স্বাস্থ্য কুশল

রোগ ও ভেষজ পর্ব

সংকলনে: মুন্সি আব্দুল কাদির প্রকাশিত হয়েছে: ১৮-১২-২০১৭ ইং ০১:১৮:৫০ | সংবাদটি ২৬২ বার পঠিত

পিত্তরস নিঃসৃত হয়ে যদি কোন কারণে বাধাগ্রস্থ হয়ে অন্ত্রে যেতে না পেরে রক্তে মিশে যায় এবং শরীরের কোষ সমূহে শোষিত হয় তাকে জন্ডিস রোগ বলে । এ রোগ পিত্তপাথর বা পিত্তনালীল গায়ে ঘা হয়ে পথ সরু হয়ে যাওয়া যকৃত বা পাকস্থলীতে টিউমার হয়ে পথ ছোট হয়ে যাওয়া, খাদ্যে বা দেহে বিষক্রিুয়া, জীবানু ঘটিত কারণে পিত্তনালীল পথ বন্ধ হওয়ার ফলে জন্ডিস হতে পারে । যকৃত লোহিত কনিকা বেশী ভাঙ্গার ফলেও জন্ডিস হতে পারে । এ রোগে প্র¯্রাব ও চোখের রং হলুদ হয়ে যায় । অনেক সময় সারা শরীরই পীতবর্ণ হয়ে যায় । নি¤েœ জন্ডিস দূর করার একক/পরিচিত ভেষজ নিয়ে আলোকপাত করা হল।
মেহেদী: তাজা মেহেদী পাতা ১২ গ্রাম কচলে ১৮০ মিঃলিঃ পানিতে সেদ্ধ করে ছেকে নিতে হবে । এই পানি ভোরে খালিপেটে খেতে হবে ।
হলুদ : ৫/১০ ফোঁটা হতে ১ চা চামচ পর্যন্ত চিনি বা মধু মিশিয়ে খেতে হবে ।
তেলাকুচা :  ২/৩ চামচ তেলাকুচার মূলের রস নিয়মিত সকালে খেলে জন্ডিস নিরাময় হয় ।
লেবু : ১২-২৪ মিঃলিঃ লেবুর রস চিনি বা মধুসহ ২ বার সেব্য ।
আমলকি ও হরতকি: আমলকি ও হরতকি ভেজানো পানি ১ কাপ করে দিনে ২/৩ বার করে ২১ দিন খেতে হবে ।
পেঁপেঁ : কাচা ও পাকা পেঁপেঁ ২১ দিন বেশী করে খেতে হবে ।
কাকরল : কাকরল পাতার রস এক বা দেড় চা চামচ গরম করে একটু চিনি মিশিয়ে দিনে ২ বার খেতে হয়।
মানকচু : মানকচু কেটে রোদে শুকিয়ে গুঁড়ো করে ২ চা চামচ মানকচুর গুড়া ও এক চা চামচ চালের গুড়া পানিতে সিদ্ধ করে ঘন বার্লির মত করে ৩ ঘন্টা পরপর ২/৩ বার খেতে হবে।
নিম : ২৫-৩০ ফোটা নিমপাতার রস একটু মধু মিশিয়ে সকালে খালিপেটে খেতে হবে।
অড়হড়: রোগের প্রথম অবস্থায় ৩/৪ চামচ অড়হড় পাতার রস সামান্য গরম করে খেতে হয়।
মুলা : ৪০ গ্রাম মুলার রস ১ গ্রাম গুড় ১-২ বার ১০দিন পর্যšত খেতে হয়।
মুলার সবুজ পাতা : মুলার সবুজ পাতা থেতলে কাপড় দিয়ে রস ছেকে ৫০০ মিঃলিঃ পরিমান খেতে হবে। এতে ক্ষুধা বাড়বে, হজমও ভাল হবে। ৮-১০ দিনের মধ্যে সম্পূর্ণ সুস্থ হয়ে যাবে।
তিতে ঝিঙ্গে : তিতে ঝিঙ্গে জন্ডিসে খুব উপকারী। এর রস নাকে টেনে নিলে বিষাক্ত জিনিস বের হয়ে যাবে।
টমেটো : ২৫০ মিঃলিঃ তাজা টমেটোর রস সামান্য লবণ ও মরিচ সহ সকালে খেলে জন্ডিস ভাল হয়।
পেঁপেঁ পাতা: পেঁপেঁ পাতা পিষে ১ চা চামচ পরিমাণের সাথে অর্ধেক মধু মিশিয়ে ১-২ সপ্তাহ খেলে খুব উপকার হয়।
তুলসি : ১০/১৫ টি তুলসি পাতার রস ১২৫ মিঃলিঃ মুলার রসের সাথে মিশিয়ে ২-৩ সপ্তাহ খেলে জন্ডিস ভাল হয়ে যায়।
ধনে : ৫০০ মিঃলিঃ ধনের কাথ্বকে জাল দিয়ে এক তৃতীয়াংশে নামিয়ে ৩০-৬০ মিঃলিঃ করে দিনে ২ বার খেতে হবে।
আখ : সতেজ আখের রস সাথে অর্ধেক লেবুর রস মিশিয়ে দিনে ১ বার করে ২/৩ সপ্তাহ খেতে হবে।
লাউ : প্রাথমিক অবস্থায় লাউ এবং লাউপাতা ঝলসানো রস ৫/৬ দিন খাওয়ালেই কমে যাবে।
আনারস : তাজা আনারসের টুকরো মধুতে চুবিয়ে সারারাত ফ্রিজে ঠান্ডা করে খেলে লিভারের খুব উপকার হয়। এটি ১৫ দিন খেলে লিভারের কার্যক্ষমতা বাড়ে। ১০ গ্রাম আনারস ২ গ্রাম হলুদের গুড়ার সাথে ভালভাবে মিশিয়ে সাথে ৩ গ্রাম মিছরি সহ দিনে ২ বার খেলে জন্ডিস  সেরে যায়।
বার্লি: ১ কাপ বার্লি ৩ লিটার পানিতে সিদ্ধ করে সারা দিন একটু একটু খেতে হয়।
গনিয়ারী/গামবারী: পাতা ও ডাটা ১২-১৮ গ্রাম মিশিয়ে ৪ কাপ পানিতে সিদ্ধ করে ১ কাপ করতে হবে। তারপর ছেকে নিয়ে প্রতিদিন ২ বার খেলে জন্ডিস সেরে যাবে।
বৈচি : পাকা বৈচি ফল চটকে রস বের করে ২ চামচ করে খাওয়ালে ২-৩ দিনের মধ্যে জন্ডিস ভাল হয়ে যাবে।
বাবলা ফুল : বাবলা ফুল ৬ গ্রাম ও সাদা জিরা ৬ গ্রাম ১২০ মিঃলিঃ পানির মধ্যে সারারাত ভিজিয়ে রেখে ভোরে ছেকে খালি পেটে পান করতে হবে।
শাপলা ফুল : শাপলা ফুল ৬ গ্রাম, ক্ষেতপাপড়া ৬ গ্রাম রেউচিনি ৬ গ্রাম ২৫০ মিঃলিঃ পানিতে সিদ্ধ করে ছেকে নিন। দিনে ২ বার পান করুন।
কাসনী মূল : কাসনী মূল, কাসনী বীজ ও শুকনো কাকমাচি প্রতিটি ৬ গ্রাম করে ১৮০ মিঃলিঃ পানিতে সিদ্ধ করতে হবে। তারপর ছেকে নিয়ে দিনে ২ বার সেবন হবে।
ড়: প্রতিদিন গুড়ের সাথে হরিতকি সেবন করলে জন্ডিস সেরে যায়।
ৃতকুমারী : ঘৃতকুমারীর জেল সামান্য পরিমাণ হলুদ ও ধনের গুড়ো মিশিয়ে খেলে উপকার হয়।
নিশাদল : নিশাদল ২৫০ মিঃগ্রাম মূলার রস ২৫ মিঃলিঃ একত্রে মিশিয়ে দিনে ২ বার সেবন করতে হবে।
যষ্টিমধু : যষ্টিমধু, কাসনী বীজ ও বিটলবন প্রতিটি সমপরিমাণ মিশিয়ে চূর্ণ করে নিতে হবে। ৩ গ্রাম করে চূর্ন পানি সহ দিনে ২-৩ বার সেব্য। 

শেয়ার করুন
স্বাস্থ্য কুশল এর আরো সংবাদ
  •   নীরব ঘাতক রক্তচাপ
  • গর্ভাবস্থায় কী খাবেন
  •   মাতৃস্বাস্থ্য ও মাতৃমৃত্যু কিছু কথা
  • সচেতন হলেই প্রতিরোধ ৬০ শতাংশ কিডনী রোগ
  •   হৃদরোগীদের খাবার-দাবার
  • ঘামাচি থেকে মুক্তির উপায়
  • মুখে ঘা হলে করণীয়
  • পায়ের গোড়ালি ব্যথায় কী করবেন
  • নীরব রোগ হৃদরোগ
  • পরিচিত ভেষজের মাধ্যমে অর্শের চিকিৎসা
  • অনিদ্রার অন্যতম কারণ বিষন্নতা
  • রক্তশূন্যতায় করণীয়
  • চোখে যখন অ্যালার্জি
  • স্বাস্থ্যঝুঁকি থেকে বাঁচার ১০টি উপায়
  • রোগ প্রতিরোধে লেবু
  •  স্মৃতিশক্তি ও মস্তিষ্কের যত্ন নিন
  • শিশুর উচ্চতা কমবেশি কেন হয়
  • গরমে পানি খাবেন কতটুকু ডা. তানজিয়া নাহার তিনা
  • অধূমপায়ীদের কি ফুসফুসের রোগ হয়?
  • বিষন্নতা একটি মানসিক রোগ
  • Developed by: Sparkle IT