প্রথম পাতা

ইউনূসকে শ্রম আদালতে তলব

প্রকাশিত হয়েছে: ১৪-০১-২০২০ ইং ০১:৩০:৫২ | সংবাদটি ১৯৪ বার পঠিত
Image

ডাক ডেস্ক : ফৌজদারি মামলায় গ্রামীণ কমিউনিকেশনসের চেয়ারম্যান হিসেবে নোবেলজয়ী মুহাম্মদ ইউনূসকে তলব করেছে ঢাকার শ্রম আদালত। তাকে আগামী ৬ ফেব্রুয়ারি হাজির হতে সমন জারির নির্দেশ দিয়েছেন ঢাকার তৃতীয় শ্রম আদালতের বিচারক রহিবুল ইসলাম। ওই আদালতের পেশকার মিয়া মো. জামাল উদ্দিন তথ্যটি জানিয়ে সোমবার বলেন, আসামি সমন পেয়ে আদালতে হাজির না হলে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারির বিধান রয়েছে।
গত ৫ জানুয়ারি আদালতে মামলাটি করেন কলকারখানা ও প্রতিষ্ঠান পরিদর্শন অধিদপ্তরের শ্রম পরিদর্শক (সাধারণ) তরিকুল ইসলাম।
মামলায় ইউনূস ছাড়াও গ্রামীণ কমিউনিকেশনসের ব্যবস্থাপনা পরিচালক নাজনীন সুলতানা, পরিচালক আব্দুল হাই খান ও উপ-মহাব্যবস্থাপক (জিএম) গৌরি শংকরকে বিবাদী করা হয়েছে।
এর আগে ট্রেড ইউনিয়ন গঠনের কারণে গ্রামীণ কমিউনিকেশন্সের চাকরিচ্যুত তিন কর্মীর পৃথক তিনটি মামলায় একই আদালত গত ৯ অক্টোবর ইউনূসের বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করেছিল। এরপর ৩ নভেম্বর আদালতে আত্মসমর্পণ করে জামিন নেন তিনি।
নতুন মামলার অভিযোগ থেকে জানা যায়, ২০১৯ সালের ৩০ এপ্রিল একজন পরিদর্শক প্রতিষ্ঠানটি গ্রামীণ কমিউনিকেশন্স পরিদর্শন করে বিভিন্ন ত্রুটি দেখতে পেয়ে সেসব সংশোধনের নির্দেশনা দেন। তার পরিপ্রেক্ষিতে পর ৭ মে ডাকযোগে বিবাদী পক্ষ জবাব দেয়।
এরপর মামলার বাদী একই বছরের ১০ অক্টোবর প্রতিষ্ঠানটিতে পরিদর্শনে গিয়ে ১০টি বিধি লঙ্ঘনের প্রমাণ পান এবং ২৮ অক্টোবর তা অবহিত করেন।
তবে বিবাদী পক্ষ সময়ের আবেদন করেও নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে জবাব দাখিল করেনি।
এতে বিবাদীরা বাংলাদেশ শ্রম আইন ২০০৬, বাংলাদেশ শ্রম (সংশোধন) আইন, ২০১৩ এর ধারা ৩৩ (ঙ) এবং ৩০৭ মোতাবেক দণ্ডনীয় অপরাধ করেছেন বলে মামলায় বাদী অভিযোগ করেছেন।
গ্রামীণ কমিউনিকেশন্সের বিরুদ্ধে যেসব বিধি লঙ্ঘনের অভিযোগ আনা হয়েছে তার মধ্যে উল্লেখযোগ্য হলো- বিধি মোতাবেক শ্রমিক/কর্মচারীদের নিয়োগপত্র, ছবিসহ পরিচয়পত্র ও সার্ভিস বই না দেওয়া; শ্রমিকের কাজের সময় এর নোটিস পরিদর্শকের কাছ থেকে অনুমোদিত নয়, কোম্পানিটি বার্ষিক ও অর্ধবার্ষিক রিটার্ন দাখিল করেনি, কর্মীদের বৎসরান্তে অর্জিত ছুটির অর্ধেক নগদায়ন করা হয় না।
এছাড়া কোম্পানির নিয়োগবিধি মহাপরিদর্শক কর্তৃক অনুমোদিত নয়, ক্ষতিপূরণমূলক সাপ্তাহিক ছুটি ও উৎসব ছুটি প্রদান-সংক্রান্ত কোনো রেকর্ড/রেজিস্টার সংরক্ষণ করা হয় না, কোম্পানির মুনাফার অংশ ৫% শ্রমিকের অংশগ্রহণ তহবিল গঠনসহ লভ্যাংশ বণ্টন করা হয় না, সেফটি কমিটি গঠন করা হয়নি, কর্মীদের অন্য প্রতিষ্ঠানে কাজ করালেও কোনো ঠিকাদারি লাইসেন্স এবং কারখানা ও প্রতিষ্ঠান পরিদর্শন অধিদপ্তর থেকে লাইসেন্স নেওয়া হয়নি।

 

শেয়ার করুন

ফেসবুকে সিলেটের ডাক

প্রথম পাতা এর আরো সংবাদ
  • ছাতকে হুমকির মুখে সোনাই নদী বেড়িবাঁধ ও রাবার ড্যাম প্রকল্প
  • সিলেটে করোনায় শামসুদ্দিন হাসপাতালের আরেক নার্সের মৃত্যু
  • সিলেট বিভাগে করোনা আক্রান্ত ৫২৬২, মৃত্যু ৮৯
  • শায়েস্তাগঞ্জে মোবাইল টাওয়ার থেকে পড়ে এক শ্রমিকের মৃত্যু
  • দানবীর ড. রাগীব আলীর শোক প্রকাশ
  • দৈনিক সিলেটের ডাক এর মুদ্রণ ব্যবস্থাপক কানুলাল দেবনাথ আর নেই
  • এবারের হজে শয়তানকে মারতে হবে বিশেষ পাথর দিয়ে
  • মহামারিতে গর্ভবতী নারী স্বাস্থ্য সুরক্ষায় সেনাবাহিনী
  • ভারতে করোনা আক্রান্ত বেড়ে যাওয়ায় তাজমহল খোলার সিদ্ধান্ত বাতিল
  • কোতয়ালী থানাপুলিশের অভিযানে চোরাই মালামালসহ দুই চোর গ্রেফতার
  • প্রধানমন্ত্রী, পরিকল্পনামন্ত্রীকে সিলেট চেম্বারের পক্ষ থেকে অভিনন্দন
  • অবশেষে লাদাখ সীমান্ত থেকে পিছিয়ে গেল ভারত-চীন
  • অসংক্রামক জটিল রোগীদের চিকিৎসা প্রদানের নির্দেশ
  • উন্নত চিকিৎসার জন্য সাহারা খাতুনকে থাইল্যান্ডে নেয়া হয়েছে
  • চিকিৎসা না দিয়ে রোগী ফেরত অভিযোগ তদন্তে হাইকোর্টের নির্দেশ
  • একনেকে ৯ প্রকল্প অনুমোদন
  • জনপ্রিয় সংগীতশিল্পী এন্ড্র কিশোর আর নেই
  • আজ যেসব এলাকায় বিদ্যুৎ সরবরাহ বন্ধ থাকবে
  • না ফেরার দেশে এন্ড্রু কিশোর
  • ২৪ ঘণ্টায় করোনা শনাক্ত ৩২০১, মৃত্যু ৪৪
  • Image

    Developed by:Sparkle IT