শিশু মেলা

কাবুলিওয়ালা

শামীম খান প্রকাশিত হয়েছে: ১৯-০৩-২০২০ ইং ০০:৩২:২৫ | সংবাদটি ৩৫৮ বার পঠিত
Image


কাবুলিওয়ালা কাবুলিওয়ালা
লম্বা তারই দাড়ি,
কোন বা দেশের কোন বা গাঁয়ে
রসিক বুড়োর বাড়ি।
বুড়োতো নয় ছুকড়া বেজায়
রসিকতায় ঢেল,
কভু হাসায় কভু কাঁদায়
এইতো তারি খেল।
কেশখানি তার জটা জটা
গা খানি তার কালো,
মুখখানি তার ডাবের মত
দেখতে লাগে ভালো।
সাদা যে তার কেশের বাহার
চলতো চরণ ফেলে,
ডিঙ্গি নায়ের ঢেউয়ের তালে
পা দুই খানি চলে।
সাদা সাদা দাঁতের সারি
ঠোঁটখানি তার লাল,
খাওয়ার বেলায় রুচে মুখে
পান্তা ভাত আর ডাল।
মুখটি ভরে পানটি পুড়ে
লাগিয়ে দিয়েই চুন,
ভাটা মুখে ঠা ঠা হাসি
গান ধরে গুনগুন।
মাথায় নিয়ে মস্ত বুঝাই
অমনি যেথা বসে,
দাদির কথা বললেও ভাই
খিলখিলিয়ে হাসে।
সেই সে বুড়ো হাসতে থাকে
কাঁদতে নাহি জানে,
হাসতে যদি কেউ না জানে
শিখায় হাসার মানে।
বয়স যে তার আশির মত
কন্ঠ কি মধুর,
গান সে তো নয় বসন্তেরি
কোকিল পাখির সুর।
তার মুখেতেই ফুটে উঠে
পুরাণ পুঁথির গান,
সেই গানেতে বেশ ফুটিতো
গাজী কালুর নাম।
হাসি যে তার খেলার সাথী
একটু অবসরে,
সেই হাসি তার কে জানিত
মুক্তা হয়ে ঝরে।
হাসো হাসো কাঁদতে নারে
হাসি শিখায় বার,
হাসি দিয়ে জীবন গড়
ভুবন করো পার।
তার সে জীবন হাসির মত
হাসিই জীবনময়,
তাইতো সে ভাই হাসি দিয়েই
করলো দুঃখের জয়।

দাও ফিরিয়ে আরেকটি বার
আশরাফুল আলম
দাও ফিরিয়ে কাঠের ঢেঁকি
হারানো সেই সুখ,
দাও ফিরিয়ে লাঙল জোয়াল
হাসি ভরা মুখ।
দাও ফিরিয়ে মাঠের গরু
রাখালিয়ার গান,
দাও ফিরিয়ে গেরস বাড়ি
গোলাভরা ধান।
দাও ফিরিয়ে মাটির কৈলা
খেজুর রসের হাঁড়ি,
দাও ফিরিয়ে গাঁয়ের পথে
প্রিয় গরুর গাড়ি।
দাও ফিরিয়ে হরেক রকম
শীতের পিঠাপুলি,
দাও ফিরিয়ে আরেকটি বার
হারানো দিনগুলি।

শেয়ার করুন

Developed by:Sparkle IT