সম্পাদকীয় খাদ্যের অভাবে কোন জাতি মরে না, তার যথার্থ মৃত্যু ঘটে আনন্দের অভাবে। -রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর

বৈশ্বিক কর্মে যুবশক্তি

প্রকাশিত হয়েছে: ১৩-০৮-২০২০ ইং ০৭:৪০:৩৯ | সংবাদটি ৮৭ বার পঠিত
Image

বিশ্বের অন্যান্য দেশের মতো বাংলাদেশেও গতকাল পালিত হয় বিশ্ব যুব দিবস। এবার দিবসের প্রতিপাদ্য ছিলো ‘বৈশ্বিক কর্মে যুবশক্তি’। ১৯৯৯ সালে জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদে ১২ই আগস্টকে বিশ্ব যুব দিবস হিসেবে ঘোষণা করা হয়। এর আগে ১৯৯৫ সালের ১৪ই ডিসেম্বর জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদ ২০০০ সাল ও পরবর্তীকালের জন্য বিশ্ব যুবকর্ম পরিকল্পনা গ্রহণ করে। সামাজিক জীবনে যুবক ও যুব মহিলাদের সকল কর্মে অংশগ্রহণ, বিগত দশকে উন্নয়নে অংশগ্রহণ এবং শান্তির ক্ষেত্রে মৌলিক রাজনৈতিক অর্থনৈতিক, সামাজিক ও সাংস্কৃতিক পরিবর্তন যুব সমাজের অবস্থার পরিবর্তনের বিষয়ে বেসরকারি সংস্থার সঙ্গে ক্রমাগত সংলাপ ও পরামর্শ গ্রহণের বিষয়টি খুবই গুরুত্বপূর্ণ। মূলত এই সব বিষয়কে সামনে রেখেই আমাদের দেশে প্রতি বছর পালিত হয় বিশ্ব যুব দিবস।
প্রতিটি দেশের অপার সম্ভাবনাময় যুব শক্তিকে উন্নয়ন কর্মকান্ডে সম্পৃক্ত করার মাধ্যমে গণসচেতনতা সৃষ্টির জন্য জাতিসংঘ ১৯৮৫ সালে আন্তর্জাতিক যুববর্ষ পালন করে। এরই আলোকে বাংলাদেশেও পালিত হয় আন্তর্জাতিক যুববর্ষ। তাছাড়া, প্রতি বছর পয়লা নভেম্বর দেশে পালিত হয় জাতীয় যুব দিবস। বিশ্ব যুব দিবস উপলক্ষে জাতিসংঘ যেসব বিষয়ের ওপর গুরুত্ব দিচ্ছে, তার মধ্যে রয়েছে- শিক্ষা, কর্মসংস্থান, ক্ষুধা ও দারিদ্র্য, স্বাস্থ্য, পরিবেশ, মাদকের অপব্যবহার, কিশোর অপরাধ, অবসরের কর্মকান্ড, বালিকা, যুব মহিলা এবং সমাজ জীবনে যুবকদের কার্যকর অংশগ্রহণ। বিশ্বব্যাপী তরুণ ও যুবকদের সমৃদ্ধ নাগরিক হিসেবে গড়ে তোলাই হচ্ছে বিশ্ব যুব দিবসের উদ্দেশ্য। এই দিবসের মধ্য দিয়ে বিভিন্নভাবে তরুণ ও যুব সমাজকে সচেতন করা হয়। বাংলাদেশের জনসংখ্যার ৩০ ভাগই তরুণ ও যুবক। আর এরাই উন্নয়নের চাবিকাঠি। তরুণ সমাজকে উন্নয়নের মূল ধারায় আরও বেশি সম্পৃক্ত করা এবং সেই ব্যাপারে রাষ্ট্র ও পরিবারের সহযোগিতা বিশেষ প্রয়োজন। কিন্তু বাস্তবে তারা সেই সহযোগিতা সেভাবে পাচ্ছে না।
বিশ্বের জনগোষ্ঠীর মধ্যে যতো যুবক-যুবতী রয়েছে, তার অর্ধেকের বেশি রয়েছে এশিয়া প্যাসিফিক অঞ্চলে। বাংলাদেশে তরুণ তরুণীর সংখ্যা পাঁচ কোটির বেশি। আর বাংলাদেশসহ বিশ্বের তরুণ সমাজের অর্ধেকের বেশী বাস করে দারিদ্রসীমার নীচে। এদের অর্ধেক অক্ষরজ্ঞানহীন। এদের শিক্ষা ও চিকিৎসার সুযোগ তেমন একটা নেই। এদের বড় একটা অংশই কর্মহীন। বাংলাদেশে প্রতি বছর ২০ লাখ মানুষ শ্রম বাজারে প্রবেশ করছে। বিভিন্ন কারণে যুব সমাজের ৩০ শতাংশই আমাদের অর্থনীতিতে কোন অবদান রাখতে পারছে না। এছাড়া আমাদের যুব সমাজের একটা অংশ সমাজ বিরোধী কাজে জড়িয়ে পড়েছে; এদের অনেকে মাদকাসক্ত। আসল কথা হলো, দেশের চালিকাশক্তি হিসেবেই তরুণ সমাজকে গড়ে তুলতে হবে, আর এজন্য দরকার যথাযথ পদক্ষেপ।

 

শেয়ার করুন

Developed by:Sparkle IT