শেষের পাতা ত্রয়োদশ মৃত্যুবার্ষিকীর আলোচনা সভায় বক্তারা

বেগম রাবেয়া খাতুন ছিলেন ড. রাগীব আলীর সকল সৃষ্টিশীল চিন্তার বাতিঘর

প্রকাশিত হয়েছে: ১৩-১২-২০১৯ ইং ০৪:৩৮:৩০ | সংবাদটি ৩৪০ বার পঠিত

আবেগ-অনুভূতির সমস্ত সত্তায় রাবেয়া খাতুন বিদ্যমান : ড. রাগীব আলী, রাবেয়া খাতুন মানবতার অগ্রপথিক : মিসবাহ সিরাজ, মেধা-মনন ও চিন্তায় গুণবতী ছিলেন রাবেয়া খাতুন : ড. কামরুজ্জামান চৌধুরী
স্টাফ রিপোর্টার ॥ দৈনিক সিলেটের ডাক-এর সাবেক সম্পাদক ও রাগীব-রাবেয়া ফাউন্ডেশনের কো-চেয়ারম্যান মহীয়সী নারী বেগম রাবেয়া খাতুন চৌধুরীর ত্রয়োদশ মৃত্যুবার্ষিকী নানা কর্মসূচির মধ্য দিয়ে পালিত হয়েছে। গতকাল বৃহস্পতিবার সকালে বিশ^নাথের কামালবাজারস্থ রাগীবনগরে অন্যান্য কর্মসূচির সাথে আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিলের আয়োজন করে মানবকল্যাণে নিবেদিত প্রতিষ্ঠান রাগীব-রাবেয়া ফাউন্ডেশন।
সভায় বক্তারা বলেন, বেগম রাবেয়া খাতুন চৌধুরী নীরবে-নিভৃতে আমৃত্যু মানুষের কল্যাণে কাজ করেছেন। তাঁর মধ্যে মাতৃত্বের গুণাবলী ছিল অপরিসীম। তিনি ছিলেন মানবসেবার এক উজ্জ্বল নিদর্শন। এজন্য তিনি সাধারণ মানুষের মণিকোঠায় স্থান করে নিয়েছেন। তাঁরা বলেন, বিশিষ্ট শিল্পপতি, শিক্ষানুরাগী ও সমাজসেবী দানবীর ড. রাগীব আলীর জীবন চলার পথে অবিচ্ছেদ্য অংশ ছিলেন রাবেয়া খাতুন। তিনি ছিলেন ড. রাগীব আলীর উৎসাহ ও অনুপ্রেরণার মূল উৎস ; ছিলেন মহৎ ও সৃষ্টিশীল চিন্তার বাতিঘর। তাঁর মতো ক্ষণজন্মা নারীকে পেয়ে দেশের প্রত্যন্ত অঞ্চলের সাধারণ মানুষ উপকৃত হয়েছেন। এজন্য তিনি মরেও লাভ করেছেন অমরত্ব।
সিলেটের প্রথম বেসরকারি বিশ^বিদ্যালয় লিডিং ইউনিভার্সিটির ট্রেজারার বনমালী ভৌমিকের সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন উপমহাদেশের প্রখ্যাত দানবীর, শিক্ষা ও সমাজসেবামূলক অসংখ্য প্রতিষ্ঠানের প্রতিষ্ঠাতা ও চেয়ারম্যান দানবীর ড. রাগীব আলী।
বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক এডভোকেট মিসবাহ উদ্দিন সিরাজ, লিডিং ইউনিভার্সিটির ভাইস চ্যান্সেলর প্রফেসর ড. কামরুজ্জামান চৌধুরী, জালালাবাদ রাগীব-রাবেয়া মেডিকেল কলেজের অধ্যক্ষ অধ্যাপক ডা. আবেদ হোসেন, লিডিং ইউনিভার্সিটির বোর্ড অব ট্রাস্টিজের ট্রাস্টি ও দৈনিক সিলেটের ডাক এর সম্পাদক আব্দুল হাই, রাগীব-রাবেয়া ফাউন্ডেশনের ট্রাস্টি মিসেস সাদিকা জান্নাত চৌধুরী, জালালাবাদ রাগীব-রাবেয়া মেডিকেল কলেজের ভাইস প্রিন্সিপাল অধ্যাপক ডা. একেএম দাউদ, হাসপাতালের পরিচালক অধ্যাপক মো. তারেক আজাদ, দৈনিক সিলেটের ডাক-এর ব্যবস্থাপনা সম্পাদক ওয়াহিদুর রহমান ওয়াহিদ, ১নং মোল্লারগাঁও ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান শেখ মো. মকন মিয়া।
প্রধান অতিথির বক্তব্যে রাগীব-রাবেয়া ফাউন্ডেশনের চেয়ারম্যান ও দেশবরেণ্য শিল্পপতি দানবীর ড. রাগীব আলী বলেন, আমার আবেগ-অনুভূতির সমস্ত সত্ত্বা জুড়ে
বিদ্যমান রয়েছেন রাবেয়া খাতুন চৌধুরী। তিনি ছিলেন আমার ধ্যান-ধারণা ও সকল কর্মের প্রেরণাদাতা। তাঁর আকস্মিক মৃত্যু আমাকে বেদনাহত করলেও মানুষকে ভালোবাসার শিক্ষা আজো ভুলিনি। কারণ সমাজের পিছিয়ে পড়া মানুষকে সাহায্য সহেযাগিতা করার প্রেরণা যুগিয়েছিলেন সহধর্মিণী রাবেয়া খাতুন। তিনি ছিলেন বিরল গুণের অধিকারী। ড. রাগীব আলী আরো বলেন, এ মহীয়সী নারী তার কর্মের মাধ্যমে যুগ-যুগান্তরে স্মরণীয় হয়ে থাকবেন। তাঁর একেকটি মৃত্যুবার্ষিকীতে যখন বিদগ্ধজন রাবেয়া খাতুনের গুণাবলী নিয়ে স্মৃতি রোমন্থন করেন, তখন স্বামী হিসেবে নিজেকে সৌভাগ্যবান মনে করি। তিনি মরহুমার রুহের মাগফেরাত কামনায় সকলের কাছে দোয়া কামনা করেন এবং দূর-দূরান্ত থেকে অনুষ্ঠানে এসে যোগদান করায় সকলের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন।
বিশেষ অতিথির বক্তব্যে আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক এডভোকেট মিসবাহ উদ্দিন সিরাজ বলেন, শিক্ষা, সাহিত্য, সংস্কৃতি, সমাজ বিনির্মাণ ও মানবকল্যাণে রাগীব-রাবেয়া দম্পতি যে অবদান রেখেছেন তা অবিস্মরণীয়। দুনিয়া যতদিন থাকবে এদেশের মানুষের হৃদয়ে তাদের নাম থাকবে ভাস্বর। তিনি বলেন, কোনো পদ-পদবী নয়, আল্লাহর সন্তুষ্টি অর্জনের জন্য রাগীব-রাবেয়া দম্পতি সমাজসেবা করেছেন। রাবেয়া খাতুনের ইন্তেকালের পর অজ¯্র মানুষের কল্যাণার্থে রাগীব আলীর যুগ যুগ বেঁচে থাকাটাই প্রয়োজন। তিনি মানবতার অগ্রপ্রথিক রাবেয়া খাতুন চৌধুরীর জান্নাত কামনা করেন।
লিডিং ইউনিভার্সিটির ভাইস চ্যান্সেলর প্রফেসর ড. কামরুজ্জামান চৌধুরী বলেন, বেগম রাবেয়া খাতুন মেধা-মননে, চিন্তায় আদর্শে গুণবতী রমনী ছিলেন। একমাত্র তাঁর প্রেরণায় দানবীর ড. রাগীব আলী অজ¯্র প্রতিষ্ঠান গড়ে তুলেছেন। তিনি ছিলেন কর্মবীর, মরণের পর অমরতা পাওয়াই ছিল তাঁর উদ্দেশ্য। তিনি বলেন, রাবেয়া খাতুনের মৃত্যুবার্ষিকীতে মানুষের শ্রদ্ধা ও ভালোবাসা দেখেই অনুমেয়; তাঁর জীবন সার্থক হয়েছে। ড. কামরুজ্জামান আরো বলেন, প্রিয়তমা রাবেয়ার মৃত্যুতে রাগীব আলীর উদারতা ও দানশীলতা একটুও কমেনি, বরং দিন দিন বাড়ছে।
জালালাবাদ রাগীব-রাবেয়া মেডিকেল কলেজের উপাধ্যক্ষ ডা. একেএম দাউদ বলেন, রাগীব-রাবেয়ার জীবন অনেকটা রূপকথার মতো। তাঁদের মহানুভবতার বাস্তব গল্প যতই শুনি যতই বলি শেষ হয় না। তিনি বলেন, রাবেয়া খাতুন অগণিত দুস্থ মানুষের মুখে হাসি ফুটিয়ে শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেছেন। আমার বিশ্বাস, ইহকালের মতো পরকালেও তিনি সর্বোচ্চ সম্মানীত হবেন।
রোটারিয়ান ওয়াহিদুর রহমান ওয়াহিদ বলেন, যে ব্যক্তি শুকরিয়া আদায় করে আল্লাহ তাঁর দৌলত বৃদ্ধি করে দেন। রাবেয়া খাতুন তাঁর কর্মের মাধ্যমে আমৃত্যু আল্লাহর জয়গান গেয়েছেন। এজন্য তিনি শুধু সফল নন, তাঁর জীবন হয়ে উঠেছে সার্থকতায় ভরপুর।
ইউপি চেয়ারম্যান শেখ মকন মিয়া বলেন, রাগীব-রাবেয়া এতদঞ্চলে আলোর দ্বীপশিখা জ্বেলে দিয়েছেন। এজন্য মানুষের মনে তাঁরা চিরঞ্জীব ও জাগরুক থাকবেন। তিনি রাবেয়া খাতুনের বেহেস্ত নসীব ও রাগীব আলীর সু-স্বাস্থ্য এবং দীর্ঘায়ু কামনা করেন।
লিডিং ইউনিভার্সিটির ডেপুটি রেজিস্ট্রার কাউসার হাওলাদারের পরিচালনায় অনুষ্ঠানে বিশিষ্ট লেখক ও গবেষক আবদুল হামিদ মানিক বলেন, মানুষ জন্মে, মরেও যায়। তার মধ্যে কয়জনের নাম মানুষ স্মরণ রাখে। মহীয়সী নারী রাবেয়া খাতুন চৌধুরী নিঃস্বার্থভাবে মানবতার কল্যাণে কাজ করেছেন। তাঁরা দু’জনে সিলেটের ডাক সহ যেখানে হাত দিয়েছেন সেখানে সোনা ফলেছে। এজন্য তাঁরা স্মরণীয় হয়ে থাকবেন।
বীর মুক্তিযোদ্ধা ওয়েছুর রহমান চৌধুরী বলেন, ১৩ বছর পূর্বে আকাশ থেকে যে নক্ষত্র খসে পড়েছিল, তার অস্তিত্ব আমরা খুঁেজ পেয়েছি বেগম রাবেয়া খাতুন চৌধুরীর মধ্যে। তিনি বলেন, রাগীব-রাবেয়া দম্পতি মানবতা, সমাজসেবা ও কল্যাণের জ্যোতি হিসেবে আমাদের কাছে পরিচিত। তাদের গুণাবলী আমাদের প্রত্যেকের জীবনে প্রস্ফুটিত করে তোলা একান্ত অপরিহার্য্য।
কলামিস্ট আফতাব চৌধুরী বলেন, রাগীব-রাবেয়া দু’জনের বোঝাপড়া ছিল খুবই ভালো। তাদের প্রতিষ্ঠিত লিডিং ইউনিভার্সিটির সুনাম দেশ-বিদেশে রয়েছে। সুরমার পানি শেষ হবে, কিন্তু রাগীব আলীর দান-দক্ষিণা অক্ষয় থাকবে।
কবি মুহিত চৌধুরী বলেন, রাগীব আলী আলো ছড়িয়েছেন, আলো ছড়াচ্ছেন। তা একমাত্র রাবেয়া খাতুনের কারণে সম্ভব হয়েছে।
অনুষ্ঠানে আরো বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশ মানবাধিকার বাস্তবায়ন সংস্থা মৌলভীবাজার জেলা শাখার সভাপতি আব্দুল ওয়ালি সিদ্দিকী, মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় উজ্জীবিত স্বাধীনতার স্বপক্ষের ওলামা মাশায়েখ পরিষদ কেন্দ্রীয় কমিটির প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি হাকীম মাওলানা আনছার আহমদ সিদ্দিকী, তথ্যচিত্র নির্মাতা জুলফিকার রহমান সাঈদ, লেখক বেলাল আহমদ চৌধুরী, সাংবাদিক কবির আহমদ, লেখক সৈয়দ বদরুল আলম, বায়োজিদ মাহমুদ ফয়সল প্রমুখ।
অপরদিকে, বেগম রাবেয়া খাতুন চৌধুরীর ত্রয়োদশ মৃত্যুবার্ষিকীতে রাগীব-রাবেয়া ফাউন্ডেশন ‘আলোর অভিসারী’ এবং জালালাবাদ রাগীব-রাবেয়া মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল ‘রাবেয়া’ শিরোনামে পৃথক দু’টি স্মারকগ্রন্থ প্রকাশ করে। আলোচনা অনুষ্ঠানে প্রধান ও বিশেষ অতিথিবৃন্দ স্মারকগ্রন্থের মোড়ক উন্মোচন করেন। পরে আলোচনা অনুষ্ঠানে উপস্থিত সমাজের বিভিন্ন অঙ্গনের প্রতিষ্ঠিত ব্যক্তিদের হাতে গ্রন্থ দু’টি তুলে দেয়া হয়।
এছাড়া সভায়, শিল্প-সাহিত্যের পৃষ্ঠপোষক মহীয়সী নারী বেগম রাবেয়া খাতুনকে উৎসর্গ করে স্বরচিত কবিতা আবৃত্তি করেন লিডিং ইউনিভার্সিটির শিক্ষক রেজাউল করিম, জাহানারা ওয়াহাব এবং গজল পরিবেশন করেন আব্দুল ওয়াহাব মাস্টার।
এদিকে, গতকাল বৃহস্পতিবার সকালে বেগম রাবেয়া খাতুন চৌধুরীর ত্রয়োদশ মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে বিশ^নাথের রাগীবনগরে অন্যান্য কর্মসূচির সাথে আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিলের আয়োজন করে মানবকল্যাণে নিবেদিত প্রতিষ্ঠান রাগীব-রাবেয়া ফাউন্ডেশন।

শেয়ার করুন
শেষের পাতা এর আরো সংবাদ
  • জাফলংয়ে ভ্রাম্যমাণ আদালতের অভিযান, মালামাল ধ্বংস
  • জার্মানিতে বন্দুকধারীর হামলা, নিহত ৬
  • লিডিং ইউনিভার্সিটির বার্ষিক বনভোজন
  • নগরীতে রাত ১২টার আগে ট্রাক চলাচল বন্ধের দাবীতে সড়ক অবরোধ
  • করোনাভাইরাস ঠেকাতে চীনের ১০ শহরে গণপরিবহন, মন্দির বন্ধ
  • শিশুকে সুশিক্ষিত করতে পারলে দেশ ও জাতি আলোকিত হবে -------প্রফেসর হাসান ওয়ায়েজ
  • সুস্থ রাজনীতি ফিরিয়ে আনতে মানুষের মন জয় করতে হবে
  • সিলেটে আবগারী ও ভ্যাট বিভাগ কর্মকর্তাদের বিভিন্ন ব্যবসা প্রতিষ্ঠান ও বাজার পরিদর্শন
  • বড়লেখায় জমিজমা নিয়ে দু’পক্ষের মারামারি
  • প্রথম বিলের টাকা না পেয়ে পিআইসিরা হতাশ
  • কাদিয়ানীদের অমুসলিম ঘোষণার দাবিতে জালালাবাদ ইমাম সমিতির সমাবেশ
  • কোম্পানীগঞ্জে ‘মরা ধলাই খাল’ ভরাট করে শতাধিক স্থাপনা
  • একরাতে ১২ গাছ চুরি গাড়িসহ গাছ উদ্ধার
  • কমলগঞ্জের পাত্রখোলা লেইক অতিথি পাখিদের অভয়াশ্রম
  • এ অঞ্চলের মানুষ ধর্মভীরু হলেও বেশি দুর্নীতি করে: দুদক কমিশনার
  • পদ্মা সেতু : ২২তম স্প্যানে দৃশ্যমান ৩৩০০ মিটার
  • শৈত্য প্রবাহ অব্যাহত থাকতে পারে
  • গাম্বিয়া সরকারকে ধন্যবাদ জানিয়েছে বিএনপি
  • নবীগঞ্জে মাদ্রাসা মার্কেটে অগ্নিকান্ড ৯টি দোকান পুড়ে ১০ লাখ টাকার ক্ষতি
  •  শিক্ষার্থীদের স্বপ্নের সমান সফলতা আসে --এম কাজী এমদাদুল ইসলাম
  • Developed by: Sparkle IT