উপ সম্পাদকীয়

সময়ই শ্রেষ্ঠ সম্পদ

রঞ্জিত কুমার দে প্রকাশিত হয়েছে: ০৫-০৬-২০২০ ইং ০১:৪৪:০৬ | সংবাদটি ১২০ বার পঠিত
Image

পৃথিবীতে যারাই সফল হয়েছেন তাদের জীবনী অধ্যয়ন করলে অনায়াসেই বুঝা যায় যে, তারা সময়কে কীভাবে ব্যবহার করেছেন। সময়ের সদ্ব্যবহারের সাথে সাথে তারা কঠোর শ্রম সাধনার মাধ্যমে কাজে আত্মনিয়োগ করেছেন। ফলে কোনো বাধাই তাদেরকে সাফল্যের পথ থেকে দূরে রাখতে পারেনি। তারা হয়েছিলেন জগৎ জোড়া খ্যাতির মালিক। মানবজীবনে সফলতার মূল ভিত্তি হল সময়, শ্রম ও কাজের দায়িত্ববোধ। জীবনে সফলতার জন্য কাজ আপনার চাই-ই। সে যে কাজই হোক না কেন। যদি তা অন্যায়, ঘুষ ও দুর্নীতিমূলক না হয়। ব্যক্তি জীবনে কাজের গুরুত্ব অপরিসীম। কাজের জন্য দৃঢ় ইচ্ছা শক্তি, উচ্চাকাক্সক্ষা ও সময়ের যেমন গুরুত্ব দেয়া প্রয়োজন তেমনি প্রয়োজন কঠোর শ্রমের জন্য নিজেকে প্রস্তুত করা।
কাজ করেন এতে লজ্জার কি আছে। হোক না তা ছোট কাজ পরিচয় দিতে সংশয় কিসের। কাজেই তো মর্যাদা বাড়ে। আপনি কাজ করছেন নিজের কল্যাণের জন্য, মঙ্গলের জন্য, তাহলে আপনার তো সংশয় থাকার কথা নয়। সমাজে যারা অপদার্থ, কাজের মর্যাদা বোঝে না তারা হয়তো আপনাকে ছোট বলবে। তাদের কথায় আপনি কান দেবেন না। আপনি আপনার কাজ চালিয়ে যান। বিশ্বজয়ী ফরাসী স¤্রাট নেপোলিয়নের প্রিয় ঐতিহাসিক জেনারেল জেমিনী প্রথম জীবনে জনৈক ভদ্রলোকের বালক ভৃত্য ছিলেন। ইসলামের চতুর্থ খলিফা হযরত আলী (রা:) বলেছেন, ‘আমার রাত কাটে ইবাদতে আর দিন কাটে পরিশ্রমে’। তুর্কী স¤্রাট সেলিম সারাদিন কাজ করতেন। রাত্রিতে অল্পই নিদ্রা যেতেন। সারারাত্রি বসে বসে তিনি পড়তেন। জীবনে কাজ ছাড়া কোনো কিছুতে তার আনন্দ ছিল না। তিনি কাজকে মনে প্রাণে ভালবাসতেন বলেই তার সা¤্রাজ্যে কোনো কিছুর অভাব হয়নি। এ জগতে প্রতিষ্ঠা লাভ করতে হলে, ধন সম্পদ জয় করতে হলে, সুখ সাচ্ছন্দ্যময় জীবন যাপন করতে চাইলে আপনাকে কঠোর পরিশ্রম ও সাধনা করতে হবে। পৃথিবীটাই তো আপনার অধ্যবসায়ের একটি ক্ষেত্র। আপনি যে কাজটাই ঠিকমত করবেন সেটাই আপনার ভাগ্য বদলিয়ে দেবে। আসলে প্রত্যেকেরই উচিত স্ব স্ব কাজের প্রতি দায়িত্ববোধ। তাহলে যে কেউ যে পেশাতেই সফল হবেন এতে সন্দেহ নেই। কাজের প্রতি দায়িত্ববোধ না থাকলে কোনো কাজেই কেউ সফলতা লাভ করতে পারবেন না। স্কুল কলেজের সার্টিফিকেট কিংবা বিশ্ববিদ্যালয়ের সর্বোচ্চ ডিগ্রি না পেলে আপনার জীবনের মূল্য হবে না। এ কথা কে বলেছে. পাশ্চাত্যের উন্নতি, ইউরোপের অগ্রগতির মূলে তো এসবের ভেদ বিচার নেই। কাজের মূল্যই তো তাদের কাছে বড়। সার্টিফিকেট, ডিগ্রী এসব কেউ গলায় ঝুলিয়ে পথ চলে না। মানুষ বিচার করবে আপনার জ্ঞানকে, মনুষ্যত্বকে, চরিত্রকে, নৈতিক বলকে। আপনার দুর্জয় আত্মশক্তির সামনে সবকিছু লুণ্ঠিত হবে; মোহনীয় ব্যক্তিত্বে, মাধুর্যে সবার ভালবাসা শোষণ হবে। সত্য ও নিষ্ঠার সম্মুখে গ্রহণযোগ্যতা বাড়বে। আর এসবেই আপনি হবেন সফল ও সাফল্যের অংশীদার।
জ্ঞান বিজ্ঞানের চর্চা ও শ্রম সাধনা করতে না পারলে কোনো জাতিই জগতে বড় হতে পারে না। কারণ জ্ঞান-বিজ্ঞান চর্চা ও সাধনা ব্যতীত জাতির মনের শক্তি বৃদ্ধি হয় না। আর মনের শক্তি বৃদ্ধি না হলে সে তার চলার পথ ও মনুষ্যত্ব জ্ঞান হারিয়ে ফেলে। এতেই জাতির পতন হয়। ইংরেজ জাতি আজ কোথায় গিয়েছে। তাদের বড় হওয়ার পেছনে যে ইতিহাস রয়েছে তা কি আমরা কখনো ভেবে দেখেছি। কত ত্যাগ তিতিক্ষা পেরিয়ে আজ তারা ধন সম্পদে, জ্ঞান-বিজ্ঞানে, দর্শনে সবকিছুতেই উন্নতির চরম শিখরে পৌঁছে গেছে। এসবের মূলে কি রয়েছে, তা জানতেও জ্ঞানের চর্চার প্রয়োজন।
আপনি ইচ্ছা করলে পারেন সফল কর্মী হতে, সফল ব্যক্তি হতে। জীবনকে জ্ঞান ভান্ডারের অসীম রাজ্যে প্রবেশ করাতে। এগুলো সবই আপনার ভেতরের শক্তির কাজ। ইংরেজরা এ শক্তিগুলোকেই একযোগে কাজে লাগিয়ে সবকিছুর পাশাপাশি শিল্পে সমৃদ্ধি লাভ করছে। আজ তাদের সমৃদ্ধি কিসে নেই। তারা উন্নতির স্বর্গরাজ্যে বিরাজ করছেন। ইউরোপ ও আমেরিকার উন্নতির কারণটা তো এখানেই।
আমাদের জীবনকে উন্নতির পথে পরিচালিত করতে কাজ দরকার। দরকার শ্রম সাধনার। কাজের ভেতরেই তো উন্নতির হাতছানি। কাজ ও শ্রম সাধনার মাঝেই মানুষের সুখ সাচ্ছন্দ্য ও যাবতীয় কল্যাণ নিহিত। মানব সমাজের সুখ সাচ্ছন্দ্য ও যাবতীয় কল্যাণ ছাড়া আর কিসে আনন্দ পাওয়া যায়। যদি নিজের কথাও বলা হয়, তাহলেও আমাদের কাজ করতে হবে। সময়ের সদ্ব্যবহার আর মাথার ঘাম পায়ের উপর পড়ার মত পরিশ্রমের মুখোমুখি হওয়ার মানসিকতা না থাকলে জগতে কোনো ধন সম্পদ ও সুখ সমৃদ্ধি লাভ হয় না। পৃথিবীর সকল আবিস্কারই জ্ঞানীদের অপূর্ব গবেষণা শক্তির রহস্য থেকেই বের হয়েছে বিদ্যুৎ, তাই মেধার শ্রমের সাথে কাজ করলে দ্রুত সফলতা আসে। আর মাথাই মূলত সকল শ্রমের পরিচালনাকারী।
লেখক: অবসরপ্রাপ্ত শিক্ষক

শেয়ার করুন

ফেসবুকে সিলেটের ডাক

উপ সম্পাদকীয় এর আরো সংবাদ
  • ইতিহাসের আলোকে অর্থনৈতিক মুক্তি
  • পাখি, মশা, ভাইরাস, অতঃপর আরো কিছু!
  • বিশ্বজনসংখ্যা দিবস
  • উচ্চমাধ্যমিক পরীক্ষা প্রসঙ্গ
  • বদলে যাওয়া পৃথিবী
  • কৃষিতে আমাদের অগ্রযাত্রা
  • মানুষের জীবনে বৃক্ষের অবদান
  • শিক্ষার মানোন্নয়নে সরকারের পদক্ষেপ
  • বাংলাদেশ পারে, আমরা ভুলে যাই
  • সমাজ, সময় এবং মানুষের লড়াই
  • করোনাকালে শিক্ষা ও টেকসই উন্নয়ন লক্ষমাত্রা
  • বিশ্বনেতৃত্বে চীনের সম্ভাবনা কতটুকু
  • প্রসঙ্গ : হিন্দু ব্যক্তির মরদেহ সৎকার
  • সাম্প্রতিক পরিস্থিতিতে করণীয়
  • করোনা ও মানবিক সহযোগিতা
  • চীন-ভারত স্নায়ুযুদ্ধ : বাংলাদেশে প্রভাব
  • মানব পাচার আইনের প্রয়োগ
  • কৃষিই হোক একুশ শতকের প্রধান অবলম্বন
  • স্বাস্থ্যবিধি মানলে প্রশমিত হবে করোনা
  • তিস্তা ও ফারাক্কা চুক্তিই এখন জীয়ন কাঠি
  • Image

    Developed by:Sparkle IT