প্রথম পাতা বিভাগীয় শহরের একমাত্র সেন্টারে নমুনা প্রদানকারীদের ভিড় ॥ বুথ বৃদ্ধিতে সংশ্লিষ্টদের উদাসীনতা ॥ উদ্বিগ্ন সিলেটের সচেতন মহল

করোনার ‘রেড জোন’-এ রূপ নিচ্ছে সিলেট!

নূর আহমদ প্রকাশিত হয়েছে: ০৫-০৬-২০২০ ইং ০০:১৫:৫০ | সংবাদটি ৮৫১ বার পঠিত
Image

প্রতিদিনই করোনার উপসর্গ থাকা ব্যক্তিদের ভিড় বাড়ছে শহীদ শামসুদ্দিন আহমদ হাসপাতালে স্থাপিত নমুনা কালেকশন (সংগ্রহ) সেন্টারে। শারীরিক দূরত্ব বা স্বাস্থ্যবিধি অনুসরণের বালাই নেই নমুনা সংগ্রহে। আবার অভিযোগ রয়েছে, পৃথক কালেকশন সেন্টার স্থাপনের দাবি উঠলেও রহস্যজনক কারণে সিলেট স্বাস্থ্য বিভাগ তাতে গুরুত্ব দিচ্ছে না। এরই মধ্যে যত সময় যাচ্ছে করোনা ভাইরাস সংক্রমণের ‘রেড জোন’ হিসেবে যেন রূপ নিচ্ছে সিলেট। অভিযোগ উঠেছে সিলেটের সিভিল সার্জন কিংবা স্বাস্থ্য বিভাগের পরিচালকের কার্যালয়ের কর্তারা নানা অজুহাতে নমুনা কালেকশন সেন্টার স্থাপনের বিষয়টি এড়িয়ে চলছেন।
শহীদ শামসুদ্দিন আহমদ হাসপাতালে স্থাপিত নমুনা কালেকশন সেন্টারটি পরিচালিত হচ্ছে- সিলেট এম এ জি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের অধীনে। নমুনা প্রদানকারীদের সংখ্যা বেড়ে গেলেও সিলেটের স্বাস্থ্য বিভাগের নতুন কালেকশন সেন্টার বা বুথ বৃদ্ধিতে খুব আগ্রহ পরিলক্ষিত হচ্ছে না। এমনিতে করোনায় আক্রান্ত রোগী অবস্থানকারী শহীদ ডা: শামসুদ্দিন আহমদ হাসপাতালের আইসোলেশন সেন্টারে ‘নমুনা কালেকশন’ সেন্টার স্থাপনের যৌক্তিকতা নিয়ে। সিলেটে করোনা ভাইরাস এর সংক্রমণ মহামারি আকার ধারণ করার আগেই পৃথক স্থানে নমুনা কালেকশন সেন্টার স্থাপনেরও দাবি উঠেছে। বিকল্প হিসেবে সিলেট সিভিল সার্জন অফিসের পুরাতন ভবন, নগরীর নগর বিনোদিনী স্বাস্থ্যকেন্দ্র কিংবা খাদিমপাড়া ২১ শয্যা হাসপাতালে নমুনা কালেকশন সেন্টার স্থাপন করা যেতে পারে বলে অনেকেই মত দিয়েছেন।
সরেজমিনে দেখা গেছে, শহীদ শামসুদ্দিন আহমদ হাসপাতালে স্থাপিত নমুনা কালেকশন সেন্টারে যে পদ্ধতিতে নমুনা সংগ্রহ করা হচ্ছে তাতে স্বাস্থ্যবিধি মানা হচ্ছে না। প্রতিদিন বাড়ছে নমুনা প্রদানকারীদের সংখ্যা। স্বাস্থ্যবিধি না মেনেই লাইনে দাঁড়িয়ে নমুনা প্রদানের জন্য ভিড় করছেন অনেকেই। যেখানে শহীদ শামসুদ্দিন আহমদ হাসপাতালে করোনা পজিটিভ রোগীদের দিয়ে কানায় কানায় পূর্ণ সেই হাসপাতালেই নমুনা দিতে গিয়ে উল্টো ঝুঁকিতে পড়েছেন করোনা ভাইরাসের উপসর্গ শরীরে বহনকারী ব্যক্তিরা। অন্যদিকে স্বাস্থ্য সংশ্লিষ্টদের বক্তব্য-গত কয়দিন থেকে পরীক্ষার জন্য নমুনা প্রদানকারীদের চাপ বেড়ে যাওয়ায় হিমশিম খাচ্ছেন সিলেটের একমাত্র কালেকশন সেন্টারের কর্মীরা।
সিলেট সিভিল সার্জন অফিস এর প্রধান সহকারী অরুণ কুমার চৌধুরী জানান, সিলেট সদর ও সিটি কর্পোরেশন এলাকার বাসিন্দাদের নমুনা সংগ্রহ করা হয় শহীদ শামসুদ্দিন আহমদ হাসপাতালে। পরে তা ওসমানী মেডিকেলে পাঠানো হয়। মূলত গত এপ্রিলের প্রথম সপ্তাহে সিলেটে পিসিআর ল্যাব স্থাপনের পর থেকে শহীদ শামসুদ্দিন আহমদ হাসপাতালে নমুনা কালেকশন শুরু হয়। শুরুতে প্রতিদিন ৮-১০ জনের নমুনা সংগ্রহ করা হতো। পরে প্রতিদিন ৪০-৫০ জন এই হাসপাতালে নমুনা সংগ্রহ করা হয়। বতর্মানে নমুনা প্রদানকারীদের সংখ্যা অনেক বেড়ে গেছে। এর জন্য মাঝে মাঝে নমুনা ঢাকায় পাঠাতে হয়।
অরুণ কুমার চৌধুরী জানান, শহীদ শামসুদ্দিন আহমদ হাসপাতালে নমুনা কালেকশন সেন্টারে গত বুধবার পর্যন্ত পূর্ববতী এক মাসে ১হাজার ৭শ ২০ জনের নমুনা সংগ্রহ করা হয়। বুধবার নমুনা সংগ্রহ করা হয়
১১৪ জনের। নমুনা প্রদানকারীদের চাপ দিন দিন বাড়ছে। এর জন্য বুধবার রাতে, গত সোম এবং মঙ্গলবার সংগ্রহকৃত প্রায় ৬শ জনের নমুনা ওসমানী এবং শাহজালাল বিশ্ববিদ্যালয়ের পিসিআর ল্যাবে পাঠানোর পর বাকি ৫শ ৮৫ জনের নমুনা ঢাকায় পাঠানো হয়েছে।
অন্যদিকে, সরেজমিনে দেখা গেছে দুই তিন দিন দাঁড়িয়েও অনেকে নমুনা দিতে পারছেন না। নমুনা দিতে প্রতিদিন করোনা রোগীদের জন্য বিশেষায়িত হাসপাতালে বিপুল সংখ্যক লোক ভিড় করেন। এছাড়া হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রোগীদের স্বজনরাও ভিড় করছেন হাসপাতালে প্রাঙ্গণে। এতে ঝুঁকি দিন দিন বাড়ছে। চিকিৎসকরা বলছেন, করোনা পরীক্ষার নমুনা জমা দেয়ার সময় শারীরিক দূরত্ব না মানার কারণে ভাইরাস সংক্রমণের ঝুঁকি আরও বাড়ছে।
বিশিষ্টজনের মতে, সিলেটে যে হারে সংক্রমণ বাড়ছে তাতে দ্রুত পদক্ষেপ নেয়া জরুরী। সিলেট চেম্বার অব কমার্স এন্ড ইন্ডাস্ট্রির সভাপতি আবু তাহের মোঃ শোয়েব বলেন, একটি বিভাগীয় শহরে করোনা প্রাদুর্ভাব বৃদ্ধির পরও মাত্র একটি নমুনা কালেকশন সেন্টার দিয়ে নমুনা সংগ্রহ প্রত্যাশিত নয়। যত দ্রুত সম্ভব নমুনা কালেকশন সেন্টার বৃদ্ধি করা জরুরী। তিনি বলেন, শহীদ শাসুদ্দিন হাসপাতাল এই মুহূর্তে নমুনা দিতে গিয়ে যে পরিস্থিতি সৃষ্টি হচ্ছে-এতে আমরা উদ্বিগ্ন পরবর্তী পরিস্থিতি নিয়ে। আবু তাহের মোঃ শোয়েব বিষয়টি সিলেট চেম্বারের পক্ষ থেকে সরকারের সংশ্লিষ্ট দপ্তরে দাবি তুলেছেন বলে জানান।
সিলেট জেলা বারের সভাপতি এটি এম ফয়েজ জানান, এই মুহূর্তে বিশেষজ্ঞরা বলছেন, সাধারণ রোগী থেকে করোনা পজিটিভ রোগীকে পৃথক করা জরুরি। সাধারণ লোকজনের অনেকেই করোনা উপসর্গ নিয়ে এখন শহীদ শামসুদ্দিন হাসপাতালের নমুনা কালেকশন সেন্টারে নমুনা দিতে গিয়ে ভিড় করছেন। এটা আমাদের সচেতনতারই অংশ। এখন স্বাস্থ্য বিভাগের উচিত নমুনা পরীক্ষা করে দ্রুত ব্যবস্থা নেয়া। না হয় সামনে খারাপ সময় অপেক্ষা করছে বলে অভিমত দেন। তিনি সবাইকে সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে চলার জন্য আহবান জানান।
বাংলাদেশ স্বাস্থ্য পরিবার এর আহবায়ক মোঃ গৌছ আহমদ চৌধুরী বলেন, করোনা উপসর্গবহনকারী রোগীদের চাপ দিন দিন বাড়ছে। প্রতিদিন শত শত লোক নমুনা দিতে ভিড় করছেন নমুনা কালেকশন সেন্টারে। এ ব্যাপারে আমাদের এখনই কার্যকর পদক্ষেপ নেয়া জরুরি। না হয় পরবর্তীতে ভয়াবহ আকার ধারণ করতে পারে।
শহীদ শামসুদ্দিন হাসপাতালে নমুনা কালেকশন সেন্টারে করোনা উপসর্গবহনকারী রোগীদের চাপ বৃদ্ধি ও পৃথক নমুনা কালেকশন সেন্টার স্থাপন প্রসঙ্গে সিলেটের সিভিল সার্জন ডাঃ মোঃ প্রেমানন্দ মন্ডল বলেন, শহীদ শামসুদ্দিন হাসপাতালেই বুথ বাড়ানোর চেষ্টা চলছে। করোনা রোগী অবস্থানকারী হাসপাতালে নমুনা সংগ্রহ কতটা যৌক্তিক জানতে চাইলে তিনি বলেন, চাইলেই তো অনেক কিছু করতে পারা যায় না। সারাদেশে টেকনোলিজস্ট সংকট। এতো টেকনোলিজস্ট পাব কোথায়। তিনি বলেন, নতুন বুথ স্থাপনের চেষ্টা চলছে, এটাই আপাতত খবর।
এ ব্যাপারে স্বাস্থ্য সিলেট বিভাগ এর পরিচালক ডাঃ সুলতানা রাজিয়া বলেন, ‘সিভিল সার্জনকে বুথ বাড়াতে বলেছি। তিনি কাজ করছেন।’
স্বাস্থ্য বিভাগ জানিয়েছে, গতকাল বৃহস্পতিবার সকাল ৮টা পর্যন্ত সিলেট বিভাগের চার জেলায় ১২৩৬ জনের কোভিড-১৯ শনাক্ত করা হয়েছে। এর মধ্যে সিলেট জেলায় সর্বোচ্চ ৬৭৯ জন আক্রান্ত হয়েছেন। এর বাইরে সুনামগঞ্জে ২১৯, হবিগঞ্জে ১৯৪ এবং মৌলভীবাজারে ১৪৪ জন করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন।

শেয়ার করুন

ফেসবুকে সিলেটের ডাক

প্রথম পাতা এর আরো সংবাদ
  • এই দিন দিন না, সামনে আরো দিন আছে : রিজভী
  • আজও বর্ষণ অব্যাহত থাকবে
  • কার্যকর প্রতিষেধক আসলেও মাস্ক পরতেই হবে
  • প্রধানমন্ত্রী জাতিসংঘে ভাষণ দেবেন আজ
  • সুনামগঞ্জে বাড়ছে নদ-নদীর পানি
  • দেশের ব্যবসা-বাণিজ্য জোরদারে অর্থনৈতিক কূটনীতির প্রতি প্রধানমন্ত্রীর গুরুত্বারোপ
  • শীতে করোনার ঝুঁকি বেশী সচেতনতার দৃশ্যতঃ প্রস্তুতি নেই
  • পাইকারির চেয়ে খুচরা বাজারে পেঁয়াজ কেজিতে ১০ টাকা বেশি!
  • ভিসা থাকলে ছুটিতে আসা সবাই সৌদি আরবে যেতে পারবেন : পররাষ্ট্রমন্ত্রী
  • অবৈধপথে ক্ষমতায় আসতে চোরা গলি খুঁজছে বিএনপি : সেতুমন্ত্রী
  • ক্রেডিট কার্ডে ২০ শতাংশের বেশি সুদ নয়
  • ২০৩০ সালের মধ্যে সব মাধ্যমিক বিদ্যালয় হবে ডিজিটাল
  • ১ অক্টোবর থেকে সৌদিগামী সব ফ্লাইট চালু হবে : পররাষ্ট্রমন্ত্রী
  • কক্সবাজারের ৩৪ পুলিশ পরিদর্শক বদলি
  • গোটা দেশটাকে কারাগারে পরিণত করেছে সরকার : মির্জা ফখরুল
  • ভ্যাকসিন আসছে ভেবে অনেকের মধ্যে গা-ছাড়া ভাব : ওবায়দুল কাদের
  • ‘অটো প্রমোশন’ নয় মূল্যায়ন করেই নবম শ্রেণিতে উত্তীর্ণ হবে শিক্ষার্থীরা
  • সিলেট বিভাগে আক্রান্তের চেয়ে সুস্থতা দ্বিগুণ
  • প্রচণ্ড গরমের পর জেঁকে বসেছে বৃষ্টি
  • ছাতক সিমেন্ট কারখানার আধুনিকায়ন ২০২১ সালে সম্পন্ন হবে : উপাধ্যক্ষ আব্দুস শহীদ এমপি
  • Image

    Developed by:Sparkle IT