উপ সম্পাদকীয়

করোনা ভাইরাস ও করুণ পরিস্থিতি

মাওলানা আব্দুল হান্নান তুরুকখলী প্রকাশিত হয়েছে: ২২-০৩-২০২০ ইং ০০:২৪:৪৬ | সংবাদটি ৩৫৯ বার পঠিত
Image

সারা বিশ্বেই নতুন নতুন রোগের আবির্ভাব ঘটছে। দেখা যাচ্ছে, যা ছিল প্রাণীর রোগ, তাতে এখন আক্রান্ত হচ্ছে মানুষ। যেমন সোয়াইন ফ্লু-মূলত শূকরের রোগ। কিন্তু এটি এখন মানুষ থেকে মানুষে ছড়ায়। কিছু ক্ষেত্রে ভাইরাসের জিনগত পরিবর্তন হয়ে নতুন ভাইরাসের সৃষ্টি হয়। নতুন ভাইরাস অন্যান্য প্রাণীর মধ্যে সুপ্ত অবস্থায় থাকে। কিন্তু মানুষের সংস্পর্শে এলে তা প্রাণঘাতী হয়ে দাঁড়ায়। যেমন-নিপাহ ভাইরাস। এ ভাইরাস বাদুড় বহন করে কিন্তু বাদুড় থেকে মানুষে এলেই সমস্যা তৈরি করে। এ রকম কত রোগ প্রাণী থেকে মানুষে আসছে, তার সঠিক কোনো পরিসংখ্যান নেই। তবে ১০ বছর আগে ঢাকার একটি সম্মেলনে যুক্তরাষ্ট্রের সেন্টার ফর ডিজিজ কন্ট্রোলের (সিডিসি-আটলান্টা) সেন্টার ফর গ্লোবাল হেলথ-এর সহকারী পরিচালক পিটার বি রোল্যান্ড তার উপস্থাপনায় বলেছিলেন, এ পর্যন্ত প্রায় ১৪০০ জীবাণু দ্বারা মানুষের আক্রান্ত হওয়ার ইতিহাস আছে। এসব জীবাণুর ৬১% এর উৎস প্রাণীজগৎ। ১৯৮০ সাল থেকে ২০১০ সাল পর্যন্ত বিশ্বের মানুষ ৮৭টি নতুন রোগে আক্রান্ত হয়েছে। নতুন রোগের সংক্রমণ নিয়মিত ঘটনা হয়ে দাঁড়িয়েছে। প্রতি বছরে ৩-৪টি নতুন রোগের আবির্ভাব ঘটছে। আবার পুরনো কিছু রোগ নতুন করেও আবির্ভূত হচ্ছে। ১৯৭০ সাল থেকে ডিসেম্বর ২০১৯ পর্যন্ত বিশ্বে আলোচিত নতুন রোগের সংখ্যা ৩২টি, যার মধ্যে ১৮টি রোগ বাংলাদেশে শনাক্ত হয়েছে। এ রোগগুলো হচ্ছে ঃ (১) জাপানিজ এনসেফালাইটিস ১৯৭৭, (২) এইচআইভি/এইডস-১৯৮৯, (৩) রোটা ভাইরাস-১৯৯০, (৪) পোলিও পি-১ ও পি-৩-১৯৯৬, (৫) ওষুধ প্রতিরোধী যক্ষ্মা-১৯৯৭, (৬) ডেঙ্গু-২০০০, (৭) লেপটোসিরোসিস-২০০০, (৮) নিপাহ ভাইরাস-২০০১, (৯) H5NI (পোলট্রিতে)-২০০৭, (১০) H5NI (মানুষে)-২০০৮, (১১) চিকুনগুনিয়া-২০০৮, (১২) HINI (সোয়াইন ফ্লু)-২০০৯, (১৩) কিউট্যানিয়াস অ্যানথ্রাক্স-২০০৯, (১৪) H9N2-২০১১, (১৫) নোরো ভাইরাস-২০১৩, (১৬) জিকা ভাইরাস-২০১৪, (১৭) নেগলেরিয়া ফাউলোরি-২০১৪, (১৮) ক্যানডিডা আউরিস-২০১৬ (কারেন্ট অ্যাফেয়ার্স ঃ মার্চ-২০২০)।
এবারে যে ভাইরাসটি সারা বিশ্বে আতংক সৃষ্টি করেছে সেই ভাইরাসটি হচ্ছে করোনা ভাইরাস। রোগের নাম COVID-19. ২০১৯ সালের ৩১ ডিসেম্বর চীনের উহান নগরে সর্বপ্রথম এ ভাইরাসের দেখা মেলে। বর্তমানে এ ভাইরাসটি মহামারী রূপ ধারণ করেছে। মৃতের সংখ্যা আট হাজার ছাড়িয়ে গেছে। আক্রান্ত ও মৃতের সংখ্যা লাফিয়ে লাফিয়ে বৃদ্ধি পাচ্ছে প্রতিদিন। চীনের উহান থেকে উৎপত্তি হলেও বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার মতে, করোনা ভাইরাসের সংক্রমণের বর্তমান কেন্দ্র ইউরোপ। এই মহাদেশের তৃতীয় বৃহৎ অর্থনীতি ইতালিতেই এখন বেশি ছড়াচ্ছে ভাইরাসটি। সংক্রমণ ও মৃত্যুর দিক থেকে দেশটির পেছনে রয়েছে স্পেন, ফ্রান্স ও জার্মানি। মধ্যপ্রাচ্যে আক্রান্ত ও মৃত্যুর হার সবচেয়ে বেশি ইরানে। উত্তর আমেরিকায় সংক্রমণ বেশি ছড়াচ্ছে যুক্তরাষ্ট্রে। ওশেনিয়া অঞ্চলে অস্ট্রেলিয়ায় সংক্রমণ সবচেয়ে বেশি। এশিয়ায় দক্ষিণ কোরিয়া ও জাপানকে এর সাথে লড়াই করতে হচ্ছে সর্বশক্তি দিয়ে। এএফপির হিসাব অনুসারে গত ১৫ মার্চ ২০২০ পর্যন্ত করোনার সংক্রমণে বিশ্বজুড়ে আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা ছিল ১ লাখ ৫৯ হাজার ৮৪৪ জন। মারা গেছে ৬ হাজার ৩৬ জন। এর মধ্যে চীনে মারা গেছে ৩ হাজার ২০৩ জন। ইউরোপের দেশ ইতালিতে ১৫ মার্চ ২০২০ পর্যন্ত মৃতের সংখ্যা ছিল ১ হাজার ৯০৭ জন। আক্রান্তের সংখ্যা ২১ হাজার ছাড়িয়েছে। পরিস্থিতি সামাল দিতে পুরো দেশ অবরুদ্ধ করেছে সরকার। একইভাবে পুরো দেশ অবরুদ্ধ করে রেখেছে স্পেন ও চেক প্রজাতন্ত্র। এদিকে জার্মানি গত ১৫ মার্চ থেকে অস্ট্রিয়া, ফ্রান্স ও সুইজারল্যান্ডের সঙ্গে সীমান্ত বন্ধ করে দেয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে। অস্ট্রিয়া সংক্রমণ ঠেকাতে কোনো জায়গায় পাঁচজনের বেশি জমায়েত হতে নিষিদ্ধ করেছে। এবং সেখানকার সব রেস্তোরা বন্ধ করে দিয়েছে। পরিস্থিতি সামাল দিতে জরুরি অবস্থা জারি করেছে রোমানিয়া। দেশটিতে জনগণকে ঘরে থাকার পরামর্শ দিয়েছে সরকার। সীমান্ত বন্ধ করে দিয়েছে স্লোভাকিয়া। ইরানে করোনা সংক্রমণে মারা গেছেন ৭২৪ জন। ইরানে আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা প্রায় ১৫ হাজার। পরিস্থিতি সামাল দিতে ইরানের প্রেসিডেন্ট বিভিন্ন দেশের কাছে সাহায্য চিঠি লিখেছেন। যুক্তরাষ্ট্রে করোনা ভাইরাসে সংক্রমিত রোগীর সংখ্যা ১৫ মার্চ ২০২০ পর্যন্ত ৩ হাজার ৪৫ জন এবং মোট মারা গেছে ৬০ জন। যুক্তরাজ্যে আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা ১ হাজার ১৪০ জন, মারা গেছে ২১ জন। ভারত ও আয়াল্যান্ডে ২ জন করে মারা গেছে।
জনসমাগমকে করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হওয়ার অন্যতম কারণ বলে ঘোষণা করা হয়েছে। এ জন্য করোনায় আক্রান্ত বিভিন্ন দেশের সব ধরণের শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ করে দেয়া হয়েছে। যেসব দেশের বিদ্যালয় ও বিশ্ববিদ্যালয় বন্ধ করে দেয়া হয়েছে সেসব দেশের মধ্যে চীন, আর্মেনিয়া, আজারবাইজান, সংযুক্ত আরব আমিরাত, ভারত, ইরাক, ইরান, ইতালি, জাপান, মঙ্গোলিয়া, জার্মানি, দক্ষিণ কোরিয়া, যুক্তরাষ্ট্র, ফ্রান্স, পাকিস্তান, যুক্তরাজ্য, থাইল্যান্ড ও ভিয়েতনাম অন্যতম। ১৭ মার্চ থেকে ৩১ মার্চ পর্যন্ত বাংলাদেশের সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে। জনসমাগম কমাতে বিভিন্ন দেশে ব্যবসা প্রতিষ্ঠান ও কলকারখানা বন্ধ করে দেয়া হয়েছে। করোনার সংক্রমণ ঠেকাতে সৌদি আরবের মসজিদে নামাজের সময় সীমিত করা হয়েছে। সংযুক্ত আরব আমিরাতে চার সপ্তাহের জন্য মসজিদে নামাজ আদায় সাময়িকভাবে বন্ধ করে দেয়া হয়েছে। করোনা বিস্তার রোধে কাতারের সব মসজিদ বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে।
প্রাচীন গ্রীক শব্দ করোন (Korone) থেকে সপ্তদশ শতকের দিকে ল্যাটিন ভাষায় যুক্ত হয় করোনা (Korona) শব্দটি। এর অর্থ পুষ্পমাল্য বা পুষ্পমুকুট। ১৯৩০ এর দশকে করোনা ভাইরাস (Corona virus)-এর সন্ধান মেলে। আর মানবদেহে প্রথম বারের মতো এ করোনা ভাইরাস শনাক্ত হয় ১৯৬০ সালে। COVID-19, এ নামের CO দিয়ে Corona, VI দিয়ে Virus ও D দিয়ে Disease (রোগ) বোঝানো হয়। আর ভাইরাস ছড়ানোর সময় হিসেবে ২০১৯ সালকে চিহ্নিত করার জন্য ব্যবহার করা 19। এ জন্য এর নামকরণ করা হয়েছে COVID-19 ।
করোনা ভাইরাস বিশ্বব্যাপী এক আতংক। এটি পুরো বিশ্বকে লন্ডভন্ড করে দিয়েছে। এ রোগ থেকে মুক্তির জন্য বিশেষজ্ঞগণ যে পরামর্শ দেন তা পালন করা আমাদের সকলের উচিত।
লেখক : প্রাবন্ধিক ও কলামিস্ট।

শেয়ার করুন

ফেসবুকে সিলেটের ডাক

উপ সম্পাদকীয় এর আরো সংবাদ
  • বদলে যাওয়া পৃথিবী
  • কৃষিতে আমাদের অগ্রযাত্রা
  • মানুষের জীবনে বৃক্ষের অবদান
  • শিক্ষার মানোন্নয়নে সরকারের পদক্ষেপ
  • বাংলাদেশ পারে, আমরা ভুলে যাই
  • সমাজ, সময় এবং মানুষের লড়াই
  • করোনাকালে শিক্ষা ও টেকসই উন্নয়ন লক্ষমাত্রা
  • বিশ্বনেতৃত্বে চীনের সম্ভাবনা কতটুকু
  • প্রসঙ্গ : হিন্দু ব্যক্তির মরদেহ সৎকার
  • সাম্প্রতিক পরিস্থিতিতে করণীয়
  • করোনা ও মানবিক সহযোগিতা
  • চীন-ভারত স্নায়ুযুদ্ধ : বাংলাদেশে প্রভাব
  • মানব পাচার আইনের প্রয়োগ
  • কৃষিই হোক একুশ শতকের প্রধান অবলম্বন
  • স্বাস্থ্যবিধি মানলে প্রশমিত হবে করোনা
  • তিস্তা ও ফারাক্কা চুক্তিই এখন জীয়ন কাঠি
  • দার্শনিক মানুষ ও বেপরোয়া মানুষ
  • প্রসঙ্গ : শিশুদের অভ্যাস
  • আন্তর্জাতিক ও আঞ্চলিক সম্পর্কে নতুন মেরুকরণ
  • হারিয়ে যাচ্ছে মিঠে পানির মাছ
  • Image

    Developed by:Sparkle IT