স্বাস্থ্য কুশল

হাঁড়ের ক্ষয় রোগ : নীরব ঘাতক

মোঃ জহিরুল আলম শাহীন প্রকাশিত হয়েছে: ২৪-০২-২০২০ ইং ০১:০০:৩৭ | সংবাদটি ৫২৭ বার পঠিত
Image

বাংলাদেশের জনগণের মধ্যে যেসব রোগ বেশী দেখা যায় তার মধ্যে হাঁড় ক্ষয় রোগ বা অস্থি ক্ষয় রোগ বা অস্টিওপোরোসিস উল্লেখ যোগ্য। দেহ গঠনের জন্য প্রয়োজনীয় খাদ্য উপাদানের ক্যালসিয়াম ও ভিটামিন ডি এর অভাব জনিত কারণে হাঁড়ের যে রোগ হয় তাই অস্টিওপোরোসিস। মানুষের দেহে মোট ২০১৬টি ছোট বড় হাঁড় রয়েছে। এই হাঁড়গুলো সুস্থতা না থাকলেই সমস্যা সৃষ্টি হয়। আমাদের দেহের হাঁড়ের বা অস্থির বা হাড্ডির ভিতরের ঘনত্ব বেড়ে বাকমে যাওয়া একটি ধারাবাহিক প্রক্রিয়া ১৬ বছর থেকে ১৮ বছর বয়স পর্যন্ত মোটামুটি হাঁড়ের দৈর্ঘ্য বৃদ্ধি পাওয়া কমে যায়। ২০ বছর বয়স হতে হাঁড়ের ঘনত্ব বাড়তে থাকে এবং তা ৩৫ বছর বয়স পর্যন্ত হাঁড়ের ঘনত্ব পরিপূর্ণ হয়ে যায়। আবার ৪০ বছর বয়সের পর হতে ধীরে ধীরে হাঁড় ক্ষয়ের মাত্রা কমতে শুরু করে। প্রাকৃতিক নিয়ম মতেই বয়স বাড়ার সাথে হাঁড়ের ক্ষয় একটি স্বাভাবিক প্রক্রিয়া। এ সময় শরীরে ক্যালসিয়াম ও ভিটামিন ডি এর অভাব দেখা দিলে হাঁড় গুলোর কার্যকারিতা খুবই কমে যায়। এতে হাঁড় নরম ও ভঙ্গুর হয়ে যায়। এ অবস্থাকেই বলা হয় অস্টিওপোরোসিস বা হাঁড় ক্ষয় রোগ।
কাদের বেশী হয় ঃ হাঁড় ক্ষয় রোগ পুরুষ ও মহিলা উভয়ের এ রোগ হয়। তবে পুরুষের চেয়ে মহিলাদের এ রোগ বেশী হওয়ার সম্ভব না বেশী থাকে। তবে আজ কাল কিশোর ও কিশোরী, যুবক, যুবতীরাও এ রোগে আক্রান্ত হচ্ছে। বিভিন্ন পরিসংখ্যানে জানা যাচ্ছে যে দেশের জনগণের মধ্যে ১৬ থেকে ৪৫ বছর বয়সের প্রায় ৪০ শতাংশ নারী হাঁড় ক্ষয় রোগে আক্রান্ত। বিশেষজ্ঞরা বলেছেন ৩০ বছরের কাছাকাছি থাকা অবস্থায় হাঁড়ের ঘনত্ব সবচেয়ে বেশী হয়ে থাকে। আবার পুরুষের বয়স ৪০ পর্যন্ত এবং নারীদের যতদিন পর্যন্ত মনোপজ না হয় ততদিন পর্যন্ত হাঁড়ের ঘনত্ব তুলনামূলক ভাবে স্থির থাকে। মহিলাদের যেমন একটি নির্দিষ্ট বয়সে মাসিক চক্র বা ঋতু¯্রাব শুরু হয় তেমনি আবার নির্দিষ্ট বয়সে এসে আবার মাসিক চক্র বন্ধ হয়ে যায়। মাসিক বন্ধ হয়ে যাওয়ার প্রক্রিয়াকে বলা হয় মনোপজ। এসময় মহিলাদের দেহে এস্ট্রোজেন হরমোন উৎপাদন কমে যায় ফলে নারীদের হাঁড়ের ক্ষয় বেড়ে যায়। তবে পুরুষের হাঁড়ের ক্ষয় একটি ধীরগতিতে হয়। পুরুষের বয়স ৭০ বছর হলে তার দেহে টেস্টোস্টেরন হরমোন উৎপাদন কমতে শুরু করে। তারপর হতে হাঁড় ক্ষয় হতে শুরু করে। অল্প বয়স হতেই যদি সুষম খাবার গ্রহণে সতর্ক ও সচেতন হওয়া যায় তাহলে এরোগ থেকে অনেকটা বেচে থাকা যায়। এজন্য আমাদের প্রতিদিনের খাবারে ক্যালসিয়াম, পটাশিয়াম, সালফার ও ভিটামিন ডি সমৃদ্ধ খাবার গুরুত্ব দিয়ে খেতে হবে। যত সম্ভব রোদে বা সূর্যালোকে প্রতিদিন কিছু সময় থাকতে হবে। শরীরে সব সময় ব্যথার অনুভূতি সৃষ্টি করে স্বাভাবিক কাজ কর্ম, হাঁটাচলায় ব্যঘাত সৃষ্টি করে এবং মৃত্যুর ঝুঁকি বাড়ায়।
কারণ ঃ মানুষের ১৫ বছর থেকে ২৫ বছরের মধ্যে হাঁড়ের ঘনত্বের সাথে সাথে ক্যালসিয়াম, ফসফেট, কোলাজেন, ফাইবার কী পরিমাণ থাকে তা থেকে হাঁড় গঠন সম্পূর্ণ হয়। এসময় এসব উপাদানের পরিমাণ কম থাকলে সমস্যার কারণ হয়ে দাঁড়ায়। তাই অল্প বয়স হতে হাঁড়ের ঘনত্বের সাথে পরিমাণ মতো ক্যালসিয়াম, ফসফেট, কোলাজেম ও ভিটামিন ডি সমৃদ্ধ খাবার গ্রহণ করা উচিত।
কারা ঝুঁকিপূর্ণ ঃ * যারা নিয়মিত বিয়াম করেন না। * মাসিক স্থায়ী ভাবে বন্ধ হয়ে যাওয়া নারীরা। * উচ্চতা অনুসারে যাদের দেহের ওজন কম। * যারা নিয়মিত পরিমাণ মতো ক্যালসিয়াম ও ভিটামিন ডি সমৃদ্ধ খাবার কম খান বা সেবন করেন না। * যাদের পরিবারে হাঁড় ক্ষয় রোগ আছে। * যারা ধূমপান ও মদপান করেন। * নারীদের ইস্ট্রোজেন ও পুরুষের টেস্ট্রোস্টেরণ হরমোনের মাত্রা কমে গেলে। * থাইরয়েড ও প্যারাথাইরয়েডের হরমোনের মাত্রা বেশী হলে। * ডায়াবেটিস, লিভার, কিডনি রোগে আক্রান্ত। * যে রোগে খাবরের শোষণ ব্যাহত হয়। * কিছু ঔষধ হাঁড় ক্ষয় রোগ বাড়িয়ে দেয়, যেমন- খিচুনি রোগের ঔষধ, স্তন ক্যান্সার চিকিৎসার ঔষধ, পুরুষের প্রজনন অঙ্গের প্রস্টেট ক্যান্সার চিকিৎসার ঔষধ।
প্রতিরোধ ঃ হাড় ক্ষয় রোগ একটি নীরব ঘাতক। যারা ধীরে ধীরে দেহকে অসচল করে ফেলে। প্রত্যাহিক জীবনে চলাফেরা, উঠা-বসা, হাঁটা সম্ভব না হয় না। সহজে নড়াচড়া করা যায় না। বসা থাকলে উঠা যায় না আর হঠাৎ করে বসা যায় না। সতর্কতা ও সচেতনতা অবলম্বন করে চললে তা প্রতিরোধ করা যায়। অল্প বয়স থেকে এ ব্যাপারে সচেতন হয়ে খাবার দাবার গ্রহণ করা উচিত আসলে যৌবন কালের মধ্যে হাঁড় শক্তিশালী ও হাঁড়ের ঘনত্ব পর্যাপ্ত পরিমাণে গঠন হয়ে যায়। তাই সময়েই হাঁড় গঠন যুক্ত খাবার অর্থাৎ ক্যালসিয়াম, ভিটামনি ডি ও সালফার যুক্ত খাবার শাকসবজি থেতে হবে। এ ব্যাপারে পরিবারের সদস্যরা খেয়াল রাখতে হবে যেন প্রতিদিন ক্যালসিয়াম যুক্ত খাবার গ্রহণ করছি কি না। কম হলে তা খেয়াল করে সেবন করতে হবে। তবে বয়স অনুসারে আমাদের ক্যালসিয়াম গ্রহণের তারতম্য রয়েছে তা জানতে হবে। ১ থেকে ১০ বছর বয়সীদের প্রতিদিন ৮০০ মিলিগ্রাম, ১১ থেকে ২৪ বছর পর্যন্ত যুবক যুবতীদরে ১২০০-১৫০০ মিলিগ্রাম। ২৫ থেকে ৫০ বছর পর্যন্ত পুরুষ মহিলাদের ১০০০ মিলিগ্রাম। মাসিক বন্ধ হয়ে যাওয়া মহিলাদের ৫১-৬৪ বছর পর্যন্ত ১০০০-১৫০০ মিলিগ্রাম, ৬৫ বছরের কম পুরুষের ৮০০ মিলিগ্রাম, ৬৫ বছরে অধিক বয়সী পুরুষ ও মহিলাদের ১৫০০ মিলিগ্রাম ক্যালসিয়াম প্রতিদিন গ্রহণ করা উচিত।
ক্যালসিয়াম সমৃদ্ধ খাবার ঃ সবচেয়ে বেশী ক্যালসিয়াম থাকে দুগ্ধ জাত খাবারে দুধ ও দই পরিমাণ মতো খাওয়া উচিত। তাছাড়া মাছ, মাংস, ডিম, সবুজ শাক সবজি যেমন: বাঁধাকপি, ফুলকপি, পালং শাখ, সজিনা, শিমের বিচি, মটরশুটি, কাটাসহ ছোট মাছ ও শুকনো মাছ, গুড়, খেজুর, কিসমিছ, বাদাম, কুল, শালগম ও সামুদ্রিক মাছ নিয়মিত খাওয়া উচিত। প্রতিদিন ১০০ গ্রাম শুকনো মাছ বা শুটকি খেলে প্রায় ১৮০০ মিলিগ্রাম ক্যালসিয়াম পাওয়া যায়।
ভিটামিন ডি সমৃদ্ধ খাবার ঃ ভিটামিন ডি এর শতকরা ৯০ ভাগই পাওয়া যায় সূর্যের আলো থেকে। প্রতিদিন ১৫-২০ মিনিট সূর্য্যরে আলোয় থাকলে শরীরে এমনেই ডি তৈরী হয়। তাই প্রতিদিন কিছু সময় রৌদ্রে থাকতে হবে। আমাদের চামড়ায় সূর্য্যরে আলট্রাভায়োলেট রশ্মি পড়লে চামড়ার বিদ্যমান ডি হাইড্রো কোলেস্টেরল নামক পদার্থ ভিটামিন ডি তে রুপান্তরিত হয়।
তাছাড়া নি¤œলিখিত ব্যবস্থা মেনে চললে আরামদায়ক জীবন যাপন করা যায় ও শরীর সুস্থ থাকে। * ধূমপান, সাদাপাতা, জর্দ্দা, গুল খাওয়া অবশ্যই বাদ দিতে হবে। * মদ বা অ্যালকোহল খাওয়ার অভ্যাস ত্যাগ করতে হবে। * প্রতিদিন কিছু সময় ব্যায়াম করতে হবে। * প্রতিদিন কিছু সময় শারীরিক পরিশ্রম করতে হবে এবং নিয়মিত হাটতে হবে। * প্রতিদিন প্রোটিন সমৃদ্ধ খাবার ভিটামিন বি, সি, কে ও খনিজ পদার্থ সমৃদ্ধ খাবার খেতে হবে। যারা এ রোগে আক্রান্ত তারা অবশ্যই সতকর্তার সাথে চলা ফেরা করতে হবে। যাতে কোন সময় পড়ে গিয়ে দেহের হাঁড় ভেঙ্গে না যায়। রাতের বেলায় ঘরে মৃদু আলোর বাল্ব জ্বালিয়ে রাখতে হবে। যাদের ঘরের মেঝে পিচ্ছিল সেগুলো কার্পেট দিয়ে ঢেকে রাখতে হবে। * ডায়াবেটিসন, কিডনি, লিভার রোগ নিয়ন্ত্রণ রাখুন। * দেহের উচ্চতা অনুসারে ওজন ঠিক রাখুন।
সতর্কতা ঃ যারা এরোগে আক্রান্ত তারা অবশ্যই আপনার চিকিৎসকের পরামর্শ মতে চলাফেরা এবং ঔষধ সেবন করবেন। আর নিজের ইচ্ছা মাফিক কোন ঔষধ খাবেন না। শরীরে কোনো সমস্যা হলেই চিকিৎসকের পরামর্শ নিবেন। সুস্থ থাকুন ভালো থাকুন।

শেয়ার করুন

ফেসবুকে সিলেটের ডাক

স্বাস্থ্য কুশল এর আরো সংবাদ
  • জুতায় কতদিন বেঁচে থাকতে পারে করোনাভাইরাস?
  • হার্ট সুস্থ রাখা চাই
  • হাম রুবেলা ক্যাম্পেইন বাস্তবায়নে প্রচারণা
  • গাজরের উপকারিতা
  • রোগ প্রতিরোধে ডুমুর
  • তরমুজ এক উপকারী ফল
  • সকালের নাস্তা যখন সুস্বাস্থ্যের চাবিকাঠি
  • করোনাভাইরাস থেকে বাঁচার উপায়
  • শাকসবজি ও ফলমূল কেন খাবেন
  • দৈনন্দিন জীবনে লেবুর চাহিদা
  • এ্যাপোলো হসপিটালে ভারতের প্রথম ইনভেসিভ ডবল কার্ভ কারেকশন সার্জারি
  • হাঁড়ের ক্ষয় রোগ : নীরব ঘাতক
  • আপনার সন্তানের চোখের যত্ন নিন
  • আয়োডিন স্বল্পতায় জটিল রোগ
  • শারীরিক শক্তি বাড়ায় যে খাবার
  • সুস্থতার জন্য পানি
  • রোগ প্রতিরোধে ডালিম
  • শীতে হাঁপানি এড়াতে কী করবেন
  • শীতে ঠোঁটের সুরক্ষা
  • এক জায়গায় বসে কাজ করার কুফল
  • Image

    Developed by:Sparkle IT