সম্পাদকীয় বিচার ক্ষেত্রে ঘুষ গ্রহণকারী এবং প্রদানকারীর ওপর আল্লাহর অভিশাপ। -মুনতাকা।

জলাশয় খননের উদ্যোগ

প্রকাশিত হয়েছে: ২৭-১০-২০২০ ইং ০৩:৩০:৫৯ | সংবাদটি ১০৯ বার পঠিত

এবার জলাশয় খননের উদ্যোগ নিয়েছে সরকার। দেশের ভরাট হয়ে যাওয়া জলাশয়গুলো পুনর্খনন করা হবে। এর আওতায় পুকুর, দিঘী, বিল, হাওর প্রভৃতি জলাশয় পুনর্খনন করা হবে। এতে জলাশয়গুলোতে সারা বছরই প্রযুক্তি নির্ভর চাষাবাদে মাছের উৎপাদন বৃদ্ধি পাবে। গ্রামীণ কর্মসংস্থানও তৈরি হবে। এতে জলাশয়গুলোর ইজারামূল্য বৃদ্ধি পাবে। বাড়বে সরকারের রাজস্ব আয়। প্রকল্পের আওতায় দেশের ৬১ জেলার তিনশ’ ৪৯ উপজেলার প্রায় দুই হাজার ছয়’শ হেক্টর আয়তনের তালিকাভুক্ত পতিত ও অব্যবহৃত বিভিন্ন শ্রেণির জলাশয় পুনর্খননের মাধ্যমে মৎস্যচাষ উপযোগী করা হবে। যেখানে দশ হাজার মেট্রিক টনের বেশি অতিরিক্ত মাছ উৎপাদনসহ প্রত্যক্ষ কর্মসংস্থান হবে প্রায় ২০ হাজার মানুষের। খবরটি একটি জাতীয় দৈনিকে সাম্প্রতি প্রকাশিত হয়।
ভরাট হয়ে যাচ্ছে আমাদের জলাশয়। দেশের সর্বত্র পুকুর, ডোবা, জলাশয়গুলো ভরাট হয়ে যাওয়ায় মাছের উৎপাদন কমেছে। এক জরিপে বলা হয়, গত চার দশকে দেশের জলাভূমি কমপক্ষে ৬৫ লাখ হেক্টর হ্রাস পেয়েছে। স্বাধীনতার পর থেকে এ পর্যন্ত দেশে জলাভূমি কমেছে কমপক্ষে ৭০ ভাগ। ১৯৭১ সালে দেশে জলাভূমি ছিলো ৯৩ লাখ হেক্টর। বর্তমানে জলাভূমি রয়েছে ২৮ লাখ হেক্টরের কম। উল্লেখ করা যেতে পারে, আমাদের সংবিধানে দেশে কৃষি জমি, বনভূমি, বসতবাড়ি ছাড়া কোন জলাভূমি যা জলাশয়ের উল্লেখ নেই। ফলে বিদ্যমান জলাভূমি নিয়ে কোন জটিলতা দেখা দিলেও কোন আইনী সহায়তা পাওয়া যায় না। আর সংবিধানের সুনির্দিষ্ট উল্লেখ না থাকায় এই জলাভূমি বেদখল করাও সহজ হয়ে পড়েছে। তাই প্রভাবশালীরা একে একে দখল করে নিচ্ছে জলাভূমি। অতিমাত্রায় কৃষি জমি আবাদের লক্ষ থেকেও জলাভূমির ওপর চাপ পড়েছে। অনেক সময় আবাসনসহ অন্যান্য স্থাপনা নির্মাণের জন্যও ভরাট করা হচ্ছে জলাভূমি।
আমাদের দেশের হাওর, নদী, খাল, বিল, পুকুর ইত্যাদি জলাশয়ের মিঠাপানি প্রকৃতির অপূর্ব দান। এই পানিতে উৎপাদিত হয় রকমারী জাত ও স্বাদের মাছ। অতীতে দেশের অভ্যন্তরীণ মৎস্য উৎপাদনের প্রায় ৯০ শতাংশই আহরিত হতো এই সব জলাশয় থেকে। কিন্তু ক্রমাগত সেইসব জলাশয় সংকুচিত হয়ে এসেছে। তার পরেও সরকারের সময়োপযোগী পদক্ষেপের কারণে সম্প্রতি মৎস্য চাষে যুগান্তকারী অগ্রগতি অর্জিত হয়েছে। জলাভূমি সংকুচিত হওয়ার পরও বিদ্যমান জলাভূমিতে ৫৮টি মৎস্য অভয়াশ্রম গড়ে তোলা সম্ভব হয়েছে। সেই সঙ্গে ভরাট হয়ে যাওয়া জলাশয় পুনর্খননের উদ্যোগ সফল হলে দেশীয় জাতের মৎস্য উৎপাদন আশাতীত বৃদ্ধি পাবে বলে আশা করা যাচ্ছে।

 

শেয়ার করুন

Developed by: Sparkle IT