স্বাস্থ্য কুশল

শারীরিক শক্তি বাড়ায় যে খাবার

মো. জহিরুল আলম শাহীন প্রকাশিত হয়েছে: ১০-০২-২০২০ ইং ০১:০২:০৯ | সংবাদটি ৩২২ বার পঠিত

বাংলায় একটা প্রবাদ আছে “স্বাস্থ্যই সকল সুখের মূল”। বাস্তবিক পক্ষেই যার স্বাস্থ্য ভালো তার মতো সুখী মানুষ আর নেই। স্বাস্থ্য বলতে মোটা দেহ নয়। আসলে যার দেহে কোন রোগ বালাই নেই তার নামই স্বাস্থ্য। সুস্থ দেহ গঠনে খাবারের ভূমিকা খুবই গুরুত্বপূর্ণ। দেহে রোগ প্রতিরোধ নিরাময় করার জন্য শরীরের একটা নিজস্ব ক্ষমতা আছে। এ ক্ষমতা তৈরী হয় আমাদের প্রতিদিনের সঠিক খাবার গ্রহণের মাধ্যমে। মনে রাখবেন সব রোগেই ঔষধ লাগে না। আসলে ঔষধ আমাদের শীরের জন্য প্রয়োজনীয় বিষ। সঠিক পুষ্ঠিগুণ সম্পূর্ণ খাবার শরীরের শক্তি বৃদ্ধি করে সক্ষমতা বাড়ায় রোগ দূর করে বা প্রতিরোধ করে। বিশেষ করে এমন কিছু খাবার আছে যেগুলো পুরুষদের ও মহিলাদের শারীরিক সক্ষমতা বৃদ্ধি করে সবল ও সতেজ রাখে। আর এ সক্ষমতা সন্তান জন্যদানে বিশেষ ভূমিকা পালন করে। অপর দিকে শারীরিক সক্ষমতা কমে গেলে দাম্পত্য জীবনে সুখ বজায় থাকে না। এ অবস্থায় সংসার জীবনে সুস্থ্য শিশুর জন্ম হয় না। শারীরিক অক্ষমতা সহ নানা সমস্যা আজকাল পুরুষ এবং মহিলাদের নিত্য সঙ্গী। সঠিক খাদ্য অভ্যাসের কারণে অতি অল্প বয়সে নর-নারীরা বয়স্ক দেখাচ্ছে। দুশ্চিন্তা, দূষিত পরিবেশ, খাদ্যে ভেজাল, মাদক দ্রব্য আর ধূমপান পুরুষ মহিলাদের উর্বরতা শক্তি দিন দিন কমিয়ে দিচ্ছে। এ সব থেকে আমাদের মুক্ত হতে আমাদের প্রয়োজন সচেনতা, সতর্কতা এবং পুষ্টিকর খাবার গ্রহণ। শারীরিক সক্ষমতা বৃদ্ধি করে এমন কয়েকটি খাবারের বর্ণনা নিম্নে দেওয়া হলো। যা আমাদের আশে পাশের হাট বাজারে প্রচুর পরিমাণে পাওয়া যায় এবং দামেও সস্তা।
১) খেজুর ঃ খেজুর একটি পরিপূর্ণ পুষ্টিকর খাবার। মানব দেহের সুস্থতার জন্য খেজুরের মতো অন্য কোন ফল নেই। সুস্থ শরীরের জন্য খাদ্যের যেসব উপাদান অতি প্রয়োজন খেজুরে তা সবই আছে। দেহে শক্তি উৎপন্ন করে অতি তাড়াতাড়ি শারীরিক শক্তিকে সর্বদাই অটুট রাখে খেজুর। ইসলামিক দিক থেকে খেজুরের গুরুত্ব খুবই বেশী। মহান রাব্বুল আলামিন তাঁর পবিত্র গ্রন্থ আল-কোরআনে ঘোষণা করেন- “খেজুর এবং আঙ্গুর ফল থেকে উত্তম খাদ্য তৈরী কর। নিঃসন্দেহে বুদ্ধিমান লোকদের জন্য এতে নির্দেশন রয়েছে”-(সূরা: নাহল, আয়াত নং-৬৭)। তাছাড়া সূরা-মরিয়ম এবং আনআমের ২৩নং আয়াতে খেজুরের উপকারিতা বর্ণনা করা হয়েছে। সুতরাং খেজুর একটি আল্লাহর অপার নিয়ামত। পবিত্র কোরআন মাজিদে ৩০ পারার মধ্যে ২৬ বার এই খেজুরের কথা উল্লেখ করা হয়েছে। আমাদের প্রিয় নবী হযরত মোহাম্মদ (সা:) এর প্রিয় ফল ছিল খেজুর। তিনি সকালে ৭টি খেজুর দিয়ে নাস্তা করতেন। খেজুরের উপকারিতা বর্ণনা করতে রাসুল (সা:) বলেছেন-“যে ব্যক্তি সকালে ৭টি আজওয়া খেজুর ভক্ষণ করবে সে দিন তাকে জ্বর বা যাদু আক্রান্ত করতে পারবেন”। খেজুর রক্ত উপাদান তৈরিকারী হজম শক্তি বর্ধক, যকৃত ও পাকস্থলির শক্তি বর্ধক, ক্যান্সার, উচ্চ রক্তচাপ, হাঁড়ক্ষয় রোধ প্রতিরোধক। নিয়মিত শুকনা খেজুর খেলে শরীরের শক্তি কমে না। শরীরে বয়সের ছাপ পড়ে না। দেহে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা গড়ে তুলে। যৌবন শক্তি অটুট থাকে। নিয়মিত খেজুর খেলে বয়স্ক হলেও যৌন ক্ষমতা ক্ষয় হয় না। নারী পুরুষের প্রজনন ক্ষমতা বৃদ্ধি করে। শুক্রাণুর মান বাড়ায়। শারীরিক সক্ষমতা বাড়ে।
২) কলা ঃ কলা একটি প্রাকৃতিক ঔষধ। কলা এমন একটি ফল যা খাওয়ার অল্প সময়ের মধ্যে দেহে প্রচুর শক্তি উৎপন্ন হয়। কলাতে ভিটামিন এ,বি, সি, পটাশিয়াম, ক্যালসিয়াম এবং ফসফরাস, আয়রণ পাওয়া যায়, যা শারিরীক শক্তি বৃদ্ধি করে। কলাতে ব্রোমেলাইন নামক এনজাইম থাকে যা পুরুষের শুক্রাণু তৈরিতে সাহায্য করে এবং যৌন শক্তি বৃদ্ধি করে। পুরুষের বীর্যকে সুস্থ এবং সবল রাখে। কর্ম শক্তি বৃদ্ধি করে। মানসিক চাপ ও হতাশা কমায়। গ্যাস্ট্রিকের সমস্যা কমায়। সুতরাং প্রতিদিনের খাদ্য তালিকা সকাল-বিকাল ২টি করে কলা খান।
৩) তরমুজ ঃ এ ফলটি অত্যান্ত জনপ্রিয়, সুস্বাদু, সহজ পাচ্য, পুষ্টিকর ও শক্তি উৎপাদনকারী। তরমুজ ভিটামিন এ, বি, সি, খনিজ পদার্থ সমৃদ্ধ ফল। তরমুজকে প্রাকৃতিক ভায়াগ্রাও বলা হয়ে থাকে। তরমুজে থাকে লাইকোপেন, সাইট্রুলাইন, বিটাক্যারোটিন যা পুরুষদের বেলায় শুক্রাণু আর মেয়েদের ডিম্বাণু উৎপাদন সুস্থ ও সবল রাখতে খুবই ভালো কাজ করে। এতে যৌন শক্তি বাড়াতে সাহায্য করে। শরীরের স্বাস্থ্যের অবনতি হয় না। আর তরমুজের অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট মান উন্নত করে। তাই প্রতিদিন পরিমাণমত তরমুজ খান স্বাস্থ্য অটুট থাকবে। তরমুজের পটাশিয়াম, ম্যাগনেসিয়াম রক্তের ইনসুলিনকে সুষ্ঠুভাবে কাজ করতে শক্তি যোগায়। তরমুজে এমন সব উপাদান রয়েছে যা খাবারকে কোষীয় শক্তিতে রূপান্তর করতে এবং অ্যান্টি অক্সিডেন্টের কো-ফ্যাক্টর হিসেবে কাজ করে। তরমুজে থাকা উচ্চ পরিমাণে সিটরুলিন মানব দেহের ধমনির রক্ত প্রবাহের কাজ স্বাভাবিক রাখে। রক্তচাপ কমায়। হযরত মোহাম্মদ (সা:) তরমুজ খেতে খুব পছন্দ করতেন। তিনি কাঁচা খেজুরের সাথে তরমুজ মিশিয়ে খেতেন। হযরত আয়শা (রা:) বর্ণিত রাসুল (সা:) কাঁচা খেজুরের সাথে তরমুজ মিশিয়ে খেতেন-তিরমিযি-১৮৪৩।
৪) ডিম ঃ এটি একটি পরিপূর্ণ পুষ্টিকর খাবার। যা মানব দেহকে সুস্থ, সবল, কর্মক্ষম রাখতে বলিষ্ট ভূমিকা পালন করে। শারীরিক ক্ষমতাকে অটুট রাখে। ডিমে প্রায় সব খাদ্য উপাদান পাওয়া যায়। ডিমের ভিটামিন বি-৫, বি-৬ উপাদানগুলো শরীরের হরমোন প্রক্রিয়াকে স্বাভাবিক রাখতে সাহায্য করে। ডিমে প্রচুর পরিমাণে প্রোটিন থাকে। যা শরীরের শক্তি বজায় রাখে এবং পুরুষদের শুক্রাণু ও মহিলাদের ডিম্বানু উৎপাদনে সাহায্য করে ও এর গুণগত মান উন্নত করতে সাহায্য করে। ডিমে কোলেস্টেরল থাকে প্রচুর। কোলেস্টেরল মানব দেহের জন্য খুবই প্রয়োজন। পুরুষের সেক্স হরমোন টেস্টোস্টেরন আর মহিলাদের সেক্সহরমোন ইস্ট্রোজেন দেহে তৈরীর জন্য কোলেস্টেরল খুবই প্রয়োজন। এ হরমোনগুলো সঠিকভাবে তৈরি না হলে শরীর দুর্বল হয়ে পড়ে এবং স্বাস্থ্য ভেঙ্গে যায়। মধ্য বয়সেই বুড়ো হয়ে যায়। তবে মনে রাখবেন কাঁচা ডিম খাওয়া উচিত নয়। কারণ কাঁচা ডিমে সালমোনেলা সিগেলা নামক জীবাণু সংক্রমণের আশংকা থাকে। এজন্য এ অভ্যাসটি থাকলে ত্যাগ করতে হবে। প্রতিদিন খাদ্য তালিকায় একটি ডিম রাখুন। এতে আপনার শারীরিক সক্ষমতা বাড়বে।
৫) গাজর ঃ গাজর প্রকৃতির অমূল্য সৃষ্টি এবং শক্তির ভান্ডার বলা হয়। গাজরে খাদ্যের ৬টি উপাদানের প্রায় সবগুলোই পাওয়া যায়। এতে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন এ, বি, সি, আয়রণ, পটাশিয়াম, ক্যালসিয়াম, ফসফরাস পাওয়া যায়। গাজর শরীরে বয়সের ছাপ পড়তে দেয় না। এর অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট দেহের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়িয়ে দেয়। ক্যান্সার প্রতিরোধ করে। গাজরে এমন সব উপাদান রয়েছে যা সন্তান উৎপাদনের ক্ষমতা বৃদ্ধি করে। পুরুষের বীর্যকে সবল রাখে। শরীরের শক্তিকে ধরে রাখে। ফলে শারীরিক সক্ষমতা বেড়ে যায়। তাছাড়া গাজর চোখের দৃষ্টি শক্তি প্রখর রাখে চামড়ার সৌন্দর্য্য বৃদ্ধি করে, কোষ্ঠকাঠিন্য ও গ্যাস্টিক দূর করে।
৬) বাদাম ঃ রোগ প্রতিরোধকারী ও শক্তি উৎপাদনকারী খাবার হলো বাদাম। বাদামে প্রচুর প্রোটিন থাকে যা থেকে প্রচুর শক্তি উৎপন্ন হয়। বাদাম শরীরে উপকারী কোলেস্টেরল উৎপন্ন করে। যা শরীরের সেক্সহরমোন তৈরী করে। ফলে শরীর তরতাজা এবং রোগ মুক্ত থাকে। দেশি বাদাম, বিদেশী বাদাম, পেস্তা বাদাম, কাজু বাদাম সব বাদামই শরীরের জন্য প্রয়োজনীয় মনোস্যাচুরেটেড চর্বি থাকে। যা থেকে প্রচুর শক্তি উৎপন্ন হয় এবং যৌন ক্ষমতাকে বাড়িয়ে দেয়। কোলেস্টেরলের তারতম্য টিক রাখে। কোলেস্টেরল দেহের সেক্সহরমোনকে সঠিকভাবে কাজ করতে সাহায্য করে। সুস্থ সবল সন্তান উৎপাদনে বাদাম বেশ গুরুত্বপূর্ণ কাজ করে। তাছাড়া বাদাম ডায়াবেটিস, ক্যান্সার, স্ট্রোক প্রতিরোধ করে। বাদামের বিচির বাহিরের লালচে আবরণ ফেলে দিয়ে খাবেন না। আবরণ সহ খাবেন। তবে পেটের অসুখ থাকলে খাবেন না।
৭) রসুন ঃ কথায় বলে, “অসংখ্য যার গুণ তার নাম রসুন”। মানব দেহে রোগ প্রতিরোধে রসুন গুরত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। রসুনে এমন সব উপাদান রয়েছে যা মানবদেহকে সবল ও সুস্থ রাখতে ও শক্তি তৈরিতে সাহায্য করে। শারীরিক সক্ষমতা বজায় রাখতে রসুনের তুলনা নেই। রসুন একটি শক্তিশালী অ্যান্টিবায়টিক ও জীবাণুনাশক। নিয়মিত রসুন খেলে যৌন ক্ষমতা অটুট থাকে। যৌবন শক্তি ধরে রাখতে রসুন বলিষ্ট ভূমিকা পালন করে। সেক্সক্রোমোজোম বা বীর্য বা শুক্র ও ডিম্বানুকে স্বাস্থ্যবান রাখে রসুন। যাদের এগুলো দুর্বল তাদেরই শারীরিক শক্তি কম। রসুন খেলে বার্ধক্য সহজে আসে না। বয়সের ছাপ পড়ে না। রসুন কাঁচা মুড়ির সাথে চিবিয়ে বা ছোট ছোট টুকরা করে পানি দিয়ে গিলে খান। রসুনের রাসায়নিক উপাদান এলিসিন শক্তিশালী এন্টিবায়টিক। কাঁচা অবস্থায় খেলে এ উপাদানটি নির্গত হয় এবং শরীরে কাজ করে শক্তি উৎপন্ন করে। তাছাড়া রসুনে থাকে অ্যালাকাইন যা যৌনাঙ্গের রক্ত সঞ্চালন বাড়ায়। উদ্দিপনা সৃষ্টি করে শরীরের সক্ষমতা বাড়ায়। তাছাড়া রসুন বাত রোগ, হৃদরোগ ও গ্যাস্ট্রিক সমস্যা অতি সহজে দূর করে।
সতর্কতা ঃ এ খাবার গুলো গ্রহণের পর শরীরে কোন প্রকার প্রতিক্রিয়া দেখা দিলে খাবার বন্ধ রাখবেন অথবা চিকিৎসকের পরামর্শ নিবেন।

 

শেয়ার করুন

ফেসবুকে সিলেটের ডাক

স্বাস্থ্য কুশল এর আরো সংবাদ
  • জুতায় কতদিন বেঁচে থাকতে পারে করোনাভাইরাস?
  • হার্ট সুস্থ রাখা চাই
  • হাম রুবেলা ক্যাম্পেইন বাস্তবায়নে প্রচারণা
  • গাজরের উপকারিতা
  • রোগ প্রতিরোধে ডুমুর
  • তরমুজ এক উপকারী ফল
  • সকালের নাস্তা যখন সুস্বাস্থ্যের চাবিকাঠি
  • করোনাভাইরাস থেকে বাঁচার উপায়
  • শাকসবজি ও ফলমূল কেন খাবেন
  • দৈনন্দিন জীবনে লেবুর চাহিদা
  • এ্যাপোলো হসপিটালে ভারতের প্রথম ইনভেসিভ ডবল কার্ভ কারেকশন সার্জারি
  • হাঁড়ের ক্ষয় রোগ : নীরব ঘাতক
  • আপনার সন্তানের চোখের যত্ন নিন
  • আয়োডিন স্বল্পতায় জটিল রোগ
  • শারীরিক শক্তি বাড়ায় যে খাবার
  • সুস্থতার জন্য পানি
  • রোগ প্রতিরোধে ডালিম
  • শীতে হাঁপানি এড়াতে কী করবেন
  • শীতে ঠোঁটের সুরক্ষা
  • এক জায়গায় বসে কাজ করার কুফল
  • Developed by: Sparkle IT