সম্পাদকীয় শৈশবে লজ্জা, যৌবনে ভারসাম্য এবং বার্ধক্যে ব্যয় সংকোচনও দূরদর্শীতার প্রয়োজন। -সক্রেটিস।

এই বসন্তে ফুলের বাজার

প্রকাশিত হয়েছে: ১৪-০২-২০২০ ইং ০৪:০৯:৩২ | সংবাদটি ৫২ বার পঠিত

বইতে শুরু করেছে বসন্তের বাতাস। রং লেগেছে সবার মনে; ফোটেছে ফুল বনে বনে। শীতের আড়মোড়া ভেঙ্গে জেগেছে প্রকৃতি। রকমারি ফুলের বাহারি রংয়ের সঙ্গে চাঙ্গা হয়েছে ফুলের ব্যবসাও। এই সময়টিতেই জমজমাট হয় ফুলের বিকিকিনি। ঋতুরাজ বসন্তকে উপলক্ষ করে ফুলের ব্যবসায় নতুন মাত্রা যুক্ত হয়। সেই সঙ্গে রয়েছে বিভিন্ন জাতীয় ও সামাজিক অনুষ্ঠান। বিভিন্ন ‘দিবসে’ কিংবা বিয়ে শাদীতে ফুল উপহার একটা পুরনো রীতি। সময়ের পরিক্রমায় ভালোবাসা ও সৌন্দর্য্যরে প্রতিক এই ফুল এখন অনেকের কাছে আয় ও বাণিজ্যের পণ্য হিসেবে আবির্ভুত হয়েছে। প্রতিনিয়ত চাষ বাড়ছে ফুলের। বাণিজ্যিক ভিত্তিতে উৎপাদিত ফুল দেশের গ-ি পেরিয়ে রপ্তানী হচ্ছে বিদেশেও। এতে বাড়ছে কর্মসংস্থান। অর্থনীতিতেও ফুলের অবদান বাড়ছে। সবচেয়ে বড় কথা হলো, অতীতে বিদেশে থেকে আমদানী করে দেশের চাহিদা পূরণ করা হতো; আর এখন দেশে উৎপাদিত ফুল বিদেশে রপ্তানী করা হচ্ছে।
ফুল পবিত্রতার প্রতিক, ¯িœগ্ধতার প্রতিক। ফুলের সৌরভ মানুষকে বিমোহিত করে; এর সৌন্দর্য পরিবেশকে করে তুলে মনোমুগ্ধকর। প্রেম, প্রীতি, ভালোবাসা কিংবা শ্রদ্ধা জানাতে ফুলের ব্যবহার অতীতেও ছিলো, আছে এখনও। জাতি ধর্ম নির্বিশেষে এই ফুলের জনপ্রিয়তা বেড়েই চলেছে। আর তার সঙ্গে বাড়ছে এর ব্যবসা। সরকারি সূত্রে জানা যায়, দেশের কমপক্ষে ২০টি জেলায় ১৩ হাজার হেক্টর জমিতে বিভিন্ন ধরণের ফুলের চাষ হচ্ছে। আর ফুলের পাইকারি বাজার রয়েছে সিলেটসহ ঢাকা এবং চট্টগ্রামে। আরও কয়েকটি জেলায় ছোট পরিসরে রয়েছে পাইকারি বাজার। বর্তমানে সামান্য পরিমাণে হলেও বিদেশে রপ্তানী হচ্ছে ফুল। তাছাড়া, দেশে দৈনিক তিন কোটি টাকার বেশি ফুলের বিকিকিনি হয়। সারা দেশে প্রায় নয়শ’ কোটি টাকার ফুলের বাজার রয়েছে। বিশেষজ্ঞদের মতে, ধান, পাট, সবজির তুলনায় ফুল চাষে লাভ বেশি। তাছাড়া, দেশের আবহাওয়া ও মাটি ফুল চাষের জন্য উপযোগী। আর ছোট বড় যেকোন আকারের জমিতেই ফুল চাষ করা যায়।
[গুণীজনদের মতে, ফুল যে ভালোবাসে না, সে মানুষও খুন করতে পারে। ফুল যেমন মানুষের মন ও পরিবেশকে সুন্দর করে তুলে, তেমনি এটি একটি অর্থকরী পণ্যও। যথাযথ উদ্যোগ নিলে ফুলের উৎপাদন বাড়ানো যায়। আর এজন্য সরকারের পৃষ্টপোষকতা জরুরি। ফুলের উৎপাদন বাড়লে বিদেশে রপ্তানীর হারও বাড়বে। ফলে একদিন ফুল রপ্তানী হয়ে উঠবে বৈদেশিক মূদ্রা আয়ের অন্যতম উৎস।] তাছাড়া, ফুল চাষ বাড়লে বিপুল সংখ্যক মানুষের কর্মসংস্থান হবে; বিশেষ করে নারীদের। সবচেয়ে বড় কথা, বিভিন্ন বর্ণের ফুল সহজলভ্য হয়ে উঠলে উৎসবে পার্বণে ফুলের ব্যবহার বাড়বে; সেই সঙ্গে বাড়বে ফুল অনুরাগীদের সংখ্যাও। যা খুবই জরুরি একটি সুন্দর সমাজ গঠনে।

 

শেয়ার করুন

Developed by: Sparkle IT