ইতিহাস ও ঐতিহ্য

বালাগঞ্জের আজিজপুর উচ্চবিদ্যালয়

মোহাম্মদ জুয়েল প্রকাশিত হয়েছে: ১৫-০১-২০২০ ইং ০০:২৩:৩৯ | সংবাদটি ১১১ বার পঠিত

২০০১ সালে প্রতিষ্ঠিত আজিজপুর উচ্চবিদ্যালয়টি সুনাগরিক গড়ে তুলতে প্রসংশনীয় ভূমিকা পালন করে আসছে। মানবজীবনের অগ্রগতির মূলনীতি হলো শিক্ষা। এ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানটি প্রতিষ্ঠাকাল থেকেই শিক্ষার আলো ছড়িয়ে দিতে বিশেষ ভূমিকা পালন করছে। শিক্ষা ও মেধা মানুষের বড় সম্পদ। মেধা ও শিক্ষা অর্জনের মাধ্যমে মানুষকে সভ্য করে গড়ে তোলার একমাত্র মাধ্যম হচ্ছে বিদ্যালয়। বালাগঞ্জ উপজেলার আজিজপুর উচ্চবিদ্যালয়টির অবদান সে ক্ষেত্রে প্রশংসনীয়।
শিক্ষা ছাড়া কোনকালেই কোন জাতি উন্নতি করেছে এমন নজির বিরল। শিক্ষাই জাতির মেরুদন্ড। আর সে মেরুদন্ড গড়ার শক্ত ভিত্তির ক্ষেত্রস্থল হলো বিদ্যালয়। প্রতিটি মানুষকে সভ্য করে গড়ে তোলার একমাত্র মাধ্যম হচ্ছে বিদ্যালয়। তাই একটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান তৈরি করার মতো মহৎ ও কল্যাণকর কাজ আর দ্বিতীয়টি নেই। আজিজপুর উচ্চবিদ্যালয় বালাগঞ্জ উপজেলার পশ্চিম গৌরীপুর ইউনিয়নের আজিজপুর মৌজার সিলেট-সুলতানপুর-বালাগঞ্জ সড়কের পশ্চিম পাশে মনোরম স্থানে অবস্থিত। এ বিদ্যালয়টি পশ্চিম গৌরীপুর, দেওয়ান বাজার ও উসমানপুর ইউনিয়নের সংযোগস্থলে অবস্থিত বিধায় উক্ত তিনটি ইউনিয়নের ছাত্রছাত্রী এ বিদ্যালয়ে পড়াশোনা করছে। এ কারণে বিদ্যালয়কে উক্ত তিন ইউনিয়নের বাতিঘর বলা যায়। প্রায় দেড় যুগ পূর্বে-এলাকার কয়েকজন শিক্ষানুরাগী, সমাজকর্মী ব্যক্তি উদ্যোগে ও অগ্রণী ভূমিকায় তাঁদের ভূমিদান ও অর্থায়নে আজিজপুর গ্রাম ও অত্রাঞ্চলের সর্বস্তরের জনগণের উৎসাহব্যঞ্জক অংশগ্রহণে বিদ্যালয়টি প্রতিষ্ঠা লাভ করেছিল। এ সকল মহান ব্যক্তিদের অনেকেই বেঁচে নেই, এলাকার মানুষ আজও তাদেরকে শ্রদ্ধার সাথে স্মরণ করে। প্রতিষ্ঠানের তথ্য অনুযায়ী যারা প্রতিষ্ঠাতা ও ভূমিদাতা তাঁরা হচ্ছেন, আজিজপুর নিবাসী বৃটেন প্রবাসী শিক্ষানুরাগী, বালাগঞ্জ-ওসমানীনগর এডুকেশন ট্রাস্টের ট্রাস্টি প্রয়াত মো. তারাউল ইসলাম, তাঁরই ভ্রাতুষ্পুত্র আজিজপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির সভাপতি মো. আমিরুল ইসলাম রুবেল, সমাজকর্মী মো. আব্দুল কাইয়ুম, আব্দুল মালিক রুনু, তাঁরই অনুজ দেওয়ান আব্দুর রহিম হাই স্কুল এন্ড কলেজের প্রাক্তন অধ্যক্ষ আব্দুল মুনিম (হীরা), আলহাজ্ব মোছা. মেহের জান বিবি, তাঁরই পুত্র বৃটেন প্রবাসী বালাগঞ্জ-ওসমানীনগর এডুকেশন ট্রাস্টের ট্রাস্টি আব্দুল হান্নান (আতাস)। পরবর্তীতেই এলাকার আরো অনেকেই বিদ্যালয়ের উন্নয়নে বিভিন্নভাবে অবদান রেখেছেন। তাঁদের অবদানের ফলে হাঁটি হাঁটি পা পা করে আজ এ প্রতিষ্ঠানটি অনেক দূর এগিয়েছে। বর্তমানে এ প্রতিষ্ঠানে মানবিক ও বিজ্ঞান শাখা চালু রয়েছে। ১১ জন শিক্ষক শিক্ষিকা নিষ্ঠার সাথে শিক্ষা দান করছেন। বিদ্যালয়ে ৫৩৭ জন শিক্ষার্থী অধ্যয়ন করছে। তৎকালীন সময়ে দক্ষ, সৎ ও কর্মঠ ম্যানেজিং কমিটি এবং প্রধান শিক্ষকের নেতৃত্বের ফলে ৪ বছরের মধ্যে ২০০৪ সালে নিম্ন মাধ্যমিক এমপিও (Monthly Payment Order) ভুক্ত হয়। ২০০৯ সালে সিলেট-৩ আসনের সংসদ সদস্য মাহমুদ উস সামাদ চৌধুরীর প্রচেষ্ঠায় মাধ্যমিক শাখা এম.পিও ভুক্ত হয়। তাঁর এ অবদান চিরস্মরণীয় হয়ে থাকবে।
এলাকার শিক্ষা বিস্তারকল্পে বিদ্যালয়ের শুরু থেকে বিভিন্ন সময়ে এককালীন অনুদান প্রদান করে আজীবন দাতা সদস্য হিসেবে যাঁদের নাম স্মরণীয় হয়ে আছে তাঁরা হচ্ছেন, আজিজপুরের বৃটেন প্রবাসী প্রয়াত আলহাজ্ব মো. সামছু মিয়া, প্রয়াত মো. দিলু মিয়া, মো. আব্দুল ছালিক, মো. ইলিয়াছ মিয়া, মো. মোফাজ্জল করিম মোক্তার, বশিরপুর গ্রামের প্রয়াত খন্দকার মো. একলাছ আলী, প্রয়াত মো. মক্তজিল আলী (হাব্বান), মো. মুহিব আলী, আজিজপুরের বৃটেন প্রবাসী প্রয়াত মো. আব্দুল বারী, মো. আব্দুল হান্নান, মো. খচরু মিয়া, শেখ মো. তারেকুজ্জামান, মো. আব্দুল মালিক, আলহাজ্ব গিয়াস উদ্দিন (সাইস্তা), খুজগীপুর গ্রামের প্রয়াত মো. আব্দুল আহাদ, মো. আব্দুল মতিন, আজিজপুরের মো. শাহীন আলী, তালতলা গ্রামের খন্দকার আব্দুল হাই (মেম্বার), মো. লায়েক আলী (লনি), আলহাজ্ব মো. আলতাব আলী। নলজুড় গ্রামের বৃটেন প্রবাসী বালাগঞ্জ-ওসমানীনগর এডুকেশন ট্রাস্টের প্রাক্তন সেক্রেটারী মো. সা’দ মিয়া, আজিজপুরের মো. রেজাউল করিম, বশিরপুর গ্রামের আলহাজ্ব মীর আব্দুল করিম (ছমরু মিয়া), নলজুড় গ্রামের প্রয়াত মো. তজম্মুল আলী, আজিজপুরের মো. তফজ্জুল করিম (শামীম), তাঁরই ভ্রাতা যথাক্রমে মো. মাহবুবুল করিম (সেলিম), মো. শাহেদুল করিম (শাহেদ), ভগ্নি ফাতেমা আমিন (শিউলী) ও মোছা. লয়লুন নাহার। বনগাঁও গ্রামের হাফেজ মো. মনোয়ার হোসেন, বাসিয়া গ্রামের বৃটেন প্রবাসী মফিজুর রহমান (রানা), তালতলার যুক্তরাষ্ট্র প্রবাসী মীর মিশু মিয়া, মো. আশরাফ আলী এবং গহরপুরের আব্দুল মতিন মহিলা একাডেমির প্রতিষ্ঠাতা, বৃটেন প্রবাসী আব্দুল মতিন। (বিদ্যালয়ের তথ্যানুযায়ী স্থায়ী দাতাগণের নাম উল্লেখ করা হলো) তাছাড়াও বিদ্যালয়ের উন্নয়নে এলাকার আরো অনেকেই বিভিন্ন সময়ে অবদান রেখেছেন। প্রতিষ্ঠাতা, ভূমি দাতা, ভবন দাতা ও আজীবন দাতা সদস্য সহ যাঁরা সার্বিক সাহায্য সহযোগীতা করেছিলেন এর মধ্যে যাঁরা পরলোকে চলে গেছেন তাঁদের সকলের আত্মার মাগফেরাত কামনা করি।
বিদ্যালয় পরিচালনায় যে সব মহৎ ব্যক্তিরা অবদান রেখেছেন তাঁরা হচ্ছেন, ১ম সভার সভাপতি মো. ছমরু মিয়া, বাস্তবায়ন কমিটির সভাপতি মো. গিয়াস উদ্দিন, ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি প্রয়াত মো. ছমরু মিয়া, এডহক কমিটির সভাপতি উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. মতিউর রহমান (২০০৫ সাল), পশ্চিম গৌরীপুর ইউনিয়ন চেয়ারম্যান এ.এস.এম আনোয়ারুল ইসলাম (২০০৫ সাল), মো. গিয়াস উদ্দিন (২০০৬ সাল), এডহক কমিটির সভাপতি, বালাগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসার শেখ মতিয়ার রহমান (২০০৬ সাল), সহ-সভাপতি, খন্দকার আব্দুল হাই (২০০৬-২০০৭ সাল), গিয়াস উদ্দিন (সাইস্তা) (২০০৭-২০১৫ সাল), শেখ মো. আব্দুল কাইয়ুম (২০১৫-২০১৭ সাল), মো. আব্দুল মালিক রুনু (২০১৭ সাল-চলমান)।
বিদ্যালয়ের প্রতিষ্ঠাকাল থেকে যে সকল শিক্ষক লেখাপড়ার মান্নোয়নে সর্বদা চেষ্টা করেছেন এবং তাঁরা সততা ও নিষ্ঠার সহিত সুষ্ঠু ও সুন্দরভাবে প্রধান শিক্ষকের গুরু দায়িত্ব পালন করেছেন তাঁরা হলেন, মকবুল আলী (২০০৩-২০১২ সাল), রেহা বেগম ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষিকা (২০১২ সাল), শ্রী মনতোষ সরকার (২০১২-চলমান)।
প্রতিষ্ঠাকালীন সময়ে আজিজপুর নিবাসী দানশীল-শিক্ষানুরাগী বৃটেন প্রবাসী আব্দুল হান্নান (আতাস) তাঁর পিতার নামে ‘আলহাজ্ব আব্দুর রউফ একাডেমিক ভবন’ নামে একটি ভবন নির্মাণ করে দেন। পরবর্তীতে ২০১৭ সালে সিলেট-৩ আসনের সংসদ সদস্য মাহমুদ উস সামাদ চৌধুরীর ঐকান্তিক প্রচেষ্ঠায় শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের শিক্ষা প্রকৌশল অধিদপ্তর কর্তৃক বিদ্যালয়ে একটি পাকা ভবন নির্মাণ করা হয়েছে। বলে রাখা ভালো, এ প্রবন্ধে কোন গুরুত্বপূর্ণ তথ্য-উপাত্ত বাদ পড়তে পারে। যার কোন তথ্যাদি আমি পাই নি, এ ত্রুটির জন্য ক্ষমা প্রার্থী।

শেয়ার করুন
ইতিহাস ও ঐতিহ্য এর আরো সংবাদ
  • শহীদ মিনারের ইতিকথা
  • সিলেটের লোকসংগীত : ধামাইল
  • পর্যটক ইবনে বতুতার কথা
  • বই এল কোথা থেকে?
  • লোক সাহিত্যে মননশীলতা
  • পার্বত্য সংকটের মূল্যায়ন
  • স্বাধীন বাংলাদেশে জনতার উদ্দেশ্যে প্রথম ভাষণ
  • সাচনাবাজার উচ্চ বিদ্যালয়
  • একাত্তরের শরণার্থীর স্মৃতি
  • আরব বিশ্বের অনন্য শাসক
  • জননেতা আব্দুস সামাদ আজাদ
  • বালাগঞ্জের আজিজপুর উচ্চবিদ্যালয়
  • হারিয়ে যাচ্ছে ডাকপিয়ন ও ডাকবাক্স
  • সুনামগঞ্জের লোকসংস্কৃতি
  • সিলেটে বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠার আন্দোলন ও শাবি
  • মরমী কবি শেখ ভানু
  • মুক্তিযুদ্ধে কানাইঘাট
  • বিপ্লবী এম.এন.রায়
  • শতাব্দীর বন্দরে জামেয়া রেঙ্গা
  • রেফারেণ্ডাম ও সিলেটে বঙ্গবন্ধু
  • Developed by: Sparkle IT