শিশু মেলা

কবিতা

প্রকাশিত হয়েছে: ০৪-০১-২০১৮ ইং ০০:০৯:১৮ | সংবাদটি ১৪৫ বার পঠিত

ফুটপাতগুলো
বেলাল আহমদ চৌধুরী
রিকশায় চড়লে ঝাঁকি-ঝুঁকি
মাঝায় বাড়ে ব্যথা,
মনের দুঃখ বলব কারে
ফুটপাতগুলো রেন্ট-এ কারে ঢাকা।

বই উৎসব
এম আশরাফ আলী
খোকা খুকু আয় ছুটে আয়
বিদ্যালয়ের মাঠ,
নতুন বইয়ের গন্ধে মাতে
নওশিশুদের হাট।

বইয়ের ভিতর আসল খবর
নতুন দিনের সুখ,
সুখ পাখিটা ধরব বলে
আমরাতো উন্মুখ।

বইটা রাখি বুকের ভিতর
আলোয় ভাসে মন,
সেই আলোতে পাড়ি দিব
আঁধার পুরের বন।

আয় ছুটে আয় খোকাখুকু
পাইতে বইয়ের স্বাদ,
এগিয়ে নেব এই পৃথিবী
ভেঙ্গে সকল বাঁধ।

ছাত্রী
নাদিয়া ইকবাল লাকি
আমি একজন ছাত্রী,
পড়ি সারা রাত্রি।
যদি পড়ি বাংলা
যেতে চাই লংলা।
যদি পড়ি ইংরেজি
হয়ে যাই ব্যাঙ্গাচি।
অংক তো দূরের কথা
শুনলেই মাথা ব্যথা।
যদি পড়ি ইতিহাস
হয়ে যাই পাতিহাঁস।
যদি পড়ি ভুগোল
হয়ে যাই পাগল।
যদি পড়ি ধর্ম
ভুলে যাই কর্ম।
যদি পড়ি সমাজ
ভুলে যাই নামাজ।
যদি পড়ি বিজ্ঞান
হয়ে যাই অজ্ঞান।

নীতি ছাড়া রাজনীতি
শাহ ফয়সল জামাল
রাজনীতিতে নেই যে নীতি
বিলিন যেন আজ
কাদা ছুঁড়া, গলাবাজী
শুধু তাদের কাজ।
কথায় কাজে পাইনা খুঁজে
কোন রকম মিল
দেখলে তাদের ইচ্ছে হয়
ছুঁড়ে মারি ঢিল।
সন্ত্রাসীদের মদদদাতা
লজ্জার নাই লেশ
সুযোগ পেলে দেবে তারা
বিক্রি করে দেশ।
আছে তারা মহা সুখে
করে হরিলুট
আবার তাদের দেখা পাবো
আসে যদি ভোট।

ভালোবাসা
আব্দুল্লাহ আল-মাহমুদ
মাটির চেয়ে সোনার মূল্য যেমন
একার চেয়ে ভালোবাসা তেমন।
মিশামিশিতে প্রাপ্তি-প্রত্যাশা
আপনা আপনি আশা-ভালোবাসা।
জন্ম থেকে সবাই সামাজিক জীব
সৃষ্টি থেকে ভালোবাসা সজিব।
একে একে দুই সূত্র যায় মিলে
জল মিল খাল বিলে দিল মিল সরলে।
দম মানে শ্বাস পোশাক মানে লেবাস
আর ভালোবাসা মানে তো বিশ্বাস।

রোদমেশা আলোতে
মো. শানুর হোসেন
পার হয়ে গেছে গ্রহণের কাল
এসো রোদমেশা আলোতে
নবান্ন করো- অঘনে জ্বালিয়ে দীপাবলী
ঘন কালোতে।
এই সুসময় চিনিনিতে হবে
বুনে দিতে হবে বীজকে
পালির আদরে পাতারা জাগবে
কুড়ি মেলে দেবে নিজেকে।

দু’টি ছড়া
কৌশিক লস্কর

পেপে গাছে দোয়েল পাখি
করে নাচানাচি,
ঘরের মাঝে বন্দী আমি
কেমন করে বাচি।

ফুলের বনে প্রজাপতি
করে উড়াউড়ি।
ছাদের উপর খোকা বসে
আকাশে উড়ায় ঘুড়ি।

জীবনসাথী
মোঃ মনজুর আলম
তুমি আমার আঁধার ঘরের
জোনাক দেয়া আলো,
তুমি ছাড়া একটি দিনও
কাটে নাতো ভালো।

তুমি আমার নয়ন তারা
তুমি আমার সাথী,
সুখে দুখে প্রেম বিলায়ে
আছো দিবারাতি।

তুমি হীনা শূন্য বুকে
ছিলেম মরুভূমি,
উতাল মনে যুগল ক্ষণে
হিমেল হাওয়া তুমি।

ধূসর জীবন শুভ্র ছায়ায়
ভরে দিলে প্রাণ,
তুমি চোখে তুমি বুকে
খোদার সেরা দান।

পাখিদের নির্বাচন
চন্দ্র শেখর দেব
শালিক এলো মালিক হয়ে
শুনো যত ছোট পাখিরা
হবে এবার বনে নির্বাচন
সেই আনন্দে হলাম আত্মহারা।

মতামত দিতে পারো আমার অনুকূলে
সুখে দুখে থাকব সবাই মিলে
হয়েছে ভাল খাবার আয়োজন
খেয়ে দেয়ে চলো মিছিলে।

টিয়া পাখি বলে এবার শোনেন সবাই
আমাদেরও বুঝার আছে পরে জানাই
হুট করে কোন কথা কাউকে দেবো না
অনেক ক্ষতি হয়েছে মেনে নেবো না।

ব্যঙ্গ করে শালিক বলে, তবে শুনো
আমার চেয়ে ভাল আর নেই কোন
এত করে বলছি দেখো চিন্তা করে
না হয় পস্তাবে কিন্তু নির্বাচন পরে।

সাদিত এবং অদিত
আহমদ জামাল উদ্দিন মিনু
সাদিত আর অদিতের
সমান চালাকি,
নাওয়া খাওয়ায় সর্বদায়ী
দেয় দাদীকে ফাঁকি।
সাদিত বলে আম্মু ভাল
দাদী খুব খারাপ।
অদিতেরও একই কথা,
ওরে বাপরে বাপ।
দাদী এলেন কঞ্চি হাতে
সাদিত বলে ভাই
অদিত বলে চলনারে ভাই
কোথায়ও লুকাই।

তুলি নাচে তাক ধিনা ধিন
মোহাম্মদ এনামূল কবীর এনু
তাক্ ধিনা ধিন তুলি নাচে
নাচে মনের সুখে
নাচের তোড়ে সবাই ভাসে
সাধ্য কী তায় রুখে?  

ছড়া ভালোবাসে মেয়ে
ভালোবাসে গান,
আরও ভালোবাসে সে যে
জুড়াতে সব প্রাণ।

দেশের জন্য যুদ্ধ
আদনান আহমদ
আজ মনের ভেতর জেগেছে এক আগুন জরা
গাইবে নাকি? কন্ঠ ধর সবাই মিলে গাই।
অত্যাচারকে ভয় করি না আমরা এগিয়ে চলি
গণমানুষের ভালোবাসা নিয়ে আমরা যুদ্ধ করি।
অনেক সহেছি চাবুকের বাড়ি অনেক সহেছি গুলি
রক্তের দামে বিজয় আনবো ওয়াদা করে এসেছি।
আমরা সবাই এক হয়েছি নেই কো কোনো ভয়
স্বাধীন দেশের জন্য আমরা মৃত্যু করব জয়।
স্বাধীনতা চাই, স্বাধীনতা চাই এটাই মোদের দাবি
যুদ্ধ করে আমরা সবাই বিজয় আনতে পারি।

মায়ের মতন আপনজন
রোজি বেগম
মায়ের মতন কোথায় পাব এতো আপনজন
মা হলেন দেশ জননী সবার প্রিয়জন।
মা আমায় ভীষণ ভালোবাসেন
আমায় নিয়ে গর্ব করে সাত সমুদ্রেরে ভাসেন
মা আমার স্বর্গ সুখের
হাজার জনের শ্রেষ্ঠ যে জন।
মা আমার মা
মা আমায় বলেন, দেশকে ভালোবাসো।
দেশের জন্য তুমি মানুষ হয়ে আসো।
মায়ের মতন কোথায় পাব এতো আপনজন
মা থাকলে পরে আমি থাকি সুখে।

সবুজ শ্যামল পল্লী
সাজিদ মাহমুদ
সবুজ শ্যামল পল্লী আমার
সবার চেয়ে সেরা।
চারিদিকে আছে যে তার
সবুজের ছায়া ঘেরা।

সবুজ শ্যামল পল্লী আমার
শান্ত নদীর বুকে।
সবার চেয়ে সেরা সে যে
বিশ্ববাসীর চোখে।

সবুজ শ্যামল পল্লী আমার
সবুজেরই হাট।
তারই মাঝে আছে অনেক
মনকাড়া সব মাঠ।

দেখলে তারে নয়ন জুড়ায়
শান্ত হয় যে বুক।
সবুজ শ্যামল পল্লী আমার
আমার মায়ের সুখ।

বৈশাখী মেঘ
দুলাল শর্মা চৌধুরী
তোমার আকাশে
পূর্ণিমা চাঁদের আলো
আমার আকাশ
বৈশাখী মেঘে কালো,
তোমার পৃথিবী
আলোয় ভরা
আমার পৃথিবী
আঁধারে ঘেরা।
তোমার জীবন
ভরা ফুলে ফুলে
আমার জীবন
কাঁটা পলে পলে।
তোমার ভুবন
সুমধুর গানে গানে
আমার ভুবন
বিরহী সুর, বাজে প্রাণে।

শিক্ষার আলো
এইচ এম আরশ আলী
থাকতে বেলা শিক্ষার আলোয়
গড় সফল জীবন
শিক্ষাহীন হয় না বড়
জ্ঞানী-গুণীজন।

শিক্ষা হল পরম ধন
করে যারা অর্জন
পৃথিবীতে শ্রেষ্ঠ তারা
ধন্য তাদের ভুবন।

শিক্ষার আগুসারে
নাই যার মন
অজ্ঞ-অলস তারা
অসার জীবন।

শিক্ষাবিহীন ব্যর্থ জীবন
অনুতপ্ত মন
মূর্খতার অভিশাপে
জ্বালায় সর্বক্ষণ।

আর নয় অবহেলা-আলস্য
চল সবাই চল ভাই
আলোকিত মানুষ হতে
শিক্ষার বিকল্প নাই।

মা
মো. ছাবির উদ্দিন
মা নামটি এত মধুর তার তুলনা নাই
মায়ের মুখ দেখিলেই সব দুঃখ ভুলে যাই।
চোখের আড়াল হলে মা অন্তর পুড়ে হয় ছাই
দিবা-নিশি কেঁদে কেঁদে আমি জলে বুক ভাসাই।
খোদা তোমার কাছে ফরিয়াদ জানাই
সারা জীবন যেন ঐ মুখখানি দেখতে পাই।
ছাবির কান্দে ব্যথার ছন্দে যদি এ রতœ হারাই
আদর করে সদায় মোরে কে দেবে বুকে ঠাঁই।




স্বাধীনতা
মুন্সি আব্দুল কাদির

পুব আকাশে ওঠে ঐ রক্তিম সূর্য
বাজে দেখ দামামা বাজে রণ তুর্য
মারে কত ভাইবোন মারি মোরা হানাদার
সাহায্য করে ওদের দেশী কিছু তাবেদার

কত বুক খালি হয় লাল পড়ে গড়িয়ে
না বুঝার ভান করে যেতে চায় এড়িয়ে
নয় মাসের যুদ্ধে কত খালি ঘরদোর
কত মুছে ঠিকানা কত যায় অচিনপুর

থেমে নেই চেষ্টা থেমে নেই যুদ্ধ
বুক খালি করেও তো কত মা মুগ্ধ

খানাহীন দানা নেই ভাগাবই হানাদার
ঢেলে ঢেলে রক্ত আনবই অধিকার

সবুজ এই দেশের বুক রক্তে লালেলাল
ভাই বোন মা বাবার লাশে ভরা বিল খাল

পতপত করে ওড়ে লাল সবুজ পতাকা
মান রাখ স্বাধীনতার, কে মারে শলাকা।


শেয়ার করুন

Developed by: Sparkle IT