ইসলাম খসরু কার্যকরী পরিষদের সকলকে নিয়ে সমাজকল্যাণমূলক কাজ করে যাচ্ছেন। আমি আনন্দিত ও গর্বের সাথে বলছি জগন্নাথপুর উপজেলা সমিতি সিলেট এর ((১৯৯২-১৯৯৩ সালের) সাধারণ সম্পাদক হিসেবে কাজ করার সৌভাগ্য হয়েছিল, আমার সাথে সভাপতি ছিলেন জগন্নাথপুর তথা বৃহত্তর সিলেট এর কৃতি সন্তান বাংলাদেশ ব্যাংক, সিলেট এর জি.এম. সৈয়দ আব্দুল মালিক। তিনি সাত মাস দায়িত্ব পালন করার পর অসুস্থ হয়ে পড়েন, এমতাবস্তায় তাকে সভাপতি রেখে সহসভাপতিদ্বয়কে দিয়ে পালাক্রমে সভাপতির কাজ চালিয়ে যাই। সৈয়দ আব্দুল মালিক সাহেব প্রায়ই বলতেন আহবাব সাহেব দুটো কাজ করলে আনন্দ পেতাম, একটি হলো- সিলেট শহরে একটি অত্যাধুনিক বাসা ভাড়া নিয়ে একটি গেস্ট হাউজ করা, যার নাম হবে জগন্নাথপুর উপজেলা সমিতি, সিলেট গেস্ট হাউজ। অন্যটি হলো সিলেট জগন্নাথপুর -সুনামগঞ্জ ট্রেইন লাইন নির্মাণ করে রেলে চড়ে স্বল্প খরচে যাতায়াত করা। আমি বর্তমান প্রজন্মের জগন্নাথপুরের সকল জনগণকে এ ব্যাপারে উদ্যোগ নেওয়ার জন্য আহ্বান জানাচ্ছি। আমি বিশ্বাস করি জনগণের চাপে বাধ্য হয়ে সরকার রেলওয়ে নির্মাণ করবেন। আমি জগন্নাথপুর উপজেলা সমিতি, সিলেট এর উত্তরোত্তর সাফল্য কামনা করি।

শেয়ার করুন

ফেসবুকে সিলেটের ডাক

ইতিহাস ও ঐতিহ্য এর আরো সংবাদ
  • বালাগঞ্জের বাতিঘর বাংলাবাজার উচ্চ বিদ্যালয়
  • বঙ্গবন্ধু ও গান্ধীজী
  • সিলেটের দ্বিতীয় সংবাদপত্রের সম্পাদক ছিলেন ‘মেশিনম্যান’
  • একটি যুদ্ধ : একটি শতাব্দী
  • বালাগঞ্জের প্রাচীন জনপদ শিওরখাল গ্রাম
  • ভাটিপাড়া
  • সময়ের সোচ্চার স্বর সোমেন চন্দ
  • বঙ্গবন্ধুর সিলেট সফর ও কিছু কথা
  • বায়ান্নতেই লিখেছিলেন ‘ঢাকাই কারবালা’
  • জীবনের শেষক্ষণে অর্থ-স্বর্ণ সবই জড়পদার্থ
  • কমরেড বরুণ রায়
  • বঙ্গবন্ধু ও রাষ্ট্রভাষা আন্দোলন
  • নারী ভাষাসৈনিকদের কথা
  • মুক্তিযুদ্ধ ও বঙ্গবীর ওসমানী
  • ভাটির বাতিঘর সুনামগঞ্জ সরকারি কলেজ
  • মাওয়ের লংমার্চের ৪ বছর পর সিলেটিদের লং মার্চ
  • শহীদ মিনারের ইতিকথা
  • সিলেটের লোকসংগীত : ধামাইল
  • পর্যটক ইবনে বতুতার কথা
  • বই এল কোথা থেকে?
  • Image

    Developed by:Sparkle IT