শেষের পাতা চার দিনেও অধরা প্রধান আসামি সাইদুল

বড়লেখায় পলিথিন উদ্ধার ঘটনার জেরে সংঘর্ষ-গুলি

বড়লেখা (মৌলভীবাজার) থেকে নিজস্ব সংবাদদাতা : প্রকাশিত হয়েছে: ০৭-০৭-২০২০ ইং ০২:৪৮:৩১ | সংবাদটি ৪২ বার পঠিত
Image

 মৌলভীবাজারের বড়লেখায় পলিথিন আটকের জের ধরে দুইপক্ষের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনায় থানায় দায়ের করা দুটি মামলার এজাহারভুক্ত প্রধান আসামি সাইদুল ইসলামকে চারদিনেও গ্রেপ্তার করতে পারেনি পুলিশ।
মামলা সূত্রে জানা গেছে, গত বুধবার ১ জুলাই স্থানীয় প্রশাসন পৌর শহরের বিভিন্ন স্থান থেকে মজুদ করা প্রায় ৭০ মণ নিষিদ্ধ পলিথিন উদ্ধার করে। এর মধ্যে মামলার প্রধান আসামি সাইদুল ইসলামের পারিবারিক মালিকানধীন রেলওয়ে স্টেশন রোডস্থ শাহজালাল শপিং সিটি থেকেও পলিথিন উদ্ধার করে প্রশাসন। এ ঘটনার পর থেকে আসামিরা শামীম আহমদকে (মামলার বাদী) সন্দেহ করছিলেন। তাদের ধারণা শামীম আহমদ পুলিশকে তথ্য দিয়ে পলিথিনগুলো ধরিয়ে দিয়েছেন। এ আক্রোশে বৃহস্পতিবার সকালে শহরের উত্তর বাজার এলাকায় আগ্নেয়াস্ত্রসহ সাইদুলের নেতৃত্বে শামীম আহমদকে কুপিয়ে জখম করে রাস্তায় ফেলে যায়। এতে শামীম গুরুতর আহত হন। পরে স্থানীয়রা তাকে উদ্ধার করে প্রথমে বড়লেখা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যান। অবস্থার অবনতি হলে থাকে সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়। শামীম আহমদের উপর হামলার খবর পেয়ে তার ভাই জসিম উদ্দিনসহ স্বজনরা ঘটনাস্থলে গেলে বেলা ১টার দিকে উভয় পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষ বাঁধে। সংঘর্ষে জসিম উদ্দিনসহ প্রায় ১২ জন আহত হন। জসিম উদ্দিনসহ কয়েকজন ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসা নেন। আহত অন্যরা স্থানীয়ভাবে চিকিৎসা নিয়েছেন।
প্রত্যক্ষদর্শী সূত্র জানিয়েছে, দুপুরে সংঘর্ষের সময় পর পর তিন রাউন্ড গুলির শব্দ শুনেছেন তারা। তবে এই গুলির সত্যতা থানা পুলিশের পক্ষ থেকে নিশ্চিত করা হয়নি। সংঘর্ষের খবরে তাৎক্ষণিক ঘটনাস্থলে যান উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান সোয়েব আহমদ। থানার ওসি মো. ইয়াছিনুল হককে সাথে নিয়ে উভয় পক্ষের সাথে আলোচনা করে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনেন। সংঘর্ষের ঘটনায় আহত শামীম আহমদ বাদী হয়ে ১৮ জনের ও জসিম উদ্দিন বাদী হয়ে ১৫ জনের নাম উল্লেখ করে মামলা করেন। থানায় দুটি মামলায় সাইদুল ইসলামকে প্রধান আসামি করা হয়েছে।
পুলিশ জানিয়েছে, গত শুক্রবার মামলার প্রধান আসামি সাইদুলকে গ্রেপ্তার করতে বড়লেখা থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মো. ইয়াছিনুল হকের নেতৃত্বে ১০ সদস্যের একটি বিশেষ টিম সিলেট নগরীর গার্ডেন টাওয়ারের ২০৬৪ নম্বর ফ্ল্যাটে অভিযান পরিচালনা করে। অভিযানে অংশ নেয় সিলেট কোতোয়ালী থানার সোবহানীঘাটস্থ পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ এসআই নাইম ও এটিএসআই জহিরসহ পুলিশের আরো একটি টিম। এসময় তাকে বাসায় পাওয়া যায়নি। বিল্ডিং এর সিসি ক্যামেরা পর্যবেক্ষণ করে তার অবস্থান জানার চেষ্টা করা হয়।

শেয়ার করুন

ফেসবুকে সিলেটের ডাক

শেষের পাতা এর আরো সংবাদ
  • ঢাকাদক্ষিণে সমাজসেবক রকিব উদ্দিন স্মরণ সভা ও অনুদান বিতরণ
  • ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ারিং ভর্তি নীতিমালার প্রতিবাদে সিলেটে মানববন্ধন
  • আজ থেকে ঈদের ছুটি
  • ঈদুল আযহার দিন সিলেট বিভাগে বৃষ্টির সম্ভাবনা
  • সিলেট বিভাগে ২৪ ঘণ্টায় করোনায় আক্রান্ত ৭৫, মৃত্যু ৫
  • লিডিং ইউনিভার্সিটির সিন্ডিকেট সভা অনুষ্ঠিত
  • জকিগঞ্জে ৬ হাজার পিস ইয়াবা উদ্ধার ॥ মা-মেয়েসহ গ্রেফতার ৫
  • সিলেট-ভোলাগঞ্জ সড়কে বিআরটিসি দোতলা বাস সার্ভিস ফের চালু
  • ইঞ্জিনিয়ার শাহজাহান কবির ডালিমের স্ত্রীর অকাল মৃত্যু
  • করোনায় মারা গেলেন কাজিটুলা বিহঙ্গ তরুণ সংঘের সভাপতি মিঠু
  • লাক্কাতুরা চা-বাগান স্কুল মাঠ থেকে পশুর হাট সরালো প্রশাসন
  • পল্লবী থানায় বোমা বিস্ফোরণ, তিনজন ১৪ দিনের রিমান্ডে
  • এই ঈদেও পর্যটক শূন্য থাকবে ‘প্রকৃতি কন্যা’ সিলেট
  • সিলেটে জমেনি মসলার বাজার
  • ঈদের পর করোনার সংক্রমণ বাড়ার আশঙ্কা
  • স্বাস্থ্য কর্মকর্তা সাজ্জাদের ভাইয়ের ৯ কোটি টাকা অবরুদ্ধ করলো দুদক
  • শেরপুরে শেষ মুহূর্তে জমে উঠেছে ঈদের কেনাকাটা
  • বিয়ানীবাজারে বৈদ্যুতিক তার ছিঁড়ে তিন সিএনজিতে আগুন
  • মৌলভীবাজারে ভোক্তা অধিকার অধিদপ্তরের অভিযানে জরিমানা
  • ছাতকে বন্যায় কবরস্থানের উন্নয়ন কাজ বন্ধ
  • Image

    Developed by:Sparkle IT