স্বাস্থ্য কুশল

দৈনন্দিন জীবনে লেবুর চাহিদা

আফতাব চৌধুরী প্রকাশিত হয়েছে: ২৪-০২-২০২০ ইং ০১:০৮:২৭ | সংবাদটি ৩৮০ বার পঠিত
Image

আমাদের দৈনন্দিন জীবনে লেবুর চাহিদা অনেক। লেবুতে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন সি থাকে। তাছাড়া বাজারে লেবুর সবসময়ই চাহিদা রয়েছে এবং ভাল দামও পাওয়া যায়।
লেবু সাধারণত দু’ধরনের গোল লেবু এবং কাগজি লেবু। এর মধ্যে বিচিহীন কাগজী লেবুর জনপ্রিয়তা এবং চাহিদা তুলনামূলকভাবে বেশী। চাষীরা ব্যবসায়িক ভিত্তিতে লেবুর চাষ করে প্রচুর অর্থ উপার্জন করতে পারেন। বাংলাদেশের সিলেট অঞ্চলে গোল এবং কাগজি লেবু ছাড়া আরো বেশ ক‘জাতি লেবু উৎপন্ন হয় এবং এসব লেবু বিদেশে বিশেষ করে লন্ডন ও মধ্যপ্রাচ্যের বিভিন্ন শহরে প্রচুর পরিমাণে রপ্তানী হয়ে থাকে। তবে লন্ডনে ‘জাড়া’ লেবুর কদর সবচেয়ে বেশী। এতে দেশ প্রচুর পরিমাণে বৈদেশিক মুদ্রা আয় করে থাকে। এখানে লেবু চাষ পদ্ধতি সম্বন্ধে কিছু আলোচনা করা হলো।
মাটি নির্বাচন ঃ লেবু চাষের জন্য উঁচু দোআঁশ এবং উর্বর মাটির প্রয়োজন। পানি জমে থাকে না এমন মাটি লেবু চাষের জন্য উপযোগী। তবে গোবর, পচন সার ইত্যাদি ব্যবহার করতে পারলে যে কোন মাটিতে লেবুর চাষ করা যায়। অবশ্য মাটি কিছু টিলা হওয়া প্রয়োজন যাতে মাটিতে ভালভাবে বাতাস চলাচল করতে পারে। সামান্য উঁচু টিলা রকমের ভূমি লেবু চাষের জন্য উপযুক্ত স্থান।
জাত নির্বাচন ঃ বিচিহীন কাগজি লেবুর জাতটাই ভাল এবং জনপ্রিয়। এ জাত থেকে বছরের সবসময়ই সুন্দর বিচিবিহীন ফল পাওয়া যায়। এ জাতীয় কাটিং যে কোন নার্সারী বা প্রতিষ্ঠান থেকে সংগ্রহ করা সম্ভব। সরকারের বিভিন্ন কৃষি খামারেও এ জাতীয় লেবুর কাটিং বা কলম পাওয়া যায়। নির্দিষ্ট পরিমাণের কাটিং সংগ্রহ করতে না পারলে ২/৩টি কাটিং সংগ্রহ করে মাতৃগাছ হিসেবে রোপণ করতে পারলেই হয়। পরবর্তী পর্যায়ে এ মাতৃগাছ থেকে কাটিং তৈরী করে লেবু চাষ করা যায়। এতে পরিবারের চাহিদা মিটিয়েও পাড়া প্রতিবেশী এবং আত্মীয় স্বজনদের বিলানো যায়।
রোপণ পদ্ধতি ঃ কাগজি লেবুর ডাল কাটিং সংগ্রহ করে নির্বাচিত জমিকে ভাল করে চাষ করে মই দিয়ে সমান করে নিতে হয়। তারপর রোপণের জন্য গর্ত করতে হয়। এক গর্ত করতে হবে অন্য গর্ত হতে ৩ মিটার দূরে। প্রতিটি গর্তের আকার হবে ০.৫ মিটার দ্ধ ০.৫ মিটার দ্ধ ০.৫ মিটার । গর্ত প্রস্তুত করার পর গর্তে আবার দোআঁশ মাটি পচন সার ইতাদি মিশ্রণ (১:১) দিয়ে ভর্তি করে দিতে পারলে ভাল হয়। এরপর ১৫/২০ দিন পর কাটিং রোপন করতে হয়। কাগজী লেবুর ফলন রোপণের উপযুক্ত সময় হচ্ছে মে-জুন মাস। রোপণের জন্য ৬ মাস বয়সের কাটিং নির্বাচন করতে হয়। কাটিংগুলো রোগ-পোকা থেকে মুক্ত হওয়া উচিৎ।
উল্লেখ্য লেবু গাছের গোড়ায় বছরে ২ বার সার প্রয়োগ করতে হয়। প্রথমে ফেব্রুয়ারী-মার্চ মাস আর পরবর্তী পর্যায়ে সেপ্টম্বর-অক্টোবর মাস। সার প্রয়োগ করার সময় গাছের গোড়া থেকে ১৫-৪৫ সেন্টিমিটার দূরত্ব পর্যন্ত জমি বাদ দিয়ে বাকী গাছের সমস্ত ডাল পাতা আবৃত করে রাখা জমিতে পাতলা কোদাল দিয়ে মাটি সরিয়ে সার প্রয়োগ করতে হয়। সার প্রয়োগ করার পর আবার পাতলা করে কোদাল দিয়ে সার মাটিতে মিশিয়ে দিতে হবে। সার প্রয়োগের সময় মাটি শক্ত থাকা দরকার। সার প্রয়োগের পর তার উপর হালকা করে মাটি দিলে ভাল হয়। গাছে নতুন করে পাতা আসার সময় অর্থাৎ বসন্ত ঋতুতে মাইক্রনিউট্রিয়েন্ট-২ গ্রাম প্রতি লিটার পানিতে স্প্রে করতে হয়।
পরিচর্যা ঃ লেবু গাছের গোড়া সবসময় আগাছা মুক্ত রাখতে হয়। অন্যথায় রোগ পোকার আক্রমণ বেশী হয়। বর্ষার সময় গাছের গোড়ায় পানি যাতে জমে না থাকে সেদিকে বেশী করে লক্ষ্য রাখতে হয়। এজন্য প্রয়োজন নালা করে পানি সরে যাওয়ার পথ করে দিতে হবে।
সেপ্টম্বর-অক্টোবর মাসে লেবু গাছের শুকনো এবং রোগাক্রান্ত ডালগুলো কেটে ফেলতে হয়। গাছের বয়স দু‘বছর হওয়ার পর লেবু গাছের ৫০ সেন্টিমিটার উপরে ২/৩ টি ডাল রেখে বাকী সবগুলো ডাল কেটে দেয়া দরকার। এ ডালগুলো এমনভাবে রাখতে হবে যাতে নতুন কুড়ি দিয়ে চারদিকে বিস্তার লাভ করতে পারে। নিয়মিত পরিচর্যা সার ও পানি প্রয়োগ করার ফলে লেবু গাছ থেকে সারা বছরই ফল পাওয়া যায়।
উৎসাহী লেবু চাষী ভাইয়েরা পরিকল্পিত উপায়ে লেবু চাষ করে আর্থিক উপার্জন বৃদ্ধি করতে পারেন। বেকারত্ব দূরীকরণে লেবু চাষ সহায়ক ভূমিকা রাখতে পারে, সন্দেহ নেই।

শেয়ার করুন

ফেসবুকে সিলেটের ডাক

স্বাস্থ্য কুশল এর আরো সংবাদ
  • জুতায় কতদিন বেঁচে থাকতে পারে করোনাভাইরাস?
  • হার্ট সুস্থ রাখা চাই
  • হাম রুবেলা ক্যাম্পেইন বাস্তবায়নে প্রচারণা
  • গাজরের উপকারিতা
  • রোগ প্রতিরোধে ডুমুর
  • তরমুজ এক উপকারী ফল
  • সকালের নাস্তা যখন সুস্বাস্থ্যের চাবিকাঠি
  • করোনাভাইরাস থেকে বাঁচার উপায়
  • শাকসবজি ও ফলমূল কেন খাবেন
  • দৈনন্দিন জীবনে লেবুর চাহিদা
  • এ্যাপোলো হসপিটালে ভারতের প্রথম ইনভেসিভ ডবল কার্ভ কারেকশন সার্জারি
  • হাঁড়ের ক্ষয় রোগ : নীরব ঘাতক
  • আপনার সন্তানের চোখের যত্ন নিন
  • আয়োডিন স্বল্পতায় জটিল রোগ
  • শারীরিক শক্তি বাড়ায় যে খাবার
  • সুস্থতার জন্য পানি
  • রোগ প্রতিরোধে ডালিম
  • শীতে হাঁপানি এড়াতে কী করবেন
  • শীতে ঠোঁটের সুরক্ষা
  • এক জায়গায় বসে কাজ করার কুফল
  • Image

    Developed by:Sparkle IT