ইতিহাস ও ঐতিহ্য

বই এল কোথা থেকে?

আফসানা বেগম প্রকাশিত হয়েছে: ০৫-০২-২০২০ ইং ০০:২২:১২ | সংবাদটি ১৭০ বার পঠিত

বইয়ের উৎস নিয়ে আলাপ করতে হলে কাগজের ইতিহাসের কথা আসবেই আসবে। কাগজে ছাপা হয়ে বই কোনো দিন মানুষের হাতে হাতে ঘুরবে বা শেলফে শোভা পাবে, এমনটা খ্রিষ্টপূর্ব ৩৫০০ সালে কেউ হয়তো ভাবেনি। তবে সন্দেহ নেই, তাদের অজান্তে ভাবনাটির বীজ তখনই পোঁতা হয়েছিল। দক্ষিণ মেসোপটেমিয়ায় মানুষ তখন কাদা দিয়ে সমতল আয়তক্ষেত্র বানিয়ে নানান চিহ্ন এঁকেছিল। কাদার ওপরে আঙুল চালিয়েছিল ভাবনাকে দীর্ঘদিন সংরক্ষণ করার উদ্দেশ্যে। এরপর খ্রিষ্টপূর্ব ২৪০০ সালে শুরু হলো প্যাপিরাসের ব্যবহার। অনেকের ধারণা, প্যাপিরাস এক রকমের পাতা। প্রকৃতপক্ষে গাছ থেকে উৎপন্ন হলেও প্যাপিরাস নীল নদের আশপাশের জলা জায়গায় জন্মানো প্যাপিরাস গাছের কাণ্ডের ভেতরের অংশ। গাছটির পিথ (কাণ্ডের কেন্দ্র) লম্বালম্বি পাতলা করে কেটে শুকিয়ে নিয়ে মিসরীয়রা তাতে লিখত। গ্রিক আর রোমানদের হাজার বছর আগেই এই প্রযুক্তি রপ্ত করেছিল তারা।
লেখার উপাদান ও কায়দা
৬০০ খ্রিষ্টাব্দ পর্যন্ত আসতে আসতে কিসে লেখা হবে, তার চেয়ে বড় হয়ে দাঁড়াল কীভাবে লেখা হবে, এই বিতর্ক, মানে ডান থেকে বাঁয়ে নাকি বাঁ থেকে ডানে? যে যার সুবিধামতো নিয়ম তৈরি করল। আরবি আর হিব্রু ভাষা ডান থেকে বাঁয়ে লেখার প্রচলন হলেও বেশির ভাগ ভাষা বাঁ থেকে ডান দিকটাকে বেছে নিল। তবে কেউ নিচ থেকে ওপরে, আবার কেউ ওপর থেকে নিচে-বিচিত্র কায়দায় লেখা অব্যাহত রাখল। তারপর সময়ের সঙ্গে পরিবর্তন হয়েছে কেবল লেখালেখির উপাদানের। গ্রিক ইতিহাসবিদ হেরোডোটাসের সময়ে লেখা হতো বাছুর, ভেড়া বা ছাগলের চামড়ায়। ১০৫ খ্রিষ্টাব্দে মোম দিয়ে বানানো সমতলে আর কাগজে লেখা বসেছে। চীনের মানুষেরা অবশ্য কিছু আগে থেকে জিনিসপত্র মোড়ানোর কাজে কাগজ ব্যবহার করত। কাগজে লেখার সঙ্গে টুকরো ছবি জুড়তে ৬০০ খ্রিষ্টাব্দ এসে পড়ল। এভাবে চীনে ছবিসহ বই ছাপা হলো ৮৬৮ খ্রিষ্টাব্দে। তখন একদিকে চীনে ব্লক প্রিন্ট বই ছাপানো হচ্ছে, আরেক দিকে একই চেষ্টা চলছে ইউরোপে। ১২৫০ সালে মিসরে আর ১৪৫০ সালের মধ্যে ইউরোপের কয়েকটি স্থানে অক্ষর বসিয়ে বই ছাপানোর কাজ শুরু হলো। এশিয়ার এদিকটায় তখন গাছের বাকল, কলাপাতা বা তালপাতায় হস্তাক্ষরে পুঁথি লেখা হতো। প্রক্রিয়াজাত করে লেখার পর সংরক্ষণের উপায় তাতে পুঁথির ছন্দেই নানাভাবে লেখা থাকত, যেমন বাংলায় বললে দাঁড়ায় পুঁথিকে পুত্রের ন্যায় পালবে, শত্রুর ন্যায় বাঁধবে। তবে সমসাময়িক ১৪৫৫ সালে গুটেনবার্গ বাইবেল প্রথম ছাপানো বইয়ের মর্যাদা পেয়েছে। শিল্পসম্মতভাবে তৈরি ৪২ লাইনের বাইবেল হিসেবে খ্যাত বইটির ২১টি কপি এখনো বিদ্যমান। কখনো বিক্রির জন্য উন্মুক্ত হলে নিঃসন্দেহে ওগুলোই হবে পৃথিবীর সবচেয়ে দামি বই।
মূল্যবান বই
আর্থিক মূল্যের কথা বলতে গেলে অবশ্য লেওনার্দো দা ভিঞ্চির কোডেক্স লিসেস্টার-এর কথা আসে, যা প্রকৃতপক্ষে লেওনার্দোর ৩০টি বৈজ্ঞানিক গবেষণার খসড়া খাতা। ১৯৯৪ সালে নিলামে উঠলে বিল গেটস ৩০.৮ মিলিয়ন ইউএস ডলারে কিনে নেন। আপাতত সর্বোচ্চ মূল্যের ছাপানো বই হলো উত্তর আমেরিকায় প্রকাশিত প্রথম বই, বে সাম (১৬৪০)। ২০১৩ সালে নিলাম হলে এর প্রথম সংস্করণের ১১টির মধ্যে একটিই বিক্রি হয়েছিল ৪২.২ মিলিয়ন ইউএস ডলারে।
‘বেস্টসেলার’-এর ধারণা
মূল্যের সঙ্গে বইয়ের বহুল পঠনের সম্পর্ক প্রায়ই থাকে না। কারণ, যে বই সবচেয়ে বেশি পড়া হয়, তা হতে হয় সুলভ। যেমন বহুল পঠিত তিনটি বই হলো বাইবেল, কোটেশন ফ্রম চেয়ারম্যান মাও সে তুং আর হ্যারি পটার। ‘হ্যারি পটার সিরিজ’ একদিকে সবচেয়ে বেশি পড়া হয়েছে, অন্যদিকে সবচেয়ে বেশি নিষিদ্ধও হয়েছে। হাতে কলমে জাদুটোনার ধারণা নিয়ে ভবিষ্যতে শিশুদের বাস্তববিমুখ হওয়ার সম্ভাবনা আঁচ করে বইটি অনেক দেশ নিষিদ্ধ করেছে। সে-যাই হোক, ‘সর্বাধিক বিক্রীত’ ধারণাটি এখন বহুল প্রচলিত। এতে পাঠককে বইটির মাহাত্ম্য সম্পর্কে তথ্য দেওয়া হয় বটে, তবে ধারণাটি মূলত ব্যবসাসফল একটি পণ্যের পরিচয় জানায়। বই যতটা জ্ঞান বিতরণের হাতিয়ার, ঠিক ততটাই পণ্য। এর আকার-আকৃতি আছে, আছে মনহরণ মোড়ক আর গায়ে মূল্যও আছে সাঁটা। সুতরাং তাকে পণ্য না বলে উপায় নেই। পণ্যের বিপণন লাভজনক হলে বিক্রেতা, মূলত প্রকাশক, ক্ষেত্রবিশেষে লেখকও লাভবান হন। ব্যবসার সফলতা জানাতে তাই ১৮৮৯ সালে প্রথম ‘বেস্টসেলার’-এর ধারণা আসে অ্যালিস ব্রাউনের ফুলস অব নেচার বইটি প্রথম বেস্টসেলার হিসেবে পরিচিতি পায়।
পাঠের মহিমা
সত্যিই কি অনেক মানুষ বই পড়ে? পেঙ্গুইন প্রকাশনীর সমীক্ষা অনুযায়ী ৬৮ শতাংশ বই কেনেন নারী ক্রেতা। অপ্রাসঙ্গিকভাবে সৈয়দ মুজতবা আলীর বর্ণনার সেই নারীর কথা মনে পড়ে, বই কেনার কথা বললে যিনি বলেছিলেন, ‘ওটিও তো ওঁর একটি আছে।’ কিন্তু ধরা যাক, যারা বই কেনে, তারা অনেকে পড়েও। এই যেমন হার্ভার্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের সমীক্ষায় দেখা যায়, ৭৩ শতাংশ আমেরিকান বই পড়ে আর তাদের মধ্যে ৬৫ শতাংশ পড়ে কাগুজে বই। বাংলাদেশে এমন একটি সমীক্ষা আমাদের হতাশ করবে বলেই কি তা আয়োজনের উদ্যোগ নেওয়ার কথা আমরা কেউ বলি না? বই পড়া নিয়ে প্রচুর সমীক্ষা হয়। কিংস্টোন বিশ্ববিদ্যালয় জানায় যে যারা কল্পকাহিনি পড়ে, তারা সমাজের অন্য মানুষদের তুলনায় বেশি আবেগপ্রবণ, সহানুভূতিশীল ও উদার মানসিকতার অধিকারী হয়ে থাকে। জীবনের নানা ক্ষেত্রে তাদের ইতিবাচক চালচলন দেখতে পাওয়া যায়। এ রকম ধারণা সত্য হতেই পারে। কারণ, সম্ভবত একটি বই একজন মানুষকে আমূল বদলে দিতে সক্ষম। কালজয়ী দীর্ঘ উপন্যাস কিংবা চাঞ্চল্যকর তথ্যসমৃদ্ধ বই পড়তে শুরু করার মুহূর্তের মানুষটি আর শেষ পাতা পড়ে নিয়ে বন্ধ করে রাখা পাঠক কিছুতেই এক মানুষ নন। তিনি হয়তো জানেন না পাতার পর পাতা তাঁকে ভেতরে ভেতরে নতুন করে সাজিয়েছে। কেবল ব্যক্তিগত পরিশোধন নয়, সমগ্র মানবজাতির উন্নয়নের জন্যও বইকে দায়ী করা যেতে পারে, যেমন জর্জ অরওয়েলের ১৯৮৪, স্টিফেন হকিংয়ের আ ব্রিফ হিস্ট্রি অব টাইম কিংবা কার্ল মার্ক্স ও অ্যাঙ্গেলসের দ্য কমিউনিস্ট ম্যানিফেস্টো- এ রকম বই কখনো বদলেছে আমূল সমাজ, কখনো প্রযুক্তি বদলে প্রবর্তন করেছে নতুন জীবনপদ্ধতি। অন্যদিকে চিকিৎসাবিজ্ঞানীদের মতে, পাঠের অভ্যাস মানুষকে দীর্ঘজীবী করে, মানসিক চাপ আর আলঝেইমারে আক্রান্ত হওয়ার আশঙ্কা কমায়।
প্রেসিডেন্ট থিয়োডর রুজভেল্ট দিনে গড়ে একটা করে বই পড়তেন। কিন্তু বইয়ের মধ্যে আসলে থাকেটা কী যে মানুষ তার প্রতি আকৃষ্ট হয়? বলতে গেলে মানুষ যা জানতে চায় বা পছন্দ করে, তা-ও যেমন বইয়ে থাকে, আবার যা জানবে বলে ভাবেনি, তা-ও থাকে- যা পড়ে সে চমকে উঠতে পারে। চমকে উঠতে পারে বইয়ে পরিবেশিত তথ্য বা পরিবেশনার বৈচিত্র্যের কারণে। কিংবা বইটির মাধ্যমে অজানা জীবনের অলিগলিতে অবলীলায় হেঁটে আসার কারণে।
লেখক ও রচনা
বইয়ের চিরাচরিত আবেদন ছাড়াও এমনিতে পাঠককে চমকে দিয়ে কালজয়ী আখ্যা পেতে লেখকেরাও কম যান না। দস্তয়ভস্কি কিংবা ফকনার যেমন অনেক রচনায় প্যারার পর প্যারা দাঁড়ি-কমাবিহীন বর্ণনা চালিয়েছেন, তবে জিতেছেন অবশ্য ভিক্টর হুগো- লা মিজারেবল উপন্যাসে ৮২৩ শব্দের দীর্ঘতম বাক্যের কারণে। আবার কেবল লেখার কায়দা নয়, বিষয়বস্তু দিয়েও লেখক পাঠককে ভড়কে দিতে পারেন। যেমন জেমস জয়েসের ইউলিসিস নিয়ে বহু গবেষণামূলক বিতর্ক আছে, লেখক কি অসামান্য বুদ্ধিমত্তার পরিচয় দিয়েছেন, নাকি কেবলই এলেবেলে হাস্যরস? বিতর্কগুলো যেকোনো পাঠককে দ্বিধা আর রহস্যে নিমজ্জিত করতে পারে। বইয়ের পেছনে লেখকের বীভৎস রকমের পরিশ্রমের কথা চিন্তা করলেও কখনো স্তম্ভিত হয়ে যেতে হয়। যেমন রবীন্দ্রনাথ তাঁর রূপক নাটক রক্তকরবীর খসড়া লিখেছিলেন ১০ বার। অন্যদিকে তলস্তয় কমবেশি সাড়ে তিন কেজি ওজনের ওয়ার অ্যান্ড পিস উপন্যাসের বেশির ভাগ অংশের খসড়া করেছিলেন অন্তত ১৫ বার।
কাগজ আবিষ্কার হলেও তার ওপরে অক্ষর বানিয়ে ছাপার কৌশল আবিষ্কার হতে বহু সময় লেগে গেছে। তত দিনে তৈরি হয়েছে হাতে লেখা বই, যা চাহিদা অনুযায়ী প্রস্তুত হতো। হাতে লেখা কোরআন শরিফ ব্যাপক জনপ্রিয়তা পেয়েছিল। ওদিকে টাইপরাইটারের আগমনে একসময় হাতে কম্পোজ করার প্রয়োজন ফুরিয়েছে। ১৮৮২ সালে প্রকাশিত মার্ক টোয়েনের লাইফ অন দ্য মিসিসিপি বইটি ছিল টাইপরাইটারে কম্পোজ করা প্রথম বই। বর্তমানে লেখার ক্ষেত্রে প্রযুক্তির অভাব নেই। অথচ এখনো অনেক লেখক হাতেই লিখছেন, এমনকি কালির কলম দিয়ে- অভ্যাস বলে কথা! লেখক আদতে ব্যক্তি বলেই তাঁর নিজস্বতা আছে, আছে নিজের স্টাইলের স্বাধীনতাও। যেমন ভার্জিনিয়া উলফ দাঁড়িয়ে লিখতেন। সুনীল গঙ্গোপাধ্যায় পৃথিবী ওলটপালট হয়ে গেলেও প্রতিদিন নির্দিষ্ট সময়ে লিখতে বসতেন আর টানা লিখে যেতেন। ড্যান ব্রাউন দ্য ভিঞ্চি কোড লেখার সময় প্রতিদিন ভোর চারটায় উঠে লিখতে বসতেন আর প্রতি ৬০ মিনিট পরপর দিতেন ৫০টা বুকডন।
কিন্তু কেবল নিয়ম মানলেই কি একটি কালজয়ী সৃষ্টি সম্ভব? ধরা যাক, বড় আকৃতির একটি উপন্যাসে ৯০ হাজার শব্দ থাকবে। মানুষের গড় টাইপিং স্পিডে (১ ঘণ্টায় ১৮৯ শব্দ) লিখলে মাত্র ৪৭৫ ঘণ্টায় উপন্যাসটি লেখা সম্ভব। কিন্তু সমস্যা হলো, সাহিত্য গণিত নয়, তাই সবকিছু সময়মতো হলেও প্রচেষ্টা ব্যর্থ হতে পারে। অমূল্য সাহিত্যে থাকতে হবে বিশেষ কিছু, যা পাঠককে আঁকড়ে ধরবে, বিস্মিত করবে, প্রশান্তি দেবে, আবার তাকে ঢেলে সাজাবে। সবচেয়ে বড় কথা, যেকোনো কালে, যেকোনো পরিস্থিতিতে যার সাহিত্যমূল্য অটুট থাকবে। আর এই কালোত্তীর্ণ সাহিত্য নিয়মকানুনের ধার ধারে না। জে আর আর টোলকিন কি-বোর্ডে মাত্র দুই আঙুলের চাপে লর্ড অব দ্য রিং-এর ট্রিলজি লিখেছেন, মানিক বন্দ্যোপাধ্যায় বা জীবনানন্দ দাশ চরম দারিদ্র্য-জর্জরিত অবস্থায় যুগান্তকারী সাহিত্য রচনা করেছেন, চোখের জ্যোতি হারিয়েও হোর্হে লুইস বোর্হেস মুখে বলে লিপিবদ্ধ করিয়েছেন তাঁর অনন্য সৃষ্টি।
বিক্রি ও মানদণ্ড
বইয়ের প্রচুর বিক্রির জন্য চাকচিক্যের চেয়ে ভেতরের পদার্থ গুরুত্বপূর্ণ। সাদামাটা প্রচ্ছদের উপদেশ ও ন্যায়নীতির কথা প্রচার করা বই বরাবর বিক্রির তালিকার শীর্ষে থাকে, সে হোক ডেল কার্নেগি বা মাও সে তুং- এর আমল কি হোক আজকের। এতে অন্তত একটি বিষয় আন্দাজ করা যায়, তা হলো মানুষ ভালো হতে চায়। না চাইলেও, মানুষ ভালো কথা পড়তে পছন্দ করে। ওদিকে উপদেশ হতে পারে আত্মহত্যা নিয়েও। সহজে আত্মহত্যার বিচিত্র উপায় বর্ণনা করা দ্য কমপ্লিট ম্যানুয়াল অব সুইসাইড নামের জাপানি বইটি ১৯৯৩ সালে জাপানে এক মিলিয়ন কপির ওপরে বিক্রি হয়েছিল। তবে বিক্রি যা-ই হোক, বহু সাহিত্য পুরস্কার চালু হওয়ার পরও আজ অব্দি যেকোনো ধরনের বইয়ের মান নির্ধারণের স্থির মানদণ্ড মেলে না। বই নিয়ে যদি যুক্তিযুক্ত সমালোচনার ঝড় ওঠে, তবে তা লেখকের উন্নয়ন ঘটায়। অন্য লেখকেরা তো করবেনই, যৌক্তিক সমালোচনা চাইলে একজন সাধারণ পাঠকও করতে পারেন। একবার হানড্রেড অর্থাস অ্যাগেইনস্ট আইনস্টাইন নামে একটি বই বেরিয়েছে শুনে আইনস্টাইন বলেছিলেন, ‘১০০ লেখকের প্রয়োজন পড়ল কেন, আমি যদি ভুল করে থাকি, তবে তা একজন বললেই যথেষ্ট।’
বইয়ের ভবিষ্যৎ
পৃথিবীময় বছরে ৯ লাখের বেশি বই প্রকাশিত হয় অথচ এখনো পৃথিবীর ১৫ শতাংশ মানুষ পড়তে-লিখতে জানে না। এত এত বই আর সাহিত্যের সঙ্গে তাদের এবং হয়তো আরও অনেকের কোনো সংশ্লিষ্টতা গড়ে ওঠে না। তবু বিভিন্ন উপলক্ষে বই প্রকাশের উৎসব নিরন্তর চলে। কাগজ আর বইয়ের ইতিহাসের পথ এখন আরও অনেক প্রশস্ত। ১৯৭১ সালে মাইক্রোপ্রসেসর আর ১৯৮৫ সালে সিডি আবিষ্কারের পর বই কম্পোজ আর সংরক্ষণের ক্ষেত্রে বিপ্লব ঘটেছে। এরপর দ্রুত ইন্টারনেটের আবির্ভাব, অনলাইনে বই বিক্রির ব্যবস্থা আর ২০০৭-এ ই-বুক রিডারের আবিষ্কার লেখক, প্রকাশক আর পাঠককে বইয়ের বাজার নিয়ে নতুন করে ভাবতে শিখিয়েছে। অথচ এত কিছুর পরও মানুষ যা লেখে, তার সবটুকু কাগজে ছাপিয়ে ফেলতে চায়। কারও মনে থাকে না সাধারণ আকৃতির ৫০টা বই ছাপতে মাঝারি আকৃতির একটা গাছকে মৃত্যুবরণ করতে হয়। তবে সবকিছু হয়তো প্রকৃতিতেই ফিরে যায়, লাভ-ক্ষতিসহ ভিন্ন রূপে। বইয়ের পাতা যেমন পড়াও হয় আবার ঠোঙাও হয়। ষাট-সত্তরের দশকে জন্ম নেওয়া পাঠকের তারুণ্যে উত্তেজনা আনতে যে মিলস অ্যান্ড বুন প্রকাশনীর রোমান্টিক উপন্যাসের অবদান ছিল, লন্ডনের বার্মিংহামে হাইওয়ে রাস্তা বানাতে তার লাখ লাখ কপির মণ্ড ব্যবহৃত হয়েছে। মানুষ কিংবা বই, প্রত্যেকেই তার অবধারিত পরিণতির দিকে ধাবিত। আবার অবিকৃত থাকলেও স্মৃতিময় সন্ধ্যার ওপরে সময়ের ধুলো জমার মতো বইয়ের গায়ে মেখে যায় পুরোনো গন্ধ। সে গন্ধ কেবল স্মৃতিজাগানিয়া নয়, বরং গন্ধ শুঁকে কোনো বিশেষজ্ঞ বলে দিতে পারেন বইটা কত বছর আগের। কাগজ আর কালির রাসায়নিক পরিবর্তন বছর বছর বইয়ের গন্ধকে বদলায়।
বিবলিওস্মিয়া নাকি সুন্ডোকু?
পুরোনো বইয়ের দোকানে কিছু মানুষ নেশাগ্রস্তের মতো ঘুরে ঘুরে হয়তো ছাইয়ের ভেতরে রত্ন খুঁজে পাওয়ার লোভে। বইপোকা ধরনের কারও কারও ওই গন্ধ ছাড়া আর কিছুই ভালো লাগে না। পুরোনো বা পছন্দের বইয়ের গন্ধের প্রেমে পড়লে তাকে প্রেম বলে না, নাছোড়বান্দা রোগটিকে বলে বিবলিওস্মিয়া। চোখের সামনে বই মেলে রাখা ছাড়া এই রোগের চিকিৎসা নেই। মানুষের বেশি বেশি করে বিবলিওস্মিয়া হোক, তবে কখনো ‘সুন্ডোকু’ না হোক, চকচকে প্রচ্ছদ আর আপাত- আকর্ষণীয় তথ্যের লোভে শত শত বই কিনে স্তূপ গড়া কিন্তু কখনো না-পড়ার যে রোগের কথা জাপানিরা বলে।
তাই শুধু কেনা নয়, ক্রেতা বই পড়ে পাঠক হয়ে উঠুক।
সূত্র: হিস্ট্রি অব বুক, উইকিপিডিয়া, দ্য ইভল্যুশন অব বুক, জুলি ড্রিফাস, টেড-টক ইউটিউব ভিডিও, রিডিং ফর দ্য ফ্যানাটিকাল বুকওয়ার্ম, বুকস্টোর, ফ্যাক্টস অ্যাবাউট বুকস দ্যাট আর উইআরর্ডলি ইন্টারেস্টিং, হলোগিগলস, বে সাম, উইকিপিডিয়া। ইন্টারেস্টিং ফ্যাক্টস অ্যাবাউট বুকস অ্যান্ড নভেলস, ফ্যাক্টস রিপাবলিক।

 

শেয়ার করুন

ফেসবুকে সিলেটের ডাক

ইতিহাস ও ঐতিহ্য এর আরো সংবাদ
  • বালাগঞ্জের বাতিঘর বাংলাবাজার উচ্চ বিদ্যালয়
  • বঙ্গবন্ধু ও গান্ধীজী
  • সিলেটের দ্বিতীয় সংবাদপত্রের সম্পাদক ছিলেন ‘মেশিনম্যান’
  • একটি যুদ্ধ : একটি শতাব্দী
  • বালাগঞ্জের প্রাচীন জনপদ শিওরখাল গ্রাম
  • ভাটিপাড়া
  • সময়ের সোচ্চার স্বর সোমেন চন্দ
  • বঙ্গবন্ধুর সিলেট সফর ও কিছু কথা
  • বায়ান্নতেই লিখেছিলেন ‘ঢাকাই কারবালা’
  • জীবনের শেষক্ষণে অর্থ-স্বর্ণ সবই জড়পদার্থ
  • কমরেড বরুণ রায়
  • বঙ্গবন্ধু ও রাষ্ট্রভাষা আন্দোলন
  • নারী ভাষাসৈনিকদের কথা
  • মুক্তিযুদ্ধ ও বঙ্গবীর ওসমানী
  • ভাটির বাতিঘর সুনামগঞ্জ সরকারি কলেজ
  • মাওয়ের লংমার্চের ৪ বছর পর সিলেটিদের লং মার্চ
  • শহীদ মিনারের ইতিকথা
  • সিলেটের লোকসংগীত : ধামাইল
  • পর্যটক ইবনে বতুতার কথা
  • বই এল কোথা থেকে?
  • Developed by: Sparkle IT