সম্পাদকীয়

ভূমিহীনরা পাবে ঘর

প্রকাশিত হয়েছে: ১৩-০৩-২০২০ ইং ০০:২৪:২৩ | সংবাদটি ১৬৮ বার পঠিত
Image


ভূমিহীনরা পাবে পাকা বাড়ি। দেশের ছয় লাখ আট হাজার গৃহহীন ও ভূমিহীন পরিবারকে একটি করে পাকা বাড়ি নির্মাণ করে দেবে সরকার। প্রতিটি বাড়ির সম্ভাব্য নির্মাণ ব্যয় ধরা হয়েছে চার লাখ টাকা। পুরো কর্মসূচীতে ব্যয় হবে ২৪ হাজার তিনশ’ ২০ কোটি টাকা। প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের আশ্রায়ন-২ প্রকল্প, ভূমি মন্ত্রণালয়ের গুচ্ছগ্রাম প্রকল্প এবং দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয়ের দুর্যোগ সহনীয় বাড়ি প্রকল্পের সুবিধাভোগীদের নিয়ে এই প্রকল্প বাস্তবায়ন করা হবে। প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশিত এই প্রকল্পটি বাস্তবায়ন করবে দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয়। এ প্রসঙ্গে প্রধানমন্ত্রীর বক্তব্য হচ্ছে, মুজিববর্ষে বাংলাদেশের কোন মানুষ ভূমিহীন-গৃহহীন থাকবে না। খবরটি প্রকাশিত হয় সম্প্রতি একটি জাতীয় দৈনিকে।
[এক সময়ের স্বল্প আয়ের দারিদ্রক্লিষ্ট তৃতীয় বিশ্বের একটি দেশ এই বাংলাদেশ আজ মধ্যম আয়ের একটি উন্নয়নশীল দেশ। উন্নয়নের অগ্রযাত্রা অব্যাহত আছে। অর্থনীতির নানা সূচকে বাংলাদেশের অগ্রগতি চোখে পড়ার মতো। দারিদ্যের বৃত্ত থেকে বেরিয়ে আসছে মানুষ। কিন্তু এতো কিছুর পরও এদেশের বিপুল সংখ্যক মানুষ এখনও ভূমিহীন-গৃহহীন। সরকারি হিসেবেই দেশে গৃহহীন পরিবারের সংখ্যা তিন লাখ ৮২ হাজার পাঁচশ’ ১৪টি। আর ভূমিহীন পরিবার দুই লাখ ২৬ হাজার। এই ছয় লাখ আট হাজার পাঁচশ’ ১৪টি পরিবারকেই পাকা বাড়ি তৈরি করে দেয়া হবে।] আগামী এক বছরের মধ্যে এই প্রকল্প বাস্তবায়িত হবে বলে আশা করা হচ্ছে। এক তলা বিশিষ্ট প্রতিটি বাড়িতে দু’টি কক্ষসহ অন্যান্য সুযোগ-সুবিধা রাখা হবে। সরকারের এই পরিকল্পনা বাস্তবায়নে সরকারি বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের পাশাপাশি সরকার দলীয় লোকদেরও সম্পৃক্ত করা হচ্ছে। অর্থাৎ গৃহহীন ও ভূমিহীন খুঁজে বের করার জন্য দলীয় নেতা-কর্মীদের নির্দেশ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী। এতে করে কর্মসূচী বাস্তবায়নে স্বচ্ছতা নিশ্চিতকরণের ব্যাপারে সংশয় প্রকাশ করছেন অনেকে।
যা-ই হোক, দেশের জনগোষ্ঠীর একটা উল্লেখযোগ্য অংশের কল্যাণে গৃহিত প্রকল্পের সফল বাস্তবায়নই আমরা আশা করছি। গৃহহীন ও ভূমিহীনদের পুনর্বাসনের লক্ষে নানা প্রকল্প অতীত থেকেই চালু রয়েছে। সরকারি খাস জমিতেই এদের পুনর্বাসনের উদ্যোগ নেয়া হয়। অথচ এইসব প্রকল্পে বরাবরই অনিয়ম-দুর্নীতির অভিযোগ পাওয়া যায়। বর্তমান প্রকল্পেও একইভাবে সরকারি খাস জমিতে গৃহহীনদের জন্য ঘর তৈরি করে দেয়া হবে। এক্ষেত্রে যথাযথ তদারকির মাধ্যমে অনিয়ম-দুর্নীতিকে প্রতিহত করতে হবে। আর প্রকল্প বাস্তবায়নের আগে দেশব্যাপী বেদখলে থাকা সরকারি খাস জমি উদ্ধারও একটা জরুরি বিষয়।

 

শেয়ার করুন

Developed by:Sparkle IT