বিশ্বনাথে বাস-অটোরিক্সা সংঘর্ষে যুবক নিহত

বিশ্বনাথ (সিলেট) থেকে নিজস্ব সংবাদদাতা:
বিশ্বনাথে যাত্রীবাহী বাস ও অটোরিক্সার মুখোমুখি সংঘর্ষে সাইদুল ইসলাম (২৩) নামে এক যুবক ঘটনাস্থলে প্রাণ হারিয়েছেন। তিনি উপজেলার দৌলতপুর ইউনিয়নের দক্ষিণ দশপাইকা গ্রামের আবদুস সোবহানের পুত্র।
গতকাল বুধবার দুপুর ১২টার দিকে বিশ্বনাথ-রামপাশা সড়কের নরশিংপুর নামক স্থানে এই দুর্ঘটনাটি ঘটে। দুর্ঘটনায় অটোরিক্সার চালক একই ইউনিয়নের মিরগাঁও গ্রামের ময়না মিয়ার পুত্র আবদুল মতিন (২৭) ও অটোরিক্সা যাত্রী দশপাইকা গ্রামের ছমক আলীর পুত্র কবির হোসেন (২৬) গুরুতর আহত হন। তাদেরকে সিলেট এমএজি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।
প্রত্যক্ষদর্শী সূত্র জানায়, গতকাল বুধবার দুপুরে স্থানীয় দশপাইকা অটোরিক্সা স্ট্যান্ড থেকে বিশ্বনাথ-রামপাশা সড়ক দিয়ে সাইদুল ও কবিরকে নিয়ে বিশ্বনাথ সদরে আসছিল সিএনজিচালিত নম্বরবিহীন অটোরিক্সাটি। ওই সড়কের নরশিংপুর নামক স্থানে এসে সামনে থাকা অপর অটোরিক্সাকে ওভারটেক করতে গিয়ে বিপরীত দিক থেকে আসা জুবায়ের পরিবহন নামক একটি যাত্রীবাহী বাসের (নং-সিলেট-জ ০৪-০০৭৯) সাথে ধাক্কা খেয়ে দুমড়ে মুচড়ে যায় অটোরিক্সাটি। ঘটনাস্থলেই নিহত হন যাত্রী সাইদুল ইসলাম। গুরুতর আহত হন চালক মতিন ও অপর যাত্রী কবির।
খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে নিহত সাইদুলের লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্যে সিলেট ওসমানী হাসপাতালের মর্গে প্রেরণ করে এবং ঘাতক বাস ও নম্বরবিহীন অটোরিক্সা জব্দ করে থানায় নিয়ে আসে। গুরুতর আহত মতিন ও কবিরকে সিলেট ওসমানী হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। তাদের অবস্থা আশংকাজনক। বিশ্বনাথ থানার ওসি শামীম মুসা বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, বাস ও অটোরিক্সা জব্দ করা হয়েছে। তবে, বাসের চালক ও হেলপার পালিয়ে গেছে।