স্বাস্থ্য কুশল

শীতকালে নাক, কান ও গলার সমস্যা

ডাঃ নূরুল হুদা নাঈম প্রকাশিত হয়েছে: ৩০-১২-২০১৯ ইং ০০:৩৬:৫৩ | সংবাদটি ৫৪৭ বার পঠিত
Image

ঋতু পরিবর্তনের সাথে মানুষের নাক কান গলায় বিভিন্ন প্রকার অসুখ দেখা দেয়। কিছু সমস্যা নতুনভাবে এবং আগের কিছু সমস্যার প্রকোপ বৃদ্ধি পায়, যেমন- সর্দি, কাশি, অ্যালার্জি, টনসিলে প্রদাহ, গলা ব্যথা ইত্যাদি। এসময় ঠান্ডায় কাশির প্রকোপ অনেক বেড়ে যায়। ফলে বুকে ও গলায় ব্যথা দেখা দেয়। অতিরিক্ত কাশির ফলে ঘুমের ব্যঘাতও ঘটতে পারে। কোন কোন সময় কাশির সাথে কফ বা রক্তও বের হতে পারে। অতিরিক্ত ঠান্ডার ফলে বিভিন্ন কারণে গলায় ব্যথা হয়ে থাকে। যেমন- হঠাৎ করে ঠান্ডা পানি পান করলে, শীতে গরম কাপড় না পড়লে বা ঠান্ডার মধ্যে বাইরে ঘুরলে ইত্যাদি। এছাড়া টনসিলের প্রদাহের কারণেও গলায় ব্যথা হতে পারে। যাদের অ্যালার্জিজনিত সমস্যা আছে, তাদের এ সময় নাকে কোনো রকমের অ্যালার্জেন, যেমন- ধুলাবালি, গাড়ির ধোঁয়া যদি নাকে ঢুকে তাহলে নাকে অ্যালার্জিজনিত প্রদাহ হতে পারে। এতে হাঁচি, নাক দিয়ে পানি পড়া, নাক বন্ধ ইত্যাদি উপসর্গ হতে পারে। সে জন্য ঘর থেকে বের হলে মুখে মাস্ক বা রুমাল ব্যবহার করা উচিত। সাধারণত দীর্ঘদিন নাকে অ্যালার্জি থাকলে পলিপ হতে পারে। পলিপ দেখতে আঙ্গুর ফলের মতো। এতে নাক বন্ধ হয়ে যায় এর সঙ্গে সাইনাসের ইনফেকশন হয়ে মাথা ব্যথা হতে পারে। আধুনিক এন্ডোস্কপিক সাইনাস সার্জারির মাধ্যমে সফলভাবে অপারেশন করে এটির স্থায়ী সমাধান করা সম্ভব। শীতের সময় শুষ্ক আবহাওয়ার কারণে নাক দিয়ে রক্ত পড়ে। অনেক সময় কোনো কারণ ছাড়াও নাক দিয়ে রক্ত পড়তে পারে। শিশুদের বেলায় সাধারণত আঙ্গুল দিয়ে নাক খোঁচানোর কারণে কিংবা অতিরিক্ত ঠা-ায় রক্তনালি ছিঁড়ে রক্তপাত হতে পারে। এমতাবস্থায় প্রথমে নাকের সামনের নরম অংশে দুই আঙ্গুল দিয়ে চাপদিয়ে ধরে হা করে মুখ দিয়ে শ্বাস নিতে হবে এবং নাকের উপরে বরফ কুঁচি বা ঠান্ডা কিছু ব্যবহার করলে অনেক সময় রক্তপাত বন্ধ হয়ে যায়। এতেও বন্ধ না হলে কালবিলম্ব না করে নিকটস্থ হাসপাতালে যেতে হবে। শীতকালে অ্যাজমার প্রকোপ বেড়ে যায়। অ্যাজমা বা হাঁপানী রোগীদের খুবই সাবধানতা অবলম্বন করা প্রয়োজন। নিয়মিত অ্যাজমার ঔষধ বা ইনহেলার গ্রহণ করা প্রয়োজন। এবং সময়মত চিকিৎসকের পরামর্শ নেয়া দরকার। শিশুদের নাকের পেছনে এক ধরনের টনসিল থাকে, যাকে এডিনয়েড বলা হয়। এই এডিনয়েড বড় হয়ে গেলে নাক বন্ধ হয়ে যায়। এডিনয়েডের সমস্যা হলে বাচ্চা হাঁ করে শ্বাস নেয় এবং রাতে নাক ডাকে, শ্বাস নেয়ার জন্য ছটফট করে এবং ঘুমাতে খুব কষ্ট হয়। এসব বাচ্চারা দিনের বেলায়ও খাবার সময় ঢোক গিলতে সমস্যা হতে পারে। সঠিক সময়ে এই রোগের চিকিৎসা না করলে কানের পর্দা ছিদ্র হয়ে যেতে পারে, যার ফলে কান পাকা রোগ হতে পারে। একটু যতœবান হলেই এই সমস্যা এড়ানো সম্ভব। ছোটবাচ্চা বলে অনেকেই অপারেশন করাতে ভয় পান বা বিলম্ব করেন এতে কিন্তু বাচ্চাদের ধীরে ধীরে বুদ্ধিমত্তা লোপ পায় এবং অনেকটা হাবাগোবা হয়ে যেতে পারে। শোয়ানো অবস্থায় শিশুকে বুকের দুধ বা ফিডার খাওয়ানোর সময় মাথার দিক উপরে রেখে খাওয়াতে হবে। শীত এড়িয়ে চলে বা এন্টিবায়োটিক খেয়েও এ সমস্যা দূর না হলে এডিনয়েড গ্রন্থি অপারেশন করাটাই উত্তম। শীতের এসব সাময়িক সমস্যায় যা করা যেতে পারে- সর্দির জন্য আপাতত একটা জাইলোমেটাজলিন বা অক্সিমেটাজলিন নাকের ড্রপ, একটি এন্টিহিস্টামিন জাতীয় ঔষধ ও জ্বর থাকলে প্যারাসিটামল জাতীয় ঔষধ সেবন করে ৩ দিন অপেক্ষা করা যায় এতেও সমাধান না হলে একজন নাক কান গলা রোগ বিশেষজ্ঞ ডাক্তারের পরামর্শ নেয়া জরুরী।
লেখক: সহকারী অধ্যাপক, নাক-কান-গলা ও হেড-নেক-ক্যান্সার বিশেষজ্ঞ সার্জন, সিলেট এম এ জি ওসমানী মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতাল।

শেয়ার করুন

ফেসবুকে সিলেটের ডাক

স্বাস্থ্য কুশল এর আরো সংবাদ
  • জুতায় কতদিন বেঁচে থাকতে পারে করোনাভাইরাস?
  • হার্ট সুস্থ রাখা চাই
  • হাম রুবেলা ক্যাম্পেইন বাস্তবায়নে প্রচারণা
  • গাজরের উপকারিতা
  • রোগ প্রতিরোধে ডুমুর
  • তরমুজ এক উপকারী ফল
  • সকালের নাস্তা যখন সুস্বাস্থ্যের চাবিকাঠি
  • করোনাভাইরাস থেকে বাঁচার উপায়
  • শাকসবজি ও ফলমূল কেন খাবেন
  • দৈনন্দিন জীবনে লেবুর চাহিদা
  • এ্যাপোলো হসপিটালে ভারতের প্রথম ইনভেসিভ ডবল কার্ভ কারেকশন সার্জারি
  • হাঁড়ের ক্ষয় রোগ : নীরব ঘাতক
  • আপনার সন্তানের চোখের যত্ন নিন
  • আয়োডিন স্বল্পতায় জটিল রোগ
  • শারীরিক শক্তি বাড়ায় যে খাবার
  • সুস্থতার জন্য পানি
  • রোগ প্রতিরোধে ডালিম
  • শীতে হাঁপানি এড়াতে কী করবেন
  • শীতে ঠোঁটের সুরক্ষা
  • এক জায়গায় বসে কাজ করার কুফল
  • Image

    Developed by:Sparkle IT