প্রথম পাতা

নগরীতে বেওয়ারিশ কুকুরের উপদ্রব

সুনীল সিংহ প্রকাশিত হয়েছে: ২২-১১-২০২০ ইং ০২:৩১:২০ | সংবাদটি ১৭১ বার পঠিত

সিটি কর্পোরেশন এলাকায় গত কিছুদিন ধরে বেওয়ারিশ কুকুরের উপদ্রব শুরু হয়েছে। রাত বাড়ার সাথে সাথে বেওয়ারিশ কুকুরের উপদ্রবও বাড়তে থাকে। কুকুরগুলো যেখানেই অবস্থান করে সেখানে দলবদ্ধভাবে থাকে। রাতের বেলা অনেক লোক কুকুরের তাড়া খেয়ে দুর্ঘটনার কবলে পড়েন। এছাড়া, নগরীর বিভিন্ন এলাকায় ভোরে ফজরের নামাজের মুসল্লী ও সকালবেলা বের হওয়া লোক তাদের আক্রমণের শিকার হন।
সরেজমিনে দেখা যায়, কুকুর দলবেধে নগরীর বন্দরবাজার, জিন্দাবাজার, মাছুদিঘীরপাড়, মির্জাজাঙ্গাল, রিকাবীবাজার, চৌহাট্টা, মিরাবাজার, উপশহর, সোবহানীঘাট, শিবগঞ্জ, টিলাগড়, বালুচর, আম্বরখানা, সুবিদবাজার, জালালাবাদ আ/এ, পশ্চিম পীরমহল্লা, মিরের ময়দান, পাঠানটুলা, মদিনা মার্কেট, বাগবাড়ি, দক্ষিণ সুরমার কদমতলী কেন্দ্রীয় বাস টার্মিনাল, ক্বীনব্রীজের উত্তর ও দক্ষিণ মোড়, বাবনা মোড়, স্টেশন রোডসহ নগর জুড়ে ঘুরে বেড়ায়।
ওই সব এলাকায় রাতের বেলা কুকুরের ভয়ে বাসার বাইরে যেতে সাহস পান না অনেকে। বেওয়ারিশ কুকুরের দল পথচারীদের আক্রমণ করছে। কোন কোন সময় কুকুর দল চলন্ত মোটর সাইকেল, সিএনজি অটোরিকশা অথবা রিকশার পিছু নেয় এবং ঘেউ ঘেউ করে তাড়া করে।
এদিকে, সিলেট সিটি কর্পোরেশন সূত্রে জানা গেছে, ২০১৮ সালের শেষে ও ২০১৯ সালের প্রথম দিকে প্রায় ১৭শ’ বেওয়ারিশ কুকুরকে ভ্যাকসিনের প্রথম ডোজ দেয়া হয়েছিল। পরে আর সে কার্যক্রম করা হয়ে ওঠেনি। সম্প্রতি নগরীর পূর্ব মিরাবাজার খারপাড়া এলাকায় ভোরে ফজরের নামাজের মুসল্লী ও সকালবেলা বের হওয়া লোক তাদের আক্রমণের শিকার হন। গত শুক্রবার সকাল ৭টায় বাবা মার সাথে হাঁটতে বের হওয়া একটি শিশুপুত্র জাওয়াদ (১১ কে কুকুর কামড় দেয়।
বাচ্চার বাবা নগরীর জিন্দাবাজারস্থ রাজাম্যানশনের একজন ব্যবসায়ী। তার নাম মোহাম্মদ লুৎফুর রহমান। তিনি বেওয়ারিশ কুকুর নিধনের জন্য সিটি কর্পোরেশনকে অনুরোধ করেছেন। উল্লেখ্য, তিনি খারপাড়া মিতালী ২৫/আই এ বসবাস করেন। খাঁরপাড়া মিতালী সমাজকল্যাণ পরিষদের সাধারণ সম্পাদক ও বাংলাদেশ ৮ ৩ এর পৃ. ৩ ক. দেখুন


ব্যাংকের যুগ্ম পরিচালক জাবেদ আহমদ এ ঘটনায় উদ্বেগ প্রকাশ করে বেওয়ারিশ কুকুর নিধনে কার্যকর ব্যবস্থা নিতে সংশ্লিষ্টদের প্রতি অনুরোধ জানান।
নগরবাসী জানায়, বেশ ক’বছর আগে সিটি কর্পোরেশনের উদ্যোগে বেওয়ারিশ কুকুর নিধনের কার্যক্রম চোখে পড়তো। বর্তমানে আর সে রকম কার্যক্রম চোখে পড়ে না। এ কারণে দিন দিন নগরীতে বেওয়ারিশ কুকুরের সংখ্যা বাড়ছে।
তারা অভিযোগ করে বলেন, বেওয়ারিশ কুকুরের উৎপাতে বাসিন্দারা অতিষ্ঠ হয়ে পড়েছেন। গত ছয় মাসে কুকুরের আক্রমণের শিকার হয়েছে শিশুসহ অনেক লোক। তাদের সবাইকেই চিকিৎসা নিতে হয়েছে। তারা কুকুরের উৎপাত বন্ধে সিটি কর্পোরেশনের অভিযান দাবি করেন।
কয়েকজন ভুক্তভোগী জানান, কুকুরের প্রজননের সময় ঘনিয়ে আসার সঙ্গে সঙ্গে নগরীতে কুকুরের আনাগোনা বৃদ্ধি পেয়েছে। কিন্তু অমানবিক হওয়ায় উচ্চ আদালতের নির্দেশে ২০১২ সাল থেকে সারা দেশে কুকুর নিধন বন্ধ রয়েছে। ফলে নগর কর্তৃপক্ষ কুকুর নিধন করতে পারছে না।
সিলেট সিটি কর্পোরেশনের প্রধান স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডা. মো. জাহিদুল ইসলাম জানান, বছর দেড়েক আগে প্রায় ১৭শ বেওয়ারিশ কুকুরকে ভ্যাকসিনের প্রথম ডোজ দেয়া হয়েছিল। ২০২০ সালের প্রথম দিকে বেওয়ারিশ কুকুরকে দ্বিতীয় ডোজ দেয়ার কথা ছিল। কিন্তু বর্তমান বৈশ্বিক মহামারি করোনাভাইরাস মার্চ মাসের শেষে প্রকট আকার ধারণ করায় সারা দেশ লকডাউনে চলে যায়। ফলে ভ্যাকসিনের দ্বিতীয় ডোজ আর দেয়া হয়ে উঠেনি।
তিনি আরো জানান, ভ্যাকসিন দেয়ার কার্যক্রম ব্যয় বহুল। আগের কার্যক্রম বিদেশী সাহায্য সংস্থার সহায়তায় হয়েছিল। দ্বিতীয় ডোজ দেয়ার মেয়াদ পার হওয়ায় সাহায্য সংস্থা তাদের কার্যক্রম শেষ করে নেন। তাই ভ্যাকসিনের দ্বিতীয় ডোজ দেয়ার সম্ভাবনা আর নেই বলে তিনি মন্তব্য করেন।
সিটি কর্পোরেশন সংশ্লিষ্ট এক সূত্র জানায়, কুকুর নিধন করা হচ্ছে না এটা সঠিক নয়, পরিবেশের ভারসাম্য রক্ষা করার জন্য পরিবেশ অধিদপ্তর থেকে কুকুর নিধনের ওপর নিষেধাজ্ঞা থাকার কারণে নিধন কর্মসূচি আপাতত বন্ধ রয়েছে। তবে কুকুরে কামড়ানো লোকজনের জন্য ভ্যাকসিন সহজলভ্য করা হয়েছে।
পশুপ্রেমী সংগঠন ‘ভূমি সন্তান বাংলাদেশ’ এর সমন্বয়ক আশরাফুল কবির জানান, বেওয়ারিশ কুকুরের সংখ্যা বাড়ছে এটা ঠিক। তবে তা নিয়ন্ত্রণে সিলেট সিটি কর্পোরেশন (সিসিক) এর সুষ্ঠু পরিকল্পনার অভাবকে দায়ী করেন তিনি। ভ্যাকসিনেশন কার্যক্রম ও কুকুরের বন্ধ্যাত্বকরণ কার্যক্রম চালু থাকলে কুকুর বৃদ্ধি নিয়ন্ত্রণ হতো, পাশাপাশি পরিবেশের ভারসাম্য রক্ষা করা যেতো।

 

শেয়ার করুন
প্রথম পাতা এর আরো সংবাদ
  • সামাজিক অবক্ষয় রোধে ইসলামি সংস্কৃতির ভূমিকা গুরুত্বপূর্ণ:: দানবীর ড. রাগীব আলী
  • ক্রীড়া সংগঠক আব্দুল মালিক রাজার ইন্তেকাল
  • সিলেটের অর্থনীতিকে এগিয়ে নিতে সকলকে একযোগে কাজ করতে হবে ॥ শাবি ভিসি
  • হাউজিং এস্টেটে একই রাতে তিন বাসায় চুরি
  • দু’দশক ধরে জীর্ণ কুটিরে চলছে বড়লেখা পৌরসভার কার্যক্রম!
  • দিরাই ও শায়েস্তাগঞ্জে নৌকার নতুন মাঝি
  • বিশ্বনাথে সুরমা নদীর তীর সংরক্ষণ প্রকল্পের কাজ শুরু
  • পদ্মা সেতুর ৩৯তম স্প্যান স্থাপন, দৃশ্যমান ৫ দশমিক ৮৫০ কিলোমিটার
  • চট্টগ্রামে মাহফিলে যাননি মাওলানা মামুনুল হক
  • গোলাপগঞ্জ উপজেলা বিএনপি নেতা উজ্জল গ্রেফতার
  • চালিবন্দরে গুদামে অগ্নিকান্ড ৫ লক্ষাধিক টাকার ক্ষতি
  • সিলেটে আটক মানব পাচারকারী বাবুলকে সিআইডির কাছে হস্তান্তর
  • বিশ্বম্ভরপুরে পল্লী বিদ্যুতের ট্রান্সফরমার চুরি
  • দরবস্তে ‘অবৈধ’ রয়েলিটি আদায় করতে না পেরে ট্রাকের বালু ফেলে দেওয়া হচ্ছে
  • পররাষ্ট্রমন্ত্রীর সুস্থতা কামনায় জেলা ও মহানগর আ’লীগের দোয়া মাহফিল
  • মাত্র ১ জন চিকিৎসক দিয়ে চলছে শায়েস্তাগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স
  • দিরাই পৌরসভা নির্বাচনে বিএনপি প্রার্থী ইকবাল হোসেন চৌধুরী
  • লিডিং ইউনিভার্সিটিতে শেক্সপিয়ার বিষয়ক সেমিনার অনুষ্ঠিত
  • বরেণ্য অভিনেতা ও সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব আলী যাকের আর নেই
  • ছাতকের পল্লীতে দু’পক্ষের সংঘর্ষে আহত অর্ধশতাধিক
  • Developed by: Sparkle IT